Categories
জাতীয় শিক্ষাঙ্গন

‘শিক্ষা আইন দ্রুত মন্ত্রিপরিষদে পাঠানো হবে’

দ্রুত সময়ের মধ্যে শিক্ষা আইন মন্ত্রিপরিষদে পাঠানো হবে বলে জানিয়ে শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি বলেছেন, শিক্ষার মান নিশ্চিতে দেশে শিক্ষা আইনকে যুগোপযোগী করা হচ্ছে। দ্রুত সময়ের মধ্যে পর্যবেক্ষণ শেষে আমাদের কাছে পাঠানো হবে। আমরা পরিবর্তন বিষয়গুলো পর্যবেক্ষণ করে পরবর্তী অনুমোদনের জন্য মন্ত্রিপরিষদে পাঠিয়ে দেবো। সেখান থেকে অনুমোদন দেওয়া হলে চূড়ান্ত অনুমোদনের জন্য জাতীয় সংসদে পাঠানো হবে।

২৪ জানুয়ারি সোমবার এক আলোচনা সভায় ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে তিনি এ কথা জানান। জাতীয় শিক্ষা দিবস উপলক্ষে ইউনেস্কো, জাতীয় কমিশন, মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগ এবং শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের যৌথ আয়োজনে এ সভা হয়।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, শিক্ষার কারিকুলাম, অবকাঠামো উন্নয়নের সঙ্গে সঙ্গে শিক্ষাকে ব্যববহারিক ও বিশ্ব মানের করতে শিক্ষা নীতিমালা করা হবে। পঁচাত্তর পরবর্তী সময়ে দেশের গতিপথ যখন থামিয়ে দিয়ে ইতিহাস বিকৃতি করা হয়, তখন দেশের শিক্ষা ব্যবস্থাও অশিক্ষায় আক্রান্ত হয়। বর্তমান শিক্ষা ব্যবস্থায় জ্ঞান চর্চার পাশাপাশি দক্ষতা নির্ভর করার ওপর জোর দেওয়া হয়েছে। নতুন প্রজন্ম সচেতন, তাদের আরও উদ্ভাবনী কাজে যুক্ত করতে হবে।

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মোহাম্মদ জাকির হোসেন বলেন, দেশের চলমান সমৃদ্ধ শিক্ষা ব্যবস্থা করোনাকালে ব্যাহত হয়েছে। তবে সরকারের সঠিক সিদ্ধান্তে বৈশ্বিক সংকটেও নতুন প্রজন্ম থেমে নেই।

শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী বলেন, দেশের তথ্য প্রযুক্তি অবকাঠামো উন্নত হওয়ায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকলেও কার্যক্রম চলমান ছিল। আর্থিকভাবে অসচ্ছল শিক্ষার্থীরা যেন পিছিয়ে না পরে সেদিকে জোর দিতে হবে। দক্ষতা নির্ভর শিক্ষার ওপর দিতে হবে গুরুত্ব।

বিএনসিইউ’র যুগ্মসচিব সোহেল ইমাম খান বলেন, করোনা পরিস্থিতিতে শিক্ষা কার্যক্রম চলমান রাখতে প্রযুক্তির আশ্রয় নিয়েছে বিশ্ব। বাংলাদেশও রেডিও, টেলিভিশন ও অনলাইন প্লাটফর্মে শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা করছে। তা দেশের শিক্ষার্থীদের জন্য যুগান্তকারী পদক্ষেপ।

কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষা বিভাগের সচিব আমিনুল ইসলাম খান বলেন, শিক্ষক কেন্দ্রী না হয়ে শিক্ষার্থী কেন্দ্রীয় শিক্ষা ব্যবস্থা হলে শিশুকাল থেকেই শিক্ষার্থীরা উদ্ভাবনী ও সৃজনশীল হয়ে উঠবে।

দেশে ইউনেস্কোর প্রতিনিধি মিজ বিয়াট্রিস কালডুন বলেন, করোনা পরিস্থিতিতে বাংলাদেশের গতিশীল ও প্রযুক্তি নির্ভর শিক্ষা কার্যক্রম অনেক দেশের জন্য আদর্শ হিসেবে বিবেচিত হচ্ছে।

ভয়েসটিভি/এএস

Categories
জাতীয় শিক্ষাঙ্গন

শাবিপ্রবি আন্দোলনকারীদের অর্থ সংগ্রহের ৬ ‘অ্যাকাউন্ট বন্ধ’

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবিপ্রবি) উপাচার্যের পদত্যাগের দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের আর্থিক লেনদেনের ছয়টি অ্যাকাউনন্ট বন্ধের অভিযোগ উঠেছে।

২৪ জানুয়ারি সোমবার সন্ধ্যায় অ্যাকাউন্ট বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ করেন আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা।

শিক্ষার্থীরা জানান, শাবিপ্রবির যেকোনো কর্মসূচিতে সাবেক ও বর্তমান শিক্ষার্থীরা যৌথ উদ্যোগে তহবিল গঠন করে থাকেন। এ আন্দোলনেও সেভাবেই অর্থ সংগ্রহ চলছিল। তবে সোমবার সন্ধ্যার পর থেকে এসব নম্বরে আর কোনো লেনদেন করা যাচ্ছে না।

রকেট, নগদ, বিকাশ ও ব্যাংক অ্যাকাউন্টসহ মোট ছয়টি অ্যাকাউন্ট থেকে তারা কোনো লেনদেন করতে পারছেন না। এই ফোন নম্বরগুলোতে কল আসছে না এবং যাচ্ছেও না।

১৯ জানুয়ারি বেলা ৩টা থেকে অনশন কর্মসূচি করে আসছেন শিক্ষার্থীরা। এতে ২৪ জন শিক্ষার্থী অনশণে অংশ নেন। পরে পারিবারিক কারণে একজন বাড়িতে চলে যান। এরপর গণঅনশন হিসেবে আরও পাঁচজন শিক্ষার্থী যোগ দেন। এছাড়া অনশনের ১২৫ ঘণ্টা পার হলেও এ সমস্যার কোনো সমাধান হয়নি।

আন্দোলনের মধ্যেই রোববার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ বাসভবনের বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেন আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা। ২৪ ঘণ্টা ধরে অবরুদ্ধ অবস্থায় আছেন তিনি।

ভয়েসটিভি/এএস

Categories
জাতীয়

বঙ্গবন্ধু মেডিক্যালে আগুন, ২০ মিনিটে নিয়ন্ত্রণে

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) ১৭ তলা ভবনের ১৪ তলার ডি-ব্লকে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। ইতোমধ্যে ফায়ার সার্ভিসের পাঁচটি ইউনিট কাজ করে আগুন নিয়স্ত্রণে আনে বলে জানিয়েছেন ফায়ার সার্ভিস সদর দপ্তরের কর্মকর্তা এরশাদ হোসেন।

সোমবার সন্ধ্যা ৬টা ২১ মিনিটে সংবাদ পেয়ে ফায়ার সার্ভিস থেকে পাঁচটি ইউনিট আগুন নেভানোর কাজ করে। ৬টা ৪০ মিনিটের দিকে আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে বলে জানায় ফায়ার সার্ভিস।

ফায়ার সার্ভিস জানায়, আগ্নিকাণ্ডের কারণ এবং ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ খতিয়ে দেখা হচ্ছে। তবে এ ঘটনায় কোনো হতহতের খবর পাওয়া যায়নি।

বিএসএমএমইউর পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল নজরুল ইসলাম খান বলেন, পরিস্থিতি এখন স্বাভাবিক রয়েছে।

Categories
জাতীয়

রাতের তাপমাত্রা আরও কমার সম্ভাবনা

রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে রোববার (২৩ জানুয়ারি) রাতে বৃষ্টি হয়েছে। যার কারণে তাপমাত্রা কিছুটা কমে যায়। আজও কিছু কিছু এলাকায় বৃষ্টি হতে পারে। ফলে সারা দেশে রাতের তাপমাত্রা সামান্য কমতে পারে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। অন্যদিকে রোববার সর্বোচ্চ বৃষ্টি রেকর্ড হয়েছে ঢাকা ও কুমারখালিতে, যা ছিল ৭ মিলিমিটার।

২৪ জানুয়ারি সোমবার সকাল ৯টা থেকে পরবর্তী ২৪ ঘণ্টার আবহাওয়া পূর্বাভাস বলা হয়েছে, খুলনা, বরিশাল ও চট্টগ্রাম বিভাগের অনেক জায়গায়; ঢাকা ও সিলেট বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় এবং রাজশাহী, রংপুর ও ময়মনসিংহ বিভাগের দু-এক জায়গায় হালকা বৃষ্টি/গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি হতে পারে। সারা দেশে মধ্যরাত থেকে সকাল পর্যন্ত নদী অববাহিকা ও তৎসংলগ্ন এলাকার কোথাও কোথাও মাঝারি থেকে ঘন কুয়াশা এবং অন্যত্র কোথাও কোথাও হালকা থেকে মাঝারি ধরনের কুয়াশা পড়তে পারে।

জানতে চাইলে আবহাওয়াবিদ হাফিজুর রহমান জানান, সারা দেশে রাতের তাপমাত্রা সামান্য কমতে পারে। দেশের উত্তরাঞ্চলে দিনের তাপমাত্রা সামান্য বাড়তে পারে এবং দেশের অন্যত্র তা সামান্য কমতে পারে।

এছাড়া পশ্চিমা লঘুচাপের বর্ধিতাংশ হিমালয়ের পাদদেশীয় পশ্চিমবঙ্গ এবং তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থান করছে। মৌসুমের স্বাভাবিক লঘুচাপ দক্ষিণ বঙ্গোপসাগরে অবস্থান করছে। এর বর্ধিতাংশ উত্তর-পশ্চিম বঙ্গোপসাগর পর্যন্ত বিস্তৃত বলেও জানান তিনি।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী, দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ৭ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে ঢাকা ও কুমারখালীতে। এছাড়া মোংলা ও গোপালগঞ্জে ৬ মিলিমিটার; মাদারীপুর, ফরিদপুরে ৫ মিলিমিটার; কুমিল্লা, চাঁদপুর, খুলনা ও মাইজদীকোটে ৪ মিলিমিটার; চুয়াডাঙ্গা ও ঈশ্বরদীতে ৩ মিলিমিটার; বরিশাল, পটুয়াখালী, সন্দ্বীপ ও নিকলিতে ২ মিলিমিটার এবং খেপুপাড়া, ভোলা, রাজশাহী, বগুড়া, তাড়াশ, শ্রীমঙ্গল, হাতিয়া ও রাঙ্গামাটিতে ১ মিলিমিটার বৃষ্টি রেকর্ড করা হয়েছে। এছাড়া রংপুর, রাজারহাট, সিলেট, কক্সবাজার ও টাঙ্গাইলে সামান্য বৃষ্টি রেকর্ড করা হয়।

Categories
জাতীয়

ড. ইউনূসের ব্যাংক হিসাব তলব

শান্তিতে নোবেলজয়ী ও গ্রামীণ ব্যাংকের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান ড. মুহাম্মদ ইউনূসের ব্যাংক হিসাব তলব করেছে বাংলাদেশ ফিন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিট (বিএফআইইউ)। ড. ইউনূসের ব্যাংক হিসাবে লেনদেনের দুই বছরের তথ্য চেয়েছে সংস্থাটি।

গত ২০ জানুয়ারি বিএফআইইউ থেকে দেশে কার্যরত ব্যাংকগুলোর কাছে পাঠানো চিঠিতে ড. মুহাম্মদ ইউনূসের জাতীয় পরিচয়পত্রের পুরনো এবং নতুন (দুটি) নম্বর উল্লেখ করা হয়েছে। একই সঙ্গে তার নামে পরিচালিত ব্যাংক হিসাবগুলোতে লেনদেনের যাবতীয় তথ্যের সফট কপি ২৫ জানুয়ারির মধ্যে বিএফআইইউর কাছে পাঠাতে বলা হয়েছে।

তবে যেসব ব্যাংকে ড. ইউনূসের নামে ব্যাংক হিসাব নাই সেসব ব্যাংকেও ড. ইউনূসের নামে কোনো ব্যাংক হিসাব নেই মর্মে ‘আমরা কোনো হিসাব সংরক্ষণ করি না’ জানাতে হবে।

বিভিন্ন ব্যাংকের কেন্দ্রীয় তথ্যভাণ্ডারে ড. মুহাম্মদ ইউনূসের ব্যাংক হিসাবের তথ্য দ্রুত সরবরাহ করার নির্দেশনা দেওয়ার পাশাপাশি এসব তথ্যের জন্য ব্যাংকের শাখাগুলোতে যোগাযোগ না করতে বলা হয়েছে বিএফআইইউর চিঠিতে।

২০০৬ সালে ড. মুহাম্মদ ইউনূস ও তার প্রতিষ্ঠা করা গ্রামীণ ব্যাংক শান্তিতে নোবেল পুরস্কার পায়। প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে তিনি নোবেল পান।

Categories
জাতীয়

২৪ ঘন্টায় করোনায় মৃত্যু ১৫

দেশে গেলো ২৪ ঘণ্টায় করোনায় ১৫ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। এই সময়ে নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন ১৪ হাজার ৮২৮ জন। শনাক্তের হার ৩২ দশমিক ৩৭ শতাংশ।

২৪ জানুয়ারি সোমবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ সব তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, ২৪ ঘণ্টায় করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন ৯৯৮ জন। এখন পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ১৫ লাখ ৫৭ হাজার ৮৫৯ জন।

২৪ ঘণ্টায় নমুনা সংগ্রহ করা হয় ৪৫ হাজার ৯৯৯টি। পরীক্ষা করা হয় ৪৫ হাজার ৮০৭টি নমুনা। পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার ৩২ দশমিক ৩৭ শতাংশ। মোট শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৯৮ শতাংশ।

২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়াদের মধ্যে ৯ জন পুরুষ, ৬ জন নারী। ঢাকা বিভাগে মারা গেছেন ৬ জন। ময়মনসিংহ বিভাগে ৩ জন ও সিলেটে ২ জন মারা গেছেন। এছাড়া চট্টগ্রাম, রাজশাহী, খুলনা ও বরিশাল বিভাগে মারা গেছেন একজন করে।

করোনায় এ পর্যন্ত দেশে ২৮ হাজার ২৩৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। শনাক্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৬ লাখ ৯৯ হাজার ৯৬৪ জনে।

এদিকে আগের ২৪ ঘণ্টায় করোনায় ১৪ জনের মৃত্যু হয়। শনাক্ত হন ১০ হাজার ৯০৬ জন; শনাক্তের হার ছিল ৩১ দশমিক ২৯ শতাংশ।

২০২০ সালের ৮ মার্চ দেশে প্রথম ৩ জনের দেহে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়। এর ১০ দিন পর ওই বছরের ১৮ মার্চ দেশে এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রথম একজনের মৃত্যু হয়। গেল বছরের ৫ ও ১০ আগস্ট দুদিন সর্বাধিক ২৬৪ জন করে মারা যান।

ভয়েসটিভি/আরকে

Categories
জাতীয়

ইসি আইন নিয়ে গোপনীয়তার কিছু নাই

প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও নির্বাচন কমিশনার নিয়োগর বিলটি সংসদে উত্থাপন করেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। তিনি বলেন, দায়মুক্তির রাজনীতি করে না আওয়ামী লীগ। শুধু কমিশন নয়, দায়মুক্তি দেয়া হবে আগের দুই সার্চ কমিটিকে। নির্বাচন কমিশন গঠন বিল নিয়ে বৈঠক শেষে এই সংশোধনীর কথা জানিয়েছেন সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি। পরিবর্তন আসবে কমিশনারের যোগ্যতায়ও।

হাতে সময় কম তাই জাতীয় সংসদে নির্বাচন কমিশন গঠন বিল উত্থাপনের পরদিনই বৈঠকে বসে সংসদীয় স্থায়ী কমিটি। সোমবার ২৪ জানুয়ারি প্রায় দুই ঘণ্টার বৈঠকে আইনমন্ত্রী, সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ছাড়াও অংশ নেন বিএনপি ও জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্যরা।

তড়িঘড়ি ও গোপনীয়তা করে আইন করা হচ্ছে নাগরিক সমাজ ও রাজনৈতিক দলগুলোর এমন প্রশ্ন সরাসরি নাকচ করে দেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক জানান, আইনটা গোপন করে কি লাভ। এটা যখন আইন আকারে পাশ হবে তখন মানুষ জানবে এবং দখবে, তাই এটা গোপনীয়তার কিছু নাই।

শেষ পর্যন্ত কী নতুন আইনে দুই কমিশনকে দায়মুক্তির বিষয়টি থাকছে। এমন প্রশ্নের উত্তরে আইনমন্ত্রীর সাফ জবাব, দায়মুক্তির রাজনৈতি করে না আওয়ামী লীগ।

আরও পড়ুন : রোববার সংসদে উঠছে ইসি নিয়োগের আইন

অন্যদিকে, আইনটি সংশোধনের প্রস্তাব দিয়েছে বিএনপি। বৈঠক শেষে যার পাল্টা জবাব দিলেন বিএনপি সংসদ সদস্য রুমিন ফারহানা। তিনি বলেন, দায়মুক্তির কথা বলা হয়েছে আইনটিতে। সংসদে সংশোধন প্রস্তাব আনবেন তারা। বিধি ৯ এর ব্যাপারে আপত্তি বিএনপির।

আইন মন্ত্রণালয় বিষয়ক সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি শহীদুজ্জামান সরকার জানান, কমিশনার নিয়োগে যোগ্যতা অযোগ্যতায় সংশোধন আনা হবে। আর দণ্ডপ্রাপ্ত কেউ হতে পারবে না সিইসি কিংবা কমিশনার। তিনি জানান, গত দুইটি কমিশনের কার্যক্রমকে হেফাজত করার বিষয় নয়। আগের গঠিত দুই সার্চ কমিটিকে হেফাজত করা হচ্ছে আইনটি দ্বারা।

আগামী বুধবার ২৬ জানুয়ারি বিলটি আলোচনার জন্য সংসদে উঠতে পারে। পরে দ্রুতই তা চুড়ান্ত আইন আকারে পাশ হবে।

যে দুই পরিবর্তনের সুপারিশ

বিলে সিইসি ও কমিশনারদের যোগ্যতা সংক্রান্ত ৫(গ) ধারায় বলা আছে, সিইসি ও কমিশনার হতে হলে কোনো গুরুত্বপূর্ণ সরকারি, বিচার বিভাগীয়, আধা সরকারি বা বেসরকারি পদে কমপক্ষে ২০ বছর কাজের অভিজ্ঞতা থাকতে হবে।

এই ধারায় সরকারি, বিচার বিভাগীয়, আধা সরকারি বা বেসরকারি পদের পাশাপাশি ‘স্বায়ত্তশাসিত ও অন্যান্য পেশা’ যুক্ত করার সুপারিশ করেছে সংসদীয় কমিটি।

আর অযোগ্যতার ক্ষেত্রে ৬(ঘ) ধারায় বলা আছে, নৈতিক স্খলনজনিত ফৌজদারি অপরাধে দোষী সাব্যস্ত হয়ে ন্যূনতম দুই বছরের কারাদণ্ডে দণ্ডিত হলে সিইসি ও কমিশনার হওয়া যাবে না।

বহুল আলোচিত প্রধান নির্বাচন কমিশনার এবং নির্বাচন কমিশনার নিয়োগ বিল-২০২২ রোববার সংসদে উত্থাপন করেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। পরে বিলটি পরীক্ষা করে সাত দিনের মধ্যে সংসদে প্রতিবেদন দেওয়ার জন্য সংসদীয় কমিটিতে পাঠানো হয়।

ভয়েসটিভি/এমএম

Categories
জাতীয়

ফের ইতিহাস গড়ে বাড়ল রডের দাম

বাজারে আবার দাম বেড়েছে নির্মাণ সামগ্রীর উপকরণ রডের দাম। গেলো সপ্তাহে রডের টন প্রতি দুই থেকে তিন হাজার টাকা পর্যন্ত বেড়ে গেছে।

দেশের বাজারে রডের ইতিহাসের সর্বোচ্চ দাম বাড়ে গত বছরের নভেম্বরে। কোয়ালিটি সম্পন্ন বা ৬০ গ্রেডের ওপরে এক টন রডের দাম খুচরা পর্যায়ে ৮১ হাজার টাকার ওপরে উঠে যায়।

ইতিহাসের সর্বোচ্চ দাম স্পর্শ করার পর ডিসেম্বরে এসে কমতে শুরু করে রডের দাম। ৮১ হাজার টাকা থেকে কমে চলতি বছরের শুরুর দিকে ৭৬ হাজার টাকায় চলে আসে। তবে এক সপ্তাহ ধরে আবার বাড়তে শুরু করেছে রডের দাম। এতে ভালো মানের এক টন রড ৮০ হাজার টাকায় উঠেছে।

এর আগে ওয়ান ইলেভেনের (২০০৭ সালের ১১ নভেম্বর সারাদেশে ছড়িয়ে পড়া সহিংসতা) সময় প্রতি টন রডের দাম সর্বোচ্চ ৮০ হাজার টাকায় উঠেছিল।

রডের এই দাম বাড়ার কারণ হিসেবে ব্যবসায়ীরা বলছেন, হঠাৎ করে আন্তর্জাতিক বাজারে রডের কাঁচামাল স্ক্র্যাপের দাম বেড়ে গেছে। এক সপ্তাহের মধ্যে স্ক্র্যাপের দাম বেড়েছে দুই হাজার টাকার ওপরে। সেই সঙ্গে রডের চাহিদাও কিছুটা বেড়েছে। সব মিলিয়ে বেড়েছে রডের দাম।

খুচরা ব্যবসায়ীদের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, এখন ভালো মানের বা ৬০ গ্রেড এক টন রড কোম্পানি ভেদে বিক্রি হচ্ছে সাড়ে ৭৩ হাজার থেকে ৮০ হাজার টাকা, যা এক সপ্তাহ আগে ছিল ৭১ হাজার থেকে ৭৮ হাজার টাকার মধ্যে।

আরও পড়ুন : ইতিহাস গড়ে দাম বাড়ল রডের

এদিকে সরকারি প্রতিষ্ঠান ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) তথ্য অনুযায়ী, গত বছরের তুলনায় এখন ৬০ গ্রেডের রড ১৮ দশমিক ৪৩ শতাংশ বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে। আর ৪০ গ্রেডের রডের দাম গত বছরের তুলনায় বেড়েছে ১০ দশমিক ৫১ শতাংশ।

রডের দামের বিষয়ে পুরান ঢাকার ব্যবসায়ী সঞ্জয় চৌধুরী বলেন, গত বছরের নভেম্বরে ভালো মানের ৬০ গ্রেড রড ৮২ হাজার টাকায়ও বিক্রি করেছি। এখনো পর্যন্ত দেশের ইতিহাসে এটা রডের সর্বোচ্চ দাম। এরপর রডের দাম কিছুটা কমে ৭৭-৭৮ হাজার টাকায় চলে এসেছিল। কিন্তু এক সপ্তাহ ধরে রডের দাম আবার বাড়ছে। কিছুদিন আগে যে রড ৭৮ হাজার টাকায় বিক্রি করেছি, এখন তা ৮০ হাজার টাকার ওপরে বিক্রি করতে হচ্ছে।

তিনি বলেন, আমাদের ধারণা সামনে অস্বাভাবিক কিছু না হলে রডের দাম আরও বাড়বে। কারণ প্রতি বছর ফেব্রুয়ারি-মার্চে নির্মাণ কাজ বেশি হয়। তাই এই সময়ে রডের চাহিদাও বেশি থাকে। এরই মধ্যে রডের চাহিদা বাড়তে শুরু করেছে। করোনার কারণে কাজকর্ম বন্ধ না হয়ে গেলে সামনে রডের চাহিদা আরও বাড়বে। সেক্ষেত্রে রডের দাম ৮২-৮৩ হাজার টাকা হয়ে গেলে আমরা অবাক হবো না।

হঠাৎ রডের দাম বাড়ার বিষয়ে কদমতলী স্টিল মিলস প্রাইভেট লিমিটেডের (কেএসএমএল) চেয়ারম্যান আজিজ আহমেদ বলেন, রডের কেমিক্যাল বিদেশ থেকে আমদানি করতে হয়। এক সপ্তাহের মধ্যে রডের কাঁচামাল স্ক্র্যাপের দাম অনেক বেড়ে গেছে। গত ৫-৬ দিনে স্ক্র্যাপের দাম বেড়েছে দুই হাজার টাকার ওপরে। কাঁচামালের এই দাম বাড়ার কারণেই রডের দাম বেড়েছ।

শুধু কী কাঁচামালের দাম বাড়ার কারণে রডের দাম বেড়েছে, রডের চাহিদা বাড়েনি? এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, রডের চাহিদা কিছুটা বেড়েছে। তবে করোনার কারণে কিছু কাজ বন্ধ। যে কারণে রডের চাহিদা যে পরিমাণ বাড়ার কথা, সে পরিমাণ বাড়েনি। আমাদের এ সেক্টর বর্তমানে বেশ সমস্যার মধ্যে আছে। বিক্রি অনেক কম। মূলত কাঁচামালের দাম বেড়ে যাওয়ায় আমরা দাম বাড়াতে বাধ্য হচ্ছি।

ভয়েসটিভি/এমএম

Categories
জাতীয়

করোনা উপসর্গ নিয়ে ঢাকা মেডিকেলে বাড়ছে রোগীর চাপ

ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও উপসর্গ নিয়ে রোগীর সংখ্যা বাড়ছে। এর মধ্যে ভ্যাকসিন গ্রহণকারী রোগীও রয়েছেন অনেকে। ভর্তি রোগীদের মধ্যে বেশির ভাগই ঢাকার বাইরের রোগী। হাসপাতালের করোনা ইউনিটে গিয়ে জানা গেছে, রবিবার ২৩ জানুয়ারি সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত রোগী ১৯ জন ভর্তি হয়েছেন। এদের মধ্যে ৫ জন ঢাকা ও এর আশপাশের বাকি ১৪ জনই ঢাকার বাইরের রোগী। ইতোমধ্যে কয়েকজন করোনা পজিটিভ, আর বাকিরা করোনার উপসর্গসহ বিভিন্ন সমস্যায় ভূগছেন

হাসপাতালের দেওয়া হিসাব অনুযায়ী, গত এক মাসে করোনায় ১২ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে গত ২১ ও ২২ জানুয়ারি, দুই দিনে পাঁচ জন মারা গেছেন। তার মধ্যে তিন জনেরই ভ্যাকসিন নেওয়া ছিল। জানুয়ারির শুরুতে করোনা ইউনিটে রোগী ভর্তি ছিল ১৬২ জন। এরমধ্যে ৩২ জনেরই ছিল করোনা পজিটিভ। ২২ জানুয়ারিতে ভর্তির সংখ্যা এসে দাঁড়িয়েছে ৩৫০ জনে, তার মধ্যে পজিটিভ ছিল ১৭৪ জন। এর মধ্যে প্রথম ডোজ নেওয়া ছিল ১২ জন আর ২য় ডোজ নেওয়া ছিল ৩৪ জনের।

চট্টগ্রামের ষোলশহর থেকে আব্দুস সালাম হাওলাদার (৫৬) জানান, তার বাবার দুটি ভ্যাকসিনই দেওয়া হয়েছে। হঠাৎ করে নাক দিয়ে রক্তক্ষরণ হচ্ছিল, পরে স্থানীয় হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর তার কিডনি সমস্যা ধরা পরে। পরে করোনা পরীক্ষাতেও পজিটিভ আসে। সেখান থেকে রেফার করা হলে তাকে ঢামেক হাসপাতালে নিয়ে আসেন।

ঢামেক হাসপাতালে ভর্তি হওয়া কক্সবাজার টেকনাফের বাসিন্দা মাজহারুল ইসলাম (৩৫) জানান, আমার ফুফাতো ভাই মাজহারুল দুবাই প্রবাসী ছিলেন, সেখান থেকে তিনি একসময় মালয়েশিয়া পাড়ি জমান। সেখানে কিছুদিন কাজ করার পর অসুস্থ হয়ে পড়লে দেশে ফিরে আসেন। এখানে প্রাইভেট একটি হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। সেখানে তার বোন মেরুর ক্যান্সার ধরা পড়ে। এই চিকিৎসা চলাকালেই তার করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়।

প্রাইভেট হাসপাতাল থেকে তাকে প্রথমে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) হাসপাতালে নেওয়া হয়। কিন্তু সেখানে ভর্তি করতে না পারায় রবিবার ঢামেক হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। শাহনেওয়াজ বলেন, চিকিৎসকরা জানিয়েছেন এখানে তার করোনা নেগেটিভ হওয়ার পর তাকে ক্যান্সার বিভাগে পাঠানো হবে।

ঢামেক হাসপাতালের পরিচালক বিগ্রেডিয়ার জেনারেল নাজমুল হক মনে করেন, স্বাস্থ্যবিধি না মানা ও টিকা না নেওয়ার কারণেই বর্তমানে করোনা রোগীর সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে। তিনি বলেন, করোনা পজিটিভ ও উপসর্গ নিয়ে প্রতিনিয়ত যে ভাবে রোগী আসছে, সে বিবেচনা করে, কোভিড রোগীদের জন্য কয়েকটি ওয়ার্ড ফাকা করা হয়েছে। এখন সেই ওয়ার্ডগুলোতে ভর্তি নেওয়া হচ্ছে।

তিনি বলেন, বর্তমানে কোভিড ইউনিটে ২৩ জানুয়ারি ৩৫০ রোগী ভর্তি রয়েছেন। করোনার শুরু থেকে এ পর্যন্ত ঢামেক হাসপাতাল ৩’শ শয্যা থেকে শুরু করে পর্যায়ক্রমে মেডিসিন বিভাগসহ বেশ কয়েকটি বিভাগের কার্যক্রম কমিয়ে দিয়ে হাসপাতালের দুটি ভবন, শেখ হাসিনা বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনিস্টিউটের কিছু অংশ, আইসিইউ, এইচডিইউসহ প্রায় ৯’শ শয্যা করোনা ডেডিকেটেড করা হয়। যেখানে সর্বোচ্চ ভর্তি ছিল প্রায় ৯৫০ জন রোগী। একটা সময় দৈনিক ১শ’রও বেশি করোনা রোগী ভর্তি হতো। একদিনে সর্বোচ্চ ভর্তি হয়েছিল ১১৯ জন। সেখান থেকে রোগী কমতে কমতে ডেল্টা ঢেউয়ের পর করোনা রোগীর সংখ্যা দেড়’শোর নিচে চলে আসে।

পূর্বের অভিজ্ঞতার কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, রোগীর চাপ বেড়ে গেলে পর্যায়ক্রমে আবারও সব শয্যা খালি করে ফেলা হবে। বর্তমানে আমাদের অক্সিজেনের ব্যবস্থাও বেড়েছে, আমাদের সকল ব্যবস্থাপনা রয়েছে। আমরা চাই না পরিস্থিতি আগের পর্যায়ে যাক। এ জন্য সকলের সচেতন হতে হবে। মাস্ক পরিধান করতে হবে, টিকা নিতে হবে। টিকা নিলেও মৃত্যুর ঝুঁকি কমে যাবে বলে জানান ঢামেকের পরিচালক।

প্রসঙ্গত, ঢামেকে করোনার ইউনিট চালু হওয়ার পর থেকে এ পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ১ হাজার ৫৯১ জন।

ভয়েসটিভি/এমএম

Categories
জাতীয় শিক্ষাঙ্গন

ঢাবিতে শিক্ষক নেটওয়ার্কের ‘প্রতীকী অনশন’ শুরু

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবিপ্রবি) উপাচার্য অপসারণের দাবিতে ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের চলমান আন্দোলনে সংহতি জানিয়ে প্রতীকী অনশন করছেন বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা।

দুপুরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অপরাজেয় বাংলার পাশে ‘বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক নেটওয়ার্ক’- এর ব্যানারে এ কর্মসূচি পালন শুরু করেন তারা।

দুপুর ১২ টার দিকে শুরু হওয়া এ কর্মসূচি চলবে বিকেল তিনটা পর্যন্ত।

এই প্রতীকী অনশনে অংশ নিয়েছেন- জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক ড. আনু মুহাম্মদ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের অধ্যাপক ড. তানজিম ইদ্দিন খান, সমাজবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. সামিনা লুৎফা, পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক মো. কামরুল হাসান, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ড. কাজলী সেহরীন ইসলাম, অর্থনীতি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক রুশাদ ফরিদী, ম্যানেজমেন্ট বিভাগের তাহমিনা খানম, পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ড মো. কামরুজ্জামান, অ্যাকাউন্টিং অ্যান্ড ইনফরমেশন সিস্টেমস বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মোসাহিদা সুলতানা রিতু, ডেভেলপমেন্ট বিভাগের কাজী মারুফ, ইংরেজী বিভাগের তাসনীম সিরাজ মাহবুব, শান্তি ও সংঘর্ষ বিভাগের ফাহরিনা দূর্রাত, ইংরেজী বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক তাসনীম সিরাজ মাহবুব, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সাইদ ফেরদৌস, মীর্জা তসলিমা, রেহনুমা আহমেদ প্রমুখ।

এ ছাড়া কর্মসূচিতে বিভিন্ন প্রগতিশীল ছাত্র সংগঠনের নেতাকর্মীরা অংশ নিয়েছেন।

আরও পড়ুন : শাবিপ্রবির আন্দোলনের সমর্থনে প্রতীকী অনশন করবে ঢাবি

ভয়েসটিভি/এমএম