Categories
পশ্চিমবঙ্গ

আসামের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী তরুণ গগৈ আর নেই

আসামের টানা তিনবারের মুখ্যমন্ত্রী, প্রভাবশালী কংগ্রেস নেতা তরুণ গগৈ মারা গেছেন। ২৩ নভেম্বর সোমবার বিকেলে গুয়াহাটি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ৮৬ বছর বয়সী এ রাজনীতিকের মৃত্যু হয় বলে আনন্দবাজারের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

আসামের ইতিহাসে সবচেয়ে বেশিদিন মুখ্যমন্ত্রী থাকা গগৈ অগাস্টে কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত হওয়ার পর হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন। চিকিৎসা শেষে অক্টোবরের শেষ সপ্তাহে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরলেও কয়েকদিন পরই শ্বাসকষ্টের সমস্যা নিয়ে ফের হাসপাতালে ভর্তি হন জোরহাট ও কালিয়াবর থেকে ৬ বার লোকসভায় যাওয়া এ সংসদ সদস্য।

তিন থেকে ৪ বার বিধায়ক নির্বাচিত হওয়া গগৈ ২০০১ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত টানা ৩ দফা আসামের মুখ্যমন্ত্রী ছিলেন।

২০১৬ সালের বিধানসভা নির্বাচনে ওই রাজ্যে কংগ্রেস হেরে গেলেও তাই-অহম জনগোষ্ঠী থেকে উঠে আসা গগৈ নিজের আসনে বিপুল ভোটে জিতেছিলেন।

আগামী বছরের এপ্রিল-মে’তে পশ্চিমবঙ্গের সঙ্গেই আসামে বিধানসভা নির্বাচন হওয়ার কথা রয়েছে। এসময় গগৈর মৃত্যু উত্তর-পূর্ব ভারতের বৃহত্তম রাজ্যে কংগ্রেসকে বিপদে ফেলে দিতে পারে বলে অনুমান অনেকের।

আসামের জোরহাট জেলায় ১৯৩৪ সালে জন্ম নেয়া গগৈর বাবা ছিলেন স্থানীয় চা বাগানের চিকিৎসক। ছাত্র থাকার সময়ই তিনি কংগ্রেসের রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত হয়ে পড়েন। স্নাতক পাস করার পর গগৈ ১৯৬৮ সালে জোরহাট পৌরসভা নির্বাচনে জয়ী হয়েছিলেন।

তিন বছর পর লোকসভা ভোটে জোরহাট কেন্দ্রে তাকেই কংগ্রেসের প্রার্থী হিসেবে বেছে নেন ইন্দিরা গান্ধী।

১৯৯১ সালে কালিয়াবর লোকসভা আসন থেকে জিতে নরসিমা রাও সরকারের মন্ত্রী হওয়া গগৈ আসামের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী হিতেশ্বর শইকিয়ার মৃত্যুর পর কংগ্রেস শীর্ষ নেতৃত্বের নির্দেশে রাজ্যের রাজনীতিতে মনোনিবেশ করেন। সে বছর বিধানসভা ভোটে অসম গণপরিষদের (অগপ) কাছে হারলেও ২০০১ সালে গগৈর হাত ধরে রাজ্যে ফের ক্ষমতায় ফিরেছিল কংগ্রেস।

দেড় দশকের রাজত্বের পর ২০১৬ সালে কংগ্রেস আসামে বিজেপি-অগপ জোটের কাছে ধরাশায়ী হয়।

ভয়েস টিভি/এসএফ

Categories
জাতীয় পশ্চিমবঙ্গ

আবার শুরু হচ্ছে ঢাকা-কলকাতা ফ্লাইট

অনির্দিষ্টকালের জন্য স্থগিত ঘোষণার পর আগামী ১ ডিসেম্বর থেকে আবার শুরু হচ্ছে ঢাকা-কলকাতা ফ্লাইট। এ রুটে ফ্লাইট পরিচালনার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস। এ বিষয়ে বিমান বাংলাদেশ তাদের ওয়েবসাইটে নোটিশ দিয়েছে। তবে সপ্তাহে কয়টি ফ্লাইট পরিচালনা করা হবে এ বিষয়ে কিছু জানায়নি তারা।

এর আগে ৯ নভেম্বর যাত্রী সংকটে  কলকাতা ফ্লাইট অনির্দিষ্টকালের জন্য স্থগিত ঘোষণা করে বিমান।  সেসময় যাত্রীদের উদ্দেশ্যে বিমান জানিয়েছিল, ১২ নভেম্বর বৃহস্পতিবার থেকে বিমানের কলকাতা রুটের ফ্লাইটগুলো স্থগিত করা হয়েছে। এ বিষয়ে পরবর্তীতে বিস্তারিত জানানো হবে।

এর আগে গত ২৮ অক্টোবর থেকে এয়ারবাবল চুক্তির আওতায় বাংলাদেশ বিমান ভারতের তিনটি রুটে ফ্লাইট চালু করে।

তারা ঢাকা থেকে কলকাতা, দিল্লী, চেন্নাই রুটে সপ্তাহে তিনটি করে ফ্লাইট এবং ইউএস-বাংলা ঢাকা থেকে কলকাতা এবং ঢাকা ও চট্টগ্রাম থেকে চেন্নাই রুটে ফ্লাইট পরিচালনা করছে।

তবে অনুমতি পেলেও এখনো ভারত রুটে ফ্লাইট শুরু করেনি নভোএয়ার। এ বিষয়ে নভোএয়ারের মার্কেটিং অ্যান্ড সেলস বিভাগের সিনিয়র ম্যানেজার এ কে এম মাহফুজুল আলম বলেন, ‘নভোএয়ারের ফ্লাইট পরিচালনার জন্য সবধরনের অনুমতি নিয়ে রেখেছি। তবে ট্যুরিস্ট ভিসা চালু না হওয়ায় যাত্রীর সংখ্যা এখন অনেক কম। তাই আমরা ফ্লাইট পরিচালনা করছি না। ভারত ট্যুরিস্ট ভিসা চালু করলে আমরা আবারও এই রুটে ফ্লাইট পরিচালনা করবো।’

এয়ারবাবল চুক্তির অধীনে ভারতের এয়ার ইন্ডিয়া, ইন্ডিগো, স্পাইসজেট, ভিস্তারা এবং গোএয়ার ফ্লাইট পরিচালনার অনুমতি পেয়েছে।

বর্তমানে বাংলাদেশি যাত্রীরা বিজনেস/ব্যবসায়িক ভিসা, মেডিকেল/মেডিকেল অ্যাটেনডেন্ট ভিসা, স্টুডেন্ট/শিক্ষার্থী ভিসা, রিসার্চ/গবেষণা, কনফারেন্স/ সম্মেলন ভিসা, এমপ্লয়মেন্ট/কর্মসংস্থান ভিসা, ট্রেইনিং/প্রশিক্ষণ ভিসায় দেশটিতে যেতে পারলেও কাউকে পর্যটক বা ট্যুরিস্ট ভিসা দিচ্ছে না ভারত।

সব যাত্রীর জন্য যাত্রার ৭২ ঘণ্টার মধ্যে কোভিড-১৯ নেগেটিভ সার্টিফিকেট নেয়া বাধ্যতামূলক করেছে ভারত।

ভয়েস টিভি/ডিএইচ

Categories
পশ্চিমবঙ্গ

আম্ফানের ক্ষতি মোকাবিলায় আরও ২৭০০ কোটি পেলো পশ্চিমবঙ্গ

আম্ফানের পরে পশ্চিমবঙ্গে পরিদর্শনে এসে ১ হাজার কোটি টাকা সাহায্যের ঘোষণা করেছিলেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। কিন্তু এত বড় বিধ্বংসী ঘূর্ণিঝড়ে ত্রাণ ও পুনর্গঠনের জন্য কেন্দ্রের এই অনুদান পর্যাপ্ত নয় বলে বার বার অভিযোগ তুলেছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

এবার ভোটের আগে কিছুটা স্বস্তি দিয়ে রাজ্যকে আম্ফানের জন্য আরও ২ হাজার ৭০০ কোটি টাকা সাহায্যের ঘোষণা করল কেন্দ্র। দেশটির কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের নেতৃত্বে গঠিত একটি উচ্চ পর্যায়ের কমিটি ১৩ নভেম্বর শুক্রবার এ রাজ্যের সঙ্গে আরও পাঁচটি রাজ্যকে ঘূর্ণিঝড়, বন্যা ও ধ্বসের মোকাবিলার জন্য প্রায় ৪ হাজার ৩৮১ কোটি টাকা বরাদ্দের অনুমোদন দিয়েছে।

এ বছরের ২০ মে উপকূলে আছড়ে পড়েছিল অতি প্রবল ঘূর্ণিঝড় আমপান। প্রায় ১৮৫ কিলোমিটার গতিবেগের ওই ঝড়ে কার্যত লন্ডভন্ড হয়ে গিয়েছিল কলকাতা, দুই ২৪ পরগনাসহ রাজ্যের বিস্তীর্ণ এলাকা। তারপর ২৩ মে রাজ্যে ঘূর্ণিঝড় বিধ্বস্ত এলাকা পরিদর্শনে এসে রাজ্যকে ১ হাজার কোটির আর্থিক সাহায্যের ঘোষণা করেছিলেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী। সেই টাকা সঙ্গে সঙ্গেই রাজ্যকে দিয়ে দিয়েছিল কেন্দ্রীয় সরকার। তার সঙ্গে শুক্রবার জাতীয় বিপর্যয় মোকাবিলা তহবিল থেকে বরাদ্দ হলো আরও ২ হাজার ৭০৭.৭৭ কোটি টাকার অনুদান।

ভয়েস টিভি/এসএফ

Categories
পশ্চিমবঙ্গ

করোনা: সুস্থতায় নয়া রেকর্ড পশ্চিমবঙ্গে

দৈনিক সুস্থতায় ফের নয়া রেকর্ড পশ্চিমবঙ্গে। আগের দিনের তুলনায় কমল দৈনিক করোনা সংক্রমিতের সংখ্যাও। একই সঙ্গে দৈনিক মৃত্যুর সংখ্যাও কমল কিছুটা। তবে সামনে কালীপূজা, বড়দিনের মতো উৎসব রয়েছে। তাই বিশেষজ্ঞদের মতে, সামাজিক দূরত্ব বিধি মেনে চলা, নিয়মিত হাত পরিষ্কার করা এবং মাস্ক পরা নিয়ে আরও সতর্ক হতে হবে সবাইকে। তবেই পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব।

১১ নভেম্বর বুধবার রাতে পশ্চিমবঙ্গ স্বাস্থ্য দফতর থেকে পাঠানো বুলেটিনে দেখা যায়, গত ২৪ ঘণ্টায় রাজ্যে নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৩ হাজার ৮৭২ জন। মঙ্গলবার এই সংখ্যাটা ছিল ৩ হাজার ৮৯১। সব মিলিয়ে এ রাজ্যে এখনও পর্যন্ত ৪ লাখ ১৬ হাজার ৯৮৪ জন করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হয়েছেন।

এদিকে বাড়ছে রাজ্যে দৈনিক সুস্থতার সংখ্যা। গত ২৪ ঘণ্টায় ৪ হাজার ৪৩১ জন করোনা রোগী সুস্থ হয়ে উঠেছেন। গত ৩০ অক্টোবর থেকেই রাজ্যে দৈনিক সুস্থতা ৪ হাজারের ঘরে ঘোরাফেরা করছে। মোট আক্রান্তের মধ্যে এখনও পর্যন্ত ৩ লাখ ৭৬ হাজার ৬৯৬ জন রোগীই সুস্থ হয়ে উঠেছেন। এতে সুস্থতার হার বেড়ে ৯০.৩৪ শতাংশ হয়েছে।

করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হয়ে এখন পর্যন্ত রাজ্যে ৭ হাজার ৪৫২ জন প্রাণ হারিয়েছেন। আর গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু হয়েছে ৪৯ জনের।।

ভয়েস টিভি/এসএফ

Categories
পশ্চিমবঙ্গ

টয়লেটের পানি দিয়ে ফুচকার টক!

কোলাপুরের রণকলা ঝিলের সামনে বসতেন এক ফুচকা বিক্রেতা। স্বাদে-গন্ধে তার ফুচকা ছিল অতুলনীয়। তাই বিকেল বা সন্ধ্যের দিকে তার ফুচকার স্টলের সামনে মানুষের ঢল নামত। দূরদূরান্ত থেকেও সেই বিক্রেতার কাছে ফুচকা খেতে আসতেন অনেকে।

তিনি যেখানে বসতেন তার আশপাশের এলাকা ছিল সিসিটিভির আওতায়। একদিন কর্তৃপক্ষ সেই সিসিটিভির ফুটেজ খতিয়ে দেখতে গিয়ে চমকে ওঠে। দেখা যায় সেই ফুচকা বিক্রেতা টক বানাচ্ছেন টয়লেটের পানি দিয়ে। এরপর গোপনে কয়েক দিন ধরে সেই বিক্রেতার ওপর নজর রাখা হয়। দেখা যায়, প্রায় প্রতিদিনই তিনি এই কাজে টয়লেটের পানি ব্যবহার করছে।

পরে এই খবর ছড়িয়ে পড়তেই উন্মত্ত জনতা সেই ফুচকা বিক্রেতার স্টলে ভাঙচুর চালিয়েছে। ফুচকাসহ স্টলের সব মালামাল ছুড়ে ফেলে দিয়েছে তারা। একই সঙ্গে ফুচকা বিক্রেতাকে পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে।

পুলিশ জানিয়েছে, সেই ফুচকা বিক্রেতা নিজের কৃতকর্মের কথা স্বীকার করেছেন। তবে টয়লেটের পানি ব্যবহারের সেই সিসিটিভি ফুটেজ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়ে গেছে। খাবারে টয়লেটের পানি ব্যবহারের কারণে মারাত্মক রোগে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। অথচ দিনের পর দিন এমন কাজ অবলীলায় করেছেন সেই ফুচকা বিক্রেতা। এ ঘটনায় তাকে আইনের আওয়ায় আনা হবে।

ভয়েস টিভি/ডিএইচ

Categories
পশ্চিমবঙ্গ

এবার হচ্ছে না কাটোয়ার ঐতিহ্যবাহী কার্তিক লড়াই

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ থেকে বাঁচতে ভারতের কাটোয়ার ঐতিহ্যবাহী কার্তিক লড়াইয়ের শোভাযাত্রা এবার হচ্ছে না। ২ নভেম্বর সোমবার রাতে সন্ধ্যায় পূজা কমিটির সঙ্গে বৈঠকের পর এ সিদ্ধান্তের কথা জানান মহকুমা প্রশাসন। প্রশাসনের দাবি, দুর্গাপূজার মতোই মণ্ডপ থেকে দর্শকদের নির্দিষ্ট দূরত্বে দাঁড়াতে হবে। রাস্তাঘাটে ভিড় এড়াতেও যথা সম্ভব ব্যবস্থা নেয়া হবে।

মহকুমাশাসক (কাটোয়া) প্রশান্তরাজ শুক্ল বলেন, ‘করোনা- অতিমারি রুখতে এ বার কার্তিক লড়াইয়ের শোভাযাত্রা বন্ধ রাখার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। কোনো রকম আড়ম্বর করা যাবে না। নির্দেশ না মানলে, ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, করোনার জন্য এ বছর শুধু নিয়ম রক্ষার পূজা করতে বলা হয়েছে। ছোট মণ্ডপ করার অনুমতি দেয়া হবে। দুর্গাপূজার মতোই যাবতীয় স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। নির্দিষ্ট দূরত্বে মণ্ডপের সামনে ১৫ থেকে ২০ জনের বেশি দর্শনার্থী দাঁড়াতে পারবেন না। মাস্ক ছাড়া, রাস্তায় বেরোলেই ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানানো হয়েছে। এছাড়া বারবার স্যানিটাইজার ব্যবহার করা বাধ্যতামূলক। মণ্ডপ থেকে শুরু করে রাস্তায় কোনো রকম ভিড় করা যাবে না।

কাটোয়ার অক্সিজেন ক্লাবের সম্পাদক বাবুলাল শেখ বলেন, ‘স্বাস্থ্যবিধি মেনে কোনো রকমে পূজাটুকু করে শোভাযাত্রায় যোগ না দেয়ার সিদ্ধান্ত আমরা আগেই নিয়েছিলাম। লড়াইয়ের শোভাযাত্রা বন্ধ করার যে সিদ্ধান্ত প্রশাসন নিয়েছে, তাতে আমরা খুশি। আমরা আগামী বছর দেবসেনাপতির আরাধনা আরও জাঁকজমক করে করতে পারব আশা করছি।’

কাটোয়ার বিধায়ক রবীন্দ্রনাথ চট্টোপাধ্যায় বলেন, ‘পূজা হবে, তবে এ বার লড়াইয়ের শোভাযাত্রা হবে না। সকলকেই পূজার সময় আরও সচেতন হয়ে চলতে হবে।’

ভয়েস টিভি/এসএফ

Categories
পশ্চিমবঙ্গ

পশ্চিমবঙ্গে করোনাজয়ী ৩ লাখ ছাড়াল

ভারতের পশ্চিমবঙ্গে মহামারি করোনাভাইরাস থেকে সুস্থতার সংখ্যা ৩ লাখ ছাড়িয়েছে। ২৪ অক্টোবর শনিবার রাজ্যের স্বাস্থ্য দফতর থেকে প্রকাশিত নিয়মিত বুলেটিন থেকে এ তথ্য জানা যায়।

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাকে হারিয়ে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৩ হাজার ৭৫৩ জন। আর এখন পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ৩ লাখ ২ হাজার ৩৪০ জন। পশ্চিমবঙ্গে সক্রিয় করোনা রোগী রয়েছেন ৩৬ হাজার ৮০৭ জন।

এ দিন স্বাস্থ্য দফতর প্রকাশিত বুলেটিন অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় ৪ হাজার ১৪৮ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। এনিয়ে রাজ্যে মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা হলো ৩ লাখ ৪৫ হাজার ৫৭৪ জন।

এ দিনের বুলেটিন অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় রাজ্যের মধ্যে সবচেয়ে বেশি মানুষ নতুন করে কোভিড সংক্রমিত হয়েছেন উত্তর ২৪ পরগনায় ৮৯৬ জন। কলকাতায় এদিন আক্রান্তের সংখ্যা ৮৯৫। হাওড়া, দক্ষিণ ২৪ পরগনা এবং নদিয়াতে সংক্রমণের সংখ্যা দুশোর গণ্ডি ছাড়িয়ে গিয়েছে।

গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু হয়েছে ৫৯ জনের। এনিয়ে রাজ্যে মোট মৃতের সংখ্যা হল ৬ হাজার ৪২৭ জন। এ দিন কলকাতায় ১৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। উত্তর ২৪ পরগনায় মারা গিয়েছেন ১৪ জন। এ ছাড়াও হুগলিতে ৫ জন, নদিয়ায় ৪ জন, পূর্ব মেদিনীপুর এবং দক্ষিণ ২৪ পরগনায় ৩ জন করে করোনা রোগীর মৃত্যু হয়েছে।

ভয়েস টিভি/এসএফ

Categories
পশ্চিমবঙ্গ

‘রবীন্দ্রনাথের নাম নিলেই অন্তরে বিশেষ অনুভূতি সৃষ্টি হয়’

শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর ও রাজা রামমোহন রায়ের নাম নিলেই অন্তরে বিশেষ অনুভূতির সৃষ্টি হয় বলে জানিয়েছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

২২ অক্টোবর বৃহস্পতিবার দিল্লি থেকে ভিডিও কনফারেন্সে কলকাতার দুর্গাপূজা উদ্বোধনকালে তিনি এ কথা বলেন।

উদ্বোধনের শুরুতেই সবাইকে চমকে দিয়ে মোদী বাংলায় শুরু করেন অভিনন্দন জানানো। কখনও রবীন্দ্রনাথের ভাষায় বাংলার বন্দনা। তো কখনও দুর্গাস্তব পাঠ করে তার অর্থ বিশ্লেষণ। মোদীর ভাষণে শুরু থেকে শেষ অবধি ছিল বাঙালিকে কাছে টানার আপ্রাণ চেষ্টা।

নরেন্দ্র মোদি এসময় বাঙালি সংস্কৃতির নানা দিক তুলে ধরে প্রশংসা করেন। তিনি বলেন,‘দিল্লি থাকলেও মনে হচ্ছে কলকাতায়ই আছি।’

বাংলার দুর্গাপূজা দেশের পরিচিতিকে অনন্য উচ্চতায় নিয়ে গেছে বলে জানান দেশটির প্রধানমন্ত্রী।

নরেন্দ্র মোদী বলেন, ‘আত্মনির্ভর ভারতের সংকল্প পূরণ করতে হলে, সোনার বাংলার স্বপ্নপূরণ করতে হবে। এই বাংলা থেকেই আত্মনির্ভর কৃষক, আর আত্মনির্ভর ভূমির আওয়াজ উঠেছে। আত্মনির্ভর ভারতের সোপান বাংলা থেকেই হবে। এখানকার সমৃদ্ধি, সম্পূর্ণতকে আবার শীর্ষে পৌঁছাতে হবে। পূর্ব ভারতের উন্নয়নের জন্য পূর্বোদয় পরিকল্পনা নিয়েছে কেন্দ্র। আর এই পূর্বোদয়ের জন্য বাংলাকে সবার চেয়ে বেশি উন্নত হতে হবে। পূর্বোদয়ের কেন্দ্র হতে হবে এই বাংলাকে।’

ভয়েস টিভি/এসএফ

Categories
পশ্চিমবঙ্গ

পশ্চিমবঙ্গে সর্বোচ্চ শনাক্তের রেকর্ড

ভারতের পশ্চিমবঙ্গে এই প্রথম এক দিনে নতুন করে করোনা সংক্রমিত হলেন ৪ হাজারের বেশি মানুষ। ২০ অক্টোবর মঙ্গলবার রাজ্যের স্বাস্থ্য দফতরের দেয়া রিপোর্ট অনুযায়ী নতুন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ৪ হাজার ২৯ জন। এনিয়ে রাজ্যে করোনা শনাক্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ৩ লাখ ২৯ হাজার ৫৭ জনে।

রাজ্যে এ দিন মৃত্যু হয়েছে ৬১ জনের। এই নিয়ে করোনায় ৬ হাজার ১৮০ জনের মৃত্যু হলো। এর মধ্যে কলকাতায় ১৭ জন এবং উত্তর ২৪ পরগনায় ১৩ জনের মৃত্যু হয়েছে।

সংক্রমণের নিরিখে সবচেয়ে এগিয়ে উত্তর ২৪ পরগনা। সেখানে এ দিন ৮৭১ জন নতুন করে সংক্রমিত হয়েছেন। এর পরেই রয়েছে কলকাতা। সেখানেও ৮০৯ জন নতুন করে করোনা আক্রান্ত।

ভয়েস টিভি/এসএফ

Categories
পশ্চিমবঙ্গ

চালের দানায় লেখা সম্পূর্ণ গীতা!

নিপুন হাতের কারুকাজে চালের ছোট ছোট দানায় লেখা হলো ভগবত গীতার সমস্ত শ্লোক। শুনতে অবাক লাগলেও এটাই সত্যি। আর প্রায় দুঃসাধ্য কাজটি করেছেন তেলেঙ্গানার এক আইনের ছাত্রী। সোশ্যাল মিডিয়ায় তার এই কীর্তির কথা প্রকাশ্যে আসতেই প্রশংসায় পঞ্চমুখ নেটিজেনরা।

জানা গেছে, পুরো ভগবত গীতা লিখতে ৪ হাজার ৪২টি চালের দানা ব্যবহার করেছেন রামাগিরি স্বারিকা নামে ওই ছাত্রী। সবমিলিয়ে সময় লেগেছে ১৫০ ঘণ্টা। এমনকি ব্যবহার করেননি আতস কাঁচও।

স্বারিকা বলেন, ‘‌‌আমি চার হাজার ৪২টি চালের দানায় ভগবত গীতার সমস্ত শ্লোক লিখেছি। গোটা কাজটি করতে ১৫০ ঘণ্টা সময় লেগেছে।’‌

তিনি আরও বলেন, ‌‘‌ছোট থেকেই শিল্প এবং সংগীতের প্রতি বিশেষ আকর্ষণ ছিল। এজন্য বহু পুরস্কারও পেয়েছি। চার বছর আগে থেকে আমি মাইক্রো আর্ট তৈরি করছি। এর আগে একটি চালের দানায় গনেশের ছবি কিংবা একটি দানাতেই ২৬টি ইংরেজি অক্ষর লিখেছি।‌’

তিনি জানান, তাকেই ভারতের প্রথম মাইক্রো আর্টিস্ট বলা হয়। ২০১৭ সালে ইন্টারন্যাশনাল অর্ডার অব বুকস এবং ২০১৯ সালে নর্থ দিল্লি কালচারাল অ্যাকাডেমি থেকে পুরস্কারও জিতেছিলেন তিনি। এখনও পর্যন্ত তৈরি করেছেন দু’‌হাজারেরও বেশি মাইক্রো আর্টওয়ার্ক।

সম্প্রতি চুলের‌ মধ্যে ভারতীয় সংবিধানের গোটা প্রস্তাবনা লিখে নজিরও গড়েছিলেন তিনি। এজন্য তেলেঙ্গানার রাজ্যপাল তাকে তামিলসাই সৌন্দরাজন পুরস্কারও দিয়েছিলেন।

ভয়েস টিভি/এসএফ