Categories
খেলার খবর

প্যারাগুয়েকে হারিয়ে কোয়ার্টার ফাইনালে আর্জেন্টিনা

কোপা আমেরিকার আজকের খেলায় প্যারাগুয়েকে ১-০ গোলে হারিয়ে কোয়ার্টার ফাইনালে উঠেছে আর্জেন্টিনা। মঙ্গলবার ১-০ গোলে জিতে তিন ম্যাচে সাত পয়েন্ট জমা হয়েছে আর্জেন্টিনার। ব্রাজিল এবং চিলির পর তৃতীয় দল হিসেবে কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করল মেসিরা।

খেলার ১০ মিনিটের মাথায় আর্জেন্টিনার হয়ে গোল করেন আলেয়ান্দ্রো গোমেজ। তাঁকে গোলের পাস বাড়িয়েছিলেন আঞ্জেলো ডি মারিয়া।

এ দিন ৪-২-৩-১ ছকে মাঠে নেমেছিল লিওনেল মেসির দল। প্রথম একাদশে শুরু করেন সার্খিও আগুয়েরো। আট মিনিটের মাথায় তাঁর কাছে সুযোগ এসে গিয়েছিল স্কোরকার্ডে নামে তোলার। গোলের সামনে বল পেয়েও জালে জড়াতে পারেননি তিনি।

ভয়েস টিভি/আইএ

Categories
খেলার খবর

সুপার লিগের প্রথম জয় তুলে নিয়েছে প্রাইম দোলেশ্বর

সাইফ হাসানের অর্ধশতকে সুপার লিগের প্রথম জয় তুলে নিয়েছে প্রাইম দোলেশ্বর। শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাবকে ৬ উইকেটে হারিয়ে বঙ্গবন্ধু ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের (ডিপিএল) পয়েন্ট টেবিলের তিনে উঠে এসেছে ফরহাদ রেজার দল।

টসে হেরে আগে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়া প্রাইম দোলেশ্বর শেখ জামালকে ১২৩ রানের বেশি তুলতে দেয়নি স্কোরকার্ডে। নিয়মিত উইকেট হারিয়ে ৯ উইকেটে ১২৩ রানের পুঁজি পায়। ছয় নম্বরে নেমে নুরুল হাসান সোহান এদিনও ঝড় তোলেন। ২৪ বলে ৪২ রান করে ফিল্ডারকে বাধা দিয়ে আউট হন এই উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান।

প্রাইম দোলেশ্বরের হয়ে ৩ টি উইকেট শিকার করেন রেজাউর রহমান রাজা। আর চার ওভারে মাত্র ১১ রান খরচে ২ উইকেট শফিকুল ইসলামের নামের পাশে।

সহজ লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে জয়টা আরও সহজ করে দেন সাইফ হাসান। তার ৩৩ বলে ৬০ রানের ইনিংসে ৬ উইকেট আর ১৪ বল বাকী রেখেই জয় তুলে নেয় প্রাইম দোলেশ্বর।

রেজাউর রহমানের শিকার তিন উইকেট। দুটি শফিকুল ইসলামের। জবাবে সহজেই ১৪ বল আগে জয় তুলে নেয় দোলেশ্বর। সাইফ হাসান ৩৩ বলে ৬০ রান করে যার ভিত গড়ে দেন। ১২ ম্যাচে এই নিয়ে নবম জয় ফরহাদ রেজাদের। তাঁদের থেকে এগিয়ে কেবল আবাহনী ও প্রাইম ব্যাংক। সমানসংখ্যক ম্যাচ খেলে এই দুই দলের জয় সংখ্যা ৯ টি।

ভয়েস টিভি/আইএ

Categories
খেলার খবর

আর্জেন্টিনা দলে ফিরছেন আগুয়েরো

আগামীকাল মঙ্গলবার বাংলাদেশ সময় ভোর ৬টায় প্যারাগুয়ের বিপক্ষে নিজেদের তৃতীয় ম্যাচে মাঠে নামবে লিওনেল স্কালোনি শিষ্যরা। ম্যাচে নিজেদের একাদশে একাধিক পরিবর্তন আনতে বাধ্য হচ্ছেন আর্জেন্টিনা কোচ স্কালোনি- এমনটাই জানাচ্ছে আর্জেন্টাইন বেশ কয়েকটি সংবাদমাধ্যম।

চলতি কোপা আমেরিকার প্রথম দুই ম্যাচে আর্জেন্টিনার শুরুর একাদশে জায়গা না পেলেও, প্যারাগুয়ের বিপক্ষে ম্যাচে সুযোগ পাচ্ছেন সার্জিও আগুয়েরো। চিলির বিপক্ষে শেষ দশ মিনিটের জন্য মাঠে নামানো হয়েছিল তাকে। আর উরুগুয়ে ম্যাচের পুরো সময়ই কাটিয়েছেন বেঞ্চে।

অবশেষে এবার ম্যাচের শুরু থেকেই খেলার সুযোগ পাচ্ছেন তারকা ফরোয়ার্ড আগুয়েরো। মূলত তরুণ স্ট্রাইকার নিকোলাস গনজালেজের চোটের কারণেই মূল একাদশে আসছেন আগুয়েরো। উরুগুয়ের বিপক্ষে ম্যাচের পর করা দলীয় অনুশীলনে খুব একটা স্বস্তিতে দেখা যায়নি গনজালেজকে।

আর্জেন্টিনার শুরুর একাদশে পরিবর্তন আছে আরও। কারণ চোটের সমস্যা রয়েছে মিডফিল্ডার জিওভানি লো সেলসোরও। বাম পায়ের গোড়ালির চোটে দলের সঙ্গে অনুশীলন করেননি তিনি। অবশ্য করার সুযোগও নেই। কেননা গোড়ালিতে ব্যান্ডেজ বেঁধে দিয়েছেন দলের চিকিৎসকরা। তার জায়গায় সুযোগ পেতে পারেন লেয়ান্দ্র পারেদেস বা এজেকুয়েল পালাসিওস।

এদিকে উরুগুয়ের বিপক্ষে ম্যাচে চার ডিফেন্ডারের মধ্যে তিনজনকেই বদলে দিয়েছিলেন স্কালোনি। এবার প্যারাগুয়ের বিপক্ষেও রক্ষণভাগে বেশ কিছু রদবদল করতে পারেন তিনি। প্রথম ম্যাচের তিন ডিফেন্ডারই ফিরতে পারেন দলে অথবা তাদের মধ্যেই রোটেশন পদ্ধতিতে নামাতে পারেন যেকোন চার ডিফেন্ডারকে।

তবে আক্রমণভাগের পরিবর্তনটি নিশ্চিত। দলের সবশেষ অনুশীলনে গনজালেজকে বিশ্রাম দিয়েছিলেন স্কালোনি। লিওনেল মেসি ও লাউতারো মার্টিনেজের সঙ্গে নামিয়েছেন আগুয়েরোকে। একপর্যায়ে মেসি উঠে গেলে তার জায়গা নেন অ্যাঞ্জেল ডি মারিয়া। তাই ডি মারিয়ারও শুরুর একাদশে থাকার সম্ভাবনা উড়িয়ে দেয়া যাচ্ছে না।

প্যারাগুয়ের বিপক্ষে আর্জেন্টিনার সম্ভাব্য শুরুর একাদশ: এমিলিয়ানো মার্টিনেজ, গনজালো মন্টিয়েল/নাহুয়েল মোলিনা, ক্রিশ্চিয়ান রোমেরো, নিকোলাস ওটামেন্ডি/জার্মান পেজ্জেল্লা, নিকোলাস তালিয়াফিকো/মার্কোস আকুনা, রদ্রিগো ডি পল, গুইদো রদ্রিগেজ, এজেকুয়েল পালাসিওস/লেয়ান্দ্র পারেদেস, লিওনেল মেসি, লাউতারো মার্টিনেজ ও সার্জিও আগুয়েরো।

ভয়েস টিভি/আইএ

Categories
খেলার খবর

জেমিসনের বিধ্বংসী বোলিংয়ে অলআউট ভারত

বৃষ্টি বিঘ্নিত হলেও দ্বিতীয় দিনটা বেশ ভালোই কাটিয়েছিল ভারত। তৃতীয় দিন সকালে ৩ উইকেটে ১৪৬ রান নিয়ে খেলতে নামার পর কিউই পেসারদের আগুনে বোলিংয়ের মুখে বলতে গেলে দিশেহারা হয়ে পড়েছে বিরাট কোহলি অ্যান্ড কোং। লাঞ্চ বিরতিতে যাওয়ার আগেই ৭ উইকেট হারিয়ে বসেছে ভারতীয়রা।

সাউদাম্পটনের এজবাস্টনে বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে কিউইদের বিপক্ষে ৭ উইকেটে ২১১ রান নিয়ে লাঞ্চ বিরতিতে গেছে ভারত। ১৫ রান নিয়ে উইকেটে রয়েছেন রবীন্দ্র জাদেজা। তার সঙ্গী ইশান্ত শর্মা রয়েছেন ২ রানে।

প্রথম দিন পুরোটাই গিয়েছিল বৃষ্টির পেটে। দ্বিতীয় দিনের শুরুতেই টস হয় এবং টস জিতে ভারতকেই ব্যাটিংয়ে পাঠায় নিউজিল্যান্ড। ব্যাট করতে নেমে শুরুতে রোহিত শর্মা এবং শুভমান গিল বেশ ভালোই ব্যাটিং শুরু করেছিলেন। কিন্তু ৬২ রানের মাথায় গিয়ে প্রথম উইকেট পড়ে। এরপর ৮৮ রানের মাথায় পড়ে তিন উইকেট। ফিরে যান রোহিত শর্মা, শুভমান গিল এবং চেতেশ্বর পুজারা।

এরপর দিনের বাকি অংশ বেশ ভালোভাবেই কাটিয়ে দেন বিরাট কোহলি এবং আজিঙ্কা রাহানে। বৃষ্টির কারণে পুরো দিনের খেলা না হলেও সেই ৩ উইকেটে ১৪৬ রান নিয়েই দ্বিতীয় দিন শেষ করেছিল কোহলিরা।

৪৪ রান নিয়ে কোহলি এবং ২৯ রান নিয়ে ব্যাট করছিলেন রাহানে। তৃতীয় দিন ব্যাট করতে নামার পর এই জুটি বেশিদূর যেতে পারেনি। বিরাট কোহলিকে দিয়েই উইকেট পতনের শুরু হয়।

১৪৯ রানের মাথায় কাইল জেমিসনের বলে এলবিডব্লিউর শিকার হন কোহলি। সেই ৪৪ রানেই আউট হয়ে যান তিনি। আজিঙ্কা রাহানে আউট হন ৪৯ রান করে।

রিশাভ পান্ত মাঠে নেমেই বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি। ফিরে আসেন সাজঘরে। মাত্র ৪ রান করেন তিনি। রবিচন্দ্রন অশ্বিন এবং রবীন্দ্র জাদেজা মিলে জুটি গড়ার চেষ্টা করেন। কিন্তু ২৩ রানের জুটি গড়ার পর ২২ রান করে ফিরে যান রবিচন্দ্রন অশ্বিন।

কাইল জেমিসন নেন ৩টি উইকেট। নেইল ওয়াগনার নেন ২ উইকেট এবং ১টি করে উইকেট নেন টিম সাউদি ও ট্রেন্ট বোল্ট।

ভয়েস টিভি/আইএ

Categories
খেলার খবর

‘ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো সেরা ফটোগ্রাফিতেও’

জার্মানির বিপক্ষে ম্যাচের আগে পর্তুগালের আনুষ্ঠানিক ফটো সেশনে রীতিমতো পেশাদার ফটোগ্রাফারই হয়ে গেলেন রোনালদো। সারা বিশ্বের শীর্ষ ফটোগ্রাফাররা যেখানে তার সেরা সব মুহূর্তের ছবি তুলতে আপ্রাণ চেষ্টা করেন, সেখানে এবার নিজেই ক্যামেরা হাতে তুলে নিয়েছেন তিনি।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম টুইটারে ইউরো কাপের অফিসিয়াল হ্যান্ডলারে প্রকাশ করা হয়েছে এমনই এক ভিডিও। যেখানে দেখা যাচ্ছে সতীর্থ খেলোয়াড় পেপের ছবি তুলে দিচ্ছেন রোনালদো। শুধু তাই নয়, দায়িত্বে থাকা ফটোগ্রাফারের চেয়েও ভালো ছবি তুলে দিয়েছেন বলে দাবি তার।

ইউরোর দায়িত্বপ্রাপ্ত ফটোগ্রাফার যখন পেপের ছবি তুলছিলেন, তখন পেছনে অলস দাঁড়িয়ে ছিলেন রোনালদো। একঘেয়ে সময়টুকু কাটাতে সামনে এগিয়ে যান তিনি এবং ফটোগ্রাফারকে বলেন, ‘আমাকে ছবি তুলতে দাও’।

এটি বলে ক্যামেরা হাতে নিয়ে নেন তিনি এবং পেপের ছবি তোলার পর সেই ফটোগ্রাফারকে দেখিয়ে বলেন, ‘তোমার চেয়ে ভালো তুলেছি।’

এরই মধ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়ে গেছে রোনালদোর এই ছবি তোলার ভিডিও। তার ভক্ত-সমর্থকদের বড় একটা অংশের বিস্ময়, ‘এমন কিছু কি আছে যা করতে পারেন না রোনালদো?’ অনেকেই আবার সেই ভিডিও রিটুইট করে প্রশংসায় ভাসিয়েছেন মি. ফটোগ্রাফার রোনালদোকে।

ভয়েস টিভি/আইএ

Categories
খেলার খবর

পেনাল্টি মিস, পোল্যান্ডের সঙ্গেও জিততে পারেনি স্পেন

ম্যাচে বল দখল বা আক্রমণ, সবকিছুতেই পোল্যান্ডের থেকে পরিষ্কার ব্যবধানে এগিয়ে ছিল স্পেন। কিন্তু গোল তো মিস করলোই, পেনাল্টিও কাজে লাগাতে না পেরে জয়বঞ্চিত হলো লুইস এনরিকের দল।

সেভিয়ার লা কোর্তুয়ায় শনিবার রাতে ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপে পোল্যান্ড-স্পেনের ‘ই’ গ্রুপের ম্যাচটি ১-১ গোলে ড্রয়ে শেষ হয়েছে।

লুইস এনরিকের মূল একাদশে ফেরা এই ফরোয়ার্ড পেনাল্টি থেকে গোল করতে পারেননি। তাঁর শট গোলপোস্টে লেগে ফিরতি বল পেয়ে জালে পাঠাতে পারেননি মোরাতাও।

ওদিকে পিছিয়ে পড়ার পর গোল করে পোল্যান্ডকে ঠিকই সমতায় ফিরিয়েছেন স্ট্রাইকার রবার্ট লেভানডফস্কি। দুই ম্যাচেই জয়বঞ্চিত থেকে দুটি ড্র নিয়ে ‘ই’ গ্রুপে টেবিলের তিনে নেমে গেল স্পেন।

২ ম্যাচে তাদের সংগ্রহ ২ পয়েন্ট। ২ ম্যাচে ১ পয়েন্ট নিয়ে এই গ্রুপের তলানিতে পোল্যান্ড। স্লোভাকিয়ার সঙ্গে প্রথম ম্যাচে ২-১ গোলে হারে তারা। সুইডেন ২ ম্যাচে ৪ পয়েন্ট নিয়ে গ্রুপের শীর্ষে। তাদের সমান ম্যাচে ৩ পয়েন্ট নিয়ে তিনে স্লোভাকিয়া।

সুইডেনের বিপক্ষে গোলের সুযোগ নষ্ট করে সমালোচনার মুখে পড়েছিলেন মোরাতা। তবু তাকে মূল একাদশে রেখে ৪-৩-৩ ছকে দল সাজিয়ে মূল একাদশে মোরেনোকে ফেরান স্পেন কোচ এনরিকে।

২৫ মিনিটে মোরাতা-মোরেনো রসায়নে গোল পায় স্পেন। বক্সের ডান প্রান্ত থেকে জটলার মধ্যেই মোরেনোর নিখুঁত পাসে আলতো টোকায় গোল করেন মোরাতা। তখন মনে হয়েছিল, মোরাতা বুঝি সুইডেন ম্যাচের শাপমোচন করলেন! কিন্তু নাটকের তখনো বাকি ছিল।

অফসাইড সন্দেহে মাঠের রেফারি শুরুতে স্পেনকে গোল দেননি। ভিডিও অ্যাসিস্ট্যান্ট রেফারি (ভিএআর) প্রযুক্তি পরে গোলটি বৈধ ঘোষণা করে। প্রথমার্ধে ১-০ গোলে এগিয়ে ছিল স্পেন। গোলের সুযোগও বেশি পেয়েছে তারা।

৩৮১টি পাস খেলে নেওয়া ৬টি শটের মধ্যে মাত্র ২টি পোল্যান্ডের গোলপোস্টে রাখতে পেরেছে এনরিকের দল। এ সময় তারা ৭৮ শতাংশ সময় বল দখলে রাখতে পেরেছে।

লেভানডফস্কিকে নিয়ে গড়া পোলিশ আক্রমণভাগ প্রথমার্ধে স্পেনের গোলপোস্ট তাক করে একটি শট নিতে পেরেছে।

বিরতির পর আরও একটি রাখতে পেরেছে আর এখান থেকেই এসেছে সমতাসূচক গোল। ৫৪ মিনিটে কামিল জোজউইয়াকের ক্রস থেকে হেডে গোল করেন লেভা। ১-১ গোলে সমতায় ফেরে পোল্যান্ড।

এর চার মিনিট পরই ভিএআর প্রযুক্তির সিদ্ধান্তে পেনাল্টি পায় স্পেন। মোরেনোকে ফেলে দিয়েছিলেন পোলিশ মিডফিল্ডার জ্যাকুব মোদের।

মোরেনোর শট বাঁ পোস্টে লেগে লক্ষ্যভ্রষ্ঠ হয়ে ফিরে আসে আর এই ফিরতি বলে গোলকিপারকে এক কোণে পেয়েও বল উড়িয়ে মারেন মোরাতা। অবিশ্বাস্য!

পোল্যান্ডের বিপক্ষে পাসের পর পাস খেলেনি স্পেন। সরাসরি ফুটবলই বেশি খেলেছে। এমনকি দুরপাল্লার পাসে পোলিশ ডিফেন্ডারদের বেকায়দায়ও ফেলার চেষ্টা করেছেন পেদ্রি-কোকেদের মাঝমাঠ। ৬১ মিনিটে দানি ওলমোকে তুলে ফেরান তোরেসকে মাঠে নামিয়েও গোল আদায় করতে পারেননি এনরিকে।

শেষ দিকে কয়েকবার জটলার মধ্য থেকে গোলের সুযোগ পেয়েছে স্পেন। খুব কাছ থেকে ফেরান তোরেস ও মোরাতার গোলের চেষ্টা রুখে দেন পোলিশ গোলকিপার ভয়চেখ সেজনি। শেষ দিকে দুটি গুরুত্বপূর্ণ সেভ করেন তিনি।

দুই অর্ধ মিলিয়ে মোট ৭৬ শতাংশ সময় বল দখলে রেখে, গোলপোস্টে ৫টি শট নিয়েও স্পেনের এই জয়বঞ্চিত থাকা ভাবাবে কোচ এনরিকেকে।

ভয়েস টিভি/এসএফ

Categories
খেলার খবর

টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপে টস জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নিল কিউইরা

প্রথম দিনের খেলা পরিত্যক্ত হওয়ার পর সাউথাম্পটন টেস্টের দ্বিতীয় দিন নিয়েও চিন্তা ছিল। তবে আশার খবর হলো, আপাতত রোদ না উঠলেও বৃষ্টি নেই। তাই টসও হয়েছে যথাসময়ে। বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে আজ শনিবার ভারতের বিপক্ষে টসে জিতে আগে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছে নিউজিল্যান্ড।

মেঘলা আবাহাওয়ার সুযোগ কাজে লাগাতেই আগে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন কিউই অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন। টস জয়ের পর চোট থেকে ফেরা উইলিয়ামসন বলেন, ‘আবাহাওয়ার কথা চিন্তা করে আমরা আগে ফিল্ডিং নিয়েছি। আশাকরি আমাদের পেসাররা প্রথম ঘণ্টা কাজে লাগাতে পারবে।’

টসে জিতলে ভারতীয় অধিনায়ক বিরাট কোহলিও বোলিং নিতে বলে জানিয়েছেন। ভারতীয় তারকা বলেন, ‘টসে জিতলে আমরাও বোলিং নিতাম। তবে সমস্যা নেই। আমাদের ব্যাটিং সাইড শক্তিশালী। এটা বড় ম্যাচ অনেক রান স্কোরবোর্ডে তুলতে হবে। আমরা সত্যিই টেস্ট ক্রিকেটে দুর্দান্ত হয়ে উঠছি।’

গতকাল শুক্রবার মুখোমুখি হওয়ার কথা ছিল ভারত ও নিউজিল্যান্ডের। কিন্তু গতকাল সাউদাম্পটনে সারাদিন দাপট দেখিয়েছে বৃষ্টি। লম্বা সময় অপেক্ষা করেও মাঠে নামতে পারল না ভারত ও নিউজিল্যান্ড। ভারী বৃষ্টির কারণে ম্যাচ তো দূরে টসই মাঠে গড়ায়নি। উইকেট থেকে কভার সরানোর সুযোগ মেলেনি। দীর্ঘ অপেক্ষার পর অবশেষে স্থানীয় সময় দুপুর পৌনে ৩টায় প্রথম দিনের খেলা পরিত্যক্ত ঘোষণা করেন আম্পায়াররা।

তবে প্রথম দিনের ম্যাচ না হলেও এখনও পাঁচ দিনের হিসেবেই হবে টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনাল। পরের চার দিন আধাঘন্টা করে খেলা বেশি হওয়ার কথা। সেখানেও যদি আবহাওয়া বাগড়া দেয় তাহলে একদিন আছে রিজার্ভ-ডে।

ভারতীয় একাদশ : রোহিত শর্মা, শুভমন গিল, চেতেশ্বর পূজারা, বিরাট কোহলি (অধিনায়ক), অজিঙ্কা রাহানে, ঋষভ পন্ত (উইকেটকিপার), রবিচন্দ্রন অশ্বিন, রবীন্দ্র জাদেজা, জসপ্রীত বুমরাহ, ইশান্ত শর্মা, মোহাম্মদ শামি।

নিউজিল্যান্ড একাদশ : টম ল্যাথাম, ডেভন কনওয়ে, কেন উইলিয়ামসন (অধিনায়ক), রস টেইলর, হেনরি নিকোলস, ওয়াটলিং (উইকেটকিপার), কলিন ডি’গ্র্যান্ডহোম, কাইল জেমিসন, টিম সাউদি, নেইল ওয়াগনার ও ট্রেন্ট বোল্ট।

ভয়েস টিভি/আইএ

Categories
খেলার খবর

মেসি জাদুতে জয়ের ধারায় আর্জেন্টিনা

একের পর এক ড্র করে জয়ের স্বাদই যেন ভুলে গিয়েছিল আর্জেন্টিনা ফুটবল দল। অবশেষে উরুগুয়ের বিপক্ষে পেল কাঙ্ক্ষিত জয়। বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের দুই ও কোপা আমেরিকার প্রথম ম্যাচে ড্রয়ের পর এবার মেসির ঝলকেই উরুগুয়েকে ১-০ গোলে হারিয়ে জয়ের ধারায় ফিরেছে আর্জেন্টিনা।

ব্রাজিলের গারিঞ্চা স্টেডিয়ামে উরুগুয়ের বিপক্ষে আর্জেন্টিনার জয়টি ১-০ ব্যবধানে। দলের পক্ষে একমাত্র গোলটি করেছেন এ ম্যাচ দিয়েই প্রথম একাদশে সুযোগ পাওয়া গুইদো রদ্রিগেজ, এসিস্ট তথা বল বানিয়ে দেয়ার কাজটি সেরেছেন লিওনেল মেসি।

চিলির বিপক্ষে নিজেদের প্রথম ম্যাচে আগে গোল করেও জিততে ব্যর্থ হয়েছিল লিওনেল স্কালোনির শিষ্যরা। দ্বিতীয় ম্যাচেও আগে গোল করে লিড নিয়েছে আর্জেন্টিনা। তবে পরে আর গোল হজম করতে হয়নি। ম্যাচের ১৩ মিনিটে করা এক গোলের সুবাদেই মিলেছে জয়।

আগের ম্যাচে তিন ডিফেন্ডারসহ মোট ৪ খেলোয়াড়কে বদলে এ ম্যাচের শুরুর একাদশ সাজিয়েছিলেন আর্জেন্টিনা কোচ লিওনেল স্কালোনি। মাঝমাঠে লেয়ান্দ্রো পারেদেসের জায়গায় নামিয়েছেন গুইদো রদ্রিগেজকে। আর এই রদ্রিগেজই এনে দিয়েছেন জয়সূচক গোল।

ম্যাচের ১৩ মিনিটের মাথায় ছোট করে নেয়া কর্নারে মেসির উদ্দেশ্যে পাস বাড়িয়ে দিয়েছিলেন রদ্রিগো ডি পল। কাছে থাকা ডিফেন্ডারকে পরাস্ত করে ডি-বক্সের মধ্যে মাপা ক্রস দেন মেসি। লাফিয়ে ওঠা হেডে বাকি কাজটা সারেন গুইদো রদ্রিগেজ।

এই এক গোলের লিড নিয়েই বাকি ৮০ মিনিট কাটিয়ে দিয়েছে আর্জেন্টিনা। প্রতিপক্ষকে সুযোগই দেয়নি কোনো গোল করার। অবশ্য এতে দায় রয়েছে উরুগুয়েরও। পুরো ম্যাচে একটি শটও লক্ষ্য রাখতে পারেনি তারা। অথচ ম্যাচে ৫৫ শতাংশ সময় বলের দখল নিজেদের দখলে রেখেছিল তারা।

জয় পেলেও গত ম্যাচের মতো আজও গোল মিসের হতাশায় পুড়তে হয়েছে আর্জেন্টিনাকে। ম্যাচের সপ্তম মিনিটে বাম পাশ থেকে শট নেন মেসি। তা ঠেকিয়ে দেন উরুগুয়ের গোলরক্ষক। তবে ফিরতি বলটি ফাঁকা জালের সামনে পেয়ে যান লাউতারো মার্টিনেজ। কিন্তু সেটি লক্ষ্যে রাখতে পারেননি এ তরুণ ফরোয়ার্ড।

এক মিনিট পর ক্রিশ্চিয়ান রোমেরোর দুর্দান্ত হেডার ঝাঁপিয়ে ঠেকান উরুগুয়ের গোলরক্ষক মুসলেরা। ফলে হতাশাই সঙ্গী হয় আর্জেন্টাইনদের। তবে ১৩ মিনিটে গুইদো রদ্রিগেজের গোলের মেলে স্বস্তি। কিন্তু এরপর আর সে অর্থে তেমন কোনো সুযোগ তৈরি করতে পারেনি তারা। দ্বিতীয়ার্ধে একটি শটও লক্ষ্যে রাখতে পারেনি দুই দলের কেউই।

গুইদো রদ্রিগেজের এক গোলের সৌজন্যে টানা ১৫ ম্যাচ অপরাজিত রইল আর্জেন্টিনা। এ জয়ের সুবাদে দুই ম্যাচে ৪ পয়েন্ট নিয়ে বি গ্রুপের টেবিলের শীর্ষে অবস্থান করছে তারা। সমান ম্যাচে সমান পয়েন্ট রয়েছে চিলিরও। আগামী মঙ্গলবার ভোরে নিজেদের তৃতীয় ম্যাচে প্যারাগুয়ের মুখোমুখি হবে লিওনেল মেসির দল।

ভয়েস টিভি/এসএফ

Categories
খেলার খবর

পেরুকে বড় ব্যবধানে হারালো নেইমাররা

প্রথমার্ধে ঠিক গুছিয়ে উঠতে পারছিল না কোপা আমেরিকার বর্তমান চ্যাম্পিয়ন দল ব্রাজিল। যার ফলে সবশেষ আসরে ফাইনালে হেরে যাওয়া পেরু নিয়েছে কঠিন পরীক্ষা। তবে দ্বিতীয়ার্ধেই স্বরূপে নেইমার, হেসুসরা আর ব্রাজিলও পেল বিশাল ব্যবধানে জয়।

ভেনেজুয়েলাকে ৩-০ গোলে হারিয়ে যাত্রা শুরু করা দলটি এবার পেরুকে হারাল ৪-০ গোলের বড় ব্যবধানে। ম্যাচের দ্বিতীয়ার্ধেই হয়েছে তিনটি গোল। বরাবরের মতো আজও মাঠে উজ্জ্বল পারফরম্যান্স দলের সবচেয়ে বড় তারকা নেইমার জুনিয়রের।

তবে এ ম্যাচে নেইমারের একক আধিপত্য ছিল না। দলের বড় জয়ে গোল চারটি করেছেন অ্যালেক্স সান্দ্রো, নেইমার, এভারটন রিবেইরো ও রিচার্লিসন। এই গোলগুলোর এসিস্টও করেছেন ভিন্ন ভিন্ন তিন খেলোয়াড়। তারা হলেন যথাক্রমে গ্যাব্রিয়েল হেসুস, ফ্রেড ও রিচার্লিসন।

আগের ম্যাচের শুরুর একাদশে ছয়টি পরিবর্তন নিয়ে এ ম্যাচের দল নামান ব্রাজিল কোচ তিতে। এতে শুরুতে খানিক অগোছালো থাকলেও, ক্রমেই নিজেদের সেরা ছন্দে ফিরেছেন ব্রাজিল তারকারা। যা ম্যাচ থেকে ছিটকে দিয়েছে পেরুকে।

রিও ডি জেনেইরোর নিল্টন সান্তোস স্টেডিয়ামে হওয়া ম্যাচটি একপ্রকার প্রতিশোধের লড়াইও ছিল পেরুর জন্য। কোপা আমেরিকার গত আসরের ফাইনালে ব্রাজিলের কাছে হেরেই শিরোপা স্বপ্ন ধুয়েমুছে যায় পেরুর। এবার ফিরতি ম্যাচেও তাদের উড়িয়ে দিল বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা।

শুরুতে খুব একটা ভালো না খেললেও, ম্যাচে লিড নিতে বেশি সময় লাগেনি ব্রাজিলের। মাত্র ১২ মিনিটের মাথায়ই দলকে এগিয়ে দেন অ্যালেক্স সান্দ্রো। ডি-বক্সের ডানদিক থেকে গ্যাব্রিয়েল হেসুসের উদ্দেশ্যে ক্রস দিয়েছিলেন এভারটন। সেটি ধরে ছয় গজের বক্সে বাড়িয়ে দেন হেসুস। সহজেই বাকি কাজ সারেন সান্দ্রো।

লিড নিলেও প্রথমার্ধের পারফরম্যান্সে ঠিক ব্রাজিলসুলভ খেলা উপহার দিতে পারেনি স্বাগতিকরা। উল্টো ব্রাজিলের রক্ষণে বেশ কয়েকবার হানা দিয়েছে পেরু, তৈরি করেছে কয়েকটি সুযোগ। কিন্তু এডারসন, থিয়াগো সিলভা, এডের মিলিটাওদের নিয়ে গড়া রক্ষণে চিড় ধরাতে পারেনি।

দ্বিতীয়ার্ধে ক্রমেই স্বরূপে ফিরতে শুরু করে ব্রাজিল। ম্যাচের ৫২ মিনিটের সময় অল্পের জন্য পোস্টের বাইরে দিয়ে চলে যায় দানিলোর শট আর ৬৩ মিনিটে বাতিল হয় পেনাল্টির সিদ্ধান্ত। ডি-বক্সের মধ্যে নেইমার ফাউলের শিকার হলে পেনাল্টি দিয়েছিলেন রেফারি। পরে ভিএআর দেখে বাতিল করেন সেটি।

অবশ্য গোলের জন্য আর পেনাল্টির প্রয়োজন হয়নি নেইমারের। মিনিট পাঁচেক পর ফ্রেডের কাছ থেকে গোলের ২০ গজ দূরে বল পান নেইমার। তা নিয়ন্ত্রণে নিয়ে জায়গা বানিয়ে নিচু শটে পেরুর গোলরক্ষককে পরাস্ত করেন তিনি। জাতীয় দলের হয়ে নেইমারের এটি ৬৮তম গোল।

দুই গোল হজম করে পিছিয়ে পড়ার পর ম্যাচে ফেরার তেমন সম্ভাবনা জাগাতে পারেনি পেরু। উল্টো শেষদিকে হজম করে আরও দুই গোল। নির্ধারিত ৯০ মিনিট শেষ হওয়ার ঠিক আগ দিয়ে ফ্রেডের এসিস্টে স্কোরশিটে নাম তোলেন এভারটন রিবেইরো। ব্রাজিলের জার্সি গায়ে এটিই তার প্রথম গোল।

ভিএআর দেখাসহ ফাউল ও অন্যান্য কাণ্ডে বেশকিছু সময় নষ্ট হওয়ায় অতিরিক্ত ছয় মিনিট দেন রেফারি। এর তৃতীয় মিনিটে হালি পূরণ করে ব্রাজিল। গোলটি হতে পারত রবার্তো ফিরমিনোর। তার জোরালো শট ঠেকিয়ে দেন পেরুর গোলরক্ষক। তবে ফিরতি বলে সহজেই লক্ষ্যভেদ করেন রিচার্লিসন।

ভয়েস টিভি/আইএ

Categories
খেলার খবর

রিয়াল ছাড়ছেন সার্জিও রামোস

রিয়াল মাদ্রিদে সার্জিও রামোসের অনিশ্চিত ভবিষ্যৎ নিয়ে শোনা যাচ্ছিল নানা গুঞ্জন। সেটিই সত্যি হলো, এলো আনুষ্ঠানিক ঘোষণা। ইউরোপের সফলতম দলটির সঙ্গে দীর্ঘ ১৬ বছরের সম্পর্কের ইতি টানতে যাচ্ছেন এই স্প্যানিশ ডিফেন্ডার।

মাদ্রিদের ক্লাবটি বুধবার রাতে জানায়, বৃহস্পতিবার সংবাদ সম্মেলনে অধিনায়ককে বিদায় জানাবে তারা।

আগামী ৩০ জুন শেষ হবে রিয়ালের সঙ্গে রামোসের চুক্তির মেয়াদ। নতুন চুক্তির ব্যাপারে দুই পক্ষ সমঝোতায় আসতে পারেনি।

মার্কার এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ১০ শতাংশ বেতন কমানোসহ ৩৫ বছর বয়সী এই ফুটবলারকে এক বছরের চুক্তির প্রস্তাব দিয়েছিল ক্লাবটি। তিনি চেয়েছিলেন দুই বছরের চুক্তি।

২০০৫ সালে শৈশবের ক্লাব সেভিয়া থেকে দুই কোটি ৭০ লাখ ইউরো ট্রান্সফার ফিতে রিয়ালে যোগ দেন রামোস। ওই সময়ে যা কোনো স্প্যানিশ ডিফেন্ডারের জন্য রেকর্ড ট্রান্সফার ফি।

সান্তিয়াগো বার্নাব্যুয়ে তিনি নিজেকে পরিণত করেন তার প্রজন্মের সেরা সেন্ট্রাল ডিফেন্ডারদের একজন হিসেবে। গোল করার ক্ষেত্রেও দেখান দক্ষতা। ২০১৪ চাম্পিয়ন্স লিগ ফাইনালে তার ৯৩তম মিনিটের গোলেই সমতায় ফিরেছিল রিয়াল। অতিরিক্ত সময়ে গড়ানো ম্যাচে আতলেতিকো মাদ্রিদকে ৪-১ গোলে হারিয়ে প্রতিযোগিতাটিতে রিয়াল জিতেছিল নিজেদের দশম শিরোপা, যা পরিচিতি পায় ‘লা দেসিমা’ নামে।

সব মিলিয়ে রিয়ালের হয়ে ৬৭১ ম্যাচে রামোসের গোল ১০১টি। তাদের হয়ে দীর্ঘ পথচলায় ৪টি চ্যাম্পিয়ন্স লিগ, ৪টি ক্লাব বিশ্বকাপ, ৫টি লা লিগাসহ তিনি জিতেছেন মোট ২২টি শিরোপা, পাকো গেন্তোর (২৩) পর যা দ্বিতীয় সর্বোচ্চ।

তবে ২০২০-২১ মৌসুমটা তার কিংবা দলের ভালো কাটেনি। শিরোপাশূন্য মৌসুম শেষ করে রিয়াল আর দুই দফা চোটে মৌসুমের দ্বিতীয়ভাগে অনেক গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচ খেলতে পারেননি তিনি।

একই কারণে চলতি ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপেও স্পেন দলে অনুপস্থিত রামোস।

ভয়েস টিভি/আইএ