Categories
জাতীয় প্রযুক্তি

ফেসবুক-ইউটিউবে বিজ্ঞাপনে দিতে হচ্ছে ৩০ শতাংশ ভ্যাট

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক ও ইউটিউবে বিজ্ঞাপন দিতে গ্রাহকদের গুণতে হচ্ছে ৩০ শতাংশ ভ্যাট। মূলত সরকারি কর্তৃপক্ষ এনবিআর থেকে স্পষ্ট নির্দেশনার অভাবে একজন গ্রাহককে নিয়মের বাইরে গিয়ে দুই বার ভ্যাট গুণতে হচ্ছে। আর এতে ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছেন গ্রাহক।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, অনলাইনে বিজ্ঞাপন দিলে প্রথমে ১৫ শতাংশ ভ্যাট কাটছে ফেসবুক বা ইউটিউব। এরপর আবার স্থানীয় ব্যাংকগুলো আরেকবারে আরও ১৫ শতাংশ ভ্যাট কাটছে। এতে গ্রাহককে মোট ৩০ শতাংশ ভ্যাট গুনতে হচ্ছে।

এ বিষয়ে কয়েকটি বাণিজ্যিক ব্যাংকের কার্ড বিভাগের কর্মকর্তারা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, সরকারি স্পষ্ট নির্দেশনা না থাকায় বিজ্ঞাপনদাতারা দ্বৈত ভ্যাটের কথা স্বীকার করেন। তারা বলছেন, অনিবাসী প্রতিষ্ঠানগুলোর ভ্যাট কর্তনের নির্দেশনা পাওয়ার পরই ব্যাংকগুলো তাদের সফটওয়্যারের মধ্যে এই পরিবর্তন নিয়ে আসে, যাতে করে এই ধরনের লেনদেন যখনই হবে তখন (বিজ্ঞাপনদাতা) গ্রাহকদের থেকে ১৫ শতাংশ ভ্যাট স্বয়ংক্রিয় কর্তন করা সম্ভব হয়।

আবার গত জুলাই থেকে ফেসবুকের সঙ্গেও সরকারের চুক্তি হয়েছে, এখন থেকে তারা দেশে লিয়াজোঁ অফিস খুলে নিজেরাই ভ্যাট কেটে সরকারের কাছে জমা দেবে। কিন্তু এ ব্যাপারে সরকার বা এনবিআর থেকে বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোকে স্পষ্ট কোনো নির্দেশনা না দেওয়ায় ব্যাংকগুলো আগের মতোই ভ্যাট কাটছে। আবার ফেসবুকও বিলের ওপর ভ্যাট কর্তন করে গ্রাহকদের পাঠাচ্ছে।

এ ব্যাপারে এনবিআরের সদস্য (মূসক নীতি) মো. মাসুদ সাদিক বলেন, ‘এটা হওয়ার কথা নয়। এ পর্যন্ত আমাদের কাছে এ ধরনের কোনো অভিযোগ আসেনি। এরপরও এ রকম হয়ে থাকলে সুনির্দিষ্ট তথ্যসহ সংশ্লিষ্ট প্রতিপক্ষের পক্ষ থেকে আমাদের কাছে আবেদন করা হলে বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে। ’

জানা যায়, ব্যাংকগুলো তাদের আদায় করা ১৫ শতাংশ ভ্যাটই সরকারি কোষাগারে জমা দিচ্ছে। ওদিকে ফেসবুকসহ অন্য অনেক অনাবাসী প্রতিষ্ঠান সম্প্রতি বাংলাদেশের বিজ্ঞাপনের আয়ের ওপর ভ্যাট দেওয়া শুরু করলেও এখানে লুকোচুরি করা হচ্ছে বলে জোরালো অভিযোগ উঠেছে।

এদিকে দ্বৈত ভ্যাটের বিষয়ে সরকারের স্পষ্ট নির্দেশনা দাবি করে ভুক্তভোগীরা বলছেন, দেশের বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোই ভ্যাট কর্তন করে সরকারি কোষাগারে জমা দিচ্ছে। আবার ফেসবুক ১৫ শতাংশ ভ্যাট কাটছে। ফেসবুককে এই ১৫ শতাংশ ভ্যাট কাটা বন্ধ করতে হবে।

ভয়েসটিভি/এএস

Categories
প্রযুক্তি

চার মডেলের আইফোন ১৩

প্রতিবছর সেপ্টেম্বর মাসে আইফোনের নতুন মডেল উন্মোচন করে মার্কিন প্রযুক্তি জায়ান্ট অ্যাপল। প্রযুক্তিপ্রেমীরা আইফোনের নতুন মডেলের জন্য চাতকের মতো মুখিয়ে ছিলেন। দীর্ঘ প্রতীক্ষার অবসান ঘটিয়ে অবশেষে বাজারে এসেছে আইফোন ১৩। ক্যালিফোর্নিয়ার অ্যাপল পার্কে আইফোন ১৩ এবং অ্যাপল ওয়াচ-৭ এর আত্মপ্রকাশ ঘটে।

আইফোনের এই নতুন মডেল দেখে অবশ্য প্রথম লুকে কেউই পুলকিত হবেন না, কারণ ডিজাইনে খুব বেশি পরিবর্তন আনা হয়নি এতে। অনেকটা আগের অর্থাৎ আইফোন ১২ মডেলের মতোই দেখতে এটি।

ব্যাটারি এবং পারফর্মম্যান্সের দিক থেকে পুরোনো যেকোনো মডেলের চেয়ে উচ্চমানের হবে নতুন এই মডেলটি। আগের যে কোন মডেল থেকে ৫০ শতাংশ বেশি দ্রুত পারফর্মম্যান্স দেবে অ্যাপলের নতুন চিপ। পুরোনো সিরিজ থেকে কমপক্ষে আড়াই ঘণ্টা বেশি ব্যাটারি ব্যাকআপ দেবে আইফোন ১৩।

গোলাপি, নীল, কালো, লাল আর স্টারলেট রঙের আইফোন ১৩, আইফোন ১৩ মিনি, আইফোন ১৩ প্রো এবং আইফোন ১৩ প্রো ম্যাক্স মোট চারটি মডেল নিয়ে হাজির হলো আইফোন ১৩। নতুন মডেলে থাকছে ৫০০ জিবি থেকে সর্বোচ্চ ১ টেরাবাইট এবং সর্বনিম্ন ১২৮ জিবি স্টোরেজ।

নতুন আইফোনের দাম আইফোন ১৩ মিনি ৬৯৯ ডলার। বাংলাদেশি মূদ্রায় ৫৯ হাজার পাঁচশ চল্লিশ টাকার কম বেশি। আইফোন ১৩ প্রোর দাম ৯৯৯ ডলার। যা বাংলাদেশি মূদ্রায় ৮৫ হাজার টাকার কম বেশি হবে। আর আইফোন ১৩ প্রো ম্যাক্সের দাম পড়বে ১ হাজার ৯৯ ডলার। বাংলাদেশি মূদ্রায় ৯৩ হাজার ৬ শত টাকার কম বেশি। আগামী ২৪ সেপ্টেম্বরে বাজারে পাওয়া যাবে আইফোন ১৩।
এম এস নাঈম, ভয়েস টিভি, নিউজ ডেস্ক

Categories
প্রযুক্তি বিশ্ব

আফগানে ফেসবুক ব্যবহারকারীদের সুরক্ষায় নানা ব্যবস্থা

আফগানিস্তানের নিয়ন্ত্রণ তালেবানের হাতে যাওয়া পর থেকেই দেশটিতে চরম হুমকির মুখে পড়েছেন অনেক নাগরিক। এমন পরিস্থিতিতে দেশটিতে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুক ব্যবহারকারীদের নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। ১৯ আগস্ট বৃহস্পতিবার আফগানের ফেসবুক ব্যবহারকারীদের জন্য নানা সুরক্ষাব্যবস্থা সামনে এনেছে ফেসবুক।

বার্তা সংস্থা এএফপির খবরে বলা হয়, আফগানিস্তানের ফেসবুক ব্যবহারকারীরা এখন অপরিচিত ব্যক্তিদের কাছ থেকে তাদের পোস্ট সুরক্ষিত রাখতে পারবেন। ফলে অচেনা কেউ এসব পোস্ট দেখতে পাবেন না। এ ছাড়া ফেসবুকে তাদের বন্ধুর তালিকাও আপাতত দেখা যাবে না। তালেবানের নজরদারি এড়াতেই এসব ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

পাশাপাশি ফেসবুকের মালিকানাধীন ইনস্টাগ্রামের ব্যবহারকারীদের জন্যও বাড়ানো হয়েছে নিরাপত্তা। কীভাবে তারা নিজেদের অ্যাকাউন্ট নিরাপদ রাখবেন, তা জানাতে নোটিফিকেশন পাঠানো হবে আফগান ব্যবহারকারীদের কাছে। সাংবাদিক, অধিকারকর্মীসহ নানা পক্ষের পরামর্শ নিয়েই এসব ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে বলে টুইটারে এক পোস্টে জানিয়েছেন ফেসবুকের নিরাপত্তা বিভাগের প্রধান নাথানিয়েল গ্লেইচার।

এদিকে ফেসবুক তালেবানকে একটি সন্ত্রাসী সংগঠন হিসেবে মনে করছে। সম্প্রতি সংগঠনটিকে ও তাদের কার্যকলাপকে সমর্থন করে, এমন সব কনটেন্টও ফেসবুক ও ইনস্টাগ্রামে নিষিদ্ধ করা হয়েছে। পাশাপাশি ফেসবুকের মালিকানাধীন হোয়াটসঅ্যাপেও বন্ধ করে দেয়া হয়েছে তালেবানের মুখপাত্র জাবিহুল্লাহ মুজাহিদের অ্যাকাউন্ট।

ভয়েস টিভি/এসএফ

Categories
প্রযুক্তি বিশ্ব

তিন কোটি টি-মোবাইল গ্রাহকের ডেটা চুরি, বিক্রি হবে বিটকয়েনে

আন্তর্জাতিক টেলিযোগাযোগ খাতে বহুল পরিচিত একটি প্রতিষ্ঠান টি-মোবাইল। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ছাড়াও জার্মানি, পোল্যান্ড ও নেদারল্যান্ডসে ব্যবসা রয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। সম্প্রতি এই প্রতিষ্ঠানের ১০ কোটি গ্রাহকের ডেটা চুরির দাবি করেছে এক হ্যাকার। অনলাইনের এক ফোরামে বিক্রির জন্য তোলা হয়েছে ওই ডেটার একটি অংশ। দাম চাওয়া হয়েছে ছয় বিটকয়েন; যা বর্তমান বাজার মূল্যের হিসাবে প্রায় দুই লাখ ৭০ হাজার ডলার।

ওই ফোরাম পোস্টের দাবি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে বলে জানিয়েছে টি-মোবাইল। ফোরাম পোস্টের কোথাও টি-মোবাইলের নাম উল্লেখ না থাকলেও, বিক্রির জন্য তোলা ডেটা টি-মোবাইলের সার্ভার থেকেই এসেছে বলে প্রযুক্তিবিষয়ক সাইট মাদারবোর্ডকে নিশ্চিত করেছে ওই হ্যাকার।

বিক্রির জন্য তোলা ডেটার মধ্যে ব্যবহারকারীদের ব্যক্তিগত ঠিকানা, ড্রাইভিং লাইসেন্স, আইএমইআই নম্বর, নাম, ফোন নম্বর এমনকি সোশ্যাল সিকিউরিটি নম্বরও আছে বলে দাবি করেছে ওই হ্যাকার। ডেটার নমুনা নিয়ে সেটি যে টি-মোবাইল গ্রাহকদের, সে বিষয়ে নিশ্চিত হয়েছে মাদারবোর্ড।

প্রযুক্তিবিষয়ক সাইটটির সঙ্গে এক অনলাইন আলাপচারিতায় ওই হ্যাকারের দাবি, “টি-মোবাইল ইউএসএ, ফুল কাস্টমার ইনফো” আছে তার কাছে। প্রতিষ্ঠানটির একাধিক সার্ভারে অনুপ্রবেশের দাবিও করেন তিনি।

ওই ফোরামে তিন কোটি গ্রাহকের সোশ্যাল সিকিউরিটি নম্বর ও ড্রাইভিং লাইসেন্সের জন্য ছয় বিটকয়েন বা দুই লাখ ৭০ হাজার ডলার দাম হেঁকেছে ওই হ্যাকার। চুরি করা ডেটার বাকি অংশ আলাদা করে ব্যক্তিগত পর্যায়ে বিক্রি করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

এই ঘটনায় টি-মোবাইলের প্রতিক্রিয়া নিয়ে ওই হ্যাকার বলেছেন, ব্যাকডোর সার্ভারগুলোতে আর ঢুকতে পারছে না তারা। তবে সার্ভারে আর ঢুকতে না পারলেও ইতোমধ্যেই সব ডেটা ডাউনলোড করে নেয়ার দাবি করে বিক্রেতা হ্যাকার বলছে, “একাধিক জায়গায় এর ব্যাকআপ রাখা আছে।”

এই প্রসঙ্গে এক বিবৃতিতে টি-মোবাইল বলেছে, “একটি আন্ডারগ্রাউন্ড ফোরামে তোলা দাবি সম্পর্কে তারা অবহিত এবং দাবির সত্যতা নিয়ে তদন্ত চলছে। জানানোর মতো বাড়তি আর কোনো তথ্য এই মুহূর্তে তাদের কাছে নেই।”

কী পরিমাণ ডেটা বেহাত হয়েছে অথবা গ্রাহকদের কোন কোন ডেটা হ্যাকাররা কপি করে নিয়েছে, সেই বিষয়ে মুখ খোলেনি টি-মোবাইল।

Categories
প্রযুক্তি

তালেবানকে নিষিদ্ধ করলো ফেসবুক

তালেবানকে ফেসবুক থেকে নিষিদ্ধ করা হয়েছে। এছাড়া সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তাদের সব ধরনের পোস্টের পাশাপাশি তালেবানদের প্রতি সমর্থনমূলক সব কন্টেন্ট নিষিদ্ধ করেছে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ।
মঙ্গলবার ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি এক খবরে জানিয়েছে, তালেবানকে সন্ত্রাসী সংগঠন বিবেচনা করে এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে ফেসবুক।
খবরে বলা হয়, ফেসবুকের এক মুখপাত্র বিবিসিকে বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের আইনে তালেবান সন্ত্রাসী সংগঠন হিসেবে নিষিদ্ধ। আমরাও আমাদের ‘বিপজ্জনক সংগঠন’ নীতিমালার আওতায় সব ধরনের সেবা থেকে গোষ্ঠীটিকে নিষিদ্ধ করেছি।
ফেসবুকের কাছে প্রমাণ রয়েছে উল্লেখ করে খবরে বলা হয়েছে, বছরের পর বছর তলেবান সামজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নানা ধরনের বার্তা ছড়িয়ে আসছিল। তালেবান সদস্যরা নানা শ্রেণির মানুষের সঙ্গে যোগাযোগের জন্য হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহার করে আসছে।
আরও পড়ুন : তালেবানের জন্ম, সংগ্রাম ও উত্থান যেভাবে
ভয়েস টিভি/এএন
Categories
প্রযুক্তি

ফটোবাকেট ও গুগল ক্যালেন্ডারে ছবি যোগ করতে পারবেন ফেসবুকাররা

ফটোবাকেট ও গুগল ক্যালেন্ডারের সঙ্গে যুক্ত হয়েছে ফেসবুক। এর মাধ্যমে ব্যবহারকারীরা তাদের তথ্যকে এই সোশ্যাল নেটওয়ার্ক যুক্ত করতে পারবে। একটি ব্লগপোস্টে বিষয়টি নিশ্চিত করেছে ফেসবুক।

এতে বলা হয়েছে, এটি চালু হওয়ার পর থেকে ব্যবহারকারীরা তাদের ছবি ফটোবাকেটে ও ইভেন্টগুলো গুগল ক্যালেন্ডারে প্রতিস্থাপন করতে পারবে।

এর ফলে ব্যবহারকারী মাল্টিপল ট্রান্সফারও করতে পারবে। খুব সহজেই নির্ণয় করতে পারবে কোন প্ল্যাটফর্মে কী শেয়ার করতে হবে। সেইসঙ্গে ট্রান্সফারের নির্বাচনও সহজ করা হয়েছে। এই টুলটি সম্পূর্ণ নতুন এবং সহজভাবে তৈরি করা হয়েছে বলে জানান এর প্রোডাক্ট ম্যানেজার হাদি মিশেল।

এনগেজেট জানিয়েছে, আরকেটি নতুন প্রজেক্টে এক সঙ্গে কাজ করছে গুগল, ফেসবুক এবং মাইক্রোসফট। ডেটা ট্রান্সফারের এই প্রজেক্টে ইতোমধ্যে ফেসবুক ব্যবহারকারীরা তাদের ছবি সহজে গুগলের ইমেজ স্টোর সার্ভিস করতে পারে। সেই সঙ্গে ড্রপবক্স, ব্লগার গুগল ডকুমেন্ট এবং ওয়ার্ডপ্রেসে ট্রান্সফার করতে পারে।

এই ধরণের ডেটা ট্রান্সফারের ক্ষেত্রে ডেটার নিরাপত্তার দায়িত্বটি মূলত কে বহন করবে, সেটা নির্দিষ্ট করে দেওয়ার কথা বলছে ফেসবুক। এজন্য তারা সরকারের কাছে আবেদন করেছে।

ভয়েসটিভি/এএস

Categories
প্রযুক্তি

ফেসবুক আইডি ও প্রাইভেসি সিকিউর রাখতে করণীয়

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম গুলোর মধ্যে সবচেয়ে জনপ্রিয় মাধ্যম হচ্ছে ফেসবুক। ফেসবুক ব্যবহার করা ছাড়া জীবন যেন কল্পনা করা যায় না।  বিশ্বে প্রতিনিয়ত ফেসবুক এর ব্যবহার বা প্রভাব বেড়েই চলছে।  তাই ফেসবুক ব্যবহারকারীর সংখ্যা প্রতিনিয়ত বাড়ছে।

তবে এর ব্যবহারে বেড়ে গেছে নানা রকম এর ধোঁকাবাজি। নানা রকম কৌশল অনুসরণ করে সাইবার দুর্বৃত্তরা ফেসবুক অ্যাকাউন্ট এর সকল প্রকার ইনফরমেশন হাতিয়ে নেয় বা সংগ্রহ করে থাকে। সাইবার দুর্বৃত্তরা ফেসবুক হ্যাক করে ব্ল্যাকমেইল থেকে শুরু করে নানান রকম হয়রানির মধ্যে ফেলতে পারে।

ফেসবুক আইডি নিরাপদ ও সুরক্ষিত রাখার জন্য ফেসবুক অনেক কয়েকটি ধাপ অনুসরণ করেছেন। এবং ফেসবুক এর সিকিউরিটি বা সুরক্ষা নিশ্চিত করেছেন। ফেসবুক আইডির নিরাপত্তা প্রদান এর জন্য সিকিউরিটি অ্যান্ড লগ ইন Security And Login এর মাধমে পরামর্শ প্রদান করেছে। Security And Login যে বিষয় গুলা তুলে ধরা হয়েছে তা হলা;

ফেসবুকে চালানোর জন্য প্রথমে আপনাকে লগ ইন করতে হবে। ফেসবুকে লগইন করার জন্য ইউজার নেম এবং পাসওয়ার্ড টাইপ করতে হয়। আর সেখানে লক্ষ্যে করে দেখবেন “কিপ মি লগড ইন” নামে একটি বক্স দেখা যাবে। কিন্তু আপনি এই “কিপ মি লগড ইন” অপশনে কখনও টিক চিহ্ন বা বক্স চেক করবেন না। আর যদি এই বক্স চেক করেন তাহলে আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট এর বেহাত হওয়ার ঝুকি বেড়ে যাবে। তবে আপনি চাইলে এই বক্স চেক টি আপনার কম্পিউটার এর জন্য করতে পারেন।

লিঙ্ক ক্লিক না করা

থার্ড পার্টি অ্যাপ বা বিভিন্ন ওয়েবসাইট ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকতে হবে। তবে সামান্য ভুল এবং অসর্তকতা কারনে আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট টি নষ্ট বা হ্যাক হতে পারে। যার পরিপেক্ষিতে ফলাফল হতে পারে আপনার জন্য অনেক ভয়াবহ। আর আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্টকে নিরাপদ ও সুরক্ষিত রাখার জন্য এবং সাইবার দুর্বৃত্তদের হাত থেকে নিজের ফেসবুক অ্যাকাউন্ট সুরক্ষিত রাখার পাশাপাশি আমরা আপনাকে কয়েকটি কৌশল জানিয়ে দিবো। যা আপনাকে অনুসরণ করতে হবে।

পাসওয়ার্ড অন্যদের সাথে শেয়ার না করা

ফেসবুক আইডি নিরাপদ রাখার জন্য এই বিষয়টি খুব গুরুপ্তপূর্ণ। অনেক সময় দেখা যায় নিজের ফেসবুক আইডির পাসওয়ার্ড অন্য ফেসবুক ইউজারদের সাথে শেয়ার করেন। যা পরবর্তীতে ফেসবুক অ্যাকাউন্ট হ্যাক হওয়ার ঘটনা ঘটে থাকে। আপনি যদি আপনার কোন বন্ধুবান্ধবদের সাথে ফেসবুক এর পাসওয়ার্ড শেয়ার করার ফলে তারা আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট প্রবেশ করে উল্টাপাল্টা নানান রকম কাজ করতে পারে। যার ফলে আপনি পরবর্তীতে নানান রকম হয়রানির স্বীকার এবং অনেক বেশি গুরুত্বর বিপদের মুখোমুখি হতে পারেন।

শক্তিশালী পাসওয়ার্ড ব্যবহার করা

ফেসবুক আইডি সুরক্ষিত রাখার জন্য অনেক এই অনেক বড় ও শক্তিশালী পাসওয়ার্ড রাখতে পছন্দ করেন। ফেসবুক আইডি সুরক্ষা রাখার জন্য ফেসবুক পাসওয়ার্ড এ আপনার নাম, মোবাইল নাম্বার, ইমেইল ঠিকানা ব্যবহার করা, ১২৩৪৫৬ ইত্যাদি নানা রকম পাসওয়ার্ড ব্যবহার করেন। কিন্তু আপনাকে এই রকম পাসওয়ার্ড ব্যবহার করা থেকে দূরে থাকতে হবে।

অনলাইনে বিভিন্ন সাইটে বা অনলাইন সেবাই আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট এর পাসওয়ার্ড ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকতে হবে এবং আপনার পরিচিত বা বন্ধুবান্ধব এর সাথে ফেসবুক পাসওয়ার্ড শেয়ার করা থেকে বিরত থাকতে হবে।

আপনার ফেসবুক আইডি সুরক্ষা ও নিরাপদ রাখার জন্য এবং আপনার পরিচিত লোকজন বা ব্যাবসার সাথে জড়িত লোকজন এর ফেসবুক আইডিতে টু-ফ্যাক্টর-অথেনটিকেশন অপশনটি চালু করে নিন। এই সিস্টেমটি চালু করার পর আপনার অ্যাকাউন্টটি আগের থেকে অনেক বেশি সিকিউর থাকবে। টু-ফ্যাক্টর-অথেনটিকেশন চালু করার সুবিধা হচ্ছে কেউ যদি আপনার ফেসবুকে আইডিতে পাসওয়ার্ড দিয়ে লগ ইন করতে চায়। তাহলে সেখানে আপনাকে প্রতিবার কোড বসিয়ে দিয়ে লগ ইন নিশ্চিত করতে হবে।

ফেসবুকে লগ ইন অ্যালার্ট ব্যবহার করা

কেউ যদি আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট আপনার অজান্তে লগ ইন করার চেষ্টা করে তাহলে আপনাকে ফেসবুক জানিয়ে দিবে। এই কাজটি করার জন্য আপনাকে সেটিংস চালু করতে হবে। এই সেটিং চালু করার জন্য আপনাকে ফেসবুকে লগ ইন করার পর সেটিংস মেনুতে যেতে হবে। এর পরবর্তীতে আপনাকে সিকিউরিটি অপশনে ক্লিক করতে হবে তারপর “লগ ইন অ্যালার্ট” এ গিয়ে এডিট করতে হবে। এর পরবর্তীতে আপনাকে ইমেইল “লগ ইন অ্যালার্ট” এবং গেট নোটিফিকেশন অপশন চালু করতে হবে এবং তা সেভ করতে হবে।

এই অপশন ব্যবহার করার ফলে কেউ যদি আপনার ফেসবুক আইডিতে লগ ইন করতে চায় তাহলে আপনাকে তার তথ্য জানিয়ে দিবে। যতবার আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট এ প্রবেশ করার চেষ্টা করবে আপনি ঠিক ততবার ফেসবুক “লগ ইন অ্যালার্ট” পাবেন। এছাড়া আপনি একটি নিদিষ্ট ডিভাইস এর মাধমে ফেসবুক অ্যাকাউন্টে লগ ইন করার বিষয়টি ঠিক করে দিতে পারবেন। নতুন কোন ব্রাউজার থেকে নতুন ডিভাইস এর মাধমে লগ ইন করার সময় ফেসবুক এটাকে মনে রাখতে পারবে কি না তা জানতে চায়। করতে চাইলে সেই সব ব্রাউজার দিয়ে ব্রাউজ করতে পারবে।

অপরিচিত ব্যক্তিদের ফ্রেন্ডলিস্টে না রাখা

আপনি যাকে চিনেন না তাকে ফেসবুকে কখনও বন্ধু হিসেবে গ্রহণ করা উচিত নয় এটি ফেসবুক এর দেয়া পরামর্শ। অপরিচিত মানুষের সঙ্গে ফেসবুকে বন্ধুত করে তারা তাদের কার্যসিদ্ধি অর্জন করার জন্য সন্দেহজনক ব্যক্তি ও স্ক্যামাররা আপনার নামে নকল আরেকটি বা অন্যান্য অ্যাকাউন্ট খুলতে পারে। আর এই সন্দেহজনক ব্যক্তি ও স্ক্যামাররা আপনার প্রফাইলে বা টাইমলাইনে পোস্ট করে স্প্যাম ছড়াতে পারে এবং সেগুলি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করবে।

এছাড়া নানান রকম অশ্লীল পোস্টে আপনাকে এবং আপনার পরিচিত দের কে ট্যাগ করে অথবা মেসেজ পাঠাতে পারে। এছাড়া হ্যাকিং এর জন্য ম্যাসেজ পাঠাতে পারে আপনাকে অথবা আপনার পরিচিত বন্ধুদের কে। তাই খুব সতর্কতার সাথে আপনার পরিচিত বন্ধু বান্ধব এবং আত্মীয়স্বজন এবং আপনার বিস্তত মানুষের ফেসবুক ফ্রেন্ড রিকুয়েস্ট কে গ্রহণ করুন।

সন্দেহজনক লিঙ্ক ক্লিক না করা

ফেসবুক অ্যাকাউন্ট নিরাপদ রাখার জন্য এই বিষয়টি অত্যন্ত গুরুপ্তপূর্ণ। অপরিচিত ব্যক্তিদের দেয়া লিঙ্কে ক্লিক করা যাবে না। আপনার মেসেজে বক্সে আশা বিভিন্ন ধরনের লিঙ্কে ক্লিক করা যাবে না বিশেষ করে আপনি যাদের কে চিনেন না বা তাদের কে বিশ্বাস করেন তাদের দেয়া বিভিন্ন লিঙ্কে ক্লিক করার বিষয়ে সতর্ক থাকতে হবে। সন্দেহ জনক লিঙ্ক ক্লিক করবেন না বা সেসব ফাইল ওপেন করবেন না।

এসব লিঙ্কে ক্লিক করার পর তারা আপনাকে ফেসবুক এর মতো করে একটি লগ ইন পেজ দেখাবে এবং সেখানে আপনার ফেসবুকে ব্যবহার করা ফোন নাম্বার এবং পাসওয়ার্ড দিতে বলবে। আর আপনি যখন এটি সম্পূর্ণ করবেন তখন আপনার ফেসবুক এর পাসওয়ার্ড ও নাম্বার তাদের হাতে চলে যাবে।
আরও পড়ুনঃ ফ্রি SMS এসএমএস পাঠানোর অ্যাপ ডাউনলোড করুন
মনে রাখবেন ফেসবুক একবার লগ ইন করার পর তা আর পরবর্তীতে লগ ইন করতে বলবে না। তাই অপরিচিত বা সন্দেহজনক ব্যক্তিদের দেয়া বিভিন্ন লিঙ্কে ক্লিক করা থেকে বিরত থাকতে হবে।

টু ফেক্টর ও লগ ইন কোড হাতে রাখা

আপনি যখন ফেসবুকে সুরক্ষার জন্য টু-ফ্যাক্টর-অথেনটিকেশন অপশনটি চালু করে রাখবেন তখন অন্য কোন নতুন ডিভাইস দিয়ে লগ ইন করার সময় কোড চাইবে। এই কোডটি আপনি টেক্সট অথবা কোড জেনারেটর থেকে আপনাকে সংগ্রহ করতে হবে। যখন আপনি নতুন স্মার্টফোন অথবা ট্যাবে লগ লগ ইন করতে কোড না পান তাহলে এই কোড বসিয়ে দিয়ে খুব সহজে লগ ইন করতে পারবেন। এই বাড়তি কোড গুলাকে ব্যাকআপ কোড বলা হয়।

ফেসবুকে ইমেইল আইডি যুক্ত করা

আপনি চাইলে শুধুমাত্র ফোন নাম্বার দিয়ে ফেসবুক আইডি চালাতে পারবেন। আর আপনার ফেসবুক এর নিরাপত্তার জন্য ইমেইল অ্যাড্রেস ব্যবহার করা খুব গুরুপ্তপূর্ণ বা অপরিহার্য বিষয়। যদি কোন দিন বা কোন সময় আপনার ফেসবুক আইডি ডিজেবল বা হ্যাক হয়ে যায় আর তখন যদি আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্টে মেইল অ্যাড্রেস যুক্ত করা না থাকে তাহলে আপনার সেই হ্যাক হয়ে যাওয়া ফেসবুক আইডি টি রিকোভার করা বা ফিরে পাওয়া খুব কঠিন।

আর হ্যাঁ নিজের ফেসবুক অ্যাকাউন্টে কখনও অন্যজন এর মেইল অ্যাকাউন্ট যোগ করবেন না। নিজের ফেসবুক অ্যাকাউন্ট সিকিউর রাখার জন্য নিজের সচল মেইল অ্যাকাউন্টটি যোগ করে নিবেন ফেসবুক এর সাথে।

ফেসবুকে সঠিক জন্ম তারিখ যোগ করা

একটি ফেসবুক অ্যাকাউন্ট এর নিরাপত্তার জন্য জন্ম তারিখ একটি গুরুপ্তপূর্ণ বিষয়। আপনার ফেসবুক আইডি সুরক্ষিত রাখার জন্য যদি আপনার পাসপোর্ট অথবা আপনার এনআইডি কার্ড বা ভোটার আইডি কার্ড অনুযায়ী দেয়া জন্মতারিখ ও জন্মসাল ফেসবুকে হবুহ প্রদান করুন। ফেসবুক আইডি যদি কোন কারনে কোন সময় হ্যাক হয়ে যায়। তাহলে রিকোভার করার জন্য এনআইডি কার্ড সাবমিট করতে হয়। আর তখন আইডি কার্ডে দেয়া জন্মদিন ও জন্ম সাল ভিন্ন রকম হয় তাহলে সেই আইডি আর রিকোভার করা সম্ভব না।

জন্ম তারিখ প্রাইভেট রাখা

ফেসবুক আইডি সুরক্ষা রাখার জন্য জন্ম তারিখ প্রাইভেট রাখা উচিত। আমাদের দেশে অনেক প্রফেশনাল হ্যাকার রয়েছে যারা Facebook Account এর নাম এবং জন্মতারিখ নিয়ে প্রফাইল এর ছবি সম্পাদনের মাধ্যমে ভুয়া ডুপ্লিকেট এনআইডি কার্ড তৈরি করে ফেসবুকে উপস্থাপন করে ফেসবুক আইডি হ্যাক করার বা ডিজেবল অথবা তাদের হাতের আয়ত্ত করার চেষ্টা করে থাকে।

তাই আপনার সুরক্ষার জন্য যদি ফেসবুকে জন্মতারিখ “অনলি মি” করা থাকে তাহলে হ্যাকাররা এসব এর কিছুই জানতে পারবে না। ফলে নিরাপদ থাকবে আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট। তাই নিজের ফেসবুক আইডি সুরক্ষার জন্য ফেসবুকে জন্মতারিখ ও জন্ম সাল হাইড করে রাখুন। অথবা জন্ম দিন হাইড রাখতে অসুবিধা মনে হয় তাহলে জন্ম সাল হাইড রেখে জন্মদিন তারিখ পাবলিক করে রাখতে পারেন।

থার্ড পার্টি অ্যাপ/ওয়েবসাইট ব্যবহার না করা

নিজের ফেসবুক আইডি নিরাপদ রাখার জন্য ফেসবুকে অনিরাপদ গেম অথবা অনিরাপদ অ্যাপ ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকুন। এছাড়া বিভিন্ন ওয়েবসাইটে ফেসবুক আইডি দিয়ে লগ ইন করা থেকে বিরত থাকুন। এসব থার্ড পার্টি অ্যাপ ব্যবহার করার ফলে তারা আপনার ব্যক্তিগত তথ্য চুরি করে থাকে যা আপনার জন্য একটি গুরুতর বিপদ।

পাবলিক প্লেসে ফেসবুক লগ ইন নয়

পাবলিক প্লেসে যথাযথ নিরাপদ ছাড়া ফেসবুকে লগ ইন করা উচিত না। আর যদি এমনটি করেন তাহলে আপনি গুরুত্বর সমস্যার মুখোমুখি হতে পারেন।

* কোন বন্ধুবান্ধব এর কম্পিউটার বা মোবাইলফোনে ফেসবুক লগ ইন করার সময় কখনও “কিপ মি লগড ইন” এ ক্লিক করা যাবে না।

* ফেসবুক আইডি সিকিউরিটি জন্য আপনাকে এমন একটি পাসওয়ার্ড চয়েস করতে হবে যা অন্য সকলদের থেকে কল্পনার বাহিরে থাকে। তবে ফেসবুক পাসওয়ার্ডটি অনেক বড় হতে পারে। আর যদি আপনার ফেসবুক এর পাসওয়ার্ডটি সহজ কিন্ত অনেক বড় তাহলে কিন্তু আপনার ফেসবুক আইডি সুরক্ষিত নাও হতে পারে।

কেননা ফেসবুক এর পাসওয়ার্ড হ্যাক করার জন্য সাইবার দুর্বৃত্তরা অনেক কৌশল ব্যবহার অবলম্বন করে তার মধ্যে হচ্ছে “ডিকশনারি অ্যাটাক” ব্যবহার করে। এটি ব্যবহার করার ফলে ইংরেজি বর্ণমালা দিয়ে তৈরি করা যায় এমন শব্দ ব্যবহার করে থাকে। এমন ধরনের আক্রমন থেকে ফেসবুক আইডি নিরাপদ রাখার জন্য পাসওয়ার্ড মধ্যে বা আগে এমন @, #, $, %, * ইত্যাদি প্রতীক ব্যবহার করা জরুরি। এটি শক্তিশালী পাসওয়ার্ডের জন্যে জরুরি।

আরও পড়ুন : ফেসবুকে প্রতারণার নানা ফাঁদ (পর্ব-৪)

ভয়েস টিভি/ডি

Categories
জাতীয় প্রযুক্তি

বাংলাদেশকে অনলাইনে ভ্যাট দিতে চায় ফেসবুক

কোভিড মহামারির পরিস্থিতিতে দীর্ঘ প্রক্রিয়ার বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে অনলাইনে ভ্যাট গ্রহণ করার দাবি করেছে ফেসবুক। অনলাইন পেমেন্ট সিস্টেমের মাধ্যমে মূল্য সংযোজন কর (ভ্যাট) প্রদানের অনুমতি দেওয়ার জন্য জাতীয় রাজস্ব বোর্ডকে (এনবিআর) অনুরোধ করেছে বিশ্বের জনপ্রিয় এ সামাজজিক যোগাযোগ মাধ্যম।

সংস্থাটির বাংলাদেশ প্রতিনিধির মাধ্যমে পাঠানো এক চিঠিতে এই অনুরোধ করা হয়েছে বলে এনবিআরের জনসংযোগ দফতর জানিয়েছে।

বর্তমানে অনাবাসী বিদেশি সংস্থা হিসেবে তাদের বিদেশি ব্যাংক অ্যাকাউন্ট থেকে সরাসরি কিংবা অনলাইন অর্থ প্রদানের মাধ্যমে ভ্যাট পরিশোধের অনুমতি নেই।

বিদ্যমান প্রক্রিয়া অনুসারে, করদাতাদের চেকের মাধ্যমে নির্দিষ্ট ব্যাংকে ট্রেজারি চালানসহ ভ্যাট রিটার্ন দাখিল করতে হয়। কোভিড মহামারির পরিস্থিতিতে দীর্ঘ প্রক্রিয়ার বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে অনলাইনে সরাসরি ভ্যাট গ্রহণ করার দাবি করেছে ফেসবুক।

এর আগে গত ১৩ জুন ভ্যাট পরিশোধ ও ভ্যাট রিটার্ন জমা দেওয়াসহ সরাসরি ভ্যাট সংক্রান্ত সেবা পেতে বিজনেস আইডেন্টিফিকেশন নম্বর (বিআইএন) নেয় ফেসবুক। অনলাইনে আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ফেসবুক তিনটি পৃথক বিআইএন নিবন্ধন পেয়েছে। যে তিন প্রতিষ্ঠানের নামে নিবন্ধন নিয়েছে সেগুলো হচ্ছে- ফেসবুক টেকনোলজিস আয়ারল্যান্ড লিমিটেড, ফেসবুক আয়ারল্যান্ড লিমিটেড এবং ফেসবুক পেমেন্টস ইন্টারন্যাশনাল লিমিটেড।

বর্তমানে ভ্যাট আইন অনুসারে, ভ্যাট পরিশোধের ক্ষেত্রে স্থানীয় ভ্যাট এজেন্টরা দায়বদ্ধ। ভ্যাট রেজিস্ট্রেশন পেতে এবং ভ্যাট রিটার্ন জমা দেওয়ার জন্য সংস্থাগুলো ২০১৯ সাল থেকে নানা ধরনের সমস্যার মুখোমুখি হচ্ছে। তাই ভ্যাট আইন অনুসারে সরাসরি এই সেবা পাওয়ার বিষয়ে তাদের পক্ষ থেকে দাবি ছিল।

‘মূল্য সংযোজন কর ও সম্পূরক শুল্ক আইন, ২০১২’ আইন অনুযায়ী ফেসবুক, ইউটিউব, গুগলের মতো প্রতিষ্ঠানকে মূসক নিবন্ধন নিতে হবে এবং তাদের বাংলাদেশে অফিস স্থাপন অথবা মূসক এজেন্ট নিয়োগ দিতে হবে। পরে ২০২০ সালের প্রথম দিকে আলাদা ভ্যাট নিবন্ধন নম্বরের আওতায় আনার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয় এনবিআর।

অন্যদিকে মূল্য সংযোজন কর ও সম্পূরক শুল্ক আইন ২০১২ এবং মূল্য সংযোজন কর ও সম্পূরক বিধিমালা ২০১৬ অনুসারে ভ্যাট নিবন্ধনকারী প্রতিষ্ঠানগুলোকে মাস শেষ হওয়ার অনধিক ১৫ দিনের মধ্যে ভ্যাট রিটার্ন দাখিলের বাধ্যবাধকতা রয়েছে। অন্যথায় সুদ ও জরিমানা আরোপের বিধান রয়েছে। এ কারণে ব্যবসায়ীদের মাসিক ভ্যাট দাখিলপত্র দাখিলে সহায়তা করা ও দাখিলপত্র গ্রহণের সুবিধার্থে সরকার ঘোষিত কঠোর বিধিনিষেধকালে দেশের সব কাস্টমস, এক্সাইজ ও ভ্যাট দফতরগুলো খোলা রয়েছে।

Categories
জাতীয় প্রযুক্তি

ইন্টারনেটের গতিতে বাংলাদেশের পেছনে কেবল ভেনিজুয়েলা-আফগানিস্তান

মোবাইল ইন্টারনেটের গতিতে একধাপ পিছিয়েছে বাংলাদেশ। বাংলাদেশ কেবল এগিয়ে আছে ভেনিজুয়েলা আর আফগানিস্তানের চেয়ে। বিশ্বের ১৩৭টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান এখন ১৩৫তম। ইন্টারনেটের গতি ও তুলনামূলক চিত্র নিয়ে কাজ করে এমন প্রতিষ্ঠান ওকলার জুন মাসের প্রতিবেদনে এই চিত্র উঠে এসেছে।

ওকলা প্রতি মাসে ইন্টারনেট বিষয়ক এসব তথ্য প্রকাশ করে। তাতে বিভিন্ন দেশের মোবাইল ও ফিক্সড (ব্রডব্যান্ড) ইন্টারনেটর গতির তুলনামূলক চিত্র দেখা যায়। ওই চিত্রে দেখা গেছে বাংলাদেশে মোবাইল ইন্টারনেটে ডাউনলোড গতি ১২ দশমিক ৪৮ এমবিপিএস (মেগাবিটস পার সেকেন্ড)। আর আপলোড গতি ৭ দশমিক ৯৮ এমবিপিএস।

ওকলার প্রকাশিত প্রতিবেদনে দেখা গেছে, গতিতে সবচেয়ে এগিয়ে আছে সংযুক্ত আরব-আমিরাতে। ডাউনলোড গতি ১৯৩ দশমিক ৫১ এমবিপিএস। এরপরের পাঁচটি দেশের তালিকায় আছে দক্ষিণ কোরিয়া, কাতার, নরওয়ে, সাইপ্রাস ও চীন।

ব্রডব্যান্ডে বাংলাদেশের অবস্থান ৯৮তম

মোবাইল ইন্টারনেটের বেহাল দশা হলেও ব্রডব্যান্ডে বাংলাদেশের অবস্থান ভালো। যদিও জুন মাসে দুইধাপ পিছিয়েছে দেশটি। ওকলা বলছে, বাংলাদেশ ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেটের গতির দিক থেকে ১৮১টি দেশের মধ্যে ৯৮তম স্থানে রয়েছে। ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেটের ডাউনলোড গতি ৩৮ দশমিক ২৭ এমবিপিএস। আর আপলোড গতি ৩৭ দশমিক ২২ এমবিপিএস। ল্যাটেন্সি ১১ মিলিসেকেন্ড।

ওকলার প্রতিবেদন বলছে, ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেটে সবচেয়ে বেশি গতির দেশ মোনাকো, ২৬১ এমবিপিএস। সবচেয়ে কম গতির দেশের তালিকায় নাম লিখিয়েছে তুর্কমেনিস্তান। দেশটির ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেটের গতি ৪ দশমিক ৪৯ এমবিপিএস। পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতের অবস্থান ৭০তম। ১২ দশমিক ৭৭ এমবিপিএস গতি নিয়ে পাকিস্তান ১৬৪তম।

Categories
প্রযুক্তি বিশ্ব

নিয়ম ভাঙার জন্য গুগলকে ৪ হাজার কোটি টাকা জরিমানা

ফ্রান্সে বিপুল অঙ্কের জরিমানা হলো গুগলের। ১৩ জুলাই মঙ্গলবার সে দেশের বাণিজ্যিক প্রতিযোগিতা নিয়ন্ত্রক সংস্থার (কম্পিটিশন রেগুলেটরস) পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, খবরের স্বত্বের নিয়ম ভাঙার জন্য ৫০ কোটি ইউরো জরিমানা দিতে হবে গুগলকে। বাংলাদেশি টাকায় যা ৪ হাজার কোটিও বেশি। ইউরোপীয় ইউনিয়নের নির্দিষ্ট স্বত্ব আইন অনুসারে গুগল বিভিন্ন সংবাদ সংস্থার সঙ্গে নির্ভরযোগ্য বাণিজ্যনীতি বজায় না রাখতে পারায় এই জরিমানা বলে জানানো হয়েছে।

ইতিহাসে এমন বিপুল অঙ্কের জরিমানা দিতে হয়নি গুগলকে। আরও শর্ত দেয়া হয়েছে বর্তমানে বিভিন্ন সংবাদ সংস্থার যে খবর সার্চ ইঞ্জিনে দেখাচ্ছে গুগল, তার জন্য নির্দিষ্ট অর্থ দিতে। না হলে দৈনিক ৯০ হাজার ইউরো করে জরিমানা দিতে হতে পারে।

রায় নিয়ে হতাশা প্রকাশ করেছে গুগল। গুগলের তরফ থেকে বলা হয়েছে, ‘গোটা প্রক্রিয়া চলার সময় আমরা বিশ্বাসযোগ্য বাণিজ্যিক সম্পর্ক বজায় রেখেছিলাম। আমাদের সেই ব্যবহারের দিকটি খতিয়ে দেখা হয়নি। পাশাপাশি আমাদের প্ল্যাটফর্মে যে খবর দৃশ্যমান হয়, সেই বিষয়টিও পুরোটা খতিয়ে দেখেনি সংস্থা।’

দীর্ঘদিন ধরে এই নিয়ে বিভিন্ন সংবাদ প্রকাশনা সংস্থা ও গুগলের মধ্যে মামলা চলছে। সংস্থাগুলোর দাবি ছিল, গুগল সার্চ ইঞ্জিন মারফত বিভিন্ন খবর, ছবি, ভিডিও দেখায় যেগুলো অন্য প্রকাশনা বা প্রযোজনা সংস্থার তৈরি। কিন্তু তার জন্য কোনও অর্থ প্রদান করা হয় না। অনলাইন বাণিজ্যের ক্ষেত্রে এটি ঠিক নয়।

এর জবাবে গুগল বলছে, সার্চ ইঞ্জিনে খবর দেখানোর পর সেগুলোর মাধ্যমে মানুষ ক্লিক করে খবরের ওয়েবসাইটে প্রবেশ করেন। তাতে ওয়েবসাইটের ট্র্যাফিক বৃদ্ধি পায়। এ ছাড়াও বিভিন্ন সংবাদসংস্থাকে করোনা কালে আলাদা করে অর্থ সাহায্য করেছে গুগল। কিন্তু মানতে চায়নি প্রকাশনা সংস্থাগুলো। তারা বলছে, সার্চ ইঞ্জিনে যে বিজ্ঞাপন চলে, তার অংশ চাই, তা ছাড়া স্বত্ব রয়েছে এমন প্রকাশনা যদি সার্চ ইঞ্জিনে দেখা যায়, তার জন্যও আলাদা মুনাফা দিতে হবে। এই মামলার প্রেক্ষিতেই গুগলকে জরিমানা করা হয়।

ভয়েস টিভি/এসএফ