Categories
বিনোদন

অসম বয়সের প্রেম নিয়ে নির্মিত সেই নিষিদ্ধ সিনেমাটি মুক্তি পাচ্ছে

আলোচিত ‘ম্যাডাম ফুলি’ ছবির নায়িকা সিমলার সেই ‘নিষিদ্ধ’ ছবিটি মুক্তি পাচ্ছে ইউটিউবে। ‘নিষিদ্ধ প্রেমের গল্প’ নামের সেই সিনেমার শুটিং হয়েছিল সাত বছর আগে। ছাড়পত্রের জন্য জমা দেওয়া হলে সেটিকে প্রদর্শনের অযোগ্য ঘোষণা করে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র সেন্সর বোর্ড। বৃহস্পতিবার ইউটিউবে মুক্তি পাচ্ছে ছবিটি।

প্রথমবার সেন্সর না পেয়ে বেশ কিছু সংশোধনের পর চলতি মাসে আবার ছবিটি জমা দেন পরিচালক। পরিবর্তনের পর ছবির নাম রাখা হয় ‘প্রেমকাহন’। এবারও সেটি প্রদর্শনের অযোগ্য বলে সেন্সর সনদ পায়নি। এবার তাই ইউটিউবেই ছবিটি মুক্তির কথা ভাবছেন পরিচালক রুবেল আনুশ। তিনি বলেন, ২৫ নভেম্বর এটি মুক্তি পাবে। সিনেমা কটেজ নামের ইউটিউব চ্যানেলে প্রকাশিত হবে। তিনি বলেন, ‘প্রেমকাহন’ নামে গত ২৭ অক্টোবর সেন্সর বোর্ড সদস্যরা ছবিটি দেখে ২ নভেম্বর ছাড়পত্র না দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন। যদিও ৩০ দিনের মধ্যে আপিলের সুযোগ রয়েছে। কিন্তু ওই পথে আর যেতে চান না নির্মাতা। আজই ইউটিউবে প্রকাশিত হয়েছে ছবিটির টিজার।

অসম বয়সের প্রেমের গল্প নিয়ে ‘নিষিদ্ধ প্রেমের গল্প’। সিমলার বিপরীতে এতে অভিনয় করেছেন মামুন। এর আগে ‘ঘেটুপুত্র কমলা’ ছবিতে কেন্দ্রীয় চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন মামুন। সত্য ঘটনা অবলম্বনে ২০১৪ সালের আগস্ট মাসে এ ছবির শুটিং শুরু হয়। সিনেমায় ৩৮ বছর বয়সী এক নারীর প্রেমে জড়িয়ে পড়ে ১৮ বছরের এক তরুণ। ছবিতে আরও অভিনয় করেছেন আবুল হায়াত, রুমাই নোভিয়া, পুলক, বাপ্পী, লাবণী, সাদিয়া, আলিফ, মুসা, টুটুল চৌধুরী, আফরিন প্রমুখ।

ভয়েস টিভি/এসএফ

Categories
বিনোদন

সর্বোচ্চ তরুণ করদাতা পুরস্কার পাচ্ছেন চিত্রনায়ক শান্ত খান

তরুণ করদাতা হিসেবে সন্মাননা পাচ্ছেন চিত্রনায়ক শান্ত খান। ২০২০-২১ কর বছরে জেলা ভিত্তিক সর্বোচ্চ কর প্রদানকারী ৪০ বছর বয়সের নিচে তরুণ করদাতা হিসেবে তিনি জাতীয় রাজস্ববোর্ড কর্তৃক এ সন্মাননা পাচ্ছেন।

‘সিটি কর্পোরেশন এবং জেলা ভিত্তিক সর্বোচ্চ ও দীর্ঘ সময় আয়কর প্রদানকারী করদাতাদের পুরস্কার নিতিমালা-২০০৮’ কর-অঞ্চল কুমিল্লা গত ১৮ নভেম্বরে দেওয়া এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

চিত্রনায়ক শান্ত খান দেশের খ্যাতিমান প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান শাপলা মিডিয়া ও শাপলা মিডিয়া ইন্টারন্যাশনালের কর্ণধার সেলিম খানের ছেলে। ২০১৯ সালে ‘প্রেম চোর’ চলচ্চিত্রের মাধ্যমে ঢাকাই চলচ্চিত্রের নায়ক হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেন তিনি।

বাংলা চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় অভিনেতা শান্ত খান প্রথম চলচ্চিত্র ‘প্রেম চোর’ দিয়েই দর্শকদের মন জয় করেছেন। তারপর আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। বর্তমানে বাংলা সিনেমায় শীর্ষ নায়কদের একজন তিনি।

‘টুঙ্গীপাড়ার মিয়া ভাই’ চলচ্চিত্রটি দর্শকমহলে ব্যাপক প্রশংসা পায়। পরে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের জারি করা এক প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে সিনেমাটি দেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের দেখানো হয়। এরইমধ্যে ‘বিক্ষোভ’, ‘শুভ সকাল’, ‘গ্যাংস্টার’, ‘৭১ এর ইতিহাস’, বুবুজান এবং ‘প্রিয়া রে’ চলচ্চিত্রে কাজ করছেন শান্ত খান।

ভয়েসটিভি/এএস

Categories
বিনোদন ভিডিও সংবাদ

যে কারণে চল্লিশেও অবিবাহিত লাস্যময়ী নায়িকা পপি

চলচ্চিত্র অভিনেত্রী ও মডেল সাদিকা পারভিন পপি। যিনি পপি নামে পরিচিত। তিনি ১৯৯৭ সালে মনতাজুর রহমান আকবরের কুলি চলচ্চিত্রে অভিনয়ের মধ্য দিয়ে চলচ্চিত্রে পা রাখেন। অল্প সময়ে ঢাকাই চলচ্চিত্রে নিজের শক্ত অবস্থান গড়ে তোলেন।

৫ ফুট ৮ ইঞ্চি উচ্চতার পপির জন্ম খুলনায়। তার শৈশব কাটে খুলনায় দাদাবাড়িতে। ছয় ভাইবোনের মধ্যে পপি বড়। ৪৩ বয়স বয়সী এই অভিনেত্রী লাক্স আনন্দ বিচিত্রার সুন্দরী প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন হয়ে পরিচিতি লাভ করে। চলচ্চিত্রে আসার আগে তিনি শহীদুল হক খান পরিচালিত ‘নায়ক’নাটকে চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চনের বিপরীতে প্রথম অভিনয় করেন।

চোখ ধাঁধানো দৈহিক সৌন্দর্যের অধিকারিণী এই অভিনেত্রী খোলামেলা পোশাকে সবার নজর কেড়ে নেন। মায়ের জন্যে যুদ্ধ ছায়া ছবিতে ‘মন বলে পিয়ু পিয়ু’ গানে কালো ব্লাউজ ও পা উন্মুক্ত পোশাকে ব্যাপক উষ্ণতা ছড়ান এই লাস্যময়ী নায়িকা। একই ছবিতে নায়ক রুবেলের সাথে একটি গানের সিনে বরফের টুকরা মুখে পপির শরীরে ছোয়ানোও ব্যাপক সমালোচনার সৃষ্টি হয়। তাছাড়া আরো অনেক ছায়াছবিতে বোল্ড লুক ও চুম্বন দৃশ্যে ধরা দেন তিনি। তার পশ্চিমা খোলামেলা আবেদনময়ী উপস্থিতি দর্শকদের মনে জায়গা করেন নেয়। এরপর দিতে থাকেন একের পর এক ব্যবসাসফল ছায়াছবি।

ঢাকাই চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় নায়িকা পপি ৪৩শে পা দিলেও এখনো অবিবাহিত রয়ে গেছেন। দীর্ঘদিন ধরেই অন্তরালে থাকায় একসময়ের তুমুল জনপ্রিয় এই অভিনেত্রীকে নিয়ে গুঞ্জন উঠে বিয়ে করে তিনি আড়ালে রয়েছেন। তবে পপি মনের মতো বিশ্বস্থ কাউকে পাননি বলে বিয়ে করেননি বলে জানান।

পপির ভাষায়, ডজনেরও বেশি ছেলে আমার প্রেমে পড়েছে। কিন্তু আমি এক-দুজনের প্রেমে পড়েছি। তবে প্রেম করতে গিয়ে ধরা খেয়েছি। যার প্রেমেই পড়েছি, একসময় দেখেছি ভণ্ড, চরিত্রহীন ও মিথ্যাবাদী।

আর সৎ ও চরিত্রবান কাউকে না পেলে আরো ২০ বছর গেলেও বিয়ে করবেন না বলেও জানিয়েছেন এ চিত্রনায়িকা।

গেল বছরই বিয়ে করতে চেয়েছিলেন পপি। কিন্তু, সেই ইচ্ছা আর বাস্তব রূপ পায়নি। কেন এখনও বিয়ে করছেন না প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, সৎ ও যোগ্য পাত্র না পাওয়াতে বিয়ে করিনি। তবে খোঁজ চলছে। মিলে গেলে দ্রুতই বিয়ে সেরে ফেলব।

পপি বলেন, সত্যি বলতে একজন ছেলে, ‘জান খেয়েছ, জান ঘুমিয়েছো’ লিখে একই মেসেজ ১১ জন মেয়েকে পাঠায় এমন ছেলেকে বিয়ে করতে চাই না। সৎ ও বিশ্বাসযোগ্য ছেলে পাওয়া খুব মুশকিল। সম্পর্কের জায়গায় সততা থাকতে হবে। যদি এমন না পাই তাহলে আরও ২০ বছর গেলেও বিয়ের না করার জন্যে কোনো আফসোস হবে না।

দেশের চলচ্চিত্র ইতিহাসে অন্যতম আবেদনময়ী এই অভিনেত্রী এ পর্যন্ত মেঘের কোলে রোদ, কি যাদু করিলা, গঙ্গাযাত্রা ছায়াছবিতে অভিনয়ের করে শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী হিসেবে তিনবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জন করেছেন। এছাড়া দুইবার বাচসাস পুরস্কার অর্জন করেন। এরপর দীর্ঘ সময় সিনেমার সঙ্গে সেভাবে যুক্ত থাকেননি। সম্প্রতি নতুন করে কিছু ছবিতে হাত দিয়েছেন বলে জানা যায়। এ পর্যন্ত ৪০টি সিনেমায় অভিনয় করেছেন পপি।

ভয়েসটিভি/এএস

Categories
বিনোদন

বিয়ের ছয় মাস পরই মা হলেন বলিউড অভিনেত্রী এভলিন

চলতি বছরের ১৫ মে দীর্ঘদিনের প্রেমিক তুশান ভিন্দিকে বিয়ে করেন বলিউডের উঠতি অভিনেত্রী এভলিন শর্মা। বিয়ের ছয় মাস পরই কন্যাসন্তানের মা হলেন এ অভিনেত্রী। সামাজিকমাধ্যমে এ সুখবর জানিয়েছেন অভিনেত্রী নিজেই।

ইতোমধ্যে ‘ইয়ে জওয়ানি হ্যায় দিওয়ানি’ খ্যাত এ অভিনেত্রী ১২ নভেম্বর তার কন্যাসন্তান জন্ম দেয়। মা-মেয়ের ছবি যুক্ত করে নিজ কন্যার নামও জানিয়েছেন।  মেয়ের নাম রেখেছেন আভা রানিয়া ভিন্দি।

ইনস্টাগ্রামে ছবি শেয়ার করে এভলিন ক্যাপশন জুড়েছেন, ‘আভা ভিন্দির মা হওয়ায় আমার জীবনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা।’

চলতি বছরের ১৫ মে ঘরোয়া আয়োজনের মাধ্যমে দীর্ঘদিনের প্রেমিক তুশানকে বিয়ে করেন এভলিন। তবে এ যুগল আংটিবদল করেছিলেন ২০১৯ সালের অক্টোবরে।

বিয়ের পর জুলাই মাসে অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার খবর দিয়েছিলেন এভলিন। বলেছিলেন, তিনি ও তার স্বামী প্রথম সন্তানের অপেক্ষা করছেন।

ভয়েসটিভি/এমএম

Categories
বিনোদন

ভারত জিহাদি রাষ্ট্র: কঙ্গনা

বিতর্ক এবং কঙ্গনা রানাওয়াত যেন মুদ্রার এপিঠ-ওপিঠ। বিতর্কিত মন্তব্য করে যতবার তিনি ঘি ঢেলেছেন, ততবার দেশের একাধিক শহরে তার বিরুদ্ধে দায়ের হয়েছে মামলা। এবার দিল্লির পার্লামেন্ট স্ট্রিট থানায় অভিনেত্রীর বিরুদ্ধে দেশদ্রোহ ধারায় মামলা হয়েছে। ‘ভারতকে জিহাদি রাষ্ট্র’ বালায় এ মামলা করা হয়।

গুরু নানকের জন্মদিনে কেন্দ্রের তিনটি কৃষক আইন প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত ঘোষণা করেন নরেন্দ্র মোদি। তারপরেই এ সিদ্ধান্তে ‘বিরক্ত’ অভিনেত্রী ‘ভারতকে জেহাদি রাষ্ট্র’ ঘোষণা করে ইনস্টাগ্রামে পোস্ট করেন। আর একে হাতিয়ার বানিয়েছে কংগ্রেস।

দলের অভিযোগ, ‘কঙ্গনা পরিচিত অভিনেত্রী। ইনস্টাগ্রামে তার অনুরাগীর সংখ্যা ৭ মিলিয়নের বেশি। এ অবস্থায় তার দায়িত্বজ্ঞানহীন, উদ্দেশ্যপ্রণোদিত মন্তব্যে দেশের গণতন্ত্রের প্রতি বিরূপ প্রভাব পড়তে পারে।’ তাই এর বিহিত চেয়ে আইনের দ্বারস্থ হয়েছে যুব কংগ্রেস। জানা গিয়েছে, অভিনেত্রীর বিরুদ্ধে ১২৪-এ, ৫০৪ এবং ৫০৫ ধারায় মামলা দায়ের হয়েছে।

সম্প্রতি ভারতের স্বাধীনতা আন্দোলন এবং মহাত্মা গান্ধির অহিংস নীতির বিরুদ্ধেও সোচ্চার হয়েছিলেন অভিনেত্রী। ১৯৪৭-এ পাওয়া স্বাধীনতাকে তিনি ভিক্ষাবৃত্তির সঙ্গে তুলনা করেছিলেন। এমনকি, গান্ধিজির অহিংস নীতির সমালোচনায় সরব বলিউডের ক্যুইন। এই পরিবেশে কঙ্গনার বিরুদ্ধে দায়ের রাষ্ট্রদোহ মামলায় বেশ বিপাকে পড়লেন তিনি। এমনটাই মনে করছেন সিনে সমালোচকরা।

ঠিক কী বলেছিলেন অভিনেত্রী? অভিনেত্রীর মন্তব্য, ‘ভীষণই দুঃখজনক। লজ্জাজনক এবং মোটেই ভালো হলো না এটা। সরকারকে না মেনে রাস্তার লোকেরা যদি এবার আইন বানাতে শুরু করে, তাহলে এরা তো জিহাদির সমান। শুভেচ্ছা রইল সেসব লোকেদের যারা এটাকে এভাবেই দেখতে চাইছিলেন।’ কঙ্গনার এমন বেফাঁস মন্তব্যে স্বাভাবিকভাবেই ফের সরগরম নেটদুনিয়া।

কঙ্গনা আরও যোগ করেন, ‘যখন দেশের চেতনা ঘুমোয়, তখন লাঠিই একমাত্র পথ ঠান্ডা করার জন্যে। না হলে এদের থামানোর জন্য প্রয়োজন স্বৈরাচারতন্ত্রের..।’

এদিকে, অভিনেত্রী কঙ্গনা রানাওয়াত সবসময় বিতর্কে থাকতে ভালোবাসেন এ বিষয়টি এখন সবার কাছে পরিষ্কার। নানান সময়ে বেফাঁস মন্তব্য করেই তিনি হেডলাইনে থাকতে পছন্দ করেন। সবসময় দেশভক্তি নিয়ে নানান জ্ঞান কপচালেও এবার কিন্তু আলাদারকম ফেঁসেছেন তিনি। স্বাধীনতা নাকি ভিক্ষায় পেয়েছে ভারতবর্ষ, এ মন্তব্যের পর থেকেই সরগরম সোশ্যাল মিডিয়া।

অনেক মানুষ তার বিরোধিতা করেছেন। কেউ কেউ তাকে দেশ থেকে বহিষ্কার করার উচিত বলেও মন্তব্য করেন। এবার সেই প্রসঙ্গেই মতামত পোষণ করেছেন গীতিকার জাভেদ আখতার। টুইট করেই মোক্ষম জবাব দিয়েছেন তিনি। বলেন, ‘এটি সম্পূর্ণ বোঝার বিষয়, যাদের স্বাধীনতা আন্দোলনের সঙ্গে কোনোরকম সম্পর্ক নেই, তাদের কারও কোনো মন্তব্যে আমাদের খারাপ লাগাই উচিত নয়’। সহজ ভাষায় মিষ্টি মুখেই বিরোধিতার সুর চড়িয়েছেন জাভেদ।

ভয়েস টিভি/এসএফ

Categories
বিনোদন ভিডিও সংবাদ

রেস্টুরেন্টে খাবার পরিবেশনকারী মেয়েটি এখন বলিউড সেরা ড্যান্সার

ইনস্টাগ্রামে ১ কোটি ৭৭ লাখ ফলোয়ারের মরক্কোর প্রথম আর একমাত্র তারকা নোরা ফতেহি। সম্প্রতি মুম্বাই মিররকে দেয়া সাক্ষাৎকারে নোরা ফাতেহি জানান, জীবনের প্রথম চাকরি ছিল কানাডার এক জেন্টস শপিং মলে। তখন সবে হাইস্কুলে পড়তেন। তাকে স্টোরের দায়িত্ব দেয়া হয় ওই অল্প বয়সেই। তখন মাসিক বেতন ছিল ১ হাজার কানাডীয় ডলার। আর আজ তিনি অভিনয়-মডেলিং আর নাচ দিয়ে কামাচ্ছেন কোটি কোটি ডলার।

এরপর চাকরি নেন টেলি-কলার পদে। অর্থাৎ টেলিফোনে লটারির টিকিট বেচার কাজ। বেতন ছাড়াও টিকিট বিক্রির সংখ্যার ওপর বিশেষ ভাতা মিলতো। টেলিকলারের কাজ ছেড়ে কফি শপে ওয়েটারের কাজ নেন নোরা ফাতেহি। এখানে বাড়তি উপার্জনের জন্য ডাবল শিফটে কাজ করতেন।

নোরার জন্মের আগেই কানাডা চলে গিয়েছিল তাঁর পরিবার। নোরা জন্মসূত্রে কানাডীয় আর পৈতৃক সূত্রে মরক্কান। তিনিও জন্মসূত্রেই ইসলাম ধর্মের অনুসারী। ভারতের বিভিন্ন মডেলিং এজেন্সিতে নাচের ভিডিও পাঠিয়ে লিখতেন কাজের ইচ্ছার কথা। দেড় বছর পর একটা মেইলের জবাব আসে। সেই আনন্দে বাক্সপেটরা গুটিয়ে কানাডা থেকে ভারতের মুম্বাইয়ে চলে যান নোরা। সেটা ২০১২ সালের কথা।

পরের দুই বছর নোরা কেবল বিজ্ঞাপন করেছেন, কিন্তু কোনো টাকা পাননি। সিনেমায় একটা চরিত্র পেতে সময় লেগে গেছে দুই বছর। সব নেতিবাচকতা, ব্যর্থতা, ঠেলে সরিয়ে সফলতার দেখা পেতে সময় লেগে যায় আরও চার বছর।

বলিউডে নোরার নাচ মানেই হিট। তিনি যে গানের নাচের সঙ্গেই কোমর দোলান না কেন, তা দর্শকদের মধ্যে ভাইরাল হয়ে পড়বে। বলিউডের আইটেম সং ডান্সার নোরা ফাতেহির নাচের জাদুতে ভারত তথা সমগ্র বিশ্ব মাতোয়ারা। বর্তমানে বেশির ভাগ হিন্দি ছবিতেই নোরা কোরিওগ্রাফি করেন। শ্রদ্ধা কাপুর থেকে আলিয়া ভাট সকলের জন্যই কোরিওগ্রাফি করেছেন সুন্দরী নোরা্। এরইমধ্যে অর্থ পাচার মামলায় জড়িয়ে গেছে কানাডিয়ান এই নৃত্যশিল্পীর নাম। তাকে ২০০ কোটি টাকা আর্থিক তছরুপ মামলায় জিজ্ঞাসাবাদও করা হয়েছে। তবে নোরা জানিয়েছেন, তিনি অপরাধী নন, ভুক্তভোগী।

তিনি তেলুগু চলচ্চিত্র টেম্পার, বাহুবলী: দ্য বিগিনিং ও কিক ২ চলচ্চিত্রে আইটেম গানে পারফর্ম করে জনপ্রিয়তা অর্জন করেন। ২০১৫ সালে তিনি বিগ বস- এ প্রতিযোগী ছিলেন এবং ৮৪ তম দিন পর্যন্ত ছিলেন। তিনি তার লাস্যময়ী নৃত্য ও ক্ষৃপ্ত গতির পারফারমেন্সের কারনে বলিউড প্রেমীদের মন জয় করে নিয়েছেন।

তিনি ২০২০ সালে জি সিনেমা অ্যাওয়ার্ড লাভ করেন।

নোরা ফাতেহির ভারুন ঘুমান নামের এক বডি- বিল্ডারের সাথে সম্পর্ক ছিলো। অঙ্গাদ বেদী তার এক্স -বয়ফ্রেন্ড ছিলেন তিনি একজন মডেল ও টিভি অভিনেতা। তার প্রিন্স নেরুলার সাথেও সম্পর্ক ছিলো তিনি একজন টিভি পার্সোনালিটি।

টিনসেল টাউনের হট সেনসেশন নোরা ফতেহি মানেই টানটান উত্তেজনা। শরীরী উষ্ণতায় ভক্তদের ধরে রাখতে সিদ্ধহস্ত নোরা। সাকি সাকি, দিলবার, কামারিয়ার পর এবার কুসু কুসু শিরোনামে নতুন মিউজিক ভিডিও নিয়ে হাজির হলেন বলিউড অভিনেত্রী নোরা ফাতেহি। এরই মধ্যে মিউজিক ভিডিওটি ইউটিউবে ঝড় তুলেছে।

আরও পড়ুন : ‘কুসু কুসু’ আইটেম গানের শুটিংয়ে মরতে মরতে বেঁচে যান নোরা!

Categories
বিনোদন

সিনেমা কিংবা অভিনয় ছাড়াই পুরস্কার পেলেন জয়া আহসান!

এবার সিনেমা কিংবা অভিনয় ছাড়াই ব্যাতিক্রমী পুরস্কার পেলেন জয়া আহসান। নন্দিত এ অভিনেত্রীর পশুপ্রেমের কথা প্রায় সবার জানা। এবার সেই ভালোবাসার প্রতিদানও পেলেন এই অভিনেত্রী।

পশুদের নিয়ে কাজ করা সংগঠন ‘দ্য পিপল ফর অ্যানিমেল ওয়েলফেয়ার (পাও)’ প্রথমবারের মতো পুরস্কার প্রদান করেছে। পুরস্কারপ্রাপ্তদের তালিকায় ছিলেন জয়া আহসানও।

২০ নভেম্বর শনিবার সন্ধ্যায় রাজধানীর জাতীয় জাদুঘরের বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব মিলনায়তনে জয়ার হাতে এই পুরস্কার তুলে দেয়া হয়। পশুপ্রেমের জন্য এই সম্মাননা পেয়ে আনন্দিত জয়া আহসান।

জয়া আহসান বলেন, ‘প্রাণীকে ভালোবাসার কারণে পুরস্কার পেয়েছি, এটা সত্যিই আনন্দের। এর চেয়ে বেশি আনন্দ লাগছে- এমন একটি উদ্যোগের জন্য। যারা এমন আয়োজন করছেন, তাদের প্রতি আমার ভালোবাসা। এমন আয়োজন আগামীতে প্রাণবিক মানুষ তৈরিতে বড় ভূমিকা রাখবে বলে আমার বিশ্বাস। ’

‘দ্য পিপল ফর অ্যানিমেল ওয়েলফেয়ার (পাও)’ আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব ও সংসদ সদস্য আসাদুজ্জামান নূর। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি গোলাম কুদ্দুস, বিচারপতি এ এইচ এম শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিক, চিত্রশিল্পী কনক চাঁপা চাকমা, শিল্প সমালোচক মইনুদ্দিন খালেদ।

এর আগে ৫ অক্টোবর বিশ্ব পশু দিবসে ‘প্রাণবিক বন্ধু’ নামের এই পুরস্কারপ্রাপ্তদের নাম ঘোষণা করা হয়। সেখানে পশু উদ্ধারকারী, চিকিৎসক, সংগঠকসহ ১১ জনের নাম উপস্থাপন করা হয়। তাদের হাতে এবার সম্মাননা তুলে দেওয়া হলো।

আরও পড়ুন : ব্যতিক্রম সম্মাননা পাচ্ছেন জয়া আহসান

Categories
বিনোদন

ফের শুরু হলো ‘প্রিয়া রে’ শুটিং, গোসল বন্ধ নায়কের!

গেল মাসে ১৩ দিন শুটিং হয়েছিল শান্ত খান ও কলকাতার নায়িকা কৌশানি মুখার্জি অভিনীত জুটির প্রথম সিনেমা ‘প্রিয়া রে’র। সিনেমায় রাখালের চরিত্র ধারণ করতে দুই সপ্তাহ গোসল করেননি নায়ক শান্ত। একমাস বিরতি দিয়ে শুক্রবার থেকে চাঁদপুরের লক্ষ্মীপুরে শুরু হওয়ায় আবারও গোসল ছেড়েছেন এ নায়ক!

সিনেমাটি পরিচালনা করছেন পূজন মজুমদার। এটি তার পরিচালিত প্রথম সিনেমা। এর আগে গ্যাংস্টার রিটার্নস, ওয়ার্নিং, মেন্টাল, বসগিরি, শাহেনশাহসহ নয়টি সিনেমার সহকারী পরিচালক হিসেবে কাজ করেন তিনি।

পরিচালক জানান, ২৭ তারিখ পর্যন্ত শুটিং হবে। এ লটে পুরো শুটিং শেষ হবে। শেষ লটের শুটিংয়ে অংশ নিতে ঢাকায় এসেছেন কৌশানি ও রজতাভ দত্ত।

পূজন মজুমদার বলেন, নায়ক-নায়িকার তিনটি গান, ক্লাইমেক্স ও রোম্যান্টিক দৃশ্যগুলো করবো। সিনেমা বানানো কোনো নরমাল জব নয়। নিজে প্রথম পরিচালনা করতে এসে ক্ষণে ক্ষণে টের পাচ্ছি। প্রথম সিনেমা প্রথম সন্তানের মত। তাই কোনো ছাড় দিচ্ছি না।

‘প্রিয়া রে’ সিনেমার শেষ লটের জন্য আবার গোসল ছেড়েছেন বলে জানিয়েছেন নায়ক শান্ত। এ প্রসঙ্গে পরিচালক বলেন, গোসল না করলে চেহারায় অন্যরকম ছাপ আসে। এই জিনিসটা স্ক্রিনে আনার জন্য তাকে গোসল থেকে দূরে রেখেছি। বুঝতে পারছি শান্তর কষ্ট হচ্ছে। তাকে কষ্ট দেয়ার কারণ যেন কাজটি ঠিকভাবে করতে পারে। আর কষ্ট না করলে কেউ বড় হতে পারে না।

সিনেমায় শান্ত খান অভিনয় করছেন রাখাল নূরুর চরিত্রে। তিনি বলেন, পরিচালক যেভাবে বলছেন সেভাবেই কাজ করছি। কী পরিমানে কষ্ট করতে হচ্ছে বলে বোঝাতে পারবো না। বাস্তবে আমি চেয়ারম্যানের ছেলে। কিন্তু সিনেমাতে ঠিক উল্টো। চেয়ারম্যানের মেয়ের সঙ্গে রাখালের বিভিন্ন ঘটনা ঘটবে। এরমধ্যেই টুইস্ট ও রিভেঞ্জ আছে।

শাপলা মিডিয়ার প্রযোজনায় ‘প্রিয়া রে’ সিনেমাটি বরিশালের এক চরে ঘটে যাওয়া সত্য ঘটনায় নির্মিত হচ্ছে জানান শান্ত খান।

পূজন মজুমদার বলেন, পোস্টের কাজ দেশের বাইরে করবো। সবকিছু ঠিক থাকলে ভালোবাসা দিবসে সিনেমাটি মুক্তি দেব।

ভয়েসটিভি/এএস

Categories
বিনোদন

এবার বড় পর্দায় আসছেন ‘একেনবাবু’

হিসেব পাল্টে দিলেন একেনবাবু! সাধারণত কোনও ছবি অত্যন্ত জনপ্রিয় হলে তার থেকে সিরিজ হয়। শুক্রবার এসভিএফ প্রযোজনা সংস্থার ঘোষণা, সিরিজে বাজিমাত করে এবার বড় পর্দা জয় করতে আসছেন ‘দ্য একেন’। প্রথম সিরিজ থেকে ‘একেনবাবু’ সফল।

আনন্দবাজারকে ‘একেনবাবু’ ওরফে অনির্বাণ চক্রবর্তী বলেন, গোটা বিশ্বেই সিরিজ থেকে কোনও চরিত্র বা গল্পের বড় পর্দায় মুক্তি বিরল। হাতেগোনা এমন ঘটনা ঘটেছে। সেই দলে তিনিও সামিল! এটা ভেবেই আহ্লাদিত অনির্বাণ। নেপথ্য কারণ হিসেবে ভালো গল্প, টানটান চিত্রনাট্য, মুচমুচে সংলাপ, কৌতুক রসের ঝকঝকে উপস্থাপনাকেই তিনি কৃতিত্ব দিয়েছেন। বাকিটা দর্শকের দৌলতে, এমনই দাবি অনির্বাণের। বলেছেন, ‘‘দর্শক ভাল না বাসলে কিছুই হত না। সবার মনের মতো হয়ে উঠতে পেরেছি বলেই এই ঘটনা ঘটতে চলেছে।’’

জানুয়ারির শেষে দার্জিলিংয়ে শুরু হবে ছবির শ্যুট। গল্প এক্ষুণি জানাতে পারবেন না ‘একেনবাবু’। তবে শৈল শহরকে ঘিরেই দানা বাঁধবে যাবতীয় কাণ্ড-কারখানা। পরিচালনায় জয়দীপ মুখোপাধ্যায়। তিনি জনপ্রিয় সিরিজের চতুর্থ সিজনের পরিচালক। কাহিনিকার সুজন দাশগুপ্ত। চিত্রনাট্য লিখেছেন পদ্মনাভ দাশগুপ্ত। ছবির গানের দায়িত্বে জয় সরকার। গানের কথা লিখছেন চন্দ্রিল ভট্টাচার্য।

ছবির ফার্স্ট লুক বলছে, সন্তোষ দত্তের যেন পুনর্জন্ম হয়েছে। বাঙালির কাছে সচেতন ভাবেই কি প্রয়াত কালজয়ী অভিনেতার ছায়া হয়ে জনপ্রিয় হতে চান অনির্বাণ? এর উত্তরে অভিনেতার যুক্তি, ‘‘আমার চেহারায় আমার হাত নেই। সন্তোষ দত্ত হওয়ার স্পর্ধাও নেই। অন্য দিকে, ‘একেনবাবু’ প্রথম দিন থেকেই এই বিশেষ চেহারায় উপস্থিত হয়েছে। ফলে, সেখানেও কিছু করার নেই।’’ তার দাবি, ‘জটায়ু’র চরিত্রে অভিনয় না করলে হয়তো এই ভাবনা তিনিও ভাবতেন। যেহেতু দুটো চরিত্রেই অভিনয় করেছেন তাই জানেন, ‘লালমোহনবাবু’ আর ‘একেনবাবু’ এক নন। এক জন তুখোড় গোয়েন্দা। অন্য জন নিপাট ভালমানুষ, বন্ধুবৎসল।

ভয়েস টিভি/এসএফ

Categories
বিনোদন

মঞ্চে গায়িকাকে এক বস্তা টাকায় স্নান করালেন ভক্ত!

সরাসরি কনসার্ট করতে গিয়ে নানা রকম অভিজ্ঞতার মুখোমুখি হন সংগীতশিল্পীরা। কখনো আপত্তিকর, কখনো আবেগঘন ঘটনার সাক্ষী হন। তবে ভারতের গুজরাটি গায়িকা উর্বশী রাড্ডিয়ার ক্ষেত্রে ঘটে ব্যতিক্রম ব্যাপার। তিনি গাইতে গেলে প্রায়শই টাকার ঝড়ে কবলিত হন!

সম্প্রতি এক অনুষ্ঠানে গান গাইতে গিয়েছিলেন উর্বশী। হারমোনিয়াম বাজিয়ে তিনি গান পরিবেশন করছিলেন। এমন সময় হুট করেই এক ভক্ত স্টেজে উঠে পড়েন। তার হাতে এক বালতি টাকা। সবগুলো টাকা তিনি ঢেলে দিলেন উর্বশীর মাথার উপর।

এই ঘটনার ভিডিওটি ইতোমধ্যে ভাইরাল হয়ে গেছে নেট দুনিয়ায়। যদিও গায়িকা উর্বশী এতে বিচলিত হননি। নিজের পরিবেশনাও থামাননি। কেননা তিনি এরকম ঘটনা আগেও দেখেছেন।

এর আগেও একাধিকবার গান করতে গিয়ে বিপুল টাকা উপহার পেয়েছিলেন তিনি। তবে এসব অর্থ গায়িকা নিজে ব্যবহার করেন না। কোনো অসহায়-দুস্থ পরিবারে দান করে দেন।

১৯৯০ সালে গুজরাটে জন্মগ্রহণ করা উর্বশী রাড্ডিয়া মাত্র ছয় বছর বয়স থেকে গান গাওয়া শুরু করেন। তিন বছর ক্লাসিক্যাল মিউজিকের ওপর তালিম নিয়েছেন তিনি। স্টেজে ক্লাসিক্যালের পাশাপাশি ফোক গান গেয়ে বেশি পরিচিতি পেয়েছেন তিনি।

ভয়েস টিভি/এসএফ