Categories
অপরাধ সারাদেশ

পৃথক হত্যা মামলায় সিআইডির কনস্টেবলসহ ৩জনের যাবজ্জীবন

চুাডাঙ্গায় পৃথক তিনটি হত্যা মামলায় সিআইডির এক কনস্টেবলসহ তিনজনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত। এদের মধ্যে একজনকে অস্ত্র মামলায় আরও ১০ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত।

২৬ নভেম্বর বৃহস্পতিবার বিকেলে চুয়াডাঙ্গা জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মোহা. রবিউল ইসলাম এ রায় ঘোষণা করেন। পরে দÐিতদের পুলিশ পাহারায় চুয়াডাঙ্গা জেলা কারাগারে নেয়া হয়।

যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্তরা হলেন, খুলনা জেলার দৌলতপুর থানার মহেশ্বরপাশা গ্রামের বাসিন্দা ও সিআইডির কনস্টেবল অসীম কুমার ভট্টাচার্য, চুয়াডাঙ্গার জীবননগর উপজেলার কন্দর্পপুর গ্রামের আনোয়ার হোসেন আনার ও চুয়াডাঙ্গার দর্শনা রামনগর গ্রামের জিয়ারুল ওরফে জিয়া। এছাড়া অস্ত্র মামলায় জিয়ারুল ওরফে জিয়াকে ১০ বছরের কারাদণ্ড দেন আদালত।

মামলা সূত্রে জানা যায়, ২০১৯ সালের ৮ জুন রাতে চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গার মাদ্রাসাপাড়ায় সিআইডির কনস্টেবল আসীম কুমার ভট্টাচার্য ছুরিকাঘাত করে শ্বাশুড়ি শেফালি আধিকারীকে হত্যা করে পালিয়ে যায়। নিহতের স্বামী সদানন্দ আধিকারী বাদী হয়ে আলমডাঙ্গা থানায় মামালা দায়ের করে। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা আলমডাঙ্গা থানার এসআই সাইফুল ইসলাম একই বছরের ২৭ জুন একজনকে অভিযুক্ত করে চার্জশিট দেন। ২৭ জন সাক্ষীর মধ্যে ১৯ জন সাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণ শেষে চুয়াডাঙ্গা জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক আসামির উপস্থিতে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেন।

এদিকে চুয়াডাঙ্গার জীবননগরে কন্দর্পপুর গ্রামে জমি-জমা সংক্রান্ত বিরোধের জেরে ২০১৮ সালের ৪ জুলাই দুপুরে আনোয়ার হোসেন আনারসহ বেশ কয়েকজন মিলে কুপিয়ে ও পিটিয়ে প্রতিবেশী গিয়াস উদ্দিনকে হত্যা করে। নিহতের ভাই বাদী হয়ে সাতজনকে আসামি করে জীবননগর থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই সিরাজুল ইসলাম সাতজনকে অভিযুক্ত করে ২০১৯ সালের ২৫ ফেব্রæয়ারি আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন। ১৮ জন সাক্ষীর মধ্যে ১১ জন সাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণ শেষে চুয়াডাঙ্গা জেলা ও দায়রা জজ আসামিদের উপস্থিতিতে আনোয়ার হোসেন আনারকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেন। অন্য ছয় আসামিকে বেকসুর খালাস দেন।

এছাড়া ২০১২ সালের ১০ ডিসেম্বর রাতে চুয়াডাঙ্গার জীবননগরের রতিরামপুর গ্রামে বাড়ি ফেরার সময় আব্দুর রহিমকে দৃর্বৃত্তরা বোমা মেরে ও কুপিয়ে হত্যা করে। এ ঘটনায় নিহতের স্ত্রী বাদী হয়ে অজ্ঞাত কয়েকজনকে আসামি করে জীবননগর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। পরে জিয়ারুল ওরফে জিয়াকে পুলিশ অস্ত্রসহ গ্রেফতার করে।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই শফিকুল ইসলাম পাঁচজনকে অভিযুক্ত করে আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন ২০১৪ সালের ৩১ জানুয়ারি।

বৃহস্পতিবার বিকেলে চুয়াডাঙ্গা জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক আসামির উপস্থিতিতে এ রায় ঘোষণা করেন। হত্যা মামলায় যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও অস্ত্র মামলায় ১০ বছরের কারাদণ্ড দেন।

আরও পড়ুন- মর্গে ধর্ষণের জন্যে মৃত কিশোরী পছন্দ ছিল মুন্নার

ভয়েস টিভি/ডিএইচ

Categories
অপরাধ

‘আনসার আল ইসলামের ৩ সদস্য গ্রেফতার

রাজধানীর পৃথক স্থানে অভিযান পরিচালনা নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন ‘আনসার আল ইসলামের তিন সদস্যকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৪। ২৬ নভেম্বর বৃহস্পতিবার বিকেলে প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন র‌্যাব-৪ এর সহকারী পুলিশ সুপার জিয়াউর রহমান চৌধুরী।

এর আগে ২৫ নভেম্বর বুধবার পুর্বের গ্রেফতার আনসার আল ইসলামের এর দুই সদস্যের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে সাভার ও রাজধানীর ধানমন্ডি এলাকা থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতাররা হলেন- গোপালগঞ্জের নাহিদ মিনা ওরফে নাহিদ (২৭),ঝালকাঠি জেলার সালাম হাওলাদার (২৫) ও গাজীপুর জেলার তুষার আহমেদ তুহিন (১৭)। তারা সবাই ‘আনসার আল ইসলাম’ এর সক্রিয় সদস্য।

গ্রেফতার নাহিদ পেশায় একজন ড্রাইভার। তিনি গত ৩ বছর ধরে এই সংগঠনের সাথে জড়িত থেকে গোপনে অন্যদের উদ্বুদ্ধকরণ কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছিলো। তিনি উচ্চ পর্যায়ের সদস্যদের সাথে নিয়মিত যোগাযোগ রক্ষা করে আসছিলেন।

আরও পড়ুন- আল্লাহর দলের দুই সদস্যকে গ্রেফতার

সালাম হাওলাদার আশুলিয়ার একটি কোম্পানিতে কাজ করে নতুন সদস্য সংগ্রহ করে আসছিলেন। পাশাপাশি চাঁদা সংগ্রহ ও গোপন বৈঠক করে আসিছলো সালাম।

তুষার আহমেদ তুহিন স্থানীয় একটি কলেজের ছাত্র। তিনি এই সংগঠনের সোস্যাল মিডিয়া গ্রুপে উগ্রবাদী লেখা পোস্ট ও ভিডিও আপলোড করে আসছিলেন।  এছাড়া তিনি বিভিন্ন উগ্রবাদী লেখালেখির ভিডিও এবং লিফলেট প্রচার করে আসছিলো।

র‌্যাব জানায়  গত ৩১ অক্টোবর নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন ‘আনসার আল ইসলাম’ এর দুই সদস্যকে গ্রেফতার করা হয়। তাদের দেওয়া তথ্যের ভিত্তি সাভার ও ধানমন্ডিতে অভিযান পরিচালনা করা হয়। এসময় নিষিদ্ধ ঘোষিত সংগঠনটির সক্রিয় দুই সদস্যকে গ্রেফতার করা হয়। তাদের কাছ থেকে ‘আনসার আল ইসলামের বিভিন্ন ধরনের উগ্রবাদী বই, লিফট, ব্যাগ ও মোবাইল ফোন উদ্ধার করা হয়।

র‌্যাব-৪ এর সহকারী পুলিশ সুপার জিয়াউর রহমান চৌধুরী বলেন, গ্রেফতারদের অন্য সহযোগী গ্রেফতারের জন্য র‌্যাব ৪ এর গোয়েন্দা নজরদারি অব্যাহত রয়েছে।

ভয়েস টিভি/ডিএইচ

Categories
অপরাধ সারাদেশ

গাড়িতে পুলিশের স্টিকার লাগিয়ে প্রতারণা : আটক ৫

প্রাইভেটকারে পুলিশ স্টিকার লাগিয়ে নিরীহ মানুষের কাছ থেকে বিভিন্ন কৌশলে টাকা আদায়কালে প্রতারক চক্রের ৫ সদস্যকে সাতক্ষীরা ডিবি পুলিশ। তারা নিজেদের ভারতের মুকেশ আম্বানীর  লোক বলে পরিচয় দিতো। এছাড়া ভেজাল কোমল পানীয় তৈরি করে বিক্রির সময় আটক হয়েছে আরও দুই প্রতারক।

গ্রেফতাররা হলেন, খুলনার পাইকগাছা থানার কাটিপাড়া গ্রামের আশরাফুল গাজী ওরফে এডি পাশা (ভারতীয় নাগরিক পরিচয়দানকারী), সাতক্ষীরার শ্যামনগর উপজেলার আবু সাঈদ, গোপালপুরের নির্মল সরকার, পাইকগাছার গদাইপুর ইউপি সদস্য হাকিম গাজী ও চরমুলই গ্রামের আজিবর রহমান। এ সময় পালিয়ে যায় আলাউদ্দিন, জাহাঙ্গীর, আসলাম সরদার ও মোঃ শাহীন। এছাড়া ভেজাল কোমল পানীয় বিক্রিকালে আটক হন আজিজুল হক রাজু ও আল ইমরান।

সাতক্ষীরা গোয়েন্দা পুলিশের অফিসার ইনচার্জ  মো. ইয়াসিন আলী চৌধুরী ভয়েস টেলিভিশনকে জানান, দুটি পৃথক অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়েছে। ১০ লাখ টাকা দিলে তার বিনিময়ে ৭ কোটি টাকার ব্যবস্থা করে দেওয়া হবে এমন কথা বলে কয়েক দফায় প্রতারক চক্রটি আবুল ফয়েজ নামের এক ব্যক্তির কাছ থেকে এই টাকা আদায় করে। তাদের কাছে মূল্যবান সীমানা পিলার ও তক্ষক সাপ রয়েছে। ভারতীয় কর্মকর্তা এডি পাশাকে বস হিসাবে দেখিয়ে তারা ফয়েজের কাছ থেকে দফায় দফায় টাকা আদায় করে আসছিল।

তিনি বলেন, সোমবার সকালে একইভাবে শহরের পলাশপোল এলাকার ‘কোলকাতা শপিং কমপ্লেক্স’ এর ৩য় তলায় এই ধরনের প্রতারণা করে আরও টাকা লেনদেনের সময় হাতেনাতে পাঁচজন প্রতারককে আটক করা হয়। এসময় আরও ৪ জন পালিয়ে যায়। তাদের কাছ থেকে পুলিশ স্টিকার লাগানো একটি প্রাইভেটকার, কয়েকটি ভূয়া ভারতীয় ভিজিটিং কার্ড ও অন্যান্য জিনিসপত্র জব্দ করা হয়।

ভয়েস টিভি/ডিএইচ

Categories
অপরাধ সারাদেশ

ভোলায় চর দখল নিয়ে দু’গ্রুপের সংঘর্ষে আহত ১০

ভোলায় চরে জমি দখল নিয়ে দুই গ্রুপের মধ্য দফায় দফায় সংঘর্ষে কমপক্ষে ১০ জন আহত হয়েছে।  ২৩ নভেম্বর সোমবার দুপুরে রাজাপুর ইউনিয়নের ভোলার চর নামক এলাকায় এ সংর্ঘষের ঘটনা ঘটে।

আহতদের বেশ কয়েকজনকে ভোলা ও বরিশাল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
স্থানীয় সুত্র জানায়, ভোলা সদরের রাজাপুর ইউনিয়নের মুল ভু-খন্ড থেকে বিচ্ছিন্ন দ্বীপ ‘ভোলার চরের’ মালিকানা নিয়ে স্থানীয় ওহাব ও রাসেল খান গ্রুপের মধ্যে বিরোধ চলে আসছিলো।

এ নিয়ে উভয় গ্রুপের মধ্যে বেশ কয়েকবার সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

গত দুইদিন চর দখল দারিত্ব নিয়ে উত্তেজনা হয়। এরই ধারাবাহিকতায় সোমবার দু’গ্রুপ সংঘর্ষে জড়িয়ে যায়। এতে অন্তত ১০ জন আহত হয়েছে।

ভোলা সদর মডেলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এনায়েত হোসেন এ তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, খবর পেয়ে পুলিশের একটি টিম ঘটনাস্থলে পাঠানো হয়েছে। তবে পরিস্তিতি কিছুটা শান্ত রয়েছে। তবে কি কারণে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটছে তা জানার চেষ্টা করছে পুলিশ।

ভয়েস টিভি/ডিএইচ

Categories
অপরাধ

দেশীয় অস্ত্রসহ কিশোরগঞ্জে কিশোর গ্যাংয়ের ৩ সদস্য আটক

কিশোরগঞ্জে দেশীয় অস্ত্রসহ কিশোর গ্যাংয়ের তিন সদস্যকে আটক করেছে র‌্যাব। ২০ নভেম্বর শুক্রবার ভোররাতে শহরের জেলা স্মরণী এলাকা থেকে তাদের আটক করা হয়।

আটকরা হচ্ছে- শুভ দাস (১৮), রিফাত আহমেদ সাবের (১৭) আতিকুল ইসলাম (১৭)। এ সময় তাদের কাছ থেকে তিনটি ধারালো চাকু উদ্ধার করা হয়।

র‌্যাব সূত্রে জানা গেছে, কয়েকজন কিশোর অপরাধী এক বড় ভাইয়ের নির্দেশে কিশোরগঞ্জ শহরের বত্রিশ জেলা স্মরণী এলাকায় দেশীয় অস্ত্র নিয়ে অবস্থান করছে- এমন গোপনে সংবাদ পেয়ে ভোররাতে সেখানে অভিযান চালিয়ে তিনজনকে আটক করা হয়।

কিশোরগঞ্জ র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব-১৪) কিশোরগঞ্জ ক্যাম্পের কোম্পানি কমান্ডার লেফটেন্যান্ট কমান্ডার বিএন এম শোভন খান জানান, শাওন নামে এক বড় ভাইয়ের নেতৃত্বে ওই কিশোররা বিভিন্ন অপরাধের সঙ্গে জড়িত। অভিযানে তিনজনকে আটক করা গেলেও বেশ কয়েকজন পালিয়ে গেছে। তাদের আটকের চেষ্টা চলছে। এ ঘটনায় কিশোরগঞ্জ মডেল থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে বলেও তিনি জানান।

ভয়েসটিভি/এএস

Categories
অপরাধ

৫ হাজার পিস ইয়াবাসহ লোহাগাড়ায় মাদক পাচারকারী আটক

চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়ক দিয়ে অভিনব কায়দায় পাচারকালে পাঁচ হাজার পিস ইয়াবা ট্যাবলেটসহ কুমিল্লার এক মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করেছে লোহাগাড়া থানা পুলিশ। এ সময় মাদক পাচারে ব্যবহৃত একটি মাইক্রোবাস জব্দ করা হয়।

২০ নভেম্বর শুক্রবার রাত আনুমানিক সাড়ে ৯টায় মহাসড়কের চুনতি রেঞ্জ কর্মকর্তার কার্যালয়ের সামনে বিশেষ অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়।

আটককৃত মাদক ব্যবসায়ীর নাম মো. বিল্লাল হোসেন (৪৫), সে কুমিল্লা জেলার হোমনা থানার মনিপুর মুক্তার বাড়ি (ঘারমুড়া) পতের কান্দি এলাকার মৃত আব্দুল খালেক মিয়ার পুত্র।

লোহাগাড়া থানার ওসি জাকের হোসাইন মাহমুদ এবং পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) রাশেদুল ইসলামের নির্দেশে এই অভিযানে নেতৃত্বদেন থানার এসআই মো. গোলাম কিবরিয়াসহ একটি পুলিশের টিম।

জাকের হোসাইন মাহমুদ ভয়েস টেলিভিশনকে জানান, আটককৃত আসামির বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা রুজু করে যথাযথ পুলিশ স্কটের মাধ্যমে আজ ২১ নভেম্বর শনিবার বিজ্ঞ আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।

ভয়েসটিভি/এএস

Categories
অপরাধ

অস্ত্র ও মাদকসহ গোল্ডেন মনির আটক

অবৈধ অস্ত্র ও মাদকসহ মনিরুল ইসলাম ওরফে গোল্ডেন মনিরকে আটক করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)। ২১ নভেম্বর বৃহস্পতিবার ভোরে রাজধানীর মেরুল বাড্ডায় গোল্ডেন মনিরের বাসায় অভিযান শুরু করে র‌্যাব।

গাড়ি ও স্বর্ণ ব্যবসায়ী গোল্ডেন মনির ঢাকা মহানগর বিএনপির সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক ও ওয়ার্ড কমিশনার আব্দুল কাইয়ুমের সহযোগী ছিলেন। তার বিরুদ্ধে স্বর্ণ চোরাচালানে আন্তর্জাতিক চক্রের সাথে জড়িত থাকার অভিযোগ রয়েছে।

র‌্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক লে. কর্নেল আশিক বিল্লাহ তাকে আটকের বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, অবৈধ অস্ত্র ও মাদকসহ মনিরকে তার বাসা থেকে আটক করা হয়েছে। অভিযান শেষে বিস্তারিত জানানো হবে।

অভিযানে গোল্ডেন মনিরের ছয়তলা ভবনের একটি ফ্লোর থেকে বিপুল পরিমাণ দেশি-বিদেশি মুদ্রা ও স্বর্ণালংকার উদ্ধার করা হয়েছে। গতকাল শুক্রবার দিবাগত রাতে র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পলাশ কুমার বসুর নেতৃত্বে শুরু হয় অভিযান। মনিরের ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানেও অভিযান চালানো হয়।

আরও পড়ুন- গোল্ডেন হ্যান্ডশেকের টাকা ১৮ অক্টোবর থেকে

ভয়েস টিভি/ডিএইচ

Categories
অপরাধ

আশুলিয়ার অটোরিক্সা চালক মিন্টু হত্যার রহস্য উদঘাটন, গ্রেফতার ১

সাভারের আশুলিয়ায় অটোরিক্সা চালক শেখ মিন্টু হত্যার রহস্য উদঘাটন করেছে পিবিআই। ব্যাটারী চালিত অটো রিকশার ব্যাটারী ছিনতাইয়ে ব্যর্থ হয়ে ছুরিকাঘাতে হত্যা করা হয় মিন্টুকে। এ ঘটনায় আলী হায়দার নাহিদ (২৭) নামের এক ছিনতাইকারীকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

১৯ নভেম্বর বৃহস্পতিবার পুলিশ পরিদর্শক (নিরস্ত্র) মো. রাশিদুল ইসলামের নেতৃত্বে সাভারের জামসিং এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতার আলী হায়দার নাহিদ সাভারের জামসিং এলাকার ইবনে মিজান আল মামুনের ছেলে। সে অটোরিকশার ব্যাটারী ছিনতাই চক্রের দলনেতা ছিল বলে জানা গেছে।

পরে ২০ নভেম্বর শুক্রবার দুপুরে সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের ঢাকা জেলা পুলিশ সুপার মো.খোরশেদ আলম।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, গ্রেফতার নাহিদ অটোরিকশার ব্যাটারী ছিনতাই চক্রের দলনেতা। তারা দীর্ঘদিন ধরে ওই এলাকায় অটোরিকশার ব্যাটারী ছিনতাই করে দেশের বিভিন্ন এলাকায় বিক্রি করে আসছিলো। গত ১৩ জুলাই গ্রেফতার নাহিদ ও তার দুই সহযোগী মেম্বরের মোড় ও মোল্লা টাওয়ারের মাঝামাঝি এলাকায় গেরুয়া যাওয়ার জন্য একটি অটোরিকশা ১৭০ টাকায় ভাড়া করে রওনা দেয়। তাদের উদ্দেশ্য হলো অন্ধকার নির্জন জায়গায় ব্যাটারী ছিনতাই। যাওয়ার পথে রাস্তা খারাপ থাকায় রিকশাচালক মোকামটেক দিয়ে যায়। এই সড়কের গলি অত্যাধিক অন্ধকার থাকায় রিকশাচালক যেতে নারাজ হয়। সে রিকশা থামিয়ে ভাড়া দিতে বলে। তারা ভাড়া না দেওয়ায় রিকশাচালক চিৎকার চেঁচামেচি করে। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে দলনেতা নাহিদ তার সুইচ গিয়ার চাকু দিয়ে পেটে ও গলায় পরপর কয়েকটি আঘাত করে। পরে স্থানীয়রা এগিয়ে আসলে জাহাঙ্গীর নগরের প্রাচীরের নিচ দিয়ে ঝাউবনে পালিয়ে যায়। এ সময় তার স্যান্ডেল ঘটনাস্থলে ফেলে যায়।

পুলিশ ব্যুরো ইনভেস্টিগেশনের ঢাকা জেলা পুলিশ সুপার মো. খোরশেদ আলম জানান, হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত সুইচ গিয়ার চাকুটি পাশের জলাশয়ে ফেলে দেয় নাহিদ। গ্রেফতার নাহিদের স্বীকারোক্তি ও তার দেখানো স্থান হতে তার স্যান্ডেল ও সুইচ গিয়ার চাকু উদ্ধার করা হয়েছে।

গত ১৩ জুলাই সোমবার গভীর রাতে সাভারের জামসিং জাহাঙ্গীরনগর হাউজিং এলাকায় মিন্টু শেখ (৩৫) নামের ওই রিকশা চালককে ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায় ছিনতাইকারীরা। নিহত মিন্টু শেখ নড়াইল জেলার লোহাগড়া থানার পানপাড়া গ্রামের সোলেমান মিয়ার ছেলে। তিনি সাভারের ছায়াবিথি এলাকায় একটি বাড়িতে ভাড়া থেকে অটোরিকশা চালাতেন।

ভয়েসটিভি/এএস

Categories
অপরাধ সারাদেশ

মানি লন্ডারিং মামলায় ফরিদপুরে আওয়ামী লীগ নেতা গ্রেফতার

দুই হাজার কোটি টাকা মানি লন্ডারিং মামলায় এবার গ্রেফতার হলেন ফরিদপুরের আওয়ামী লীগ নেতা ও পৌরসভার কাউন্সিলর শেখ মো. জলিল (৪৮)। ১৯ নভেম্বর বৃহস্পতিবার দুপুরে ফরিদপুর শহরের রেল স্টেশন বাজার এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করে ফরিদপুর কোতোয়ালী থানার পুলিশ।

শেখ মো. জলিল শহরের লক্ষ্মীপুর মহল্লার মৃত শেখ মো. আলাউদ্দিনের ছেলে। তিনি ফরিদপুর পৌরসভার ১৭ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি এবং ওয়ার্ড কাউন্সিলর। আগামী ১০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠেয় ফরিদপুর পৌরসভা নির্বাচনে কাউন্সিলর পদে নির্বাচনের জন্য মনোনয়নপত্রও জমা দিয়েছেন তিনি।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে ফরিদপুর কোতয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোরশেদ আলম বলেন, আলোচিত বরকত-রুবেলের নামে দায়ের করা মানি লন্ডারিং মামলায় জলিলও অন্যতম আসামি। তাই তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

ওসি বলেন, বিকেলেই জলিলকে জেলার মূখ্য বিচারিক হাকিমের আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে। পরে সিআইডি ঢাকা তাকে ফরিদপুর জেল থেকে তাদের হেফাজতে নেবে। জলিলের বিরুদ্ধে টেপাখোলা গরু হাটে চাঁদাবাজির অভিযোগে একটি মামলা রয়েছে। তবে ওই মামলায় তিনি বর্তমানে জামিনে আছেন। এছাড়া তার বিরুদ্ধে জমি দখল ও রেলওয়ের জমি দখল করে নিজে ব্যবহার ও ভাড়া দেয়ার অভিযোগ রয়েছে।

গত ২৬ জুন মানি লন্ডারিংয়ের অভিযোগে সিআইডির পরিদর্শক এস এম মিরাজ আল মাহমুদ বাদী হয়ে ঢাকার কাফরুল থানায় বরকত ও রুবেলের বিরুদ্ধে মামলাটি দায়ের করেন। এ মানি লন্ডারিং মামলায় ওই দুই ভাইয়ের বিরুদ্ধে দুই হাজার কোটি টাকার সম্পদ অবৈধ উপায়ে উপার্জন ও পাচারের অভিযোগ আনা হয়। ২০১২ সালের মানি লন্ডারিং প্রতিরোধ আইন সংশোধনী ২০১৫ এর ৪(২) ধারায় এ মামলাটি দায়ের করা হয়।

এ মামলাটি তদন্ত করছেন সিআইডির সহকারী পুলিশ সুপার উত্তম কুমার বিশ্বাস।

উত্তম কুমার বিশ্বাস বলেন, বরকত ও রুবলেসহ মানি লন্ডারিং মামলায় এ পর্যন্ত ১০ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার এ মামলার আসামি হিসেবে ফরিদপুরে শেখ মো. জলিলকে গ্রেফতার করেছে কোতয়ালী থানা পুলিশ। তাকে আগামী রোববার ঢাকা মেট্রপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে এ মামলায় ‘শ্যোন অ্যারেস্ট’ দেখানো হবে। জলিলকে নিয়ে এ মামলায় গ্রেফতারের সংখ্যা হবে ১১ জন।

ফরিদপুরের আলোচিত শহর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ হোসেন বরকত এবং তার ভাই ফরিদপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি ইমতিয়াজ হাসান রুবেলকে গত ৭ জুন গ্রেফতার করা হয়। তাদের জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সুবল চন্দ্র সাহার বাড়িতে হামলার আসামি হিসেবে প্রথমে গ্রেফতার করা হয়েছিল। পরে তাদের বিরুদ্ধে মানি লন্ডারিংয়ের মামলা হয়। গ্রেফতারের পর শহর আওয়ামী লীগ ও ফরিদপুর প্রেসক্লাব থেকে তাদের বহিষ্কার করা হয়।

গত ১৬ মে রাতে ফরিদপুর শহরের গোয়ালচামট এলাকার মোল্লাবাড়ি সড়কে অবস্থিত সুবল চন্দ্র সাহার বাড়িতে দুই দফা হামলার ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় গত ১৮ মে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট সুবল চন্দ্র সাহা বাদী হয়ে অজ্ঞাত ব্যক্তিদের আসামি করে ফরিদপুর কোতয়ালী থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

ভয়েস টিভি/এসএফ

Categories
অপরাধ

নারায়ণগঞ্জে পোশাক শ্রমিক ধর্ষণের অভিযোগে দুজন গ্রেফতার

নারায়ণগঞ্জ সিদ্ধিরগঞ্জ পোশাক শ্রমিক ধর্ষণের অভিযোগে দুইজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ১৮ নভেম্বর বুধবার রাতে পাঠানটুলির নতুন আইলপাড়া এলাকা থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়। বৃহস্পতিবার তাদের আদালতে পাঠানোর প্রস্তুতি নিয়েছে পুলিশ।

গ্রেফতাররা হলেন, সিদ্ধিরগঞ্জের নতুন আইলপাড়ার আব্দুল মজিদ মিয়ার ছেলে সোহেল আকন্দ (২৮) এবং বাগেরহাটের চিতলমারী থানার কচুয়া গ্রামের আবুল হোসেনের ছেলে নুরুল ইসলাম (৩০)।

সিদ্ধিরগঞ্জ থানার উপ-পরিদর্শক আবুল বাশার জানান, রাতের পোশাক কারখানার কাজ শেষে বাড়ি ফেরার পথে পূর্বপরিচিত ওই দুই যুবক কিশোরীকে ডেকে নতুন আইলপাড়া এলাকায় নিয়ে যায়। সেখানে একটি ছয়তলা ভবনের পঞ্চম তলায় নুরুল ইসলামের ভাড়া বাসায় নিয়ে কিশোরীকে তারা ধর্ষণ করেন।

সেখান থেকে ওই কিশোরী বাড়িতে ফিরে তার বড় বোনকে জানালে তিনি বাদী হয়ে সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় ওই দুইজনকে আসামি করে মামলা করেন। রাতেই অভিযান চালিয়ে তাদের দুইজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

ভয়েস টিভি/এমএইচ