Categories
অপরাধ সারাদেশ

কোথায় আছে সেই আলোচিত পাপিয়া?

ভয়েস রিপোর্ট: করোনা ভাইরাস সংক্রমণের কারণে থমকে গেছে যুব মহিলা লীগ থেকে বহিষ্কৃত নেত্রী বহুল আলোচিত নরসিংদীর শামীমা নূর পাপিয়ার বিরুদ্ধে মামলার তদন্ত। তিন মামলায় ১৫ দিনের রিমান্ডে থাকা পাপিয়াকে এক মামলায় ৫ দিনের রিমান্ড শেষে করোনার কারণে কারাগারে পাঠানো হয় গত ২০ মার্চ। জিজ্ঞাসাবাদ শেষ না হওয়ায় মামলার তদন্তও এগিয়ে নেয়া যাচ্ছে না বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। র্যা ব বলছে, পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে তাকে ফের হেফাজতে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। এছাড়া অর্থ পাচার আইনে পাপিয়ার বিরুদ্ধে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ-সিআইডির একটি মামলা দায়েরের কথা থাকলেও সেটিও করোনার কারণে সম্ভব হয়নি।
পাপিয়ার ঠিকানা এখন কাশিমপুর মহিলা কেন্দ্রীয় কারাগারের চার দেয়ালের ছোট্ট একটি সেল। তার সঙ্গে আর কোনো বন্দি রাখা হয়নি। ওই সেলে নিঃসঙ্গ দিন কাটাচ্ছেন পাপিয়া। প্রায় আড়াই মাসেও পরিবারের সদস্য বা পরিচিত কেউ তার সঙ্গে কারাগারে দেখা করতেও যায়নি বলে জানিয়েছেন কারা কর্মকর্তারা। পাপিয়ার শারীরিক অবস্থা সম্পর্কে কাশিমপুর মহিলা কেন্দ্রীয় কারাগারের জেলার বলেন, তিনি ভালো ও সুস্থ আছেন। কোনো সমস্যা নেই। নিয়মিত তার খবর রাখা হচ্ছে।
যুব মহিলা লীগের বহিষ্কৃত নেত্রী পাপিয়া গোপনে দেশ ছাড়ার সময় গত ২২ ফেব্রুয়ারি র্যা বের হাতে গ্রেপ্তার হন। একই সঙ্গে গ্রেপ্তার হন তার স্বামী মফিজুর রহমান ওরফে সুমন চৌধুরী এবং ব্যক্তিগত সহকারী শেখ তায়্যিবা ও সাব্বির খন্দকার। তাদের কাছে পাওয়া যায় সাতটি পাসপোর্ট, বাংলাদেশি ২ লাখ ১২ হাজার ২৭০ টাকা, ২৫ হাজার ৬শো জাল টাকা, ৩১০ ভারতীয় রুপি, ৪২০ শ্রীলঙ্কান মুদ্রা, ১১ হাজার ৯১ মার্কিন ডলার ও সাতটি মোবাইল ফোন সেট।
পরদিন ফার্মগেটের ইন্দিরা রোডের বাসায় অভিযানে পাওয়া যায় দুটি অবৈধ অস্ত্র, দুটি ম্যাগাজিন, ২০ রাউন্ড গুলি, পাঁচ বোতল বিদেশি মদ, নগদ ৫৮ লাখ ৪১ হাজার টাকা, পাঁচটি পাসপোর্ট, তিনটি চেক, বিদেশি মুদ্রা, বিভিন্ন ব্যাংকের ১০টি এটিএম কার্ড। এসব উদ্ধারের পর বিমানবন্দর থানায় একটি ও শেরেবাংলা নগর থানায় অস্ত্র ও বিশেষ ক্ষমতা আইনে দুটি মামলা করে র্যা ব। এছাড়া অর্থ পাচার আইনে পাপিয়ার বিরুদ্ধে আরেকটি মামলা করার কথা পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ-সিআইডি।
কিন্তু করোনার কারণে ওই মামলাটি এখনো করা হয়নি। নাম প্রকাশ না করার শর্তে সিআইডির একজন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বলেন, করোনা পরিস্থিতিতে সাধারণ ছুটির কারণে মামলাটি করা হয়নি। শিগগির তারা অর্থ পাচার আইনে মামলাটি করবেন।
র্যা ব কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, র্যা বের তিন মামলায় পাপিয়াকে ৫ দিন করে ১৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করে আদালত। বিমানবন্দর থানার মামলায় গত ১৬ মার্চ পাপিয়াকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য হেফাজতে নেয় র্যা ব। কিন্তু দেশে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ায় ৫ দিন জিজ্ঞাসাবাদ শেষে ২০ মার্চ কারাগারে পাঠানো হয় তাকে।
এ বিষয়ে র্যা বের আইন ও গণমাধ্যম শাখার উপপরিচালক মেজর রইসুল আজম বলেন, পাপিয়ার ৩ মামলায় ১৫ দিন জিজ্ঞাসাবাদের অনুমতি দিয়েছে আদালত। এর মধ্যে একটি মামলায় তাকে ৫ দিন জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। পরে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার কারণে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে অপর দুই মামলায় বাকি ১০ দিন জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।
এছাড়া ক্যাসিনো সংশ্লিষ্টতায় বহিষ্কৃত যুবলীগ নেতা খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়া, গোলাম কিবরিয়া বা জি কে শামীমের মামলাসহ কয়েকটি মামলায় আদালতে অভিযোগপত্র দেয়া হয়েছে। পাপিয়ার মামলায় রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদ সম্পন্ন না হওয়ায় তদন্ত এগিয়ে নেয়া যাচ্ছে না। পরিস্থিতি কিছুটা স্বাভাবিক হলে জিজ্ঞাসাবাদ ও তদন্ত শেস করে অভিযোগপত্র দেয়া হবে বলেও জানায় র্যা ব।
এরআগে পাপিয়াকে গ্রেপ্তারের পর গুলশানের ওয়েস্টিন হোটেলে প্রেসিডেন্সিয়াল সুইট ভাড়া করা এবং সেখানে যাতায়াতকারী বিত্তবানরা কীভাবে পাপিয়ার শিকার হতেন এসব নিয়ে নানা খবর গণমাধ্যমে আসে। পাপিয়ার বিষয়ে আলাপকালে নাম প্রকাশ না করার শর্তে কাশিমপুর মহিলা কারাগারের একজন ডেপুটি জেলার বলেন, কারাগারে আসার পর পাপিয়ার সঙ্গে তার পরিবারের কেউ দেখা করতে আসেনি। তাকে রাখা হয়েছে বিশেষ একটি সেলে। তার সঙ্গে আর কোনো বন্দি নেই। মাঝে মাঝে কারারক্ষীদের দিয়ে বই সংগ্রহ করে গল্পের বই পড়েন। ওই সেলে পাপিয়ার কারও সঙ্গে দেখা করার সুযোগ নেই। তাকে প্রথমে ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইনেও রাখা হয়। পরে আলাদা রাখা হয়।
নরসিংদী জেলা শহরে ভাগদী মারকাজ মসজিদ এলাকায় থাকেন পাপিয়ার বাবা সাইফুল বারী। আর শ্বশুরবাড়ি ব্রাহ্মণদীতে। রাজধানীর ফার্মগেট ইন্দিরা রোডে ‘রওশন ডোমইনো রিলিভো’ নামে একটি বিলাসবহুল ভবনে তার ও স্বামীর নামে দুটি ফ্ল্যাট রয়েছে।
পাপিয়ার সঙ্গে কেউ দেখা করতে যাচ্ছেন না কেন তা জানতে গত সোমবার নরসিংদীর স্থানীয় সাংবাদিকরা যান পাপিয়ার শ্বশুরবাড়ি ব্রাহ্মণদীতে। কিন্ত দারোয়ান জানান, বাড়ির সবাই ঢাকাতেই থাকে। ঈদেও কেউ বাড়ি যায়নি। পাপিয়ার বাবার বাড়ি ভাগদীতে গেলে প্রতিবেশীরা জানান, পাপিয়া গ্রেপ্তারের পর থেকে বাবা সাইফুল বারী অনেকটা আত্মগোপনে রয়েছেন। কারও সঙ্গে যোগাযোগ করেন না।

রিপোর্ট: আনজাম খালেক

Categories
অপরাধ

কুয়েতে এমপি শহীদ ইসলাম পাপলু গ্রেফতার

ভয়েজ রিপোর্ট: লক্ষীপুর-২ আসনের এমপি মোহাম্মদ শহীদ ইসলাম পাপলুকে মানবপাচারে জড়িত থাকার অভিযোগে গ্রেফতার করেছে কুয়েত ক্রিমিনাল ইনভেস্টিগেশন ডিপার্টমেন্ট সিআইডি। রোববার তাকে গ্রেফতার করা হয়।

কুয়েতে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত এসএম আবুল কালাম জানিয়েছেন, রোববার সংসদ সদস্য মোহাম্মদ শহীদ ইসলাম পাপলুকে কুয়েত ক্রিমিনাল ইনভেস্টিগেশন ডিপার্টমেন্ট-সিআইডি গ্রেফতার করেছে কি না বা যে অভিযোগের কথা বলা হচ্ছিলো এ বিষয়ে মামলা রয়েছে কি না সেসব বিষয়ে এখনো আনুষ্ঠানিকভাবে আমাদের কিছু জানানো হয়নি। আমরা বিস্তারিত তথ্য জানার চেষ্টা করছি।

জানা গেছে, মানবপাচার ও অর্থপাচারের বিরুদ্ধে কুয়েত সরকার অভিযান পরিচালনা করছে। কুয়েত ক্রিমিনাল ইনভেস্টিগেশন ডিপার্টমেন্ট বিশ্বের বিভিন্ন দেশের শতাধিক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করছে। এর মধ্যে বাংলাদেশের সংসদ সদস্য মোহাম্মদ শহীদ ইসলাম পাপলুও রয়েছেন।

এ বিষয়ে তার স্ত্রী সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য সেলিনা ইসলাম বলেন, লক্ষ্মীপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য কাজী শহিদ ইসলাম পাপুল কুয়েতে গ্রেফতার সম্পর্কিত যে তথ্য ঠিক নয়। তিনি সেখানে কোনো মামলার আসামি নন। কুয়েত সরকারের তাদের নিয়ম অনুযায়ী তার ব্যবসায়িক বিষয়ে আলোচনার জন্য তাকে সেখানকার সরকারি দপ্তর বা সিআইডিতে ডেকে নিয়েছে। ‘প্রকৃতপক্ষে মোহাম্মদ শহিদ কুয়েতে একজন প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী। তিনি খ্যাতনামা মারাফি কুয়েতিয়া কোম্পানির ম্যানেজিং ডিরেক্টর ও সিইও। এই কোম্পানির কুয়েতি অংশীদারও রয়েছে। এই প্রতিষ্ঠানে ২৫ হাজারেরও বেশি বাংলাদেশি কর্মরত। বিশ্বজুড়ে করোনা মহামারির কারণে অন্য দেশের মতো কুয়েতেও তিন মাস ধরে লকডাউন চলছে।’ এ পরিস্থিতিতে অনেক অভিবাসী কর্মী বেকার রয়েছে। তাদের কেউ কেউ সরকারি দপ্তরে অভিযোগ করেছেন। এসব বিষয় নিয়ে কুয়েতের সরকারি দপ্তর ও সিআইডি তাকে আলোচনা জন্য ডেকে নিয়েছে।

বিষয়টি নিয়ে পরিষ্কার কোনো তথ্য ছাড়া কাউকে বিভ্রান্তি না ছড়ানোর অনুরোধ জানাচ্ছি।

কুয়েতের স্থানীয় সূত্র জানায়, মানবপাচার ও অর্থপাচারের বিরুদ্ধে কুয়েত সরকার থেকে অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে। কুয়েত ক্রিমিনাল ইনভেস্টিগেশন ডিপার্টমেন্ট-সিআইডি বিশ্বের বিভিন্ন দেশের শতাধিক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করছে। এর মধ্যে বাংলাদেশের সংসদ সদস্য মোহাম্মদ শহিদ ইসলাম পাপলুও রয়েছেন।

এনআরবি কমার্শিয়াল ব্যাংকের পরিচালক হিসেবেও দায়িত্ব পালন করছেন মোহাম্মদ শহিদ ইসলাম। তার বিরুদ্ধে কুয়েতে মানবপাচার করে এক হাজার ৪শ কোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ রয়েছে। এই অভিযোগে গত ফেব্রুয়ারি থেকে তার বিরুদ্ধে অনুসন্ধানও শুরু করে দুর্নীতি দমন কমিশন-দুদক।

Categories
অপরাধ

লিবিয়ায় স্বজনদের না পাঠানোর আহ্বান র‌্যাবের

আনজাম খালেক: লিবিয়ায় বাংলাদেশি নির্যাতন ও হত্যার রোমহর্ষক বর্ণনা তুলে ধরে নিজ স্বজনদের এভাবে বিদেশে না পাঠানোর অনুরোধ জানিয়েছেন নিহত বাংলাদেশিদের স্বজন ও র‌্যাব কর্মকর্তারা। আর দেশীয় দালালসহ দোষীদের শাস্তি চান নিহতের স্বজনরা। মর্মান্তিক এই ঘটনায় এরইমধ্যে দেশীয় চক্রের হোতা হাজী কামালসহ ৮ জনকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। লিবিয়ায় পাচারকারীদের গুলিতে নিহত ২৬ বাংলাদেশির বাড়িতে এখনো শোকের মাতম চলছে।

লিবিয়ায় অপহরণকারীদের হাতে নিহত ২৬ বাংলাদেশির একজন যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার খাটবাড়িয়া গ্রামের ঈসরাইল হোসেন দফাদারের ছোট ছেলে রকিবুল ইসলাম রকি। সংসারে সচ্ছলতা আনতে মাত্র ২০ বছর বয়সে দেশ ছেড়ে পাড়ি জমায় লিবিয়ায়। ভিটে বাড়ির এক অংশ বিক্রি ও এনজিও থেকে ঋণ নিয়ে দালালের মাধ্যমে চলতি বছরের ১৫ ফেব্রুয়ারি বাড়ি ছেড়েছিল। গিয়েছিল নিজ ভাগ্য পরিবর্তন ও বাবা-মায়ের মুখে হাসি ফোটাতে। কিন্তু বাবা মায়ের মুখে হাসির পরিবর্তে এখন এক সাগর কান্না।

লিবিয়ায় মুক্তিপণের দশ লাখ টাকা দিতে রাজি হলেও শেষ রক্ষা হয়নি রকিবুলের। মানবপাচারকারীদের বুলেটে নিহত অপর ২৫ বাংলাদেশির মতো তাকেও জীবন দিতে হয়। আর তার মৃত্যুর খবরে শোকের মাতম বইছে যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার খাটবাড়িয়া গ্রামের বাড়িতে। এখন তারা অন্তত রকিবুলের মরদেহটা ফেরত চান।

একই ঘটনায় নিহত গোপালগঞ্জের মুকসুদপুর উপজেলার বামনডাঙ্গা গ্রামের সুজন মৃধার বাড়িতেও চলছে শোকের মাতম। আর একই ইউনিয়নের সুন্দরদি গ্রামে কালাম শেখের ছেলে ওমর শেখ গুলিবিদ্ধ হয়ে লিবিয়ার ত্রিপলী হাসপাতালে মৃত্যুর সাথে লড়ছেন। এ খবর বামনডাঙ্গা গ্রামে পৌছালে গোটা এলাকায় নেমে আসে শোকের ছায়া।

মর্মান্তিক এই হত্যার খবর পেয়ে দেশীয় দালালদের বিরুদ্ধে অভিযানে নামে র‌্যাব। রাজধানীর শাহজাদপুর এলাকার একটি বাসায় অভিযান চালিয়ে র্যাববের একটি দল এই চক্রের হোতাকে আটক করে। পরে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তিনি জানান, ১১ বছরে অবৈধভাবে প্রায় ৩০০ থেকে ৪০০ বাংলাদেশিকে লিবিয়ায় পাঠিয়েছেন।

এরপরই আরো কয়েকটি স্থানে অভিযান চালিয়ে এই চক্রের আরো ৭ সদস্যকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৩ ও র‌্যাব-১২ এর সদস্যরা। ঘটনার পর থেকেই কয়েকটি সুত্র ধরে তদন্ত শুরু করে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন। র‌্যাবের মুখপাত্র বলেন, এই চক্রের আরো সদস্যকে চিহ্নিত করে শাস্তির আওতায় আনা হবে। কুষ্টিয়ার সদর থানা এলাকার এই হাজী কামালের কাছ থেকে পাচারকারী চক্র সম্পর্কে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য উদঘাটন ও আরো পাসপোর্ট জব্দ করা হয়েছে বলেও জানায় র‌্যাব।

Categories
অপরাধ সারাদেশ

এমপি এনামুলের সম্মানহানির অভিযোগে নারীর বিরুদ্ধে মামলা

নিজস্ব প্রতিনিধি, রাজশাহী : রাজশাহী-৪ আসনের সংসদ সদস্য ইঞ্জিনিয়ার এনামুল হকের সাবেক স্ত্রী আয়েশা আক্তার লিজার বিরুদ্ধে তথ্যপ্রযুক্তি আইনে মামলা হয়েছে। সাংসদের পক্ষে মামলাটি করেছেন তার একান্ত সহকারী ও বাগমারা উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান আসাদ।

এমপির বিরুদ্ধে গোপনে বিয়ে করে প্রতারণার অভিযোগ করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছবি দিয়ে বিচার চাওয়ায় সংসদ সদস্য এনামুল তাকে তালাক দেন। এবার তার বিরুদ্ধে রাজশাহীর বাগমারা থানায় হলো।

বাগমারা থানার ওসি আতাউর রহমান জানান, লিজাকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলেছ । সাংসদের পক্ষে তথ্যপ্রযুক্তি আইনে ও চাঁদা দাবির অভিযোগ এনে মামলাটি করা হয়। এতে আসামি করা আয়েশা আক্তার লিজাকে।

মামলায় বলা হয়েছে, আয়েশা আক্তার লিজাকে তালাক দেওয়ার পর তিনি তার স্বামী সাংসদ এনামুল হকের কাছে নিজের ব্যাংক লোনের এক কোটি টাকা পরিশোধের জন্য চাঁদা দাবি করেন। চাঁদা না দেওয়ায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছবি দিয়ে সাংসদ এনামুল হকের বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালিয়ে তার সুনাম ক্ষুন্ন করেছেন।

মামলা প্রসঙ্গে সাংসদ এনামুল হকের দ্বিতীয় স্ত্রী আয়েশা আক্তার লিজা বলেন, ‘আইনগত আমি এখনো সাংসদ এনামুল হকের বৈধ স্ত্রী। আমাকে তালাকের প্রথম নোটিশ দেওয়া হয়েছে বলে শুনেছি। এখনো নোটিশ হাতে পাইনি। পরপর তিনটি নোটিশ তিন মাসে আসার পর তালাক চূড়ান্ত হয়। আমাকে তালাক দেওয়ার বিষয়টি শুনতে পেয়ে আমি ন্যায় বিচার চেয়ে আমার স্বামীর সঙ্গে ফেসবুকে ছবি দিয়েছি। এতে তার একার পক্ষে মান সম্মান নষ্ট হবার কথা নয়। যেহেতু আমরা বৈধ স্বামী-স্ত্রী।’

চাঁদা চাওয়ার বিষয়ে তিনি বলেন, এমপি এনামুল নিজেই আমাকে মেসেজ দিয়ে ২৫ লাখ টাকা চাঁদা চেয়েছে। সেই মেসেজ আমার কাছে এখনো আছে। আমিও তার নামে মামলা করবো।

এদিকে আয়েশা আক্তার লিজা সাংসদ এনামুল হকের বিরুদ্ধে বিয়ের নামে প্রতারণা ও ভ্রুণ হত্যার অভিযোগ এনে বাংলাদেশ মহিলা আইনজীবী সমিতিতে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।

Categories
অপরাধ সারাদেশ

আরো ১১ জন জনপ্রতিনিধি বরখাস্ত

নিজস্ব প্রতিবেদক, ভয়েজ টিভি: ত্রাণ বিতরণে অনিয়মের অভিযোগ, কর্মস্থলে অনুপস্থিতি, প্রধানমন্ত্রীর দেয়া মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে নগদ অর্থ আত্মসাৎ এর চেস্টা সহ বিভিন্ন কারণে ১১ জন জনপ্রতিনিধিকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করেছে স্থানীয় সরকার,পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়(এলজিআরডি)। এদের মধ্যে ৪ জন ইউপি চেয়ারম্যান ও ৬ জন ইউপি সদস্য এবং ১ জন পৌর কাউন্সিলর রয়েছেন।
আজ স্থানীয় সরকার বিভাগ থেকে এ সংক্রান্ত পৃথক প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়।
করোনা ভাইরাসের প্রার্দুভাব শুরু হওয়ার পর এ নিয়ে মোট ৮৫ জন প্রতিনিধিকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হলো।এদের মধ্যে ২৮ জন ইউপি চেয়ারম্যান,৫১ জন ইউপি সদস্য,১ জন জেলা পরিষদ সদস্য,৪ জন পৌর কাউন্সিলর এবং ১ জন উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান।
আজ সাময়িকভাবে বরখাস্তকৃত ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানরা হলেন,কিশোরগঞ্জের নিকলী উপজেলার সিংপুর ইউপির মো: আনোয়ারুল হক,বাজিতপুর উপজেলার হালিমপুর ইউপির কাজল ভুঁইয়া ,বরগুনা জেলার সদর উপজেলাধীন এম বালিয়াতলী ইউপির শাহনেওয়াজ এবং নলটোনা ইউপির হুমায়ুন কবীর।
অন্যদিকে আজ সাময়িকভাবে বরখাস্তকৃত ইউনিয়ন পরিষদের সদস্যরা হলেন, ব্রাম্মণবাড়িয়া জেলার সদর উপজেলার মজলিশপুর ইউপির ২ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য হারিছ মিয়া এবং ৭ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য হাছান মিয়া, বরগুনা জেলার সদর উপজেলার নলটোনা ইউপির ৭ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য হারুন মিয়া,৮ নম্বও ওয়ার্ডের সদস্য মো: হানিফ,১,২ ও ৩ নম্বও ওয়ার্ডের সংরক্ষিত মহিলা আসনের সদস্য রাণী এবং ৭,৮ ও ৯ নম্বর ওয়ার্ডের সংরক্ষিত মহিলা আসনের সদস্য ছাবিনা ইয়াসমিন (পলি)। সাময়িকভাবে বরখাস্তকৃত পৌরসভার কাউন্সিলর হলেন চট্টগ্রাম জেলার বোয়ালখালী পৌরসভার ৬ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর সোলাইমান বাবুল।

Categories
অপরাধ

লিবিয়ায় হত্যাকাণ্ড: এক মানবপাচারকারী গ্রেফতার

ভয়েস রিপোর্ট: লিবিয়ায় ২৬ বাংলাদেশি নিহতের ঘটনায় মানবপাচারকারী চক্রের এক সদস্যকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। তার নাম কামাল হোসেন ওরফে হাজী কামাল (৫৫)।
র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক লে. কর্নেল সারোয়ার বিন কাশেম জানান, সোমবার ভোরে গুলশানের শাহজাদপুর এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। এ ঘটনায় মানবপাচারকারী চক্র সম্পর্কে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য উদঘাটন ও পাসপোর্ট জব্দ হয়েছে।

প্রসঙ্গত, ২৮ মে লিবিয়ার মিজদা শহরে মানবপাচারকারীদের হাতে ২৬ বাংলাদেশি নিহত ও ১২ জন আহত হয়।

হাজী কামালের পিতার নাম মো: জামাত আলী। কুষ্টিয়ার সদর থানা এলাকায় তার গ্রামের বাড়ি।

টাইলস শ্রমিক পাঠানোর আড়ালে মানবপাচার করতেন কামাল উদ্দিন ওরফে হাজী কামাল (৫৫)। গত ১০ বছর ধরে তিনি অবৈধভাবে মানবপাচার করে আসছেন। এ পর্যন্ত ৪শ বাংলাদেশি নাগরিককে লিবিয়ায় পাচার করেছেন তিনি। টাইলসের শ্রমিকের অধিক চাহিদা আর দিনে ৫/৬ হাজার করে টাকা আয়ের প্রলোভন দেখিয়ে মানবপাচার করতেন হাজী কামাল। কৌশল হিসাবে লিবিয়াতে যাওয়ার আগে মাত্র এক লাখ টাকা নিতেন। লিবিয়ায় পৌঁছানোর পর পরিবারের সদস্যদের কাছ থেকে নিতেন বাকি ৪ লাখ টাকা। টাকা না দিলে লিবিয়ায় শ্রমিকদের নির্যাতন করে সেই রেকর্ড শোনাতেন পরিবারের সদস্যদের।

সোমবার দুপুরে রাজধানীর টিকাটুলি র‌্যাব-৩ কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান অধিনায়ক (সিও) লে. কর্নেল রকিবুল হাসান।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের বরাত দিয়ে র‌্যাব কর্মকর্তারা জানান, হাজী কামাল মিথ্যা আশ্বাস দিয়ে বিদেশে কর্মসংস্থানের প্রলোভন দেখিয়ে দীর্ঘ প্রায় ১০ বছর ধরে এই অপরাধের সঙ্গে সম্পৃক্ত। তারা বিদেশি চক্রের যোগসাজশে অবৈধভাবে বাংলাদেশি নাগরিকদের বিভিন্ন দেশে পাঠায়। চক্রটি তিন ধাপে এই কাজ করতো। প্রথমে বিদেশ গমনেচ্ছুদের নির্বাচন করতো। চক্রের দেশীয় এজেন্টরা বিভিন্ন এলাকার স্বল্প আয়ের মানুষকে উন্নত দেশে অনেক টাকা আয়ের লোভ দেখাত। তারপর তাদের পাসপোর্ট, ভিসা সংগ্রহের নামে এক লাখ টাকা নিত। বাকি টাকা ইউরোপে গিয়ে পরিশোধ করতে হবে বলে জানাতো। একারণে সাধারণ মানুষ তাদের ফাঁদে সহজেই পা দিতো। লিবিয়ায় নিয়ে শ্রমিকদের ওপর শুরু হতো নির্যাতন। নির্যাতনের রেকর্ড শুনিয়ে পরিবারের সদস্যদের কাছ থেকে আদায় করা হতো আরও টাকা। যারা টাকা দিতে পারতো তাদের অবৈধভাবে বিভিন্ন রুটে ইউরোপে পাঠানোর চেষ্টা করতো চক্রটি।

বাংলাদেশ থেকে লিবিয়ায় পাঠানো:

বাংলাদেশ থেকে লিবিয়ায় পাঠানোর ক্ষেত্রে এই চক্রের সদস্যরা বেশ কয়েকটি রুট ব্যবহার করে থাকেন। সেই রুটগুলো তার সুযোগ-সুবিধা অনুযায়ী পরির্বতন কিংবা নতুন রুট নির্ধারণ করে থাকেন। সম্প্রতি পাচারকারীরা যে রুটটি ব্যবহার করছিল তা হলো বাংলাদেশ-কলকাতা-মুম্বাই-দুবাই-মিশর-বেনগাজী-ত্রিপলী (লিবিয়া)। দুবাইয়ে পৌঁছানোর পর অভিবাসন প্রত্যাশীদের বিদেশি এজেন্টদের তত্ত্বাবধানে ৭/৮দিন রাখা হতো।
দুবাই থেকে বেনগাজীতে পাঠানোর জন্য বেনগাজী থেকে এজেন্টরা কথিত ‘মরাকাপা’ নামে একটি ডকুমেন্ট দুবাইয়ে পাঠাতো। এরপর সেই ডকুমেন্ট নিয়ে বিদেশি এজেন্ট অভিবাসন প্রত্যাশীদের মিশর ট্রানজিট নিয়ে লিবিয়ার বেনগাজীতে পাঠাতেন। বেনগাজী থেকে বাংলাদেশি এজেন্টদের সহযোগিতায় তাদের ত্রিপোলিতে পাঠানো হতো।

Categories
অপরাধ জাতীয়

রংপুরে মদপানে ৬ জনের মৃত্যু

রংপুর প্রতিনিধি : প্রায়ই বাজারে মদের আসর বসাতেন। পান করতেন মদ । করতেন উল্লাস । তারই ধারাবাহিকতায় ঈদের দিন আসর বসিয়ে পদ পান করেন । মদ পানের পর বিষক্রিয়ায় তাদের মৃত্যু ৬ জনের ।

রংপুরের পীরগঞ্জ উপজেলার শানেরহাট ইউনিয়নের শানেরহাট বাজারে ঘটে এ ঘটনা। বিষাক্ত পদ পানে অসুস্থ হয়ে হাসপাতাল ও বাড়িতে চিকিৎসাধীন রয়েছেন আরো অন্তত সাতজন।

মৃত্যুর পর তড়িঘড়ি করে তাদের দাফন করেন স্বজনরা। পরে বিষয়টি জানাজানি হলে তোলপাড় শুরু হয়।

মদ পানে মৃতরা হলেন – শানেরহাট ইউনিয়নের খোলাহাটি গ্রামের আব্দুর রাজ্জাক (৪৫), রায়তি সাদুল্যাপুর গ্রামের দুলা মিয়া (৫০), বড় পাহাড়পুর গ্রামের জায়দুল হক (৩৫), হরিরাম সাহাপুর গ্রামের লুলু মিয়া (৩০), বড় পাহাড়পুর গ্রামের সেলিম মিয়া (৫০) এবং মিঠাপুকুর উপজেলার বা‌জিতপুর গ্রামের চন্দন কুমার (৩০)।

এর মধ্যে মঙ্গলবার সকালে খোলাহাটি গ্রামের (তিনদিন আগের জেলফেরত) আব্দুর রাজ্জাক, বিকেলে পাহাড়পুরের জায়দুল হক ও মিঠাপুকুরের বাজিতপুরের চন্দন কুমার, সোমবার সকালে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বড় পাহাড়পুরের সেলিম মিয়া, রাতে নিজ বাড়িতে রায়তি সাদুল্লাপুরের দুলা মিয়া এবং হরিরাম সাহাপুরের সেরাজুল মিস্ত্রির মৃত্যু হয়।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, মদপানে অসুস্থ ও মারা যাওয়া ব্যক্তিরা সংঘবদ্ধ দল। প্রায়ই তারা বাজারে মদের আসর বসাতেন। ঈদের দিন মদপানের পর বিষক্রিয়ায় তাদের মৃত্যু হয়।

এছাড়া ধল্লাকান্দির খালেক (৫০), আকবর (৪৫) ও মিলন মাস্টার (৫২), কাজীর পাড়ার খোড়া শাহিন (৪২) ও খোলাহাটির ডিস মতিনসহ (৩৬) সাতজন আশঙ্কাজনক অবস্থায় বাড়ি ও হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

শানেরহাট ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান মন্টু বলেন, এ বিষয়ে খোঁজখবর নিয়েছি আমরা। মৃত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে মাদক সেবনের অভিযোগ রয়েছে দীর্ঘদিনের।

পীরগঞ্জ থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সরেস চন্দ্র বলেন, বিষয়টি নিয়ে অনুসন্ধান চলছে। মদের উৎস এবং মদ সরবরাহকারীকে খুঁজে বের করতে জোর তৎপরতা চালাচ্ছে পুলিশ।

Categories
অপরাধ

চাঁদপুরে আওয়ামী লীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা

ভয়েস রিপোর্ট: চাঁদপুর সদর উপজেলার শাহমাহমুপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সহ সভাপতি আজিজুর রহমান ভুট্টোকে সন্ত্রাসিরা কুপিয়ে হত্যা করেছে।
সোমবার রাত ১১ টার দিকে কুমারডুগী খান বাড়ীতে যাওয়ার পথে একদল দুর্বৃত্ত আজিজুর রহমান ভুট্রোকে দেশীয় অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে। এ হত্যার কারণ অনুসন্ধানে কাজ শুরু করেছে গোয়েন্দা পুলিশ।

Categories
অপরাধ

দুই কর্মকর্তাকে চাকরিচ্যুত করলেন নয়া মেয়র তাপস

ভয়েজ রিপোর্ট: ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের দায়িত্ব নেওয়ার এক দিন পরই দুই শীর্ষ কর্মকর্তাকে চাকরিচ্যুত করলেন মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস। রোববার তাদের চাকরিচ্যুত করেন তিনি।

তারা হলেন: উপ-প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা (বাজার সার্কেল) মো. ইউসুফ আলী সরদার ও অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী মে. আছাদুজ্জামান। তাদের বিরুদ্ধে নানা অনিয়মের অভিযোগ ছিলো ।
ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন কর্মচারী চাকরি বিধিমালা ২০১৯ এর বিধি ৬৪ (২) অনুযায়ী জনস্বার্থে এবং ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন এর স্বার্থ রক্ষায় তাদের চাকরি থেকে অপসারণ করা হলো। তারা বিধি অনুযায়ী ৯০ দিনের বেতন নগদ প্রাপ্য হবেন।

ডিএসসিসি সূত্র জানিয়েছে, স্বজনপ্রীতি ও দুর্নীতির অভিযোগে তাদের চাকরি থেকে অপসারণ করা হয়েছে।

রোববার জারি করা চাকরিচ্যুতির পৃথক দুটি আদেশে স্বাক্ষর করেছেন শনিবার মেয়র হিসেবে দায়িত্ব নেয়া তাপস। তবে চাকরিচ্যুতির কারণ বিষয়ে আদেশে কিছু বলা হয়নি।

এর আগে সকালে দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের বিভিন্ন বিভাগের প্রধান এবং আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তাদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন তাপস। তিনি বলেন নিষ্ঠা, আন্তরিকতা এবং সততার সঙ্গে সেবার ব্রত নিয়ে নিজ নিজ দায়িত্ব পালনের নির্দেশনা দিয়ে তাপস বলেন, ‘সিটি করপোরেশকে একটি দুর্নীতিমুক্ত, গর্বের, আস্থার এবং মর্যাদাশীল প্রতিষ্ঠান হিসেবে গড়ে তুলতে হবে। দুর্নীতি এবং দায়িত্ব পালনে কোনোরূপ শৈথিল্য বরদাস্ত করা হবে না।’

কর্মকর্তাদের হুঁশিয়ারি দিয়ে তিনি বলেন, ‘এ ধরণের কোনো কিছু নজরে আসার সাথে সাথে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। যত বড় কর্মকর্তাই হোক কাউকেই ছাড় দেয়া হবে না।’

এ জন্য কাউকে বিদায় (চাকরিচ্যুত/অপসারণ) দিতে হলেও তাতে পিছপা হবেন না বলে জানান নয়া মেয়র ।

Categories
অপরাধ জাতীয়

কক্সবাজারে পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে নিহত এক

কক্সবাজার প্রতিনিধি: কক্সবাজারের চকরিয়ায় পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে সাজ্জাদ হোসেন নিহত হয়েছে।

মঙ্গলবার ভোরে, চকোরিয়ার কোনাখালি এলাকায় এই বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে। পুলিশ জানায়, সাজ্জাদকে সোমবার পেকুয়া থেকে আটক করে পুলিশ।পরে তার দেয়া তথ্যে রাতে অস্ত্র উদ্ধারে কোনাখালী এলাকায় গেলে আগে থেকে ওৎ পেতে থাকা সাজ্জাদের সহযোগীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি চালায়। আত্মরক্ষায় পুলিশও পাল্টা গুলি চালায়। পরে ঘটনাস্থল থেকে সাজ্জাদের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।নিহত সাজ্জাদ তরুণী চম্পা ধর্ষণ ও হত্যা মামলার আসামী ছিলেন।