Categories
অপরাধ

এমপি পাপুলের বিরুদ্ধে বড় অভিযোগ কুয়েতে : দেশে ব্যাংক অ্যাকাউন্ট তলব

ভয়েস টিভি রিপোর্ট: প্রতারণা ও মানব পাচারে জড়িত থাকার অভিযোগে কুয়েতে গ্রেপ্তার  এমপি কাজী শহীদ ইসলাম পাপুলের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট তলব করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক।
মানব ও অর্থ পাচারের অভিযোগে গত ৬ জুন রাতে কুয়েতের মুশরিফ এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয় লক্ষ্মীপুর-২ আসনের স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য পাপুলকে। এরপর তাকে আট দিন রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করে কুয়েতের পাবলিক প্রসিকিউশন বিভাগ।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের বাংলাদেশ ফাইন্যান্সিয়াল ইন্টিলিজেন্স ইউনিট (বিএফআইইউ) থেকে সম্প্রতি সব ব্যাংকে চিঠি দিয়ে এসব নির্দেশনা দেওয়া হয়।
চিঠিতে বলা হয়েছে, কাজী পাপুল বা তার স্বার্থসংশ্নিষ্ট ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের নামে অতীতে বা বর্তমানে কোনো হিসাব পরিচালিত হয়ে থাকলে তা জানাতে হবে। তার অ্যাকাউন্ট খোলার ফরম, লেনদেন বিবরণীসহ সব ধরনের তথ্য দিতে বলা হয়েছে। পাপুলের বর্তমান ঠিকানা দেওয়া হয়েছে- সিইএন ডি/২, রোড-৯৫, গুলশান-২। আর স্থায়ী ঠিকানা উল্লেখ করা হয়েছে- লক্ষ্মীপুর জেলার রায়পুর পৌরসভার কাজী বাড়ি। পাপুল প্রবাসী বাংলাদেশিদের মালিকানায় গড়ে ওঠা এনআরবি কমার্শিয়াল ব্যাংকের পরিচালক।

কুয়েতে আটকের পর নানা আলোচনার মধ্যে ব্যাংকের ওয়েবসাইট থেকে তার নাম সরিয়ে ফেলা হয়েছে।

ব্যাংকের নির্দেশনায় বলা হয়েছে এমপি কাজী শহীদ ইসলাম পাপুলের প্রত্যেকের অ্যাকাউন্ট খোলা ও লেনদেন-সংক্রান্ত সব ধরনের তথ্য বাংলাদেশ ব্যাংকে পাঠাতে হবে ।

মানব ও অর্থ পাচারের অভিযোগে গ্রেপ্তার বাংলাদেশি সংসদ সদস্য কাজী শহীদ পাপুলের বিরুদ্ধে বড় ধরনের অভিযোগ আনলেন কুয়েতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর দায়িত্বে থাকা দেশটির উপ-প্রধানমন্ত্রী আনাস আল-সালেহ।

টুটট বার্তায় তিনি এটিকে এশিয়ার মধ্যে ‘সবচেয়ে বড়’ মানবপাচারের ঘটনা হিসেবে অভিহিত করেছেন। একই সঙ্গে এই মানব ও অর্থ পাচারের সঙ্গে কুয়েত সরকারের কারও জড়িত থাকার প্রমাণ পাওয়া গেলে তাদেরও আইনের আওতায় আনার ঘোষণা দেন তিনি।

টুইট বার্তায় বলেন, ‘গত কয়েক সপ্তাহে অভিবাদন পাওয়ার মতো কাজ করেছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্মীরা। তারা এশিয়ার মধ্যে সবচেয়ে বড় মানব পাচারের ঘটনা প্রকাশ করেছে। তদন্তে সন্দেহভাজনের আর্থিক লেনদেনের তথ্য বেরিয়ে এসেছে। তদন্তে সরকারি কর্মকর্তা বা বিশিষ্ট কারও নাম এলে তাদেরও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তদন্তকারীদের মুখোমুখি হতে হবে। কারও জড়িত থাকার প্রমাণ পেলে তাদের পাবলিক প্রসিকিউশনে পাঠানো হবে।’

এদিকে অপর এক টুইট বার্তায় বাংলাদেশি এমপি’র সঙ্গে কুয়েতের কারা জড়িত আছেন তাদের নাম প্রকাশের দাবি জানিয়েছেন দেশটির সংসদ সদস্য আবদুল করিম আল-কানদারি।

টুইট বার্তায় তিনি বলেন, ‘কেবল বাংলাদেশি এমপির নাম প্রকাশ করলেই হবে না, কুয়েতের প্রতিনিধি কিংবা সরকারি কর্মকর্তাদের মধ্যে যারা তাকে সহযোগিতা করেছে তাদের সবার নাম প্রকাশ করতে হবে। এটা এখন জনগণের স্বার্থ সংশ্লিষ্ট একটি বিষয়।’

Categories
অপরাধ জাতীয়

সেই যুগ্ম কমিশনার ইমাম হোসেনকে বদলি

ভয়েস রিপোর্ট: ঢাকা মহানগর পুলিশ-ডিএমপি কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলামকে পার্সেন্টেজ নেওয়ার প্রস্তাব দেওয়া ডিএমপির যুগ্ম কমিশনার (লজিস্টিকস) মো. ইমাম হোসেনকে বদলি করা হয়েছে। মঙ্গলবার ঢাকা মহানগর পুলিশের কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম স্বাক্ষরিত এক অফিস আদেশে ইমাম হোসেনসহ যুগ্ম পুলিশ কমিশনার পদমর্যাদার তিন কর্মকর্তাকে বদলি করা হয়।
এর আগে গত ৩০ মে ডিএমপি কমিশনারের পক্ষ থেকে পুলিশ সদর দফতরে পাঠানো এক চিঠিতে ইমামকে বদলির সুপারিশ করেছিলেন কমিশনার। এর মাত্র ১০ দিনের মাথায় তাকে যুগ্ম পুলিশ কমিশনার (পাবলিক অর্ডার ম্যানেজমেন্ট-পিওএম) হিসেবে বদলি করা হলো। বদলি করা বাকি দুই কর্মকর্তার মধ্যে ঢাকা মহানগর পুলিশের যুগ্ম পুলিশ কমিশনার (পিওএম) অতিরিক্ত দায়িত্বে যুগ্ম পুলিশ কমিশনার (প্রটেকশন অ্যান্ড ডিপ্লোম্যাটিক সিকিউরিটি) মোহা. আবদুল মালেককে প্রটেকশন অ্যান্ড ডিপ্লোম্যাটিক সিকিউরিটি বিভাগে এবং যুগ্ম পুলিশ কমিশনার (ট্রান্সপোর্ট) মঈনুল হককে যুগ্ম পুলিশ কমিশনার (লজিস্টিকস) হিসেবে অতিরিক্ত দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।
এর আগে মো. ইমাম হোসেনকে বদলির জন্য ৩০ মে পুলিশ সদর দফতরে আইজিপি বরাবর একটি চিঠি দেওয়া হয়। চিঠিতে ডিএমপি কমিশনার বলেন, উপর্যুক্ত বিষয়ে জানানো যাচ্ছে যে, ডিএমপির যুগ্ম পুলিশ কমিশনার (লজিস্টিকস) মো. ইমাম হোসেন একজন দুর্নীতিপরায়ণ কর্মকর্তা। ডিএমপির বিভিন্ন কেনাকাটায় তার বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে। তিনি ডিএমপির কেনাকাটায় স্বয়ং পুলিশ কমিশনারের কাছে পার্সেন্টেজ নেওয়ার প্রস্তাব উপস্থাপন করেছেন। ফলে ওই কর্মকর্তাকে ডিএমপিতে কর্মরত রাখা সমীচীন নয় মর্মে প্রতীয়মান হয়। এমতাবস্থায় তাকে জরুরিভিত্তিতে অন্যত্র বদলি করার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার অনুরোধ করা হলো।

আইজিপির পাশাপাশি চিঠিতে পুলিশ সদরদপ্তরের ডিআইজিরও (অ্যাডমিন অ্যান্ড ডিসিপ্লিন) দৃষ্টি আকর্ষণ করা হয়। ইমাম হোসেন ২০১২ সালে ডিএমপির তেজগাঁও বিভাগের উপ-কমিশনার হিসেবে যোগ দেন। পরবর্তীসময়ে ডিএমপির উপ-কমিশনার (ডিসি-অর্থ) ও ডিসি-লজিস্টিকস পদে দায়িত্ব পালন করেন।

Categories
অপরাধ প্রবাসী

সাংসদ পাপুলকে রিমান্ডে নিয়েছে কুয়েতের সিআইডি

ভয়েস রিপোর্ট: কুয়েতে ভিসা বাণিজ্যের নামে মানব পাচার ও অবৈধ মুদ্রা পাচারের চক্রের অভিযোগে আটক সাংসদ কাজী শহিদ ইসলাম ওরফে পাপুলকে রিমান্ডে নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে কুয়েতের পাবলিক প্রসিকিউটর। কুয়েতের সিআইডির (ক্রিমিনাল ইনভেষ্টিগেশন ডিপার্টমেন্ট) আবেদনের প্রেক্ষিতে এ নির্দেশ দেওয়া হয়। সোমবার সংযুক্ত আরব আমিরাতের দুবাই থেকে প্রকাশিত ইংরেজি দৈনিক গালফ নিউজের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে। মানব পাচার ও অবৈধ মুদ্রা পাচারের সঙ্গে যুক্ততার অভিযোগে বাংলাদেশের সাংসদকে আটকের বিষয়টি কুয়েতের সিআইডির কর্মকর্তারা নিশ্চিত করেছেন।
গত শনিবার রাতে কুয়েত সিটির মুশরিফ এলাকার বাসা থেকে লক্ষীপুর-২ আসনের স্বতন্ত্র সাংসদকে আটক করে তাদের দপ্তরে নিয়ে যায় সিআইডি। অন্যদিকে, কুয়েত থেকে প্রকাশিত আরব টাইমসের এক প্রতিবেদনে সোমবার বলা হয়েছে, দেশটির সিআইডির কর্মকর্তারা পাঁচ বাংলাদেশিকে জেরা করে জানতে পেরেছে তাদের প্রত্যেকেই কুয়েত যেতে সাংসদকে তিন হাজার দিনার করে দিয়েছিলেন। এছাড়াও প্রতি বছর তারা ভিসা নবায়নের জন্য সাংসদকে বাড়তি টাকা দিয়েছেন। তাদের সাক্ষ্যের ভিত্তিতে সাংসদ কাজী শহিদের বিরুদ্ধে মানব পাচার ও অবৈধ মুদ্রা পাচারের অভিযোগ এনেছেন তদন্ত কর্মকর্তারা।
অবশ্য কুয়েতসহ মধ্যপ্রাচ্যের বেশ কয়েকটি দেশের গণমাধ্যম বাংলাদেশের সাংসদের গ্রেপ্তারের খবর প্রচার করলেও এ নিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে কিছু জানতে পারেনি সেখানকার বাংলাদেশ দূতাবাস। এ নিয়ে জানতে চাইলে কুয়েতে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত এস এম আবুল কালাম বলেন, সাংসদ কাজী শহিদকে আটকের খবর এখানকার গণমাধ্যমে জানার পর এ নিয়ে জানতে রোববার কুয়েতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে চিঠি লিখি। এখন পর্যন্ত আমরা আনুষ্ঠানিকভাবে কিছু জানতে পারিনি।
এদিকে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও কুয়েতে বাংলাদেশ দূতাবাসের কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, সাংসদ কাজী শহিদ গত মার্চে কুয়েত সফরে যান। তবে ব্যক্তিগত ভাবে যাওয়ায় তিনি সবুজ পাসপোর্টে নিয়ে কুয়েত গেছেন। সাধারণত মন্ত্রী, সাংসদ, কূটনীতিকেরা লাল পাসপোর্ট নিয়ে বিদেশ সফর করেন। যা তাদের কূটনৈতিক প্রাধিকার দিয়ে থাকে বিদেশের মাটিতে।
সাংসদের বিষয়ে জানতে চাইলে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন বিকেলে বলেন, ‘বিদেশে গিয়ে একজন সাংসদ এ ধরণের অপরাধমূলক কর্মকান্ডে জড়াবেন তা একেবারেই অনভিপ্রেত। এমন সময় এই ঘটনাটা ঘটেছে যখন পৃথিবীর সব দেশ মানবপাচারকারীদের বিরুদ্ধে খড়গহস্ত। এমন সময়ে সাংসদের বিরুদ্ধে অভিযোগ আসাটা অত্যন্ত দুঃখজনক। আমরা এতে লজ্জিত।’
প্রসঙ্গত এ বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে কুয়েতের আরবি দৈনিক আল কাবাস ও আরব টাইমস বাংলাদেশের এক সাংসদসহ তিন মানব পাচারকারীর বিরুদ্ধে প্রতিবেদন প্রকাশ করে। কুয়েতের সিআইডির বরাত দিয়ে ওই প্রতিবেদনগুলোতে বলা হয়েছিল, স্বতন্ত্র এই সাংসদসহ তিনজনের ওই চক্র অন্তত ২০ হাজার বাংলাদেশিকে কুয়েতে পাঠিয়ে প্রায় ১ হাজার ৪০০ কোটি টাকা আয় করেছে। কুয়েতের গণমাধ্যমগুলো অভিযুক্ত সাংসদের নাম প্রচার করেনি। তবে কুয়েতে বাংলাদেশ দূতাবাস ও প্রবাসী বাংলাদেশিদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, অভিযুক্ত সাংসদের নাম কাজী শহিদ ইসলাম ওরফে পাপুল। তিনি লক্ষ্মীপুর-২ আসনের সাংসদ।
কুয়েত ও বাংলাদেশের গণমাধ্যমে প্রতিবেদন প্রকাশের পর ফেব্রুয়ারির শেষ সপ্তাহে সাংসদ কাজী শহিদের বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

Categories
অপরাধ সারাদেশ

কোনো মানবপাচারকারীকে ছাড় দেয়া হবে না: র‍্যাব ডিজি

ভয়েস রিপোর্ট: মানবপাচারের সঙ্গে জড়িত কাউকে ছাড় দেয়া হবে না বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের মহাপরিচালক চৌধুরী আব্দুল্লাহ আল মামুন। তিনি বলেন, লিবিয়ায় যে ঘটনাটি ঘটেছে তা মর্মান্তিক। আমরা ইতোমধ্যে এর মূল হোতাকে গ্রেফতার করেছি। এর সাথে জড়িত কাউকে ছাড় দেবো না। এই মুহূর্তেও অভিযান চলছে বলে জানান তিনি।
সোমবার রাজধানীর কাওরান বাজারে র‍্যাবের নিজস্ব একটি অ্যাপস উদ্বোধন ও করোনায় মারা যাওয়া চার সাংবাদিকের পরিবারকে অর্থ সহায়তা প্রদান অনুষ্ঠানে বক্তব্য প্রদানকালে তিনি একথা বলেন। র‍্যাব ডিজি বলেন, আমরা স্বাভাবিক সময়ে যেসব কার্যক্রম করে থাকি করোনাকালেও তা করছি। আমাদের বাহিনীর সদস্যরা এই সময়ে মাদক, জঙ্গি, সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে ক্রমাগতভাবে কাজ করে যাচ্ছে।
সাংবাদিক পরিবারগুলোকে অর্থসহায়তার বিষয়ে তিনি বলেন, কেউ এভাবে স্বজন হারাক তা আমরা চাই না। আমাদের যাতে এমন অনুষ্ঠান আর করতে না হয় সেটাই চাই। আমরা অন্য কোনও অনুষ্ঠান করে মিলিত হবো। এমন অনুষ্ঠান করতে চাই না। সাংবাদিকদের পাশে র‌্যাব সবসময় থাকবে বলেও জানান তিনি।
এসময় র‌্যাবের অতিরিক্ত মহাপরিচালক কর্নেল তোফায়েল মোস্তফা সরোয়ার বলেন, আমরা করোনা চিকিৎসায় একটি মডেল করার চেষ্টা করেছি। সারাদেশে যাতে হাসপাতালে চাপ না বাড়ে সেজন্য কিছু উদ্যোগ নিয়েছে। দেশের কমিউনিটি সেন্টার ভাড়া করে আমরা আক্রান্তদের চিকিৎসার জন্য অস্থায়ী হাসপাতাল করেছি। সেখানে রোগীরা ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নিচ্ছে। সেখানে অক্সিজেনসহ সব ধরনের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।
র‌্যাব তাদের বাহিনীর আক্রান্ত সদস্যদের আপডেট জানতে একটি অ্যাপস তৈরি করেছে। বাহিনীতে কর্মরত কোন বাহিনীর কতজন সদস্য আক্রান্ত তা অ্যাপসের মাধ্যমে বিস্তারিত তথ্য জানা যাবে।
অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন ক্রাইম রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়শেন অব বাংলাদেশ-ক্র্যাব সভাপতি আবুল খায়ের এবং সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান বিকু, র‌্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক লে. ক. সারোয়ার বিন কাশেমসহ অনেকে। এসময় ক্র্যাবকে দুটি অত্যাধুনিক অক্সিজেন কনসেন্টেটর উপহার দেয় র‌্যাব। যাতে করোনা আক্রান্ত ক্রাইম রিপোর্টাররা প্রয়োজনের সময় দ্রুত অক্সিজেন পায়। ক্রাইম রিপোর্টারদের জন্য মেডিক্যাল সামগ্রী উপহার দেয়ার জন্য র‌্যাবকে ধন্যবাদ জানানো হয়।

Categories
অপরাধ সারাদেশ

যুবলীগ নেতা খালেদের বিরুদ্ধে মানিলন্ডারিং আইনে মামলা

ভয়েস রিপোর্ট: অবৈধভাবে ক্যাসিনো চালানোর অভিযোগে আটক তৎকালীন যুবলীগের ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সাংগঠনিক সম্পাদক খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়ার বিরুদ্ধে মানিলন্ডারিং আইনে মামলা করেছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ-সিআইডি। সোমবার সকালে সিআইডির অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ফারুক আহমেদ এই তথ্য নিশ্চিত করেন।
ফারুক আহমেদ বলেন, প্রাথমিক অনুসন্ধানে খালেদের বিরুদ্ধে মানিলন্ডারিংয়ের অপরাধের প্রমাণ মিলছে। ৭ জুন মতিঝিল থানায় সিআইডির পরিদর্শক ইব্রাহীম হোসেন বাদী হয়ে মামলাটি করেন। মামলায় অভিযোগ করা হয়েছে, খালেদ ও তার প্রতিষ্ঠান মালয়েশিয়ার একটি ব্যাংকে টাকা পাচার করেছেন। মামলায় খালেদ ছাড়াও আসামি করা হয়েছে আইয়ুব, দিন মজুমদার ও আবু ইনুচ নামে আরও তিনজনকে।
প্রসঙ্গত, গত ১৮ সেপ্টেম্বর ফকিরারপুল ইয়ংমেন্স ক্লাবে ‘ক্যাসিনো’ চালানোর অভিযোগে যুবলীগ নেতা খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়াকে আটক করে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন-র‌্যাব। আটকের পর তাকে দল থেকে বহিষ্কার করা হয়।

Categories
অপরাধ সারাদেশ

কোথায় আছে সেই আলোচিত পাপিয়া?

ভয়েস রিপোর্ট: করোনা ভাইরাস সংক্রমণের কারণে থমকে গেছে যুব মহিলা লীগ থেকে বহিষ্কৃত নেত্রী বহুল আলোচিত নরসিংদীর শামীমা নূর পাপিয়ার বিরুদ্ধে মামলার তদন্ত। তিন মামলায় ১৫ দিনের রিমান্ডে থাকা পাপিয়াকে এক মামলায় ৫ দিনের রিমান্ড শেষে করোনার কারণে কারাগারে পাঠানো হয় গত ২০ মার্চ। জিজ্ঞাসাবাদ শেষ না হওয়ায় মামলার তদন্তও এগিয়ে নেয়া যাচ্ছে না বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। র্যা ব বলছে, পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে তাকে ফের হেফাজতে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। এছাড়া অর্থ পাচার আইনে পাপিয়ার বিরুদ্ধে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ-সিআইডির একটি মামলা দায়েরের কথা থাকলেও সেটিও করোনার কারণে সম্ভব হয়নি।
পাপিয়ার ঠিকানা এখন কাশিমপুর মহিলা কেন্দ্রীয় কারাগারের চার দেয়ালের ছোট্ট একটি সেল। তার সঙ্গে আর কোনো বন্দি রাখা হয়নি। ওই সেলে নিঃসঙ্গ দিন কাটাচ্ছেন পাপিয়া। প্রায় আড়াই মাসেও পরিবারের সদস্য বা পরিচিত কেউ তার সঙ্গে কারাগারে দেখা করতেও যায়নি বলে জানিয়েছেন কারা কর্মকর্তারা। পাপিয়ার শারীরিক অবস্থা সম্পর্কে কাশিমপুর মহিলা কেন্দ্রীয় কারাগারের জেলার বলেন, তিনি ভালো ও সুস্থ আছেন। কোনো সমস্যা নেই। নিয়মিত তার খবর রাখা হচ্ছে।
যুব মহিলা লীগের বহিষ্কৃত নেত্রী পাপিয়া গোপনে দেশ ছাড়ার সময় গত ২২ ফেব্রুয়ারি র্যা বের হাতে গ্রেপ্তার হন। একই সঙ্গে গ্রেপ্তার হন তার স্বামী মফিজুর রহমান ওরফে সুমন চৌধুরী এবং ব্যক্তিগত সহকারী শেখ তায়্যিবা ও সাব্বির খন্দকার। তাদের কাছে পাওয়া যায় সাতটি পাসপোর্ট, বাংলাদেশি ২ লাখ ১২ হাজার ২৭০ টাকা, ২৫ হাজার ৬শো জাল টাকা, ৩১০ ভারতীয় রুপি, ৪২০ শ্রীলঙ্কান মুদ্রা, ১১ হাজার ৯১ মার্কিন ডলার ও সাতটি মোবাইল ফোন সেট।
পরদিন ফার্মগেটের ইন্দিরা রোডের বাসায় অভিযানে পাওয়া যায় দুটি অবৈধ অস্ত্র, দুটি ম্যাগাজিন, ২০ রাউন্ড গুলি, পাঁচ বোতল বিদেশি মদ, নগদ ৫৮ লাখ ৪১ হাজার টাকা, পাঁচটি পাসপোর্ট, তিনটি চেক, বিদেশি মুদ্রা, বিভিন্ন ব্যাংকের ১০টি এটিএম কার্ড। এসব উদ্ধারের পর বিমানবন্দর থানায় একটি ও শেরেবাংলা নগর থানায় অস্ত্র ও বিশেষ ক্ষমতা আইনে দুটি মামলা করে র্যা ব। এছাড়া অর্থ পাচার আইনে পাপিয়ার বিরুদ্ধে আরেকটি মামলা করার কথা পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ-সিআইডি।
কিন্তু করোনার কারণে ওই মামলাটি এখনো করা হয়নি। নাম প্রকাশ না করার শর্তে সিআইডির একজন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বলেন, করোনা পরিস্থিতিতে সাধারণ ছুটির কারণে মামলাটি করা হয়নি। শিগগির তারা অর্থ পাচার আইনে মামলাটি করবেন।
র্যা ব কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, র্যা বের তিন মামলায় পাপিয়াকে ৫ দিন করে ১৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করে আদালত। বিমানবন্দর থানার মামলায় গত ১৬ মার্চ পাপিয়াকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য হেফাজতে নেয় র্যা ব। কিন্তু দেশে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ায় ৫ দিন জিজ্ঞাসাবাদ শেষে ২০ মার্চ কারাগারে পাঠানো হয় তাকে।
এ বিষয়ে র্যা বের আইন ও গণমাধ্যম শাখার উপপরিচালক মেজর রইসুল আজম বলেন, পাপিয়ার ৩ মামলায় ১৫ দিন জিজ্ঞাসাবাদের অনুমতি দিয়েছে আদালত। এর মধ্যে একটি মামলায় তাকে ৫ দিন জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। পরে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার কারণে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে অপর দুই মামলায় বাকি ১০ দিন জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।
এছাড়া ক্যাসিনো সংশ্লিষ্টতায় বহিষ্কৃত যুবলীগ নেতা খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়া, গোলাম কিবরিয়া বা জি কে শামীমের মামলাসহ কয়েকটি মামলায় আদালতে অভিযোগপত্র দেয়া হয়েছে। পাপিয়ার মামলায় রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদ সম্পন্ন না হওয়ায় তদন্ত এগিয়ে নেয়া যাচ্ছে না। পরিস্থিতি কিছুটা স্বাভাবিক হলে জিজ্ঞাসাবাদ ও তদন্ত শেস করে অভিযোগপত্র দেয়া হবে বলেও জানায় র্যা ব।
এরআগে পাপিয়াকে গ্রেপ্তারের পর গুলশানের ওয়েস্টিন হোটেলে প্রেসিডেন্সিয়াল সুইট ভাড়া করা এবং সেখানে যাতায়াতকারী বিত্তবানরা কীভাবে পাপিয়ার শিকার হতেন এসব নিয়ে নানা খবর গণমাধ্যমে আসে। পাপিয়ার বিষয়ে আলাপকালে নাম প্রকাশ না করার শর্তে কাশিমপুর মহিলা কারাগারের একজন ডেপুটি জেলার বলেন, কারাগারে আসার পর পাপিয়ার সঙ্গে তার পরিবারের কেউ দেখা করতে আসেনি। তাকে রাখা হয়েছে বিশেষ একটি সেলে। তার সঙ্গে আর কোনো বন্দি নেই। মাঝে মাঝে কারারক্ষীদের দিয়ে বই সংগ্রহ করে গল্পের বই পড়েন। ওই সেলে পাপিয়ার কারও সঙ্গে দেখা করার সুযোগ নেই। তাকে প্রথমে ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইনেও রাখা হয়। পরে আলাদা রাখা হয়।
নরসিংদী জেলা শহরে ভাগদী মারকাজ মসজিদ এলাকায় থাকেন পাপিয়ার বাবা সাইফুল বারী। আর শ্বশুরবাড়ি ব্রাহ্মণদীতে। রাজধানীর ফার্মগেট ইন্দিরা রোডে ‘রওশন ডোমইনো রিলিভো’ নামে একটি বিলাসবহুল ভবনে তার ও স্বামীর নামে দুটি ফ্ল্যাট রয়েছে।
পাপিয়ার সঙ্গে কেউ দেখা করতে যাচ্ছেন না কেন তা জানতে গত সোমবার নরসিংদীর স্থানীয় সাংবাদিকরা যান পাপিয়ার শ্বশুরবাড়ি ব্রাহ্মণদীতে। কিন্ত দারোয়ান জানান, বাড়ির সবাই ঢাকাতেই থাকে। ঈদেও কেউ বাড়ি যায়নি। পাপিয়ার বাবার বাড়ি ভাগদীতে গেলে প্রতিবেশীরা জানান, পাপিয়া গ্রেপ্তারের পর থেকে বাবা সাইফুল বারী অনেকটা আত্মগোপনে রয়েছেন। কারও সঙ্গে যোগাযোগ করেন না।

রিপোর্ট: আনজাম খালেক

Categories
অপরাধ

কুয়েতে এমপি শহীদ ইসলাম পাপলু গ্রেফতার

ভয়েজ রিপোর্ট: লক্ষীপুর-২ আসনের এমপি মোহাম্মদ শহীদ ইসলাম পাপলুকে মানবপাচারে জড়িত থাকার অভিযোগে গ্রেফতার করেছে কুয়েত ক্রিমিনাল ইনভেস্টিগেশন ডিপার্টমেন্ট সিআইডি। রোববার তাকে গ্রেফতার করা হয়।

কুয়েতে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত এসএম আবুল কালাম জানিয়েছেন, রোববার সংসদ সদস্য মোহাম্মদ শহীদ ইসলাম পাপলুকে কুয়েত ক্রিমিনাল ইনভেস্টিগেশন ডিপার্টমেন্ট-সিআইডি গ্রেফতার করেছে কি না বা যে অভিযোগের কথা বলা হচ্ছিলো এ বিষয়ে মামলা রয়েছে কি না সেসব বিষয়ে এখনো আনুষ্ঠানিকভাবে আমাদের কিছু জানানো হয়নি। আমরা বিস্তারিত তথ্য জানার চেষ্টা করছি।

জানা গেছে, মানবপাচার ও অর্থপাচারের বিরুদ্ধে কুয়েত সরকার অভিযান পরিচালনা করছে। কুয়েত ক্রিমিনাল ইনভেস্টিগেশন ডিপার্টমেন্ট বিশ্বের বিভিন্ন দেশের শতাধিক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করছে। এর মধ্যে বাংলাদেশের সংসদ সদস্য মোহাম্মদ শহীদ ইসলাম পাপলুও রয়েছেন।

এ বিষয়ে তার স্ত্রী সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য সেলিনা ইসলাম বলেন, লক্ষ্মীপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য কাজী শহিদ ইসলাম পাপুল কুয়েতে গ্রেফতার সম্পর্কিত যে তথ্য ঠিক নয়। তিনি সেখানে কোনো মামলার আসামি নন। কুয়েত সরকারের তাদের নিয়ম অনুযায়ী তার ব্যবসায়িক বিষয়ে আলোচনার জন্য তাকে সেখানকার সরকারি দপ্তর বা সিআইডিতে ডেকে নিয়েছে। ‘প্রকৃতপক্ষে মোহাম্মদ শহিদ কুয়েতে একজন প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী। তিনি খ্যাতনামা মারাফি কুয়েতিয়া কোম্পানির ম্যানেজিং ডিরেক্টর ও সিইও। এই কোম্পানির কুয়েতি অংশীদারও রয়েছে। এই প্রতিষ্ঠানে ২৫ হাজারেরও বেশি বাংলাদেশি কর্মরত। বিশ্বজুড়ে করোনা মহামারির কারণে অন্য দেশের মতো কুয়েতেও তিন মাস ধরে লকডাউন চলছে।’ এ পরিস্থিতিতে অনেক অভিবাসী কর্মী বেকার রয়েছে। তাদের কেউ কেউ সরকারি দপ্তরে অভিযোগ করেছেন। এসব বিষয় নিয়ে কুয়েতের সরকারি দপ্তর ও সিআইডি তাকে আলোচনা জন্য ডেকে নিয়েছে।

বিষয়টি নিয়ে পরিষ্কার কোনো তথ্য ছাড়া কাউকে বিভ্রান্তি না ছড়ানোর অনুরোধ জানাচ্ছি।

কুয়েতের স্থানীয় সূত্র জানায়, মানবপাচার ও অর্থপাচারের বিরুদ্ধে কুয়েত সরকার থেকে অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে। কুয়েত ক্রিমিনাল ইনভেস্টিগেশন ডিপার্টমেন্ট-সিআইডি বিশ্বের বিভিন্ন দেশের শতাধিক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করছে। এর মধ্যে বাংলাদেশের সংসদ সদস্য মোহাম্মদ শহিদ ইসলাম পাপলুও রয়েছেন।

এনআরবি কমার্শিয়াল ব্যাংকের পরিচালক হিসেবেও দায়িত্ব পালন করছেন মোহাম্মদ শহিদ ইসলাম। তার বিরুদ্ধে কুয়েতে মানবপাচার করে এক হাজার ৪শ কোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ রয়েছে। এই অভিযোগে গত ফেব্রুয়ারি থেকে তার বিরুদ্ধে অনুসন্ধানও শুরু করে দুর্নীতি দমন কমিশন-দুদক।

Categories
অপরাধ

লিবিয়ায় স্বজনদের না পাঠানোর আহ্বান র‌্যাবের

আনজাম খালেক: লিবিয়ায় বাংলাদেশি নির্যাতন ও হত্যার রোমহর্ষক বর্ণনা তুলে ধরে নিজ স্বজনদের এভাবে বিদেশে না পাঠানোর অনুরোধ জানিয়েছেন নিহত বাংলাদেশিদের স্বজন ও র‌্যাব কর্মকর্তারা। আর দেশীয় দালালসহ দোষীদের শাস্তি চান নিহতের স্বজনরা। মর্মান্তিক এই ঘটনায় এরইমধ্যে দেশীয় চক্রের হোতা হাজী কামালসহ ৮ জনকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। লিবিয়ায় পাচারকারীদের গুলিতে নিহত ২৬ বাংলাদেশির বাড়িতে এখনো শোকের মাতম চলছে।

লিবিয়ায় অপহরণকারীদের হাতে নিহত ২৬ বাংলাদেশির একজন যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার খাটবাড়িয়া গ্রামের ঈসরাইল হোসেন দফাদারের ছোট ছেলে রকিবুল ইসলাম রকি। সংসারে সচ্ছলতা আনতে মাত্র ২০ বছর বয়সে দেশ ছেড়ে পাড়ি জমায় লিবিয়ায়। ভিটে বাড়ির এক অংশ বিক্রি ও এনজিও থেকে ঋণ নিয়ে দালালের মাধ্যমে চলতি বছরের ১৫ ফেব্রুয়ারি বাড়ি ছেড়েছিল। গিয়েছিল নিজ ভাগ্য পরিবর্তন ও বাবা-মায়ের মুখে হাসি ফোটাতে। কিন্তু বাবা মায়ের মুখে হাসির পরিবর্তে এখন এক সাগর কান্না।

লিবিয়ায় মুক্তিপণের দশ লাখ টাকা দিতে রাজি হলেও শেষ রক্ষা হয়নি রকিবুলের। মানবপাচারকারীদের বুলেটে নিহত অপর ২৫ বাংলাদেশির মতো তাকেও জীবন দিতে হয়। আর তার মৃত্যুর খবরে শোকের মাতম বইছে যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার খাটবাড়িয়া গ্রামের বাড়িতে। এখন তারা অন্তত রকিবুলের মরদেহটা ফেরত চান।

একই ঘটনায় নিহত গোপালগঞ্জের মুকসুদপুর উপজেলার বামনডাঙ্গা গ্রামের সুজন মৃধার বাড়িতেও চলছে শোকের মাতম। আর একই ইউনিয়নের সুন্দরদি গ্রামে কালাম শেখের ছেলে ওমর শেখ গুলিবিদ্ধ হয়ে লিবিয়ার ত্রিপলী হাসপাতালে মৃত্যুর সাথে লড়ছেন। এ খবর বামনডাঙ্গা গ্রামে পৌছালে গোটা এলাকায় নেমে আসে শোকের ছায়া।

মর্মান্তিক এই হত্যার খবর পেয়ে দেশীয় দালালদের বিরুদ্ধে অভিযানে নামে র‌্যাব। রাজধানীর শাহজাদপুর এলাকার একটি বাসায় অভিযান চালিয়ে র্যাববের একটি দল এই চক্রের হোতাকে আটক করে। পরে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তিনি জানান, ১১ বছরে অবৈধভাবে প্রায় ৩০০ থেকে ৪০০ বাংলাদেশিকে লিবিয়ায় পাঠিয়েছেন।

এরপরই আরো কয়েকটি স্থানে অভিযান চালিয়ে এই চক্রের আরো ৭ সদস্যকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৩ ও র‌্যাব-১২ এর সদস্যরা। ঘটনার পর থেকেই কয়েকটি সুত্র ধরে তদন্ত শুরু করে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন। র‌্যাবের মুখপাত্র বলেন, এই চক্রের আরো সদস্যকে চিহ্নিত করে শাস্তির আওতায় আনা হবে। কুষ্টিয়ার সদর থানা এলাকার এই হাজী কামালের কাছ থেকে পাচারকারী চক্র সম্পর্কে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য উদঘাটন ও আরো পাসপোর্ট জব্দ করা হয়েছে বলেও জানায় র‌্যাব।

Categories
অপরাধ সারাদেশ

এমপি এনামুলের সম্মানহানির অভিযোগে নারীর বিরুদ্ধে মামলা

নিজস্ব প্রতিনিধি, রাজশাহী : রাজশাহী-৪ আসনের সংসদ সদস্য ইঞ্জিনিয়ার এনামুল হকের সাবেক স্ত্রী আয়েশা আক্তার লিজার বিরুদ্ধে তথ্যপ্রযুক্তি আইনে মামলা হয়েছে। সাংসদের পক্ষে মামলাটি করেছেন তার একান্ত সহকারী ও বাগমারা উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান আসাদ।

এমপির বিরুদ্ধে গোপনে বিয়ে করে প্রতারণার অভিযোগ করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছবি দিয়ে বিচার চাওয়ায় সংসদ সদস্য এনামুল তাকে তালাক দেন। এবার তার বিরুদ্ধে রাজশাহীর বাগমারা থানায় হলো।

বাগমারা থানার ওসি আতাউর রহমান জানান, লিজাকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলেছ । সাংসদের পক্ষে তথ্যপ্রযুক্তি আইনে ও চাঁদা দাবির অভিযোগ এনে মামলাটি করা হয়। এতে আসামি করা আয়েশা আক্তার লিজাকে।

মামলায় বলা হয়েছে, আয়েশা আক্তার লিজাকে তালাক দেওয়ার পর তিনি তার স্বামী সাংসদ এনামুল হকের কাছে নিজের ব্যাংক লোনের এক কোটি টাকা পরিশোধের জন্য চাঁদা দাবি করেন। চাঁদা না দেওয়ায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছবি দিয়ে সাংসদ এনামুল হকের বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালিয়ে তার সুনাম ক্ষুন্ন করেছেন।

মামলা প্রসঙ্গে সাংসদ এনামুল হকের দ্বিতীয় স্ত্রী আয়েশা আক্তার লিজা বলেন, ‘আইনগত আমি এখনো সাংসদ এনামুল হকের বৈধ স্ত্রী। আমাকে তালাকের প্রথম নোটিশ দেওয়া হয়েছে বলে শুনেছি। এখনো নোটিশ হাতে পাইনি। পরপর তিনটি নোটিশ তিন মাসে আসার পর তালাক চূড়ান্ত হয়। আমাকে তালাক দেওয়ার বিষয়টি শুনতে পেয়ে আমি ন্যায় বিচার চেয়ে আমার স্বামীর সঙ্গে ফেসবুকে ছবি দিয়েছি। এতে তার একার পক্ষে মান সম্মান নষ্ট হবার কথা নয়। যেহেতু আমরা বৈধ স্বামী-স্ত্রী।’

চাঁদা চাওয়ার বিষয়ে তিনি বলেন, এমপি এনামুল নিজেই আমাকে মেসেজ দিয়ে ২৫ লাখ টাকা চাঁদা চেয়েছে। সেই মেসেজ আমার কাছে এখনো আছে। আমিও তার নামে মামলা করবো।

এদিকে আয়েশা আক্তার লিজা সাংসদ এনামুল হকের বিরুদ্ধে বিয়ের নামে প্রতারণা ও ভ্রুণ হত্যার অভিযোগ এনে বাংলাদেশ মহিলা আইনজীবী সমিতিতে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।

Categories
অপরাধ সারাদেশ

আরো ১১ জন জনপ্রতিনিধি বরখাস্ত

নিজস্ব প্রতিবেদক, ভয়েজ টিভি: ত্রাণ বিতরণে অনিয়মের অভিযোগ, কর্মস্থলে অনুপস্থিতি, প্রধানমন্ত্রীর দেয়া মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে নগদ অর্থ আত্মসাৎ এর চেস্টা সহ বিভিন্ন কারণে ১১ জন জনপ্রতিনিধিকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করেছে স্থানীয় সরকার,পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়(এলজিআরডি)। এদের মধ্যে ৪ জন ইউপি চেয়ারম্যান ও ৬ জন ইউপি সদস্য এবং ১ জন পৌর কাউন্সিলর রয়েছেন।
আজ স্থানীয় সরকার বিভাগ থেকে এ সংক্রান্ত পৃথক প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়।
করোনা ভাইরাসের প্রার্দুভাব শুরু হওয়ার পর এ নিয়ে মোট ৮৫ জন প্রতিনিধিকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হলো।এদের মধ্যে ২৮ জন ইউপি চেয়ারম্যান,৫১ জন ইউপি সদস্য,১ জন জেলা পরিষদ সদস্য,৪ জন পৌর কাউন্সিলর এবং ১ জন উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান।
আজ সাময়িকভাবে বরখাস্তকৃত ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানরা হলেন,কিশোরগঞ্জের নিকলী উপজেলার সিংপুর ইউপির মো: আনোয়ারুল হক,বাজিতপুর উপজেলার হালিমপুর ইউপির কাজল ভুঁইয়া ,বরগুনা জেলার সদর উপজেলাধীন এম বালিয়াতলী ইউপির শাহনেওয়াজ এবং নলটোনা ইউপির হুমায়ুন কবীর।
অন্যদিকে আজ সাময়িকভাবে বরখাস্তকৃত ইউনিয়ন পরিষদের সদস্যরা হলেন, ব্রাম্মণবাড়িয়া জেলার সদর উপজেলার মজলিশপুর ইউপির ২ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য হারিছ মিয়া এবং ৭ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য হাছান মিয়া, বরগুনা জেলার সদর উপজেলার নলটোনা ইউপির ৭ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য হারুন মিয়া,৮ নম্বও ওয়ার্ডের সদস্য মো: হানিফ,১,২ ও ৩ নম্বও ওয়ার্ডের সংরক্ষিত মহিলা আসনের সদস্য রাণী এবং ৭,৮ ও ৯ নম্বর ওয়ার্ডের সংরক্ষিত মহিলা আসনের সদস্য ছাবিনা ইয়াসমিন (পলি)। সাময়িকভাবে বরখাস্তকৃত পৌরসভার কাউন্সিলর হলেন চট্টগ্রাম জেলার বোয়ালখালী পৌরসভার ৬ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর সোলাইমান বাবুল।