Categories
অপরাধ

রোহিঙ্গা ক্যাম্প থেকে ‘কালা জোবায়ের’ গ্রেফতার

কক্সবাজারে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে সন্ত্রাসী বলে পরিচিত জোবায়ের (২৫) ওরফে কালা জোবায়েরকে গ্রেফতার করছে পুলিশ।

১৮ সেপ্টেম্বর শনিবার রাত দেড়টার দিকে টেকনাফ শালবাগানের ২৬ নং ক্যাম্প থেকে তাকে গ্রেফতার করে ১৬ আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের সদস্যরা।

জোবায়ের ওই ক্যাম্পের এ/৩ ব্লকের নুর মোহাম্মদের ছেলে।

কক্সবাজার ১৬ আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়ন অধিনায়ক উপপরিদর্শক (এসপি) তারিকুল ইসলাম তারিক এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

তিনি জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে শালবাগান রোহিঙ্গা ক্যাম্পে অভিযান চালানো হয়। সেখান থেকে হত্যা ও অপহরণের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে গ্রেফতার করা হয় জোবায়েরকে। তিনি একাধিক মামলার পলাতক আসামি। সন্ত্রাসী, ডাকাতি, অপহরণের সঙ্গে জড়িত থাকার পাশাপাশি মাদক ব্যবসার সঙ্গেও জড়িত ছিলেন তিনি। এছাড়া ‘তোহা-জোবায়ের’ নামে সন্ত্রাসী গ্রুপের অন্যতম প্রধান সদস্য জোবায়ের।

তিনি আরও জানান, পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা নিতে জোবায়েরকে টেকনাফ মডেল থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হবে।

ভয়েসটিভি/এএস

Categories
অপরাধ

রাজধানীতে মাদকবিরোধী অভিযানে আটক ৫০

রাজধানী ঢাকায় মাদকবিরোধী অভিযান চালিয়ে মাদক বিক্রি ও সেবনের অপরাধে ৫০ জনকে আটক করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি)।

১৩ সেপ্টেম্বর সোমবার সকাল ৬টা থেকে ১৪ সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার সকাল ৬টা পর্যন্ত রাজধানীর বিভিন্ন থানা এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়।

ডিএমপির মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশন্স বিভাগের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (এডিসি) ইফতেখায়রুল ইসলাম জানান, অভিযানে আটক ব্যক্তিদের কাছ থেকে ২৩৯ গ্রাম (এক হাজার ১২১ পুরিয়া) হেরোইন, ১০ কেজি ২৫০ গ্রাম গাঁজা, ১৫ বোতল ফেনসিডিল ও দুই হাজার ৯৬ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট জব্দ করা হয়।

আটক ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে ডিএমপির থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে ৩৬টি মামলা দায়ের করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

ভয়েসটিভি/এএস

Categories
অপরাধ

নোয়াখালীতে গৃহবধূকে নির্যাতনের ভিডিও ভাইরাল, স্বামী আটক

নোয়াখালীর সেনবাগ উপজেলার মোহাম্মদপুর ইউনিয়নে স্বামী ও দেবর কতৃক বিবি আমেনা (৩০) নামে এক গৃহবধূকে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতনের ভিডিও ভাইরাল হয়েছে। এ ঘটনায় জড়িত গৃহবধূর স্বামী আমির হোসেনকে (৪০) আটক করেছে পুলিশ।

১২ সেপ্টেম্বর রোববার দুপুরে সেনবাগ উপজেলার ৭নং মোহাম্মদপুর ইউনিয়নের নিজ বাড়ি থেকে তাকে আটক করে পুলিশ।

আটককৃত আমির হোসেন সেনবাগ উপজেলার ৭নং মোহাম্মদপুর ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের দক্ষিণ রাজারামপুর গ্রামের মোহাম্মদীয়া মিয়া বাড়ির মৃত মফিজের ছেলে।

স্থানীয়রা জানায়, গৃহবধূ বিবি আমেনাকে নিজ বাসার সামনে নির্যাতন করে তার স্বামী আমির হোসেন ও দেবর এরশাদ। এক প্রতিবেশী মারধর করার ১ মিনিট ১৬ সেকেন্ডের একটি ভিডিও মোবাইল ফোনে ধারণ করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে আপলোড করলে তা মূহুর্তেই ভাইরাল হয়ে যায়। ঘটনাটি সেনবাগ থানা পুলিশের নজরে আসলে স্বামী আমির হোসেনকে আটক করে পুলিশ।

সেনবাগ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল বাতেন মৃধা আটকের বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, স্বামী আমির হোসেন থানা হাজতে রয়েছে। অন্যদিকে দেবর এরশাদকে আটক করতে অভিযান অব্যাহত আছে। নির্যাতিত গৃহবধূ তার বাবার বাড়িতে থাকায় আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণে বিলম্ব হচ্ছে।

ভয়েসটিভি/এএস

Categories
অপরাধ

বিয়ে করে বউ বিক্রি করা ছিল যার পেশা

উচ্চমাধ্যমিক পাস করে ঢাকার একটি হাসপাতালে চাকরি করতেন লিটন মিয়া।  অনৈতিক কর্মকাণ্ডের কারণে সেখান থেকে চাকরিচ্যুত হয়ে চলে যান ইরাকে।

দেশটির রাজধানীর একটি হাসপাতালে উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা হিসেবে চাকরি করেন বলে নিজেকে পরিচয় দিতেন। এ পরিচয়ে দেশে বিয়ে করেছেন ছয়টি। বিয়ের পর এসব নারীকে ইরাকে নিয়ে যেতেন। এরপর সেখানে নিয়ে তাদের বিক্রি করে দিতেন। বিয়ের পর এখন পর্যন্ত পাঁচ নারীকে দেশটিতে পাচার করেছেন তিনি।

১১ সেপ্টেম্বর শনিবার  সকালে রাজধানীর উত্তরা ও মিরপুরে অভিযান চালিয়ে নারী পাচারকারী সিন্ডিকেটের মূলহোতা লিটন মিয়াসহ তার আরেক সহযোগী আজাদকে গ্রেফতার করা হয়।

তাদের কাছ থেকে উদ্ধার করা হয় একটি বিলাসবহুল প্রাইভেটকার, বিয়ার, দেশি-বিদেশি জাল টাকা, পাসপোর্ট ও বিভিন্ন সিল।

র‌্যাব দাবি করছে, গ্রেফতার দুজন সংঘবদ্ধ মানবপাচার চক্রের সদস্য। বিশেষ করে বিউটিপার্লারে কাজ জানা নারী ও নার্সিং পেশায় নিয়োজিত নারীদের পাচার করেন তিনি। সেখানে সুপারশপে চাকরির প্রলোভন দেখিয়ে তারা নারীদের পাচার করতেন। ইরাক, দুবাইসহ বিভিন্ন দেশে নিয়ে জিম্মি করে ভুক্তভোগী পরিবারগুলোর কাছ থেকে মোটা অংকের টাকা আদায় করতেন।

এসব দেশে তাদের একাধিক সেফ হাউস রয়েছে। এখন পর্যন্ত দুই শতাধিক নারী-পুরুষকে তারা পাচার করেছেন বলে দাবি করেছে র‌্যাব।

শনিবার বিকেলে রাজধানীর কারওয়ান বাজার র‌্যাব মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন র‌্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন।

তিনি বলেন, মধ্যপ্রাচ্যে নিয়ে যাওয়ার পর সুযোগ বুঝে নারীদের বিক্রি করে দেওয়া হতো। চক্রের ১০ সদস্যের মধ্যে সাতজন ইরাকসহ মধ্যপ্রাচ্যে আর বাকিরা দেশে এই কাজ করছিল। তিন থেকে চার লাখ টাকার বিনিময়ে এসব নারীকে চাকরির আশ্বাস দিয়ে মধ্যপ্রাচ্যে নিয়ে যাওয়া হতো। মানবপাচারের প্রথম ধাপে ট্যুরিস্ট ভিসায় দুবাই এরপর ভিজিট ভিসার মাধ্যমে ইরাকে নেওয়া হতো। চক্রটি ৩০-৪০ জন নারীকে পাচার করেছে।

 

Categories
অপরাধ জাতীয়

রাজধানীতে জঙ্গি আস্তানায় র‌্যাবের অভিযানে জেএমবি নেতা আটক

রাজধানীর মোহাম্মদপুরের বসিলায় একটি জঙ্গি আস্তানা অভিযান চালিয়েছে র‌্যাব-২ । পূর্বে আটক হওয়া জঙ্গিদের দেয়া তথ্যানুযায়ী র‌্যাব জানতে পারে বাসাটিতে জেএমবির শীর্ষস্থানীয় একজন নেতা থাকতেন। এসব তথ্যের ভিত্তিতে বসিলায় অভিযান পরিচালনা করা হয়। আস্তানা থেকে আটক জঙ্গির নাম এমদাদুল হক ওরফে উজ্জ্বল মাস্টার।

৯ সেপ্টেম্বর বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৯টায় বসিলার জঙ্গি আস্তানায় অভিযান শেষে র‌্যাব সদরদপ্তরের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন এসব কথা জানান।

তিনি বলেন, ময়মনসিংহ থেকে গ্রেপ্তার জেএমবির চার সদস্যকে জিজ্ঞাসাবাদ করে এই জঙ্গির আস্তানা সন্ধান পাওয়া যায়। গ্রেপ্তার জঙ্গিরা জিজ্ঞাসাবাদে বসিলা থেকে আটক জঙ্গির বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ কিছু তথ্য দিয়েছিল র‌্যাবকে। এর ভিত্তিতে র‌্যাব ঢাকার বাইরে জামালপুর ও রাজশাহীসহ বিভিন্ন জায়গায় অভিযান পরিচালনা করে। পরে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে মধ্যরাত থেকে বসিলার জঙ্গি আস্তানায় অভিযান চালায়। অভিযানে বর্তমান সময়ের জেএমবির এক শীর্ষ নেতাকে আটক করতে সক্ষম হয়। আটক জঙ্গির নাম এমদাদুল হক ওরফে উজ্জ্বল মাস্টার।

কমান্ডার খন্দকার আল মঈন বলেন, অভিযানস্থল থেকে পিস্তল, গুলি, নগদ পৌনে তিন লাখ টাকা, রাসায়নিকদ্রব্য, দেশীয় পদ্ধতিতে তৈরি বুলেটপ্রুফ জ্যাকেট ও বেশকিছু জিহাদি বই জব্দ করা হয়। আস্তানা থেকে আটক জঙ্গিকে র‌্যাব সদরদপ্তরে নেওয়া হয়েছে। সেখানে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। এছাড়া সে জেএমবির কোন পর্যায়ের সদস্য তা জিজ্ঞাসাবাদ শেষে জানা যাবে।

তিনি আরও বলেন, বাসার দারোয়ান ও আটক জঙ্গিকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, সে চলতি মাসের ২ তারিখে ভবনটির দোতালায় একটি ফ্ল্যাট ভাড়া নেয়। বাসা ভাড়া নেওয়ার সময় প্রিন্টিং প্রেসে কাজ করার কথা বলে। বাসা ভাড়ার সময় পাঁচ হাজার টাকা অগ্রিম টাকা দেওয়া হয়েছে। এক সপ্তাহের মধ্যে পরিবারের লোকজন এলে জাতীয় পরিচয়পত্র দেবে এমন শর্তে বাসাটি ভাড়া নেয় আটক জঙ্গি ও আরেকজন। বাসাটিতে আরো দুইজন লোকের আসা-যাওয়া ছিল। তারা গতকাল বাসাটি থেকে বের হয়ে যান।

এর আগে গত ৪ সেপ্টেম্বর ভোরে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জঙ্গিদের তৎপরতা ও ব্রহ্মপুত্র নদে একটি নৌকায় জঙ্গিদের অবস্থানের কথা জানতে পেরে র‍্যাব-১৪’র একটি দল ময়মনসিংহের খাগডহর এলাকায় অভিযান চালায়। এ সময় র‍্যাবের সঙ্গে গুলিবিনিময়ের ঘটনা ঘটে।

পরে ঘটনাস্থল থেকে কাছ থেকে একটি বিদেশি পিস্তল, একটি ম্যাগজিন, তিন রাউন্ড গুলি, আটটি বোমা সদৃশ বস্তু, চারটি ব্যাগ, দরজা ও লক ব্রেকিং সরঞ্জামাদি, একটি মাটির চুলা এবং একটি ইঞ্জিনচালিত নৌকা জব্দ করা হয়। একই সঙ্গে চার জনকে আটক করে র‍্যাব।

পরে ওইদিন দুপুরে র‍্যাব-১৪’র প্রধান কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলন করেন র‍্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক খন্দকার আল মঈন।

তিনি জানান, জামালপুরের একটি গোপন আস্তানায় বিশেষ প্রশিক্ষণ করে জঙ্গিরা ময়মনসিংহে ব্যাংকসহ কয়েকটি আর্থিক প্রতিষ্ঠান, এনজিও, স্বর্ণের দোকান টার্গেট করে ডাকাতির প্রস্তুতি নিচ্ছিল।

Categories
অপরাধ

রাজধানীতে অভিযানে গ্রেফতার ৪৫

মাদক বিরোধী অভিযান চালিয়ে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকা থেকে ৪৫ জনকে গ্রেফতার করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) বিভিন্ন অপরাধ ও গোয়েন্দা বিভাগ।

৫ সেপ্টেম্বর রোববার সকাল ছয়টা থেকে ৫ সেপ্টেম্বর সোমবার সকাল ছয়টা পর্যন্ত রাজধানীর বিভিন্ন থানা এলাকায় এই অভিযান চালানো হয়।

গ্রেফতারের সময় তাদের কাছ থেকে ১০২ গ্রাম ১০১ পুরিয়া হেরোইন, ৪০ বোতল দেশি মদ, ২ কেজি ২০ গ্রাম ২৭ পুরিয়া গাঁজা ও ২ হাজার ৭২৩ পিস ইয়াবা জব্দ করা হয়।

গ্রেফতারদের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে ৩১টি মামলা হয়েছে।

ভয়েসটিভি/এএস

Categories
অপরাধ

র‌্যাবের সঙ্গে জঙ্গিদের গোলাগুলি, ৪ জঙ্গি গ্রেফতার

ময়মনসিংহের খাগডহর এলাকা থেকে অস্ত্রসহ চার জঙ্গিকে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব। ৪ সেপ্টেম্বর শনিবার ভোর রাত ৫টার দিকে তাদের গ্রেফতার করা হয়।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন র‍্যাব-১৪’র অধিনায়ক মো. রোকনুজ্জামান।

তিনি বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জঙ্গিদের তৎপরতা ও অবস্থান সম্পর্কে আমাদের কাছে তথ্য আসে। অনুসন্ধান করে এর সত্যতা পাওয়া যায়। পরে র‍্যাব-১৪’র একটি দল খাগডহর এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে। র‍্যাবের উপস্থিতি বুঝতে পেরে জঙ্গিরা গুলি ছুঁড়ে। র‍্যাবও আত্মরক্ষার্থে পাল্টা গুলি ছুঁড়ে।

র‍্যাব-১৪’র অধিনায়ক আরও বলেন, এভাবে গুলি বিনিময় চলতে থাকে। এক পর্যায়ে ওই চার জঙ্গিকে অস্ত্রসহ গ্রেফতার করে র‍্যাব। বিস্তারিত পরে জানানো যাবে।

ভয়েসটিভি/এএস

Categories
অপরাধ

১৬ বছর সাজার ভয়ে ২৫ বছর পলাতক, অবশেষে আটক

২৫ বছর ধরে পলাতক থাকা ১৬ বছরের সাজাপ্রাপ্ত আসামি কাজী আজানুল হককে (৬৫) আটক করেছে কুড়িগ্রাম সদর থানা পুলিশ।
আটক কাজী আজানুল হক ভুরুঙ্গামারী উপজেলার ভোগডাঙ্গা এলাকার মৃত কাজী আনোয়ারুল হকের পুত্র।

পুলিশ জানায়, ঠাকুরগাঁও বালিয়াডাঙ্গীতে লাহিড়ী হাট খাদ্যগুদামে ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি এলএসডি) হিসাবে কর্মরত থাকাকালে তার বিরুদ্ধে বালিয়াডাঙ্গী থানার মামলা নম্বর ৬ তারিখ ৩১/৭/৯৪ যাহার জিআর নং ৩১/৯৪ রুজু হয়। উক্ত মামলায় তার ১৬ বছর সাজা হয়। আসামি মামলা হওয়ার পর থেকে পলাতক ছিলেন।

রোববার ভোরে কুড়িগ্রাম পুলিশ সুপারের নির্দেশনায় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার(সদর সার্কেল) উৎপল কুমার রায়ের নেতৃত্বে
ইন্সপেক্টর তদন্ত গোলাম মুর্তজা, এস আই প্রলয় কুমার বর্মা, এস আই কাইয়ুম, এসআই আমিনুল, এএসআই শামীমসহ সঙ্গীয় ফোর্স অভিযান চালিয়ে ভুরুঙ্গামারী হাসপাতালে পিছন থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

রোববার দুপুরে কুড়িগ্রাম সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) খান মো. শাহরিয়ার জানান, আসামিকে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

ভয়েসটিভি/এএস

Categories
অপরাধ

স্বর্ণ ডাকাতি মামলা : রিমান্ড শেষে কারাগারে ডিবির ওসি সাইফুল

ফেনীতে স্বর্ণ ডাকাতি মামলায় জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাইফুল ইসলামকে তৃতীয় দফায় রিমান্ড শেষে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। ১১ দিনের রিমান্ড শেষে ২৭ আগস্ট শুক্রবার ফেনীর সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যজিস্ট্রেট মো. জাকির হোসাইনের আদালতের মাধ্যমে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়।

এর আগে ২২ আগস্ট রোববার ফেনীর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আবদুল্লাহ খান তৃতীয় দফায় তকে তিনদিনের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের আদেশ দেন।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) পরিদর্শক শাহ আলম বলেন, স্বর্ণ ডাকাতি মামলায় ওসি সাইফুলের চারদিন করে দুই দফায় রিমান্ডের পর তৃতীয় দফায় তিনদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত। শুক্রবার রিমান্ড শেষে তাকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়।

এর আগে ৮ আগস্ট রোববার ২০টি স্বর্ণের বার নিয়ে ঢাকায় যাওয়ার সময় ফেনীর ফতেহপুর এলাকায় গাড়ি থামিয়ে ব্যবসায়ী গোপাল কান্তি দাসের কাছ থেকে সেগুলো ছিনিয়ে নেয় গোয়েন্দা পুলিশ। পরে ১০ আগস্ট মঙ্গলবার গোয়েন্দা পুলিশের ওসি সাইফুল ইসলামসহ ছয় পুলিশ সদস্যকে আসামি করে মামলা করেন ওই ব্যবসায়ী। ঘটনার প্রাথমিক সত্যতা পাওয়ায় ওসি সাইফুলসহ ছয় কর্মকর্তাকে গ্রেফতার করা হয়।

আরও পড়ুন : স্বর্ণ ডাকাতি: মামলার তদন্ত সিআইডি বা পিবিআইকে দেয়ার জন্যে

ভয়েস টিভি/এএন

Categories
অপরাধ

বলাৎকারের কথা প্রকাশ হওয়ার ভয়ে আরাফাতকে হত্যা করেন অধ্যক্ষ মোশারফ

ফেনীর সোনাগাজীতে মাদ্রাসা ছাত্র আরাফাত হোসেনকে (৯) হত্যার দায় স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন অধ্যক্ষ মোশারফ হোসেন (৪২)। ওই ছাত্রকে বলাৎকারের পর বিষয়টি প্রকাশ হয়ে যাওয়ার ভয়েই হত্যার পথ বেছে নেন বলে আদালতকে জানান তিনি। ২৬ আগস্ট বৃহস্পতিবার ফেনীর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. জাকির হোসাঈনের আদালতে অধ্যক্ষের দেয়া জবানবন্দি লিপিবদ্ধ করা হয়।

অধ্যক্ষ মোশারফ হোসেন উপজেলার চরমজলিশপুর ইউনিয়নের চরলক্ষীগঞ্জ হাফেজ সামছুল হক (রঃ) নুরানী হাফিজিয়া মাদ্রাসা ও এতিমখানার অধ্যক্ষ। তার বাড়ি ময়মনসিংহের কিশোরগঞ্জ উপজেলায়।

নিহত আরাফাত একই মাদরাসা ও এতিমখানার ছাত্র। তার বাড়ি উপজেলার চরমজলিশপুর ইউনিয়নের ছয়আনি গ্রামে। তার বাবার নাম ফানা উল্লাহ।

এর আগে ২২ আগস্ট রবিবার ভোর ৪টার দিকে হেফজ বিভাগের ছাত্র আরাফাত হোসেনকে হত্যা করে মাদ্রাসা সংলগ্ন দাগনভূঞা উপজেলার মাতুভূঞা ইউপির মোমারিজপুর এলাকার একটি ডোবায় লাশ ফেলে দেয় দুর্বৃত্তরা। এরপর পানিতে ডুবে ওই ছাত্রের মৃত্যু হয়েছে বলে এলাকায় প্রচার করেন তারা। খবর পেয়ে দাগনভূঞা থানা পুলিশ সেখান থেকে লাশ উদ্ধার করে। মরদেহের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন থাকায় আরাফাতের পিতা বাদী হয়ে এ ঘটনায় অধ্যক্ষসহ ৪ জনের নাম উল্লেখ করে মামলা দায়ের করেন।

এরপর ওই দিন রাতেই মাদ্রাসায় অভিযান চালিয়ে অধ্যক্ষ মোশারফ হোসেন ও আরাফাতের এক সহপাঠিসহ আরো দুই শিক্ষককে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

২৩ আগস্ট সোমবার গ্রেপ্তারকৃতদের মধ্যে অধ্যক্ষ মোশারফ হোসেনকে ৪ দিনের, সহকারী শিক্ষক আজিম উদ্দিন (৩৩) ও নুর আলীকে ৩ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত। সেইসঙ্গে গ্রেপ্তারকৃত জোবায়ের আলম ফাইজকে (১১) গাজীপুর শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে প্রেরণের আদেশ দেওয়া হয়।

দাগনভূঞা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ইমতিয়াজ আহমেদ বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন , ৪ দিনের রিমান্ড শেষে অধ্যক্ষকে আদালতে পাঠানো হয়। সেখানে তিনি ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবনন্দি প্রদান করেন। এরপর তাকে কারাগারে পাঠিয়ে দেওয়া হয়।

এদিকে আদালত সূত্রে জানা যায়, এর আগেও আরাফাতকে বলাৎকার করেছেন বলে স্বীকার করেন অধ্যক্ষ মোশারফ হোসেন। ২১ আগস্ট শনিবার রাতে বলাৎকারের পর আরাফাত বিষয়টি তার পিতাকে বলে দেবে বলে অধ্যক্ষকে জানালে তিনি হত্যার সিদ্ধান্ত নেন। এ পর্যায়ে গলা টিপে আরাফাতকে হত্যা করে লাশ মাদ্রাসা সংলগ্ন ওই ডোবায় ফেলে দেন।

আরও পড়ুন : হিলিতে মাদ্রাসা ছাত্র বলাৎকারের অভিযোগে শিক্ষক আটক

ভয়েস টিভি/এএন