Categories
শিক্ষাঙ্গন

বেরোবির কর্মকর্তা বরখাস্ত

বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের (বেরোবি) অর্থ ও হিসাব দফতরের কর্মকর্তা রিয়াজুল ইসলামকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। অর্থ ও হিসাব দফতরের বাজেট, ক্যাশ ও স্টুডেন্ট শাখায় কর্মরত উপ-পরিচালক মো. রিয়াজুল ইসলাম চেক জালিয়াতির মামলায় জেলে থাকায় তাকে সাময়িক বরখাস্ত করেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসন।

২৬ আগস্ট বুধবার এক অফিস আদেশে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার কর্ণেল আবু হেনা মুস্তাফা কামাল, এএফডব্লিউসি, পিএসসি (অব.) তাকে সাময়িক বরখাস্ত করেন।

ভয়েস টিভি/এসএফ

Categories
শিক্ষাঙ্গন

বদলে যাচ্ছে গার্হস্থ্য অর্থনীতি কলেজের নাম

রাজধানীর আজিমপুরের গার্হস্থ্য অর্থনীতি কলেজের নাম পরিবর্তন হচ্ছে। বর্তমান নামের পরিবর্তে কলেজ অব অ্যাপ্লাইড হিউম্যান সায়েন্স নামকরণের যৌক্তিকতা উল্লেখ করে সুপারিশসহ মতামতের জন্য ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) রেজিস্ট্রার বরাবর চিঠি দেয়া হয়েছে।

২৩ আগস্ট রোববার শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সরকারি কলেজ-৪ শাখার উপসচিব (অতিরিক্ত দায়িত্ব) ড. শ্রীকান্ত কুমার চন্দ স্বাক্ষরিত এক আদেশে বিষয়টি জানানো হয়। ২৫ আগস্ট মঙ্গলবার বিষয়টি নিশ্চি করেছেন গার্হস্থ্য অর্থনীতি কলেজ কর্তৃপক্ষ।

বর্তমানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে থাকা গার্হস্থ্য অর্থনীতি কলেজগুলো হচ্ছে- গার্হস্থ্য অর্থনীতি কলেজ (আজিমপুর), বাংলাদেশ গার্হস্থ্য অর্থনীতি কলেজ (গ্রিন রোড), ন্যাশনাল কলেজ অব হোম ইকোনমিক্স (লালমাটিয়া), ময়মনসিংহ গার্হস্থ্য অর্থনীতি কলেজ (ময়মনসিংহ)। এর মধ্যে আজিমপুরের কলেজ ছাড়া বাকি তিনটি বেসরকারি।

ভয়েস টিভি/এসএফ

Categories
শিক্ষাঙ্গন

হচ্ছে না পিইসি পরীক্ষা

ঢাকা: নভেল করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) কারণে এ বছর প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী (পিইসি) ও ইবতেদায়ি শিক্ষা সমাপনী (ইইসি) পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হচ্ছে না। এ বিষয়ে সম্মতি দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

২৫ আগস্ট মঙ্গলবার দুপুরে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে এ তথ্য জানা গেছে। মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব আকরাম আল হোসেন এ বিষয়ে সাংবাদিকদের ব্রিফিং করে বিস্তারিত জানাবেন।

তবে জানা গেছে, গত সপ্তাহে পিইসি ও ইইসি পরীক্ষা বাতিলে সারসংক্ষেপ প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ে পাঠানো হয়। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে সম্মতি দিয়ে সেটি আজ মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। মহামারি করোনাভাইরাসের কারণে গত ১৭ মার্চ থেকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ আছে।

বিস্তারিত আসছে…

ভয়েস টিভি/টিআর

Categories
শিক্ষাঙ্গন

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা এবং পরীক্ষার বিষয়ে সিদ্ধান্ত হতে পারে মঙ্গলবার

জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) ও জুনিয়র দাখিল সার্টিফিকেট (জেডিসি) পরীক্ষা কবে হবে বা কীভাবে হবে এসব বিষয়ে সিদ্ধান্ত হতে পারে ২৫ আগস্ট আগামীকাল মঙ্গলবার।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছু শিক্ষামন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা সংবাদমাধ্যমকে জানান, মঙ্গলবার পরীক্ষা সংক্রান্ত বিষয়ে সিদ্ধান্ত আসতে পারে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলছে, নাকি আরও ছুটি বাড়ছে সে বিষয়ে কালই সিদ্ধান্ত হতে পারে।

এদিকে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক গোলাম ফারুক জানান, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা হবে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে। তবে এখনো তেমন কোনো পরিস্থিতি দেখা যাচ্ছে না। এইচএসসি পরীক্ষাও নির্ভর করছে প্রতিষ্ঠান খোলার ওপর।

এর আগে, এইচএসসি ও জেএসসি পরীক্ষার বিষয়ে ২৫ আগস্টের পর সিদ্ধান্ত নেয়ার কথা জানিয়েছিলো শিক্ষা মন্ত্রণালয়। মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. মাহবুব হোসেন জানিয়েছেন, চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হলেই দু’সপ্তাহ সময় দিয়ে পরীক্ষার সময়সূচী জানানো হবে।

চলতি বছরের পহেলা এপ্রিল থেকে সারা দেশে অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল এইচএসসি পরীক্ষা। অংশ নেয়ার কথা প্রায় ১৩ লাখ শিক্ষার্থীর। এদিকে আগামী পহেলা নভেম্বর থেকে অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট বা জেএসসি পরীক্ষা। যেখানে প্রায় ২৭ লাখ পরীক্ষার্থী অংশ নেবেন। কিন্তু করোনা মহামারিতে গত ১৭ মার্চ থেকে সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে যাওয়ায় ভেঙে পড়েছে সব পরীক্ষার সময়সূচী।

মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. মাহবুব হোসেন সাংবাদিকদের জানিয়েছিলেন, দু সপ্তাহের নোটিশে পরীক্ষা নেয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছেন তারা। ২৫ আগস্টের পর এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

ভয়েস টিভি/এসএফ

Categories
শিক্ষাঙ্গন

যবিপ্রবির প্রশাসনিক ভবন লকডাউনের সিদ্ধান্ত

যবিপ্রবি: যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (যবিপ্রবি) কয়েকজন কর্মকর্তা-কর্মচারীর করোনাভাইরাসে শনাক্ত হওয়ায় আগামী ২৭ আগস্ট থেকে ২ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবন লকডাউন করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

এ সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের সব দফতরের কর্মকর্তা-কর্মচারীর বাধ্যতামূলক করোনা পরীক্ষা করানো হবে বলে জানানো হয়েছে। ২৪ আগস্ট সোমবার দুপুরে যবিপ্রবির প্রশাসনিক ভবনের সম্মেলন কক্ষে এক জরুরি সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

সভায় বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন অনুষদের ডিন ও দফতর প্রধানদরা উপস্থিত ছিলেন। এতে সভাপতিত্ব করেন যবিপ্রবির উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আনোয়ার হোসেন।
এসময় করোনাভাইরাসে শনাক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের নিয়ে আলোচনা করা হয়।

উপস্থিত সবাই সকল বিভাগ, ইনস্টিটিউট, দফতরের কর্মকর্তা-কর্মচারীর করোনা পরীক্ষা করার পরামর্শ দেন। এরপর প্রশাসনিক ভবন ২৭ আগস্ট থেকে ২ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত লকডাউন করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।

যবিপ্রবি উপাচার্যের দফতর, পরিচালকের (হিসাব) দফতর, পরীক্ষা নিয়ন্ত্রকের দফতরসহ কয়েকটি দফতরে বেশ কয়েকজন কর্মকর্তা-কর্মচারীর করোনা আক্রান্ত হয়েছেন।

ভয়েস টিভি/টিআর

Categories
শিক্ষাঙ্গন

প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের সামনে দপ্তরিদের বিক্ষোভ

ঢাকা: রাজধানীর মিরপুরে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের সামনে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ করছেন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দপ্তরি কাম প্রহরীরা। বেতন বৈষম্য নিরসন ও চাকরি জাতীয়করণসহ ৪ দফা দাবিতে বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করছেন তারা।

বাংলাদেশ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কর্মচারী কল্যাণ সমিতির ব্যানারে ২৪ আগস্ট সোমবার সকালে দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে আসা প্রায় পাঁচ হাজার দপ্তরি-কাম প্রহরী জড়ো হন। তাঁরা অধিদপ্তরের সামনে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ কর্মসূচি শুরু করেন।

আন্দোলনকারীরা জানান, সারা দেশে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৩৭ হাজার দপ্তরি কাম প্রহরী নিয়োগ দেয়া হয়। সরকারি বিদ্যালয়ে চাকরি করেও আমরা ন্যায্য বেতন-ভাতা পাচ্ছি না। অমানবিক ও নজিরবিহীনভাবে আমাদের দিনে দাপ্তরিক কাজ ও রাতে প্রহরার দায়িত্ব পালন করতে হচ্ছে। ২০১৩ সালে এ পদে নিয়োগের পর থেকে ২৪ ঘণ্টা দায়িত্ব পালন করতে হচ্ছে।

তারা আরও বলেন, আমাদের কোনো সাপ্তাহিক ছুটি নেই, নানাবিধ সমস্যার কারণে এবং চাকরি জাতীয়করণের জন্য ২০১৭ সালে উচ্চ আদালতে রিট পিটিশন করি। চলতি বছরের ৩০ জুলাই আদালতের রায় আমাদের পক্ষে আসলেও এ বিষয়ে অধিদপ্তর কোনো ব্যবস্থা নেয়নি। আমরা বাধ্য হয়ে দেশের সকল জেলা থেকে দপ্তরি কাম প্রহরী একত্রে অবস্থান কর্মসূচি পালন করছি।

প্রাথমিক বিদ্যালয় কর্মচারী কল্যাণ সমিতির যুগ্ম আহ্বায়ক মামুন সরদার দাবিগুলোর বিষয়ে বলেন- পদ জাতীয়করণ, ৮ ঘণ্টা কর্মঘণ্টা নির্ধারণ ও বেতন বৈষম্য নিরসনসহ ৪ দফা দাবিতে তারা বিক্ষোভ করছেন। দাবি মানা না পর্যন্ত তাদের বিক্ষোভ চলবে।

তিনি আরও জানান, দপ্তরি কাম প্রহরীর ওপর অমানবিক নির্যাতন করা হচ্ছে। নিয়োগের পর থেকে বিদ্যালয়ের কাজ ছাড়াও অনেককে প্রধান শিক্ষকের বাড়িতে গিয়ে কাজ করতে হচ্ছে। রাতে আবার বিদ্যালয় পাহারার কাজ করতে হয়। বিদ্যালয়ে চুরি হলে আমাদের জরিমানা দিতে হয়।
সপ্তাহের একদিনও ছুটি দেয়া হয় না। এসব কারণে আমরা বাধ্য হয়ে অধিদপ্তর ঘেরাও করেছি।

দাবি বাস্তবায়নের সুনির্দিষ্ট ঘোষণা না দেয়া পর্যন্ত তাদের অবস্থান কর্মসূচি অব্যাহত থাকবে বলে জানান তিনি।

ভয়েস টিভি/টিআর

Categories
শিক্ষাঙ্গন

রাবির সংগীত প্রশিক্ষকের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ

রাবি: রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) ছাত্র-শিক্ষক সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের (টিএসসিসি) এক সংগীত প্রশিক্ষকের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। তার নাম রকিবুল হাসান রবিন। গত ২২আগস্ট শনিবার বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক এম. আব্দুস সোবহান বরাবর ধর্ষণের লিখিত অভিযোগ করেন এক নারী।

সংশ্লিস্টরা জানান, লিখিত ওই অভিযোগে ওই নারী জানান, ১০ বছর আগে শৈশবে তিনি একাধিকবার ধর্ষণের শিকার হন। ভিসির কার্যালয়ে অভিযোগ গৃহিত হয়েছে এমন একটি অনুলিপি একটি দৈনিকের কাছে এসেছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের এক কর্মকর্তা অভিযোগ পাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

অভিযোগে ওই নারী জানান, ২০১০ সালে তিনি শিশু সাংস্কৃতিক কর্মী ছিলেন। রাজশাহীর বাইরে একটি সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে রবিনের সঙ্গে যান তিনি। সেখানে বাবা-মা না থাকার সুযোগে তাকে ধর্ষণ করা হয়। এর পর থেকে বাড়িতে বিভিন্ন সময়ে বাবা-মায়ের অনুপস্থিতিতে ভয় দেখিয়ে ধর্ষণ করেন রবিন। কিন্তু লোক লজ্জার ভয়ে তিনি মুখ খুলেননি।

নারী জানান, ‘আমার ন্যায়-অন্যায় বোঝার জ্ঞান যেমন ছিল না, তেমনি নিজের কথা অকপটে বলার সাহসও ছিল না। কোন সামাজিক সমর্থন না পাওয়ার ভয়ে আমি চুপ করে ছিলাম। তবে এই ঘটনার প্রেক্ষিতে আমার মানসিক বিপর্যয়ের সাথে সাথে আমার পড়াশোনা, সামাজিক ক্রিয়াকলাপ ভয়াবহভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এখনও সেই ঘটনার স্মৃতি আমাকে কঠোর যন্ত্রণা দেয়,’ অভিযোগে জানান ওই নারী।

অভিযোগে আরো জানান, পড়াশোনার জন্য দেশের বাইরে চলে গিয়েছিলেন তিনি। করোনা পরিস্থিতির সময় দেশে ফিরেছেন। এখানে এসে জানতে পারেন, আরও অনেকেই রবিনের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ তুলেছেন। তাদের অনেকেই হ্যাশট্যাগ মি টু এর আওতায় সোশ্যাল মিডিয়ায় তাদের অভিজ্ঞতা শেয়ার করেছেন।

নারী বলেন, ওই মেয়েদের অভিজ্ঞতা শুনে আমার ট্রমা ফিরে এসেছে। আমি কথা বলার সাহস দেখানোর জন্য তৈরি হয়েছি’ তিনি অভিযোগে লিখেছেন। এই জাতীয় ঘটনাগুলি সমাজ, সংস্কৃতি, পৃথিবী দূষিত করছে এবং মেয়েদের জন্য পরিবেশকে অনিরাপদ করে তুলছে।

মেয়ের অভিযোগে, বাবা-মাও যৌথভাবে সই করেছেন। তারা লিখেছেন যে তারা তাদের মেয়ের মানসিক স্বাস্থ্য নিয়ে উদ্বিগ্ন। ‘আমরা এজন্যেও উদ্বিগ্ন যে ধর্ষকের মতো একজন লোক বিশ্ববিদ্যালয়ে একটি গুরুত্বপূর্ণ পদে অধিষ্ঠিত, সে আরও ক্ষতি করতে পারে। আমরা তার দ্রুত বিচার চাই। অভিযোগকারী নারীর বাবা দ্য ডেইলি স্টারকে জানান, তারা শৈশবের এই ধর্ষণ সম্পর্কে কিছুই জানতেন না।

অভিযোগকারী নারীর বাবা বলেন, আমরা লক্ষ্য করেছিলাম যে, সে পড়াশোনার প্রতি মনোযোগ হারাচ্ছে এবং সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে অংশ নেয়া বন্ধ করে দিয়েছে। মহামারি চলাকালীন সে বিদেশ থেকে দেশে ফিরে এসে তার জীবনের এই দুঃসহ অভিজ্ঞতার কথা মনে করে অসুস্থ হয়ে পড়ার পরেই আমরা জানতে পেরেছি। আমার মেয়ে যাতে বিচার পায় সেজন্য তাকে সাহায্য করছি।’ অভিযোগকারী ওই নারী জানিয়েছেন রবিনের বিরুদ্ধে মামলা করার বিষয়ে বিবেচনা করছেন তিনি।

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েকজন শিক্ষক জানিয়েছেন, যৌন হয়রানির অভিযোগ বিবেচনা করার জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি স্থায়ী কমিটি রয়েছে। রাবি যৌন হয়রানি প্রতিরোধ কমিটি সাধারণত তদন্ত করে অভিযোগগুলির বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করে। বিষয়টি নিয়ে বিব্রত রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

এ বিষয়ে রাকিবুল হাসান রবিনের সাথে বারবার যোগাযোগের চেষ্টা করলেও তার ফোন বন্ধ পাওয়া যায়।

ভয়েস টিভি/টিআর

Categories
শিক্ষাঙ্গন

ঢাবির ২০০৭ সালের ঘটনা স্বাধীনতার চেতনা বিরোধী

২০০৭ সালের ২০-২৩ আগস্ট ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে সংঘটিত ঘটনা মহান স্বাধীনতার চেতনা ও গণতান্ত্রিক মূল্যবোধের পরিপন্থী বলে মন্তব্য করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. আখতারুজ্জামান।

রোববার (২৩ আগস্ট) কালোদিবস উপলক্ষে অধ্যাপক আব্দুল মতিন চৌধুরী ভার্চ্যুয়াল ক্লাসরুমে আয়োজিত এক ভার্চ্যুয়াল আলোচনা সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এ বলেন।

ঢাবি উপাচার্য বলেন, সেদিনের এই অমানবিক ও অনভিপ্রেত ঘটনার জন্য তৎকালীন অনির্বাচিত ও অগণতান্ত্রিক সরকারের দুরভিসন্ধিই দায়ী। ক্যাম্পাসে তখন যে অরাজকতা চালানো হয়েছিল, সেটা ছিল আমাদের মহান স্বাধীনতার চেতনা ও গণতান্ত্রিক মূল্যবোধের পরিপন্থী। আর যাতে এ ধরনের ঘটনার পুনরাবৃত্তি না ঘটে সে ব্যাপারে সবাইকে সতর্ক থাকতে হবে।

উপাচার্য অধ্যাপক ড. আখতারুজ্জামান ২০০৭ সালের বিভীষিকাময় দিনগুলোর স্মৃতিচারণ করে বলেন, অন্যায়-অপকর্ম করার জন্য এদেশের স্বাধীনতাবিরোধী ও অগণতান্ত্রিক অপশক্তি বারবার আগস্ট মাসকেই বেছে নেয়। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট, ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট এবং ২০০৭ সালের ২০-২৩ আগস্ট একই সূত্রে গাঁথা।

এসব নৃশংস হত্যাকাণ্ড ও অমানবিক ঘটনার মদদদাতা ও কুশীলবরা মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও গণতান্ত্রিক মূল্যবোধে বিশ্বাসী নয় উল্লেখ করে তিনি বলেন, এসব ষড়যন্ত্রকারীর ব্যাপারে সর্বদা সচেতন থাকতে হবে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার এনামউজ্জামানের পরিচালনায় সভায় বক্তব্য রাখেন প্রো-ভাইস চ্যান্সেলর (প্রশাসন) অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ সামাদ, প্রো-ভাইস চ্যান্সেলর (শিক্ষা) অধ্যাপক ড. এ এস এম মাকসুদ কামাল, ইউজিসি অধ্যাপক ড. আনোয়ার হোসেন, ঢাবি শিক্ষক সমিতির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি অধ্যাপক লুৎফর রহমান, সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. নিজামুল হক ভূইয়া, ছাত্র নেতা সাদ্দাম হোসেন, কারা নির্যাতিত ছাত্র জাহিদুল ইসলাম বিপ্লব, অফিসার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি আমিরুল ইসলাম প্রমুখ।

ভয়েস টিভি/এসএফ

Categories
ভিডিও সংবাদ শিক্ষাঙ্গন সারাদেশ

শিক্ষা কার্যক্রমে গতি আনতে ভৈরবে অনলাইন পাঠক্রম শুরু

ভৈরব: অনলাইন ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ক্লাস নেয়ায় শিক্ষা ব্যবস্থায় ধীরে ধীরে গতি ফিরতে শুরু করেছে ভৈরবের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে। এতে করে মনোযোগীও হয়ে উঠছে এখানকার শিক্ষার্থীরা। ধীরে ধীরে এই পদ্ধতি জনপ্রিয় হয়ে উঠলেও প্রয়োজনীয় উপকরণের অভাবে অনেক শিক্ষার্থী থেকে যাচ্ছে অনলাইন পাঠক্রমের বাইরে।

করোনা ভাইরাসের কারণে গত ১৭ই মার্চ থেকে দেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। লম্বা সময় পেরিয়ে গেলেও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান স্বাভাবিক শিক্ষা কার্যক্রমে ফেরার অনিশ্চিয়তা কাটেনি এখনো। এতে করে শিক্ষা থেকে এক প্রকার বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে শিক্ষার্থী ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো। পড়ায় মনোযোগ হারাতে থাকে শিক্ষার্থীরা।  ফলে চিন্তিত ছিলো অভিভাবকরা।

এমন অবস্থায় শিক্ষার্থীদের পড়ার টেবিলমুখী করতে সরকারি উদ্যোগের পাশাপাশি বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো নিচ্ছে নানা ব্যবস্থা । এরইমধ্যে ভৈরবের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের ওপর নির্ভর করে দিনের একটি নির্দিষ্ট সময়ে নেয়া হচ্ছে ক্লাস। ম্যাসেঞ্জার গ্রুপের মাধ্যমে চলছে পাঠ আদান প্রদান ।

জানা গেছে, এ অবস্থায় কিছুটা সস্তিতে ফিরেছেন এখানকার শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা। এমন উদ্যোগে খুশি তারা।

অনলাইন স্কুলের শিক্ষকরা জানান, শিক্ষার্থীদের ক্ষতি পুষিয়ে নিতে ৩ মাস আগ থেকে অনলাইনে পাঠদান কার্যক্রম শুরু করা হয়েছে। ধীরে ধীরে এই পদ্ধতি জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। এতে করে শিক্ষার্থীরা পড়ার টেবিলমুখী হচ্ছে।

এদিকে উপজেলা র্নিবাহী কর্মকর্তা লুবনা ফারজানা ভয়েস টিভিকে জানান, প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকলেও শিক্ষার্থীদের শিক্ষামূখী করতে উপজেলা পর্যায় থেকে নেয়া নানা উদ্যোগ।

ভৈরবে আটটি কলেজ, ২৩টি উচ্চ বিদ্যালয়, ৯০টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ৯৮টি কিন্ডার গার্টেন এবং বিভিন্ন উন্নয়ন সংস্থা দ্বারা পরিচালিত আরও কয়েকট শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে।

ভয়েস টিভি/ভৈরব প্রতিনিধি/টিআর

Categories
শিক্ষাঙ্গন

প্রথম ধাপে সাড়ে ১৩ লাখ ভর্তি আবেদন

ঢাকা: একাদশ শ্রেণিতে প্রথম ধাপে ভর্তির আবেদন সম্পন্ন হয়েছে। বৃহস্পতিবার রাত ১২টা পর্যন্ত প্রায় সাড়ে ১৩ লাখ ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীর আবেদন জমা পড়েছে।

২১ আগস্ট শুক্রবার ঢাকা মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের কলেজ পরিদর্শক অধ্যাপক ড. হারুন-অর-রশিদ এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

ড. হারুন-অর-রশি বলেন, একাদশ শ্রেণির ভর্তির প্রথম দফার আবেদন বৃহস্পতিবার শেষ হয়েছে। নির্বাচিত শিক্ষার্থীদের ফল প্রকাশ করা হবে আগামী ২৫ আগস্ট রাত ৮টায়। এরপর শিক্ষার্থীদের সিলেকশন নিশ্চায়ন করতে হবে ২৬ আগস্ট থেকে ৩০ আগস্ট রাত ৮টা পর্যন্ত। শিক্ষার্থী সিলেকশন নিশ্চায়ন না করলে প্রথম পর্যায়ের আবেদন বাতিল হবে।

শিক্ষা বোর্ডের তথ্যমতে, এ বছর একাদশ শ্রেণির ভর্তির কার্যক্রম চলবে আগামী ১৫ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত। শিক্ষার্থীদের www.xiclassadmission.gov.bd থেকে অনলাইনে আবেদন করতে হবে। আর আবেদন ফি পরিশোধ করা যাবে বিকাশ, নগদ, সোনালী ব্যাংক, টেলিটক এবং রকেটের মাধ্যমে।

দ্বিতীয় পর্যায়ে আবেদন গ্রহণ ৩১ আগস্ট শুরু হবে। চলবে ২ সেপ্টেম্বর রাত ৮টা পর্যন্ত। পছন্দক্রম অনুসারে প্রথম মাইগ্রেশনের ফল প্রকাশ হবে ৪ সেপ্টেম্বর রাত ৮টায়। আর দ্বিতীয় পর্যায়ের আবেদনের ফল প্রকাশ হবে একই দিন (৪ সেপ্টেম্বর) রাত ৮টায়। শিক্ষার্থীদের সিলেকশন নিশ্চায়ন চলবে ৫ সেপ্টেম্বর থেকে ৬ সেপ্টেম্বর বিকেল ৫টা পর্যন্ত। শিক্ষার্থী সিলেকশন নিশ্চায়ন না করলে দ্বিতীয় পর্যায়ের সিলেকশন এবং আবেদন বাতিল হবে।

তৃতীয় পর্যায়ের আবেদন গ্রহণ চলবে ৭ ও ৮ সেপ্টেম্বর। পছন্দক্রম অনুযায়ী দ্বিতীয় মাইগ্রেশনের ফল এবং তৃতীয় পর্যায়ের আবেদনের ফল প্রকাশ হবে ১০ সেপ্টেম্বর রাত ৮টায়।

সব প্রতিষ্ঠানের জন্য উন্নয়ন ফি ৩ হাজার টাকার বেশি করা যাবে না। প্রতিটি খাতে অর্থ আদায়ের ক্ষেত্রে রশিদ প্রদানের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

এছাড়া মফস্বল ও পৌর এলাকার জন্য ভর্তি ফি নির্ধারণ করা হয়েছে এক হাজার টাকা, পৌর জেলা সদরে ২ হাজার টাকা, ঢাকা ব্যতীত অন্যান্য মেট্রোপলিটন এলাকায় ৩ হাজার টাকার বেশি নেয়া যাবে না।

ভয়েস টিভি/ টিআর