Categories
সারাদেশ

বেসরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিকেও করোনা রুগীদের চিকিৎসা দেয়ার নির্দেশ

ভয়েস ডেস্ক : সকল সরকারি হাসপাতালের পাশাপাশি দেশের বেসরকারি সকল হাসপাতাল ও ক্লিনিকেও করোনা রুগীদের চিকিৎসা সেবা দেয়ার নির্দেশ দিয়েছে সরকার ।  খবর বাসস এর

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের  আলাদা ইউনিট করে চিকিৎসা সেবা দেয়ার নির্দেশনা দিয়েছে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়।  স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মোঃ সিরাজুল ইসলাম স্বাক্ষরিত এ সংক্রান্ত একটি চিঠি দেশের সব সরকারি হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। সেই সঙ্গে বেসরকারি হাসপাতাল, ক্লিনিক, মেডিকেল কলেজ ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের মালিকদের কাছে পাঠানো হয়েছে। গত রোববার ২৪ মে ২০২০ এই চিঠি ইস্যু করা হয় ।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের পাঠানো চিঠিতে বলা হয়েছে, সূত্রে বর্ণিত (১) ও (২) নং স্মারকে দেশের সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতাল, ক্লিনিক এবং ডায়াগনস্টিকসমূহে Covid এবং Non-Covid রোগীদের টিকিৎসা সেবা নিশ্চিত করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বিভিন্ন দেশের কোভিড-১৯ চিকিৎসা ব্যবস্থা পর্যালোচনা করে, একই হাসপাতালে কোভিড-১৯ ও নন-কোভিড রোগীদের ভিন্ন ভিন্ন অংশে স্বাস্থ্য সেবা প্রদান নিশ্চিত করার জন্য পরামর্শ প্রদান করেছেন।

এমতাবস্থায়, বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ ও স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের প্রস্তাব অনুযায়ী কোভিড-১৯ এবং নন-কোভিড রোগীদের স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করতে ৫০ শয্যা ও তার বেশি শয্যা বিশিষ্ট সব সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে কোভিড-১৯ ও নন-কোভিড রোগীদের চিকিৎসার জন্য পৃথক ব্যবস্থা চালুর নির্দেশ প্রদান করা হল।

Categories
বিশ্ব ভিডিও সংবাদ সারাদেশ

ভারতের সাথে যুদ্ধের প্রস্তুতি চীনের!

ভয়েস ডেস্ক : চীনের সেনাবাহিনীকে যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত থাকতে নির্দেশ দিয়েছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং। মঙ্গলবার এমন নির্দেশনা প্রদানের পাশাপাশি ‘যুদ্ধের প্রস্তুতি রাখতে সেনাদের প্রশিক্ষণ বাড়ানোর’ ওপরেও জোর দেন তিনি।

বুধবার এনডিটিভি অনলাইনের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে। সম্প্রতি সীমান্তে ভারত-চীনের মধ্যে সৃষ্টি হওয়া তীব্র উত্তেজনার মধ্যেই সেনাবাহিনীকে যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত হতে বললেন জিনপিং।

এদিকে বুধবার ভারতের সামরিক বাহিনীর শীর্ষ কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন দেশটির প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং। লাদাখ সীমান্তে চীন সেনা ও যুদ্ধাস্ত্র মোতায়েন বাড়ালে ভারতও পাল্লা দিয়ে সেনা মোতায়েন বাড়াবে বলে সে বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়েছে। এছাড়া সীমান্তে অবকাঠামো নির্মাণ নিয়ে চীনের আপত্তি সত্ত্বেও ভারত তা চালিয়ে যাবে বলেও সিদ্ধান্ত হয় বৈঠকে।

চীনের রাজধানী বেইজিংয়ে এ মুহূর্তে চলছে পার্লামেন্ট অধিবেশন। এর মাঝেই পিপলস লিবারেশন আর্মি (পিএলএ) ও পিপলস আর্মড পুলিশ ফোর্সের প্রতিনিধিদের সঙ্গে মঙ্গলবার বৈঠক করেন জিনপিং। সেখানে তিনি যুদ্ধের প্রস্তুতি রাখার পাশাপাশি সেনাদের উদ্দেশে বলেন, যে কোনো পরিস্থিতি মোকাবিলায় ও মাতৃভূমিকে রক্ষার জন্য সেনাদের প্রস্তুত থাকতে হবে। তবে তিনি নির্দিষ্ট করে কোনো হুমকির বিষয় উল্লেখ করেননি।

বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ভারত ও চীনের মধ্যে কোনো সুনির্দিষ্ট ও সুচিহ্নিত আন্তর্জাতিক সীমানা নেই। তার বদলে রয়েছে লাইন অব অ্যাকচুয়াল কন্ট্রোল বা এলএসি। যা ভারতের লাদাখ থেকে অরুণাচল প্রদেশ পর্যন্ত বিস্তৃত (প্রায় ৩৫০০ কিলোমিটার)।
গত কয়েকদিনে এই এলএসি বরাবর দুই দেশের সেনারা সংঘর্ষে লিপ্ত হয়েছেন। এমনকি কয়েকজন ভারতীয় সেনাকে চীন কিছুক্ষণের জন্য আটকে রেখেছিল বলেও অভিযোগ রয়েছে। লাদাখের গালওয়ান ভ্যালির মতো নতুন স্থানেও চীনা সেনারা ঘাঁটি তৈরি করেছে। তবে কেন দুই প্রতিবেশীর মধ্যে আচমকা সামরিক উত্তেজনা শুরু হলো তা নিয়ে দ্বিধায় পড়েছেন অনেক বিশ্লেষক।

দক্ষিণ চীন সাগর ও তাইওয়ান প্রণালীতে মোতয়েন যুক্তরাষ্ট্রের নৌবাহিনীর সঙ্গেও তুমুল সামরিক উত্তেজনা বিরাজ করছে চীনের। ওয়াশিংটন ও বেইজিং অবশ্য তারও আগে থেকে নতুন করোনাভাইরাসের উৎপত্তি নিয়ে দ্বন্দ্বে জড়িয়েছে।

২২ মে সামরিক বাজেট সংশোধন করে তা ৬ দশমিক ৬ শতাংশ বাড়িয়ে ১৭৯ বিলিয়ন ডলারে উন্নীত করেছে চীন। যুক্তরাষ্ট্রের পর সামরিক খাতে সবচেয়ে বেশি ব্যয় করা দেশ হলো চীন। ভারতের চেয়ে চীনের সামরিক ব্যয় তিনগুণ বেশি।

Categories
সারাদেশ

ঘূর্ণিঝড়ে লণ্ডভণ্ড জয়পুরহাটের ৪০ গ্রাম, নিহত ৪

জয়পুরহাট প্রতিনিধি: জয়পুরহাটের ক্ষেতলাল ও কালাই উপজেলায় প্রচণ্ড ঝড়ে মাটির ঘরের দেয়াল চাপায় চারজন মারা গেছেন। তারা সবাই ঝড়ের সময় ঘরে ঘুমিয়ে ছিলেন। এছাড়া ঝড়ে ৪০টি গ্রামে লন্ডভন্ড হয়ে গেছে হাজারেরও বেশি ঘর-বাড়ি।

মঙ্গলবার রাতে বয়ে যাওয়া এ ঝড়ে ভেঙে গেছে শত শত গাছ ও বৈদ্যুতিক খুঁটি। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে প্রায় ২০ হাজার হেক্টর বোরো ধান। বন্ধ হয়ে গেছে বিদ্যুৎ সরবরাহ। বুধবার সকালে ফায়ার সার্ভিস রাস্তায় গাছ সরানোর কাজ শুরু করে। ঝড়ে ক্ষেতলাল এবং কালাই উপজেলার যোগাযোগ ব্যবস্থা বন্ধ হয়ে গেছে।

দেয়াল চাপায় নিহতরা হলেন-ক্ষেতলাল পৌর শহরের খলিশাগাড়ী মহল্লার একই পরিবারের জয়নাল আবেদীনের স্ত্রী শিল্পি বেগম (২৮), তার দুই ছেলে নেওয়াজ (৭) ও নেওয়ামুল (৩) এবং কালাই উপজেলার হারুঞ্জা গ্রামের মৃত ছালামতের স্ত্রী মরিয়ম নেছা (৭০)।

দুই উপজেলার ক্ষতিগ্রস্তদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে হঠাৎ করে ঝড় ও বৃষ্টি শুরু হয়। প্রায় আধাঘণ্টা স্থায়ী থাকে বয়ে যাওয়া প্রচণ্ড বেগে ঝড়। এতে বাতাসের তীব্রতায় মুহূর্তেই বাড়ির টিনের চালা উড়ে যায়। উপড়ে গেছে কয়েক হাজার গাছ, ভেঙ্গে গেছে এ দুই উপজেলার শতাধিক বৈদ্যুতিক খুঁটি। এতে বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ হয়ে গেছে। প্রচন্ড বাতাস আর বৃষ্টিতে মাঠের পর মাঠ জুড়ে বোরো ধান কাদা-পানিতে একাকার হয়েছে। রাতের ঝড়ে প্রায় ২০ হাজার হেক্টর জমির ধান ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

Categories
বিশ্ব সারাদেশ

১৬৯৬ ব্রিটিশ নাগরিক সিলেট ছেড়েছেন

সিলেট প্রতিনিধ: বর্তমান করোনা পরিস্থিতিতে বাংলাদেশে আটকে পড়া বাংলাদশী বংশোদ্ভূত সর্বমোট ১৬৯৬ জন আটকেপড়া ব্রিটিশ নাগরিক যুক্তরাজ্যের উদ্দেশে সিলেট ত্যাগ করেছে।
বর্তমান করোনা পরিস্থিতিতে এ নিয়ে মোট এগারো দফায় সিলেট-ঢাকা-লন্ডনের উদ্দেশ্যে আটকে পড়া ব্রিটিশ নাগরিকরা বাংলাদেশ থেকে ফেরত যাচ্ছেন।

সিলেট থেকে একাদশ দফায় ২৭২ জন ব্রিটিশ নাগরিক নিয়ে যাত্রা করেছে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের দু’টি বিশেষ ফ্লাইট।
বুধবার সকাল ১০ ও ১১টার দিকে সিলেট এমএজি ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে পৃথকভাবে বিশেষ এ দুটি ফ্লাইটে করে ব্রিটিশ এই নাগরিকরা যাত্রা করেন বলে বিমান কর্মকর্তা মো. জাকির হোসাইন সুমন জানান।

তিনি জানান, সিলেট থেকে একাদশ দফায় বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের দুটি ফ্লাইটে এক শিশুসহ মোট ২৭২ জন ব্রিটিশ নাগরিক সিলেট ছেড়েছেন।

এরআগে গত ২১ এপ্রিল একটি বিশেষ চার্টার্ড ফ্লাইটে সিলেট থেকে প্রথম দফায় ১৫৬ জন, ২৩ এপ্রিল দ্বিতীয় দফায় ১৫৬ জন, ২৫ এপ্রিল তৃতীয় দফায় ১২২ জন,২৬ এপ্রিল চতুর্থ দফায় ১০১ জন,২৯ এপ্রিল পঞ্চম দফায় ১২৭ জন, ১ মে ৬ষ্ঠ দফায় ১৪৪ জন, ৫ মে সপ্তম দফায় ১৫৩ জন,৭মে অষ্টম দফায় ১৪৩ জন, ১০মে নবম দফায় ৪৭জন, ২০মে দশম দফায় ২৭৫ জন ও আজ এগারো তম দফায় ২৭২ জন ।

Categories
অর্থনীতি সারাদেশ

ভ্যাট রিটার্ন দাখিলের সময়সীমা বাড়িয়েছে এনবিআর

ভয়েস রিপোর্ট: করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব প্রতিরোধে সরকার ঘোষিত সাধারণ ছুটির কারণে জরিমানা ও সুদ আরোপ ছাড়া মার্চ-এপ্রিল ২০২০ সালের কর মেয়াদের ভ্যাট রিটার্ন দাখিলের সময়সীমা ৯ জুন পর্যন্ত এনবিআর।

মঙ্গলবার (২৬ মে) জাতীয় রাজস্ব বোর্ড থেকে এ তথ্য জানানো হয়েছে ।

(কোভিড-১৯)ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব প্রতিরোধে সরকার আগামী ৩০ মে পর্যন্ত সাধারণ ছুটি ঘোষণা করেছে। এ পরিস্থিতিতে দেশের অধিকাংশ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান মার্চ-এপ্রিল, ২০২০ কর মেয়াদের রিটার্ন দাখিল করতে পারেননি। মূল্য সংযোজন ও সম্পূরক শুল্ক আইন ২০১২ এর ধারা ৬৪ এর উপধারা ১ এবং মূল্য সংযোজন কর ও সম্পূরক শুল্ক বিধিমালা ২০১৬ এর বিধি ৪৭ এর উপ বিধি ১ অনুযায়ী প্রত্যেক নিবন্ধিত ব্যক্তিকে ফরম মূসক ৯.১ এর মাধ্যমে প্রত্যেক কর মেয়াদের জন্য মেয়াদ সমাপ্তির অনধিক ১৫ দিনের মধ্যে মূল্য সংযোজন কর দাখিলপত্র দেওয়ার বাধ্যবাধকতা রয়েছে।

এছাড়া মূল্য সংযোজন কর ও সম্পূরক শুল্ক আইন অনুযায়ী নির্ধারিত তারিখের মধ্যে কর দাখিলপত্র না করার ব্যর্থতা বা অনিয়মের ক্ষেত্রে ১০ হাজার টাকা জরিমানার বিধান রয়েছে।

মূল্য সংযোজন কর ও সম্পূরক শুল্ক আইন ধারা ১২৭ অনুযায়ী কোনো করদাতা নির্ধারিত তারিখের মধ্যে কমিশনারের কাছে প্রদেয় কর পরিশোধে ব্যর্থ হলে নির্ধারিত তারিখের পরবর্তী দিন থেকে পরিশোধের দিন পর্যন্ত প্রদেয় করের পরিমাণের উপর মাসিক ২ শতাংশ সরল হারে সুদ পরিশোধ করতে হয়।

জনস্বার্থে এনবিআর অধ্যাদেশ নম্বর ০২, ২০২০ মারফত জারি করা মূল্য সংযোজন কর ও সম্পূরক শুল্ক আইন প্রদত্ত ক্ষমতাবলে বৈশ্বক এ আপদকালীন সময়ে যে সব প্রতিষ্ঠান শুধু মার্চ-এপ্রিল ২০২০ কর মেয়াদের দাখিলপত্র যথাসময়ে পেশ করেনি সে সব প্রতিষ্ঠানের দাখিলপত্র পেশের সময়সীমা ৯ জুন ২০২০ পর্যন্ত বর্ধিত করলো এনবিআর।

Categories
সারাদেশ

হাঁটু পানিতে ঈদ জামাত : তদন্তে কমিটি গঠন

খুলনা সংবাদাদাতা : খুলনার উপকূল কয়রায় সুপার সাইক্লোন আম্ফানের আঘাতে ভেঙ্গে যাওয়া বাঁধ এলাকায় হাঁটু পানিতে ঈদ-উল-ফিতরের জামাত আদায়কে কেন্দ্র করে সৃষ্ট বিতর্কের অবসানে তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে ।
খুলনার জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হেলাল হোসেন তিন সদস্য বিশিষ্ট এই তদন্ত কমিটি গঠন করেন। তদন্ত কমিটিকে অতিদ্রুত রিপোর্ট দিতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

খুলনার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) জিয়াউর রহমান জানান, তদন্ত কমিটিতে জেলা প্রশাসনের স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক মো. ইকবাল হোসেনকে প্রধান করা হয়েছে। এছাড়া অপর দুই সদস্য হলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (বি- সার্কেল) মো. হুমায়ুন কবির ও কয়রার সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. নূর-ই-আলম সিদ্দিকী।

বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা যুবলীগ সভাপতি এসএম শফিকুল ইসলাম ঈদের দিন ভোরে ভাটার সময় বাঁধ মেরামতের জন্য গ্রামের লোকজনকে উপস্থিত থাকতে আগে থেকেই আহ্বান জানান। পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী সেখানেই ঈদের জামাত আদায়ের কথা ছিল। সে মোতাবেক আশপাশের কয়েকটি গ্রামের পাঁচ হাজারেরও বেশি লোক বাঁধে জড়ো হয়ে মেরামত কাজ শুরু করেন।

ঈদুল ফিতরের দিন ২নং কয়রা নদী ভাঙন পাড়ের ক্ষতিগ্রস্ত বাঁধ নির্মাণে স্বেচ্ছাশ্রমে অংশ নেয়া কয়েক হাজার হাঁটু পানিতে দাঁড়িয়েই পবিত্র ঈদের নামাজ আদায় করেন।

পানির মধ্যে আদায়কৃত ঈদ জামাতে ইমাম ছিলেন সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মাওলানা আ.খ.ম. তমিজ উদ্দিন ।

পানির মধ্যে ঈদের জামাত নামাজ আদায়ের সংবাদ দেশের গণমাধ্যম গুলোতে গুরুত্বসহকারে প্রচার হয় । এ নিয়ে ঝড় উঠে স্যোসাল মিডিয়াসহ বিভিন্ন গণমাধ্যমে। সৃষ্টি হয় নানা তর্ক- বিতর্ক ।
অবশেষে গঠন করা হলো তদন্ত কমিটি ।

Categories
সারাদেশ

নিলুফার মঞ্জুরের মৃত্যুতে শিক্ষামন্ত্রীর শোক

ভয়েস রিপোর্ট: ঢাকার সানবিমস স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা ও সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা সৈয়দ মঞ্জুর এলাহীর স্ত্রী অধ্যক্ষ নিলুফার মঞ্জুরের মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। তিনি বলেন, বাংলাদেশের শিক্ষা ব্যবস্থার অগ্রগতিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছেন নিলুফার মঞ্জুর।

মঙ্গলবার (২৬ মে) এক শোকবার্তায় শিক্ষামন্ত্রী নিলুফারের আত্মার মাগফিরাত কামনা ও শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

শোকবার্তায় শিক্ষামন্ত্রী বলেন, নিলুফার মঞ্জুর দেশের ইংরেজি মাধ্যমের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোর পাইওনিয়ার সানবিমস স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ। শিক্ষা বিস্তারে তার সুবিশাল কর্মযজ্ঞ ও অবদান তাকে একটি প্রতিষ্ঠানে পরিণত করেছিল। দেশ ও জাতি তার এ অবদানের কথা কৃতজ্ঞতাভরে স্মরণ করবে।

সানবিমস স্কুলের প্রতিষ্ঠাতার মৃত্যুতে আরও শোক জানিয়েছেন মন্ত্রী, উপমন্ত্রী ও প্রতিমন্ত্রীরা। তাদের মধ্যে রয়েছেন– বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি, সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কেএম খালিদ ও শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী।

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে অধ্যক্ষ নিলুফার মঞ্জুর মঙ্গলবার (২৬ মে) ভোর ৩টার দিকে সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান।

Categories
রাজনীতি সারাদেশ

বিএনপি নেতিবাচক রাজনীতির বৃত্তে ঘুরপাক খাচ্ছে : ওবায়দুল কাদের

ভয়েস রিপোর্ট : আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, করোনা ভাইরাসের সংকটের মধ্যেও বিএনপি নেতিবাচক রাজনীতির বৃত্তে ঘুরপাক খাচ্ছে।
তিনি বলেন, ‘করোনা সংকটের শুরু থেকে আজ অবদি শেখ হাসিনা সরকারের উদ্যোগ, গৃহীত ও বাস্তবায়িত সিদ্ধান্ত যখন দেশ বিদেশে প্রশংসিত, তখন মির্জা ফখরুল সাহেবেরা পুরানো নেতিবাচকতার বৃত্তেই ঘুরপাক খাচ্ছেন।’
ওবায়দুল কাদের আজ মঙ্গলবার তার সংসদ ভবনস্থ সরকারি বাসভবনে সমসাময়িক বিষয় নিয়ে আয়োজিত এক আনলাইন সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন।
আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘সিয়াম সাধনার পর পবিত্র ঈদের দিনে মানুষের পাশে না থেকে, মানুষকে সাহস না যুগিয়ে মির্জা ফখরুল সাহেবেরা সরকারের বিরুদ্ধে বিশোধগার ও সমালোচনার তীর ছুড়ছেন, যা অনাকাঙ্খিত ও অপ্রত্যাশিত । নিজেরা জনগণের পাশে দাঁড়াবেন না, ঘুর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্থদের খোঁজ খবরও নেবেন না, অথচ মিডিয়ায় সরকারের সমালোচনা করবেন। এটা কি বিএনপির রাজনীতি ?’
বিএনপিকে কোন কর্মসূচিতে সরকার বাধা দেয় নি দাবি করে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘পবিত্র ঈদের দিনেও জনগণ তাদের মুখের বিষ থেকে রেহাই পায় নি। সরকার একদিকে করোনাভাইরাস সংক্রমন রোধ ও আক্রান্তদের চিকিৎসা দিচ্ছে, অপর দিকে ঘুর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্থদের সুরক্ষায় পূর্ণ মনোনিবেশ করছেন। এমতাবস্থায় বিএনপিকে কোন কর্মসূচিতে বাধা প্রদান, মিথ্যাবাদী রাখাল বালকের গল্পের মত।’
সামনে বাংলাদেশের জন্য আরও কঠিন সময় আসছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, প্রাণঘাতী এ ভাইরাস থেকে রেহাই পেতে প্রতিরোধ ব্যবস্থা জোরদারের কোন বিকল্প নেই। সামনের কঠিন সময় আসুন আমরা ঐক্যবদ্ধ হয়ে সম্মিলিতভাবে প্রতিরোধ গড়ে তুলি। ধৈর্যহারা না হয়ে সাবধানতা অবলম্বন করি।
ওবায়দুল কাদের বলেন, আমরা উদ্বেগের সাথে লক্ষ করছি অধিকাংশ মানুষের মাঝে ধৈর্য্য ও শৃঙ্খলার ঘাটতি দেখা যাচ্ছে। অনেকে স্বাস্থ্য বিধি মেনে ঘরে অবস্থান করলেও, অনেকেই এসব কানে তুলছে না। স্বাভাবিক সময়ের মত ঘোরাফেরা করছেন, হাটবাজারের ভীড়ে অংশ নিচ্ছেন, স্বাস্থ্য বিধি ও সামাজিক দুরত্ব মেনে চলছেন না। করছেন না দায়িত্বশীল আচরণ। এই উদাসিনতা নিজের ও আশপাশের সকলের ভয়ানক বিপদ ডেকে আনছেন ও পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন উদ্যোগের অবনতি ঘটাচ্ছে ।
সবাইকে করোনা প্রতিরোধে সচেতন হওয়ার আহবান জানিয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, দয়া করে আসুন সবাই সচেতন হই। কারণ প্রতিকার সমাধান নয়, এই রোগ থেকে বাঁচতে ও সুরক্ষা পেতে প্রতিরোধের বিকল্প নেই। আপনার সামান্যতম শৈথিল্য নিজ পরিবার এবং পার্শ্ববর্তীদের ভয়াবহ অবস্থার দিকে ঠেলে দিতে পারে। ঈদের প্রাক্কালে গ্রাম ও শহরের মানুষের অবাদ বিচরণ, করোনাভাইরাসের সংক্রমনের ঝুকি বাড়িয়ে দিয়েছে।
বাংলাদেশের করোনা পরিস্থিতি ক্রমে অবনতি হওয়ার কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, ইতোমধ্যে বিশ্বের ২১৫টি দেশ এবং অঞ্চল সমুহের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থানের অবনতি হয়েছে, বাংলাদেশের অবস্থান বর্তমানে ২৩ তম। এই সংক্রমন থেকে ছোট বড় ধনী-গরীব কেউই রেহাই পাচ্ছে না। প্রাণঘাতি এই ভাইরাস থেকে রেহাই পেতে প্রতিরোধ ব্যবস্থা জোড়দার তথা সচেতনতার কোন বিকল্প নেই। সামনে কঠিন সময়ে আসুন আমরা ঐক্যবদ্ধ হয়ে সম্মিলিত ভাবে প্রতিরোধ গড়ে তুলি।
ওবায়দুল কাদের বলেন, সামনে কিছু দিন বাংলাদেশের পরিস্থিতি আরও কঠিন হবে হবে বলে বিশেষজ্ঞরা আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন। ধৈর্য্যহারা না হয়ে সাবধানতা অবলম্বনের জন্য আবারও আহ্বান জানান তিনি। যারা ফ্রন্ট লাইনে যুদ্ধ করছেন তাদেরও মনোবল না হারিয়ে সাহসিকতার সাথে লড়াই চালিয়ে যাবার অনুরোধ জানান ওবায়দুল কাদের। তাদের উদ্দেশ্যে কাদের বলেন, আপনারা মনে সাহস রাখুন ধৈর্য্য ধরুন। সাহসী নেতৃত্ব দেশরত্ন শেখ হাসিনা এবং তার সরকার আপনাদের পাশে রয়েছে। জনগনের সাহসিকতা নিয়ে আমরা অনিশ্চয়তার আধার কাটিয়ে উঠবো ইনশাল্লাহ ।

Categories
বিশ্ব সারাদেশ

করোনায় মৃত্যু সাড়ে ৩ লাখ ছাড়াল

ভয়েস ডেস্ক: বিশ্বে করোনাভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত মানুষের সংখ্যা প্রায় ৫৬ লাখ। আর এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃতের সংখ্যা ছাড়িয়ে গেছে ৩ লাখ ৫০ হাজার।

জনস হপকিন্স ইউনিভার্সিটির সেন্টার ফর সিস্টেম সায়েন্সেস অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের (সিএসএসই) তথ্য অনুযায়ী, বুধবার সকাল সাড়ে ৮টা পর্যন্ত বিশ্বের বিভিন্ন দেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৫৫ লাখ ৮৮ হাজার ৪০০ জন। এদের মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ৩ লাখ ৫০ হাজার ৪১৭ জনের। আর ইতোমধ্যে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ২২ লাখ ৮৬ হাজার ৮৮৯ জন।

জনস হপকিন্স ইউনিভার্সিটি জানিয়েছে, বিশ্বে এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়ে সবচেয়ে বেশি মৃত্যু হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রে, ৯৮ হাজার ৯০২ জন। দেশটিতে আক্রান্তের সংখ্যাও বিশ্বে সর্বোচ্চ, ১৬ লাখ ৮০ হাজার ৬৮০ জন।

মৃতের সংখ্যায় যুক্তরাষ্ট্রের পরেই উঠে এসেছে যুক্তরাজ্য। দেশটিতে এখন পর্যন্ত এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৩৭ হাজার ১৩০ জন। আক্রান্ত হয়েছেন ২ লাখ ৬৬ হাজার ৫৯৯ জন।

Categories
বিশ্ব সারাদেশ

লকডাউন শিথিল : বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার হুঁশিয়ারি

ভয়েস ডেস্ক : মহামারী করোনাভাইরাসের প্রকোপ কমে যাওয়ায় পৃথিবীর বিভিন্ন দেশ লকডাউন শিথিল করছে কেইবা কড়াকড়ি তুলে নিচ্ছে । এমন দেশগুলোতে আবারও সংক্রমণ বেড়ে যেতে পারে পারে বলে সতর্ক করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা । ডব্লিউএইচও’র হেলথ ইমার্জেন্সিজ প্রোগ্রামের নির্বাহী পরিচালক ডা. মাইকেল রায়ান এক ভার্চুয়াল ব্রিফিংয়ে দ্বিতীয় পর্যায়ের প্রাদুর্ভাবের আশঙ্কার কথা জানিয়েছেন।

করোনাভাইরাস সংক্রমণের হার কমে যাওয়ায় সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্র, চীন, ইতালি, জার্মানি, স্পেন, দুবাই, সোদি আরবসহ অনেক দেশই লকডাউনের কড়াকড়ি শিথিল করেছে এবং ব্যবসায়িক কার্যক্রম ফের চালু করেছে। এক্ষেত্রে সবাইকে এখনও সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখাসহ বাড়তি সতর্কতা মেনে চলার পরামর্শ দিয়েছে ডব্লিউএইচও।

বিশেষজ্ঞ ড. মাইক রায়ান বলেন, ‘এই মুহূর্তে আমরা বিশ্বজুড়ে প্রথম প্রাদুর্ভাবের মাঝামাঝি পর্যায়ে রয়েছি।’ রোগটি আরও বাড়তে পারে।

ডব্লিউএইচও’র সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞ মারিয়া ভান কেরখোভ বলেন, ‘সব দেশেরই এই মুহূর্তে অতিমাত্রায় সতর্ক থাকার প্রয়োজন। সবারই দ্রুত আক্রান্ত শনাক্ত করার প্রস্তুতি থাকার দরকার, এমনকি যেসব দেশ রোগটি নিয়ন্ত্রণে সফলতা দেখিয়েছে তাদেরও সতর্ক থাকতে হবে।’ তিনি বলেন, সুযোগ পেলেই ভাইরাসটি আবারও প্রাদুর্ভাব বাড়াতে শুরু করবে।