Categories
শিক্ষাঙ্গন সারাদেশ

ওবায়দুল কাদেরকে নিয়ে কটূক্তি, বিশ্ববিদ্যালয় কর্মকর্তা আটক

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরকে নিয়ে ফেসবুকে কটূক্তি করার অভিযোগে নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (নোবিপ্রবি) এক কর্মকর্তার বিরুদ্ধে থানায় লিখিত অভিযোগের পর তাকে আটক করা হয়েছে।

১৯ জুন শনিবার দুপুর ২টার দিকে উপজেলার ঘোষবাগ ইউনিয়নের শাহাজিরহাট সংলগ্ন এলাকা থেকে তাকে জিজ্ঞাসাবাদো জন্য আটক করে পুলিশ।

আটককৃত জিয়াউর রহমান সম্রাট (৩৫) নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (নোবিপ্রবি) পরিকল্পনা উন্নয়ন ও ওয়ার্কস (ডিপিডি) ডিপার্টমেন্টের সহকারী পরিচালক। সে কবিরহাট উপজেলার ঘোষবাগ ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের উত্তমপুর লামছি গ্রামের ইউছুফ ভূঁইয়ার ছেলে।

কবিরহাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) টমাস বড়ুয়া বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, সম্রাটকে লিখিত অভিযোগের আলোকে প্রাথমিকভাবে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে। এ বিষয়ে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে। জিজ্ঞাসাবাদ শেষ হওয়া ছাড়া এ বিষয়ে এখন আর কোন মন্তব্য করা যাচ্ছে না। জিজ্ঞাসাবাদ শেষে এ বিষয়ে বিস্তারিত জানানো হবে।

এরআগে, গতকাল শুক্রবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে ওবায়দুল কাদেরকে নিয়ে ফেসবুকে কটূক্তি করার অভিযোগে জিয়াউর রহমান সম্রাটের বিরুদ্ধে কবিরহাট থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ও উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. নজরুল ইসলাম (৪৮)।

লিখিত অভিযোগে বলা হয়েছে, গত ১৭ জুন রাত ১২টা ৮ মিনিটের দিকে নোবিপ্রবির কর্মকর্তা জিয়াউর রহমান সম্রাট তার নিজের ফেসবুক অ্যাকাউন্ট (সম্রাট এসএফ) থেকে ওবায়দুল কাদেরকে নিয়ে কুরুচিপূর্ণ আজেবাজে স্ট্যাটাস দিয়ে তার দীর্ঘদিনের অর্জিত সম্মান ক্ষুণ্ন করেছেন। বিবাদী নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী পরিচালক পদে কর্মরত থাকা অবস্থায় গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মন্ত্রীর বিরুদ্ধে কুরুচিপূর্ণ স্ট্যাটাস দিয়ে রাষ্ট্রীয় শিষ্টাচার বহির্ভূত আচরণ করেন।

ভয়েস টিভি/এসএফ

Categories
জাতীয় শিক্ষাঙ্গন

ঢাবির ‘চা-চপ-সিঙ্গাড়া’ নিয়ে ব্যঙ্গ করলেই ব্যবস্থা

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও উপাচার্যকে নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যঙ্গ করলে আইনি পদক্ষেপ নেবে কর্তৃপক্ষ। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাফেটেরিয়ায় ১০ টাকায় ‘চা-চপ-সিঙ্গাড়া’ পাওয়া নিয়ে ব্যঙ্গ চলে আসছে। একটি গণমাধ্যমে এ নিয়ে কার্টুনও প্রকাশিত হয় সম্প্রতি। যার প্রেক্ষিতে কর্তৃপক্ষ এ বিষয়ে সতর্ক করে বিজ্ঞপ্তি দেয়।

১৭ জুন বৃহস্পতিবার সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ বলেছে, জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে যাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাবমূর্তি ও মর্যাদা হেয় প্রতিপন্ন না হয় সে জন্য আলোচ্য বিষয়টির স্পষ্টীকরণ প্রয়োজন হয়েছে।

এতে বলা হয়, কিছু অসাধু চক্র কোনো অপতথ্য বারবার ব্যবহার করে সেটিকে তথ্যে পরিণত করতে চায়, যা জনমনে অনেক সময় বিভ্রান্তি তৈরি করে।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় বলেছে, ‘গঠনমূলক সমালোচনা সহ্য করার গণতান্ত্রিক মূল্যবোধের প্রতি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ শ্রদ্ধাশীল। একইসঙ্গে, কেউ যদি উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে সমালোচনার রীতিনীতি ও মূল্যবোধ উপেক্ষা করে ব্যক্তিগত আক্রমণ বা ব্যক্তি অথবা প্রতিষ্ঠানের মানহানি ঘটায় তাহলে দেশের আইন যে তার প্রতিকার দেয় সে বিষয়েও কর্তৃপক্ষ সম্পূর্ণ ওয়াকিবহাল।’

বিভ্রান্তিকর ও খণ্ডিত তথ্য ব্যবহার করে কোনো বিশেষ মহল যাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাবমূর্তি ও মর্যাদা ক্ষুণ্ণ করতে এবং মানহানি না ঘটাতে পারে সে জন্য বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ সংশ্লিষ্ট সবার সহযোগিতা প্রত্যাশা করছে।

একটি সংবাদমাধ্যমে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বল্পমূল্যের খাবার নিয়ে উপাচার্যের বক্তব্য এবং বিশ্ববিদ্যালয়ে করোনা টেস্টের জন্য স্থাপিত পিসিআর ল্যাব নিয়ে ‘খণ্ডিত ও বিভ্রান্তিকর’ তথ্য উপস্থাপন করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

স্বল্পমূল্যের খাবার বিষয়ে বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘২০১৯ সালের জানুয়ারি মাসে টিএসসিতে নবীন শিক্ষার্থীদের এক সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে উপাচার্য মহোদয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস ও ঐতিহ্য তুলে ধরেন। তিনি ক্যাম্পাসের মানবিক, অসাম্প্রদায়িক ও গণতান্ত্রিক মূল্যবোধের কথা উল্লেখ করেন। তিনি বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক-সাংস্কৃতিক গৌরবময় অধ্যায়ের কথাও বলেন। আর্থিক সঙ্গতি, পারিবারিক পেশা, জাতি, ধর্ম-সংস্কৃতি ও জন্মস্থান নির্বিশেষে প্রতিটি শিক্ষার্থীর জন্য এ বিশ্ববিদ্যালয়ের সমতাভিত্তিক অন্তর্ভুক্তিমূলক দৃষ্টিভঙ্গির কথাও তিনি উল্লেখ করেন। সহজ, সরল, সাধারণ ও সাবলীল জীবনাচারের গুরুত্বের কথাও উপাচার্য বলেন। অনুষ্ঠানস্থল টিএসসির গৌরবময় ভূমিকাও প্রসঙ্গক্রমে চলে আসে। তিনি নবাগত শিক্ষার্থীদের সঙ্গে হাস্যরসে ক্যাফেটেরিয়ার সাধারণ, স্বল্পমূল্যের খাবার মেন্যু ও সবার জন্য সমান সুযোগ-সুবিধার অবারিত সেবাকার্যক্রমের কথাগুলোও বলেন। বস্তুত সর্বজনীন, অন্তর্ভুক্তিমূলক, সমতাভিত্তিক, অসাম্প্রদায়িক, মানবিক ও সামাজিক-সাংস্কৃতিক মূল্যবোধকে উপাচার্য বিশ্ববিদ্যালয়ের গৌরবময় ঐতিহ্য হিসেবে উল্লেখ করে শিক্ষার্থীদের নিজেদের জীবনে এসবের প্রতিফলনের পরামর্শ দেন’।

‘পরে জানা গেল, একটি টেলিভিশনের ক্যামেরাবিহীন এক সাংবাদিক অনাহূতভাবে অনুষ্ঠানে উপস্থিত থেকে উপাচার্যের বক্তব্যের মূল অংশ কাটছাট করে এবং ক্ষেত্র বিশেষে বাক্য ও শব্দ অবলোপন করে ক্যাফেটেরিয়ার বিভিন্ন খাবার আইটেমের মূল্যমান সংক্রান্ত বক্তব্যের অংশবিশেষ নিয়ে ১৫-২০ সেকেন্ডের একটি ভিডিও ভাইরাল করে। সেই সাংবাদিক অবশ্য পরে সেজন্য দুঃখ প্রকাশ করেছেন। একজন শিক্ষক হিসেবে উপাচার্য বিষয়টিকে ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখেছেন।

আরও পড়ুন: গভীর রাতে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের উপর হামলায় আহত ১১

ভয়েস টিভি/এসএফ

Categories
শিক্ষাঙ্গন

গুচ্ছ পদ্ধতির ভর্তি পরীক্ষা ৪ সেপ্টেম্বর

কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ও কৃষিশিক্ষাকে প্রাধান্য দেয়া বিশ্ববিদ্যালয়সমূহে ২০২০-২০২১ শিক্ষাবর্ষের স্নাতক শ্রেণির গুচ্ছ পদ্ধতিতে ভর্তি পরীক্ষার তারিখ পুনর্নির্ধারণ করা হয়েছে। এ ভর্তি পরীক্ষা আগামী ৪ সেপ্টেম্বর অনুষ্ঠিত হবে।

১৬ জুন বুধবার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বশেমুরকৃবি) উপ-পরিচালক (জনসংযোগ) মো. মাহফুজ-উল-আলম এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, গত সোমবার কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ও কৃষিশিক্ষাকে প্রাধান্য দেয়া বিশ্ববিদ্যালয়সমূহের ভর্তি সংক্রান্ত কেন্দ্রীয় কমিটির ৫ম সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় দেশের করোনা পরিস্থিতি ও অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষার তারিখ পর্যালোচনা করে পূর্বঘোষিত তারিখ ৩১ জুলাইয়ের পরিবর্তে আগামী ৪ সেপ্টেম্বর পরীক্ষার তারিখ নির্ধারণ করা হয়।

এ সংক্রান্ত বিস্তারিত তথ্য www.admission-agri.org ওয়েবসাইটে পাওয়া যাবে।

ভয়েস টিভি/এসএফ

Categories
জাতীয় শিক্ষাঙ্গন

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ৩ লাখ শিক্ষার্থীকে অটোপাস

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অনার্স প্রথম বর্ষের ৩ লাখ ১৬ হাজার ৬৭৬ জন শিক্ষার্থীকে অটোপাস দেয়া হয়েছে।

১৬ জুন বুধবার জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অনার্স ১ম বর্ষের শিক্ষার্থীদের শর্তসাপেক্ষে ২য় বর্ষে প্রমােশন দেয়ার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। কোভিড-১৯ মহামারির কারণে শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা গ্রহণ করা সম্ভব হয়নি। যেসব শিক্ষার্থী ২০২০ সালে অনার্স ১ম বর্ষ পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য ফরম পূরণ করেছেন তাদের সবাইকে শর্তসাপেক্ষে ২য় বর্ষে প্রমােশন দিয়ে ক্লাস করার অনুমতি দেয়া হয়েছে।

প্রমােশন পাওয়ার শর্তগুলোর মধ্যে অন্যতম প্রধান শর্ত হচ্ছে- পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে এসব শিক্ষার্থীদেরকে অবশ্যই ১ম বর্ষের লিখিত পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে হবে। কেউ যদি এই পরীক্ষায় অংশ না নেয় বা পরীক্ষায় অংশ নিয়ে রেগুলেশন অনুযায়ী ‘নট প্রমােটেড’ হয় সেক্ষেত্রে তার শর্তসাপেক্ষে দেয়া প্রমােশন বাতিল বলে গণ্য হবে। এ সংক্রান্ত বিস্তারিত তথ্য জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইট nu.ac.bd এ পাওয়া যাবে।

২০২০ সালে অনার্স ১ম বর্ষ পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য ফরম পূরণ করেছেন সর্বমােট ৪ লাখ ৬৭ হাজার ৮৩৫ জন শিক্ষার্থী। মানােন্নয়ন পরীক্ষার্থী ছিলেন ১ লাখ ৫১ হাজার ১৫৯ জন। আর নিয়মিত শিক্ষার্থী ২ লাখ ৯৭ হাজার ৬২৬ জন এবং অনিয়মিত শিক্ষার্থী ১৯ হাজার ৫০ জন। নিয়মিত ও অনিয়মিত অর্থাৎ ৩ লাখ ১৬ হাজার ৬৭৬ জন শিক্ষার্থী অটোপাস পেয়ে ২য় বর্ষে উত্তীর্ণ হচ্ছেন।

এর বাইরে প্রথম বর্ষের পরীক্ষার জন্য আবেদন করা মানােন্নয়ন পরীক্ষার্থীদের অটোপাস প্রক্রিয়ার বাইরে রাখা হয়েছে। পরে যখন আবার প্রথম বর্ষের লিখিত পরীক্ষা হবে তখন তারা মানোন্নয়ন পরীক্ষা দেবেন।

২০১৯-২০২০ শিক্ষাবর্ষে ভর্তি হয়েছিল মোট ৩ লাখ ৭৩ হাজার ৮৭৬ জন শিক্ষার্থী।

আরও পড়ুন: এসএসসি ও এইচএসসিতে অটোপাস হচ্ছে না

ভয়েস টিভি/এসএফ

Categories
জাতীয় শিক্ষাঙ্গন

করোনা পরিস্থিতির ওপর নির্ভর করছে পরীক্ষা

চলতি বছরের এসএসসি ও সমমান এবং এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে কিনা তা  নির্ভর করছে করোনা পরিস্থিতির ওপর ।  করোনা পরিস্থিতি দেখে দ্রুত সময়ে সিদ্ধান্তের কথা ছাত্রছাত্রীদের জানিয়ে দেয়া হবে ।

শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি এমপি ১৫ জুন ঢাকার কেরানীগঞ্জের জাজিরা মোহাম্মদিয়া আলিয়া মাদরাসায় চলতি মৌসুমের বৃক্ষরোপণ কর্মসূচির উদ্বোধন শেষে সাংবাদিকদের বলেন , করোনা পরিস্থিতি ক্রমাড়ত বাড়ছে । স্কুল কলেজ বন্ধ রাখায় সংক্রামন কমে এসেছিলো । কেউ নিয়ম মানছে না । যার কারণে করোনার প্রকোপও কমছে না ।

এবারের এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষা সংক্ষিপ্ত সিলেবাসে  নেওয়ার জন্য আমাদের প্রস্তুতি আছে। পরীক্ষা নেওয়া একবারেই সম্ভব না হয় তা হলে এর বাহিরেও বিকল্প চেষ্টা এবং প্রস্তুতি আছে  ।

পরীক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট দেয়া হচ্ছে । বাড়িতে যেনো ছাত্র-ছাত্রীরা লেখা পড়া ঠিকভাবে করে সেদিকে নজর দেয়ার জন্য অভিবাকদেরও আহবান জানান মন্ত্রী ।

Categories
জাতীয় শিক্ষাঙ্গন

এসএসসি-এইচএসসি পরীক্ষা নিয়ে বিকল্প চিন্তা

চলতি বছরের এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষা নেয়া সম্ভব না হলে বিকল্প চিন্তা করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। ১৩ জুন রোববার জাতীয় প্রেসক্লাবে এক অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে তিনি এমন কথা বলেন।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, আমরা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার চূড়ান্ত প্রস্তুতি নিয়েছিলাম, কিন্তু করোনা পরিস্থিতি বেড়ে যাওয়ায় সেই সিদ্ধান্ত থেকে পিছিয়ে আসতে বাধ্য হই। এখনো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার প্রস্তুতি রয়েছে, তবে করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এলে স্কুল-কলেজ খুলে পাঠদান কার্যক্রম শুরু করা হবে।

দীপু মনি বলেন, চলতি বছরের এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের উদ্বেগটা অনেক বেশি। আমরা চেষ্টা করছি সংক্ষিপ্ত সিলেবাসে তাদের পরীক্ষা নেয়ার। যদি সেটা সম্ভব না হয় তবে বিকল্প চিন্তাভাবনা করা হচ্ছে। এ জন্য আমরা বিকল্প পদ্ধতিতে শিক্ষাব্যবস্থা চালিয়ে যাচ্ছি। টিভি, অনলাইন ও অ্যাসাইনমেন্টের মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা পড়ালেখা করার সুযোগ পাচ্ছে।

শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, পরীক্ষা নিয়ে উদ্বিগ্ন হওয়ার কিছু নেই, তোমরা বাসায় বসে নিয়মিত পড়ালেখা করে সিলেবাস শেষ করবে। তার সঙ্গে সুস্থ থাকতে হবে। জীবন থেকে এক বছর চলে গেলেও কিছু হবে না, তার চাইতে সুস্থ থাকাটা বড় বিষয় বলে তিনি পরামর্শ দিয়েছেন।

তিনি বলেন, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় শিক্ষাব্যবস্থার যে ক্ষতি হচ্ছে তা কাটিয়ে ওঠার জন্য নানা পদক্ষেপ হাতে নেয়া হচ্ছে। করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এলে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেয়া হবে।

এর আগে স্বপ্ন ফাউন্ডেশন আয়োজিত শেখ হাসিনার কারামুক্তি দিবস অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় ডা. দীপু মনি বলেন বলেন, অনেকেই শেখ হাসিনার সঙ্গে অন্য কাউকে একপাল্লায় মাপেন। কিন্তু এটি অসম্ভব। এই মুহূর্তে শেখ হাসিনার সমকক্ষ কোনো নেতা নেই, সম্ভাবনাও নেই।

তিনি বলেন, একমাত্র শেখ হাসিনাই অনেক প্রতিকূল পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে বাংলাদেশকে সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে গেছেন। স্বপ্ন দেখাচ্ছেন। স্বপ্ন বাস্তবায়ন করেছেন তাই আমাদের কাছে তিনি স্বপ্ন দেখানোর অনন্য বাতিঘর।

দীপু মনি বলেন, সেদিন শুধু শেখ হাসিনা মুক্তি পাননি, বাংলাদেশের গণতন্ত্র ফিরে আসার পথ তৈরি হয়েছিল ৷ তিনি মুক্তি পেয়েছেন বলেই আমরা ২০০৮ সালের নির্বাচন পেয়েছিলাম। এরপর একাধিকবার প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হয়ে শেখ হাসিনা বাংলাদেশকে সারাবিশ্বের সামনে শক্ত অবস্থানে নিয়ে গেছেন শেখ হাসিনা।

ভয়েস টিভি/এসএফ

Categories
শিক্ষাঙ্গন

নোবিপ্রবির ভবন নির্মাণ: ৩৭ মাসে এক তৃতীয়াংশ কাজও শেষ হয়নি

নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (নোবিপ্রবি) সর্ববৃহৎ প্রকল্প একাডেমিক ভবন-৩ এর কাজ ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের কাছে জিম্মি হয়ে পড়েছে। নির্দিষ্ট সময়ে বুঝিয়ে দিতে না পারায় প্রকল্পের কাজ শেষ করতে দ্বিতীয় মেয়াদে সময় বাড়িয়ে নেয় ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। এরপরও গড়িয়েছে আরও ৭ মাস। তবে প্রকল্পের ২০ শতাংশ কাজও শেষ করতে পারে নি প্রতিষ্ঠানটি।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ১০ তলা ভবনের দুই তলার কাজ এখনো অপূর্ণাঙ্গ এবং তিন তলার কাজ কিছুটা করা হলেও হাতেগোনা কয়েকজন শ্রমিক দিয়ে চলছে বৃহৎ এ প্রকল্পের কাজ। আবার অধিকাংশ সময় সম্পূর্ণ বন্ধ থাকতে দেখা যায় এই নির্মাণ কাজ।

জানা যায়, মূল প্রকল্পের ঠিকাদারি জিকেবিএল (জে.ভি) নামের একটি প্রতিষ্ঠান নিলেও প্রকল্পের ইনচার্জ মইনুদ্দিন চৌধুরীর সঙ্গে এখন পর্যন্ত যোগাযোগ করেনি প্রতিষ্ঠানটির মালিক জিকে স্বপন।

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা যায়, ২০১৮ সালের এপ্রিলে এ প্রকল্পের টেন্ডার আহ্বান করলে কাজ পায় জি কে স্বপনের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। ওই প্রতিষ্ঠানকে কাজটি সম্পন্ন করার জন্য শুরুতে ৩০ মাস সময় বেঁধে দেয়া হয়। কিন্তু ৩৭ মাস পেরিয়ে গেলেও এখনো তৃতীয় তলায় পড়ে আছে ১০ তলা এই ভবনের কাজ। এরমধ্যে দ্বিতীয় মেয়াদে সময় বাড়িয়ে নেয় ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানটি। বিলম্বিত হওয়ার পেছনে শ্রমিকদের অনুপস্থিতির কথা বলছেন প্রকল্পটির তদারক আবু মুসা ফাতহুলবারী টুটুল।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, প্রকল্পের কাজ বাস্তবায়নে প্রয়োজনীয় সামগ্রী ক্রয় করার জন্য ব্যাংক থেকে নির্দিষ্ট পরিমাণ টাকা দিয়ে পারফর্মেন্স গ্যারান্টি নিতে হয়। সেই পারফর্মেন্স গ্যারান্টি দেখিয়ে পরবর্তীতে বিশ্ববিদ্যালয়ের নির্বাহী প্রকৌশল দপ্তর থেকে বিল নিতে হয়। কিন্তু বর্তমান প্রকল্পটির পারফর্মেন্স গ্যারান্টির মেয়াদ কয়েকমাস আগে শেষ হলেও এখন পর্যন্ত নতুনভাবে ব্যাংক থেকে পারফর্মেন্স গ্যারান্টি নেয়নি ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান। ব্যাংক থেকে পারফর্মেন্স গ্যারান্টি না নেয়া পর্যন্ত প্রকল্পের কাজের জন্য প্রতিষ্ঠানটি কোন বিল নিতে পারবে না।

আরও জানা যায়, নতুন বিল না নেওয়াতে প্রতিষ্ঠানটি ব্যাংক থেকে এই কাজের জন্য টাকা উত্তোলন করতে পারে নি। ফলে দীর্ঘদিন থেকে প্রকল্পের কাজ অগ্রসর হচ্ছে মন্থর গতিতে। এদিকে অযত্নে পড়ে আছে কয়েক লাখ টাকার সিমেন্ট ও রড।

প্রকল্পের সার্বিক অবস্থা নিয়ে আবু মুসা ফাতহুলবারী টুটুল জানান, করোনার পূর্ব পর্যন্ত কাজ ঠিকমত চললেও করোনার পরবর্তীতে কাজ খুবই ধীরে চলছে। কাজের ধীরগতির জন্য তিনি শ্রমিকদের অনুপস্থিতিকে দায়ী করেন। শ্রমিকরা কেন অনুপস্থিত এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, করোনা শুরু হওয়ার পর তারা বাড়িতে চলে গেছে এখনো তারা ফিরে আসেনি। তারা আসলেই কাজগুলো খুব দ্রুতভাবে অগ্রসর হবে।

ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানটির প্রকল্প ম্যানেজার মোহাম্মদ আরিফ জানান, নোবিপ্রবির প্রকল্পটির জন্য খুব শিগগিরই হেড অফিসে মিটিং করবেন। এছাড়া খুব শিগগিরই নতুনভাবে কাজ শুরু করা হবে বলে জানান তিনি।

এদিকে বিষয়টি নিয়ে বলতে গেলে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান প্রকৌশলী জিয়াউদ্দিন হায়দার জানান, কাজ শুরু করার জন্য আমরা ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে বারবার যোগাযোগ করেছি। তারা আমদের প্রতিবার আশ্বাস দিয়েও কাজ শুরু করেনি। গত কয়েকদিন আগে ফার্মের কাছে অফিসিয়াল নোটিশ দিয়েও এর কোন ফলাফল এখন পর্যন্ত পৌছায়নি আমাদের নিকট।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মোহাম্মদ দিদার-উল-আলম বলেন, প্রকল্পটি নিয়ে আমাদের কাছে বিস্তর অভিযোগ রয়েছে। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে আমরা বিভিন্ন মেয়াদে সময় বেঁধে দিয়েও কাজের তেমন কোনো অগ্রগতি পাইনি। আমরা প্রস্তাব করেছি তারা যদি কাজ করতে না পারে তাদের পরিচিত অন্য প্রতিষ্ঠানের কাছে এটি হস্তান্তর করতে এবং বর্তমানে যে ৩য় তলা নির্মাণ করা হয়েছে এটি ক্লাসরুমের জন্য প্রস্তুত করে দেয়ার জন্য। দুটি প্রস্তাবের কোনো প্রস্তাবে তারা সাড়া দেয়নি। এছাড়া কাজটি দ্রুত শুরু করতে বিভিন্ন মাধ্যমে চেষ্টা করেছেন বলে জানান উপাচার্য প্রফেসর দিদার-উল-আলম।

ভয়েস টিভি/এসএফ

Categories
জাতীয় শিক্ষাঙ্গন

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠনের চলমান ছুটি আরেক দফা বাড়ল

দেশের মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক পর্যায়ের সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠনের চলমান ছুটি আরেক দফায় বাড়িয়ে আগামী ৩০ জুন পর্যন্ত করা হয়েছে।

১২ জুন শনিবার শিক্ষামন্ত্রণালয়ের তথ্য ও জনসংযোগ কর্মকর্তা এম এ খায়ের স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে করোনা পরিস্থিতি আরও অবনতি হওয়ায় এবং দেশের কোনও কোনও অঞ্চলে আংশিকভাবে কঠোর লকডাউন কার্যকর থাকায় শিক্ষার্থী, শিক্ষক, কর্মচারী ও অভিভাবকদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা ও সার্বিক নিরাপত্তার বিবেচনায় এবং কোভিড-১৯ সংক্রান্ত জাতীয় পরামর্শক কমিটির সঙ্গে পরামর্শক্রমে দেশের মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ের সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এবং এবতেদায়ি ও কওমি মাদ্রাসাসমূহের চলমান ছুটি আগামী ৩০ জুন পর্যন্ত বৃদ্ধি করা হয়েছে।

এর আগে করোনা পরিস্থিতির উন্নতি সাপেক্ষে ১৩ জুন দেশের সকল মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়ার কথা জানিয়েছিলো শিক্ষা মন্ত্রণালয়।

ভয়েস টিভি/এসএফ

Categories
জাতীয় শিক্ষাঙ্গন

গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষা স্থগিত

আগামী ১৯ জুন থেকে শুরু হতে যাওয়া ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষে ২০টি সাধারণ এবং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছে। একইসঙ্গে ভর্তির আবেদনের সময় ফের বৃদ্ধি করা হয়েছে।

১১ জুন শুক্রবার পরীক্ষার আয়োজক কমিটি সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে তথ্য নিশ্চিত করেছেন গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষার সদস্য সচিব প্রকৌশলী মো. ওহিদ্দুজ্জামান।

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ সাংবাদিকদের বলেন, গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষার প্রাথমিক আবেদন আগামী ২৫ জুন রাত ১১টা ৫৯ মিনিট পর্যন্ত করতে পারবে ভর্তিচ্ছুরা। এসব বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষার তারিখ পরে শিক্ষার্থীদের জানানো হবে।

এর আগে সমন্বিত ভর্তি কমিটির প্রাথমিক সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, আগামী ১৯ জুন মানবিক বিভাগের, ২৬ জুন বাণিজ্যের ও ৩ জুলাই বিজ্ঞান বিভাগের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল।

ভয়েসটিভি/এএস

Categories
শিক্ষাঙ্গন

সিনেমায় নায়ক হিসেবে অভিনয় করতে চান সাবেক উপাচার্য কলিমউল্লাহ

বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে উপাচার্য অধ্যাপক ড. নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহর মেয়াদ শেষ হয়েছে। কিন্তু পিছু ছাড়ছে না সমালোচনা। মেয়াদ শেষের দিকে গত বুধবার রাত সাড়ে ৩টায় ক্লাস নিয়ে আলোচনার জন্ম দিয়েছেন। এই আলোচনা-সমালোচনার সঙ্গে যোগ হয়েছে কলিমউল্লাহ অভিনীত একটি চলচ্চিত্রের দৃশ্য। সম্প্রতি ভাইরাল হয়েছে একটি ভিডিও।

সিনেমার ওই দৃশ্যে দেখা যায়, পুলিশের একজন উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তা ড. কলিমউল্লাহ। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে একজন উপাচার্য হিসেবে সিনেমায় অভিনয় করা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। তবে চলচ্চিত্রে অভিনয় করাকে ইতিবাচকভাবেই দেখছেন তিনি।

কলিমউল্লাহ বলেন, ফেসবুকে যে ভিডিওটি ভাইরাল সেই সিনেমায় আমি প্রথম অভিনয় করি। ব্যাপক ব্যবসা সফল সিনেমা ‘শ্যুটার’। যেটি একসঙ্গে সারাদেশের ১৪৮ প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পায়। শ্যুটার সিনেমায় আমি মূলত ঢাকার পুলিশ কমিশনারের চরিত্রে অভিনয় করি।

কোন চলচ্চিত্রে নায়কের চরিত্রে অভিনয় করতে চান কি না, এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, কোনো পরিচালক যদি এমন প্রস্তাব দেন, তাহলে সানন্দে গ্রহণ করবেন।

নিজের অভিনয় জীবনের ইতিহাস টেনে গণমাধ্যমকে কলিমউল্লাহ বলেন, তার শিক্ষাজীবন শুরু হয় বুলবুল ললিতকলা একাডেমিতে (পুরান ঢাকার আহসান মঞ্জিল সংলগ্ন ওয়াইজঘাটে)। সেখানে তিনি তৃতীয় শ্রেণি পর্যন্ত পড়ালেখা করেন। সেখানে পড়তে গিয়ে তিনি অভিনয়সহ নাচ-গানের প্রতি আগ্রহী হয়ে ওঠেন। পারিবারিক অনুপ্রেরণাও তার সঙ্গী ছিল।

ভয়েস টিভি/এসএফ