Categories
জাতীয় পশ্চিমবঙ্গ

ভারতের দেয়া উপহারের ১০ রেল ইঞ্জিন হস্তান্তর

ভারত সরকারের উপহার দেওয়া ১০টি রেল ইঞ্জিন বাংলাদেশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। ২৭ জুলাই সোমবার দুপুরে রেল ভবনের সম্মেলন কক্ষে এক ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এগুলো হস্তান্তর করা হয়।

রেলপথ মন্ত্রী মো. নূরুল ইসলাম সুজন এমপি এবং পররাষ্ট্র মন্ত্রী ড. এ. কে আব্দুল মোমেন এতে অংশ নেন। ভারতের পক্ষে অংশ নেন পররাষ্ট্র মন্ত্রী এস জয়শংকর, ভারতীয় রেল, বাণিজ্য ও শিল্প মন্ত্রণালয়রে মন্ত্রী পীযুষ গায়েল।

রেলপথ মন্ত্রী বলেন, ‘যাত্রীবাহী ট্রেনের চাহিদা বৃদ্ধির কারণে নতুন কিছু কোচ আমদানি করা হয়েছে। পাশাপাশি ভারতীয় পণ্য পরিবহনের জন্য ভারত থেকে লোকোমোটিভ আনার বিষয়ে চিন্তা-ভাবনা করা হয়। ২০১৯ সালের আগস্টে সরকারিভাবে ভারত সফরের সময় উভয় দেশের মধ্যে ব্যবসা-বাণিজ্য বৃদ্ধিতে লোকোমোটিভ সরবরাহের বিষয়ে আলোচনা হয়।

ভয়েস টিভি/নিজস্ব প্রতিবেদক/ডিএইচ

Categories
পশ্চিমবঙ্গ

দেশে ভারতীয় মালবাহী প্রথম ট্রেন পৌঁছেছে

ঢাকা : এফএমসিজি পণ্য ও কাপড় বোঝাই ৫০টি কনটেইনারযুক্ত ভারতীয় মালবাহী প্রথম ট্রেন বাংলাদেশে হস্তান্তর করা হয়েছে। ট্রেনটি কলকাতার মাঝেরহাটের কনটেইনার করপোরেশন অব ইন্ডিয়া লিমিটেডের (কনকোর) টার্মিনাল থেকে ২৬ জুলাই রবিবার বেনাপোল স্টেশনে পৌঁছে। ঢাকার ভারতীয় হাইকমিশন থেকে এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, কনটেইনার ট্রেন সার্ভিস হলো একটি অতিরিক্ত পরিষেবা যা সনাতন ফ্রেইট ট্রেন সার্ভিস এবং সম্প্রতি চালু হওয়া পার্সেল ট্রেন পরিষেবা ব্যতীত রেলপথে কার্গো পরিবহন করতে চলেছে।

এর আগে ২০১৭ সালের এপ্রিলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভারত সফরের সময় কনটেইনার কর্পোরেশন অব ইন্ডিয়া এবং বাংলাদেশ কনটেইনার কোম্পানি লিমিটেড একটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর করে। প্রথম পরীক্ষামূলক ট্রেনটি কলকাতা থেকে বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম স্টেশন (বিবিডব্লিউ) পর্যন্ত ২০১৮ সালের ৩ এপ্রিল সফলভাবে পরিচালিত হয়েছিল।

এ নতুন চালু হওয়া কনটেইনার ট্রেন সার্ভিসের মাধ্যমে রেলপথে দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্যের এক বিশাল সুযোগ উন্মুক্ত হয়েছে এবং আশা করা যায় এ উদ্যোগ দু’টি দেশের মধ্যে ব্যবসা-বাণিজ্য যথেষ্ট পরিমাণে বাড়িয়ে তুলবে।

ভয়েস টিভি/নিজস্ব প্রতিবেদক/ডিএইচ

Categories
পশ্চিমবঙ্গ

ঢাকায় ভারতের নতুন হাইকমিশনার বিক্রম দোরাইস্বামী

ঢাকা: বাংলাদেশে ভারতের হাই কমিশনার পদে পরিবর্তন হচ্ছে। দেশটির ফরেন সার্ভিস অফিসার ও অভিজ্ঞ কূটনীতিবিদ বিক্রম দোরাইস্বামী বাংলাদেশে ভারতের নতুন হাই কমিশনার হিসেবে দায়িত্ব নিতে যাচ্ছে। ১২ জুলাই
শনিবার সন্ধ্যায় দিল্লিতে অনুষ্ঠিত হওয়া এক রাষ্ট্রীয় পর্যায়ের বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত গৃহীত হয় বলে জানা গেছে।

বর্তমান হাইকমিশনার রিভা গাঙ্গুলী দাশ ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব (পূর্ব) পদে পদোন্নতি পেয়ে দিল্লি ফিরে যাচ্ছেন। বিক্রম দোরাইস্বামী ঢাকায় হাই কমিশনার রিভা গাঙ্গুলি দাসের স্থলাভিষিক্ত হবেন। রিভা গাঙ্গুলি দাস প্রায় দেড় বছর যাবত বাংলাদেশে ভারতে রাষ্ট্রদূত হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন।

বিক্রম দোরাইস্বামী এই মুহুর্তে দিল্লিতে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে অতিরিক্ত সচিব পদে আছেন। এর আগে তিনি বহুদিন যুগ্ম সচিব হিসেবে সাউথ ব্লকে বাংলাদেশ সম্পর্কিত বিষয়গুলো দেখাশুনা করেছেন।

সে কারণেই বিক্রম দোরাইস্বামী দিল্লির বাংলাদেশ দূতাবাসেও অত্যন্ত পরিচিত নাম। গত কয়েক বছর ধরেই বাংলাদেশ দূতাবাসের বিভিন্ন অনুষ্ঠানেও তিনি ছিলেন নিয়মিত অতিথি। এর আগে তিনি দক্ষিণ কোরিয়াতে রাষ্ট্রদূত হিসেবে কর্মরত ছিলেন।
ভয়েসটিভি/ডিএইচ

Categories
পশ্চিমবঙ্গ

করোনা নিয়ে নরেন্দ্র মোদির নতুন আশার বাণী

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এবার করোনার প্রতিষেধক নিয়ে নতুন একটি আশার বাণী প্রকাশ করেছেন।  তিনি জানান,  ভারতের ওষুধ শিল্প যে বিশ্বের সম্পদ তা মহামারীর সময় আবারো প্রমাণিত হতে যাচ্ছে। কোভিড-১৯ এর প্রতিষেধক উৎপাদনের জন্যে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে হাত মিলিয়ে কাজ করছে ভারতের বেশ কয়েকটি সংস্থা।

মোদি বলেন আমি নিশ্চিত, করোনার প্রতিষেধক আবিষ্কার হওয়ার পরে তা তৈরি এবং বিপুল সংখ্যায় পৌঁছে দেওয়ার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে ভারত।

করোনার ওষুধের মূল্য নিয়ে ভারতের প্রধানমন্ত্রী বলেন, ওষুধের দামে নাগালের মধ্যে রাখার ক্ষেত্রে উন্নয়নশীল দেশের জন্যে ভারতের ভূমিকা উল্লেখযোগ্য।  বিশ্বে শিশুদের জন্যে যতো প্রতিষেধক প্রয়োজন হয়, তার দুই-তৃতীয়াংশই তৈরি হয় ভারতে।

গত ২ জুলাই আইসিএমআরের ডিজি বলরাম ভার্গব একটি চিঠিতে দেশটির ১২টি গবেষণা প্রতিষ্ঠানকে জানিয়ে দেয়, ‘চলতি বছরের ১৫ আগস্টের মধ্যে বাজারে আনতে হবে করোনার প্রতিষেধক। গবেষণার কাজে এ ভাবে  পরীক্ষার পর্যাপ্ত সময় হাতে না রেখে তড়িঘড়ি প্রতিষেধক বাজারে ছাড়ার দিনক্ষণ বেঁধে দেওয়ায় তীব্র সমালোচনার মুখে পড়ে আইসিএমআর। ভারতের  চিকিৎসকদের একটি বড় অংশ এ ধরনের চিঠির তীব্র সমালোচনা শুরু করে।

এর জবাবে আইসিএমআরের গবেষক নিবেদিতা গুপ্ত বলেন, আমরা দ্রুত টিকা আবিষ্কারের পক্ষে। দু’বছর পরে টিকা আবিষ্কার করে কোনো লাভ নেই। আমরা দৌড়ে যাতে পিছিয়ে না-পড়ি, তাই ওই চিঠিটি লেখা হয়েছে।

প্রতিষেধক আবিষ্কারের ক্ষেত্রে প্রথম দিকের পরীক্ষায় এরই মধ্যে সাফল্যের দাবি করেছে বিশ্বের বেশ কিছু সংস্থা। শেষমেশ সফল আবিষ্কার কতদিনের মধ্যে হবে তা নিয়েই সন্দিহান সবাই।

ভয়েস টিভি ডেস্ক/দেলোয়ার

 

Categories
পশ্চিমবঙ্গ

করোনা হাসপাতালেই আয়োজন করে বিয়ে

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : করোনাভাইরাসের কারণে দম ফেলার সুযোগ‌ ছিল না মুম্বাইয়ের সিওন হাসপাতালের দুই চিকিৎসকের। প্রেমের বন্ধনকে বিবাহে পরিবর্তন করার পরিকল্পনাকে তাই দূরেই সরিয়ে রাখতে হয়েছিলো তাদের। অবশেষে তারা বিয়ে করবেন এমন সিদ্ধান্তের পাশাপাশি চিন্তা করলেন বিবাহবাসর হবে তাদেরই কর্মস্থলে। যেটি কোভিড-১৯ চিকিৎসার জন্যে বিশেষায়িত হাসপতাল । তাঁদের বিয়ের মেহেদি ও গায়ে হলুদ উপলক্ষে ফুলের সাজে সেজে উঠল হাসপাতালের হোস্টেলের অষ্টম তলা। করোনার আবহে যখন হাসপাতালে শুধুই কান্নার সুর, তখন আনন্দের এক টুকরো বাতাস বয়ে আনল এই বিয়ের অনুষ্ঠান।

ডা. রিম্পি নাহারিয়া (২৯) ও ডা. সারজেরাও সোনুনে (৩০)। দুজনেই অ্যানাসথেসিওলজিস্ট। তাঁদের বিয়ের অনুষ্ঠান উপলক্ষে ৩০ জুন তাঁদের সহপাঠী বন্ধু ডাক্তাররা ফুল-আলোয় সাজিয়ে তুলল হাসপাতাল। অর্ডার দেওয়া বিশেষ ভুড়িভোজের।

হরিয়ানার কনে এই বিশেষ বিয়ে নিয়ে বললেন, ‘আমরা কখনও বিরাট ধূমধাম করে বিয়ে করতে চাইনি। কিন্তু বিয়েতে বিশেষ একটা কিছু করতে চেয়েছিলাম। এই ভাবেই আমাদের বন্ধুরা আমাদের বিয়েটাকে স্পেশ্য়াল করে তুলল।’

দুজনেই তিন বছরের কোর্স শেষ করে এমডি পড়ছেন। রিম্পি ও সারজেরাও ভেবেছিলেন, মে মাসে ফাইনাল পরীক্ষার পরই বিয়েটা সেরে ফেলবেন। তবে ঠিক সেই সময়েই দেশজুড়ে থাবা বসায় করোনাভাইরাস। বিয়েটা বাতিল করে দিতে হয় তাঁদের। ডাক্তার বরের কথায়, ‘যে মহামারীতে সারা পৃথিবী আক্রান্ত, তা যে কবে শেষ হবে, কবে এর থেকে নিস্তার পাওয়া যাবে, তার কিছুই এখনও বুঝে ওঠা যাচ্ছে না।’

সেই কারণেই তাঁরা বিয়েটা সেরে ফেলার সিদ্ধান্ত নেন। হোস্টেলে মেহেন্দি অনুষ্ঠানের পর ১ জুলাই ভিরারে রিম্পির বাড়ির অ্যাপার্টমেন্টেই খুব ছোট করে শুভ বিবাহ সম্পন্ন হয়। ঔরঙ্গাবাদ থেকে এসেছিলেন সারজেরাওয়ের বাবা ও বউদি। তবে অ্যাস্থমার রোগী হওয়ায় কোভিড পরিস্থিতিতে আর আসার ঝুঁকি নেননি বরের মা। বিয়ের সময় ভিডিয়ো কলেই গোটা অনুষ্ঠান উপভোগ করেন তিনি। দু দিনের বিয়ের পর্ব মিটিয়ে ফের কর্তব্যে অবিচল দুই ডাক্তার। কাজে যোগ দেন সিওন হাসপাতালে।
সম্পাদনা : দেলোয়ার

Categories
পশ্চিমবঙ্গ সারাদেশ

দেবের উদ্যোগে নেপাল থেকে ফিরলেন আটকে পড়া ৬৭ শ্রমিক

কলকাতা প্রতিনিধি: দেবের উদ্যোগে নেপাল থেকে ফিরেছেন আটকে পড়া ৬৭ শ্রমিক। এবার আরও ১০০০ শ্রমিককে বাড়ি ফেরানোর উদ্যোগ নিয়েছেন সাংসদ, অভিনেতা দেব।

শনিবার রাত ৩টার পর নেপালে আটকে পড়া ৬৭ জন পরিযায়ী শ্রমিককে নিয়ে পশ্চিম মেদিনীপুরের ঘাটালে পৌঁছায় দুটি বাস। স্থানীয় হাসপাতালে প্রত্যেকের স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হয়। এরপর প্রশাসনের উদ্যোগে হোম কোয়ারেন্টিনে পাঠানো হয় প্রত্যেককে।

এ নিয়ে ঘাটালের সাংসদের উদ্যোগে ২৫০ জন পরিযায়ী শ্রমিক বাড়ি ফিরতে পেরেছেন। পরিযায়ী শ্রমিকদের ঘরে ফেরানোর উদ্যোগ নিয়ে মুখ্যমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানিয়ে টুইট করেছেন দেব।

ভারত-নেপাল সীমান্তে আটকে পড়া মানুষগুলোর জন্য কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের থেকে বিশেষ অনুমতি নিয়ে ফিরিয়ে এনেছেন দেব। এঁদের বেশিরভাগই দেবের সংসদীয় এলাকা ঘাটালের বাসিন্দা। বাড়ি ফেরা পরিযায়ীদের তালিকায় বাঁকুড়া, আরামবাগের লোকেরাও রয়েছেন। এরপর থেকেই সাংসদের কাছে একের পর এক পরিযায়ীদের পরিবার থেকে অনুরোধ আসা শুরু করে। যারা পেটের দায়ে বাংলা থেকে নেপালে কাজ করতে গিয়েছিলেন, এমন মোট ১০০০ জন পরিযায়ী শ্রমিকদের নাম তালিকাভুক্ত হয়েছে। এরা প্রত্যেকেই ঘাটালের বাসিন্দা।

ইতিমধ্যেই সাতটি বাসের বন্দোবস্ত করে ফেলেছেন অভিনেতা দেব। সবাইকে একেবারে নিয়ে আসা সম্ভব নয়, তাই বাসগুলো নিজেরাই দফায় দফায় পরিযায়ীদের নিয়ে নেপাল থেকে তাঁদের নিয়ে আসবে। শুক্রবার বিকেল ৫টা নাগাদ স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের দপ্তর থেকে অনুমতি পেয়েছেন দেব। এদের মধ্যে অনেকেই আবার ভারত-নেপাল সীমান্তে আটকে রয়েছেন।

শুধু নেপালে আটকে থাকা বাঙালিরাই নয়, জম্মু-কাশ্মীর থেকেও শ্রমিকদের ফেরানোর বন্দোবস্ত করেছেন তিনি। অনুরোধ এসেছে দেশের সীমানা ছাড়িয়েও। এই মুহূর্তে দুবাইয়ে আটকে থাকা বাংলার পরিযায়ীরাও তাদের পাশে দাঁড়ানোর জন্য আরজি জানিয়েছেন সাংসদকে।

আবার দুবাইয়ে আটকে থাকা ১৮০ জনের সন্ধান পেয়েছেন দেব। সেখানকার একজন সাংসদকে ফোন করে আরজি জানিয়েছেন তাঁদের বাড়ি ফিরতে সাহায্য করার জন্য। এপ্রসঙ্গে তৃণমূল সাংসদ দীপক অধিকারী ওরফে দেব বলেছেন, এটা নিজের ঢাক নিজে পেটানোর সময় নয়; বরং দুস্থ মানুষগুলো যাঁরা বাড়ি ফিরতে পারছেন না, তাদের পাশে দাঁড়ানোর সময়।

Categories
পশ্চিমবঙ্গ ভিডিও সংবাদ

কুড়িগ্রামে সীমান্ত দিয়ে পাগল আসছে ভারত থেকে !

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি: গোটা বিশ্ব যখন করোনা ভাইরাসে বিপর্যস্ত ঠিক তখন ভারতীয় সীমান্ত রক্ষী বাহিনী-বিএসএফের বিরুদ্ধে অভিযোগ ঊঠেছে সীমান্ত দিয়ে পাগল পার করে দেবার। কুড়িগ্রামের ভূরুঙ্গামারীর বিভিন্ন সীমান্ত দিয়ে এসব পাগল পিটিয়ে পার করে দেয়া হচ্ছে বলে জানান সীমান্তবাসীরা।

এ জেলার তিন দিকে ভারতের পশ্চিমবঙ্গ, আসাম ও মেঘালায় রাজ্যের কাঁটাতার রয়েছে প্রায় ৩শ কিলোমিটার। তাই ৯টি উপজেলার মধ্যে ৭টি উপজেলাতেই রয়েছে ভারতের সীমান্ত। কাঁটাতার দিয়ে মাদকসহ চোরাচালানের অভিযোগ অনেক দিনের পুরানো হলেও এবার নতুন অভিযোগ, সীমান্ত দিয়ে পাগলদের এপারে পাঠিয়ে দিচ্ছে।

ভূরুঙ্গামারী উপজেলার বিভিন্ন সীমান্ত দিয়ে বিজিবির চোখ ফাঁকি দিয়ে বিএসএফ দু-একজন করে পাগলকে কাঁটাতারের গেট বা কালভার্টের নিচ দিয়ে লাঠিপেটা করে বাংলাদেশে ঢুকিয়ে দিচ্ছে।

ভারতীয় পাগলদের বেশির ভাগের জট বাঁধা চুল ও আচরণে ভিন্নতা রয়েছে। প্রায়ই তারা অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এবং জনপ্রতিনিধিদের মাধ্যমে তদন্ত করে সত্যতা পেলেও সরকারের নজরে আনার আশ্বাস দেন জেলা প্রশাসক। এসব পাগলের কারণে করোনাসহ বিভিন্ন নতুন রোগের আক্রান্ত হবার আশংকা করছে স্থানীয়রা।

Categories
পশ্চিমবঙ্গ

আম্পানের ক্ষতির খবর নিতে মমতাকে ফোন দিলেন শেখ হাসিনা

ভয়েস রিপোর্ট: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শুক্রবার সকালে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়কে ফোন করে ঘূর্ণিঝড় আম্পানের ক্ষয়ক্ষতির ব্যাপারে খোঁজ-খবর নিয়েছেন। এসময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রীর প্রতি সহমর্মিতা জানান।
প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম বিষয়টি নিশ্চিত করেন। বুধবার ভারতের পশ্চিমবঙ্গে উপকূলবর্তী অঞ্চলে ব্যাপক তাণ্ডব চালিয়েছে ঘূর্ণিঝড় আম্পান। লণ্ডভণ্ড করে দিয়েছে কলকাতা, উত্তর ও দক্ষিণ ২৪ পরগনা, পূর্ব মেদিনীপুরে, হাওড়া, হুগলী এবং পশ্চিম মেদিনীপুরের অনেক এলাকায়। হাজার হাজার কাঁচা বাড়ি ও গাছপালা ভেঙে গেছে আম্পানের ভয়াল থাবায়। পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন জেলায় অন্তত ১২ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে ৩ জন মারা গেছে কলকাতায়। এদিকে, বাংলাদেশের উপকূলীয় জেলা সাতক্ষীরা ও সুন্দরবন অংশের ওপর আঘাত করে আম্পান। উপকূলীয় জেলাগুলোতে ঝড়ের তীব্রতায় ১৬ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে।

Categories
পশ্চিমবঙ্গ ভিডিও সংবাদ

পশ্চিমবঙ্গে আম্ফানে ৭২ জনের মৃত্যু

ভয়েজ ডেস্ক : ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যে সুপার সাইক্লোন আম্ফানে ৭২ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ সংখ্যা আরো বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে । বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে ১৯৯৯ সালের পর বঙ্গোপসাগরের তৈরি হওয়া প্রথম ‘সুপার সাইক্লোন’ এই আম্ফান। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভির প্রতিবেদনে বলা হয়, ঘূর্ণিঝড় আম্ফান পশ্চিমবঙ্গের হাজার হাজার ঘর-বাড়ি ধ্বংস করে দিয়েছে। বঙ্গোপসাগরে উৎপন্ন ঘূর্ণিঝড় আম্ফানের দাপটে ঘণ্টায় ১৮৫ কিমি বেগে ঝড়ো হাওয়া প্রবেশ করে পশ্চিমবঙ্গের উপকূলীয় অঞ্চলে।

বৃহস্পতিবার সাংবাদিক বৈঠকে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এ তথ্য জানিয়েছেন, এখন পর্যন্ত ৭২ জন মরা গেছে ।

কলকাতায় ১৫ জন, সুন্দরবনে ৪ জন, হুগলিতে ৩ জন, উত্তর ২৪ পরগনায় ১৭ জনের মৃত্যুর খবর এসেছে। বাড়িঘর, গাছ পড়ে, বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে রাজ্যে মৃত্যুর সংখ্যা বেড়েছে। মৃতদের পরিবারকে দুই লাখ ৫০ হাজার টাকা করে সাহায্য করা হবে।

তিনি আরও জানান, ঘূর্ণিঝড়ে পশ্চিমবঙ্গে প্রায় ১ লাখ কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে। দক্ষিণ ও উত্তর ২৪ পরগনা প্রায় ধ্বংস হয়ে গেছে। অনেক জায়গায় বিদ্যুৎ নেই।

Categories
পশ্চিমবঙ্গ

পশ্চিমবঙ্গে আম্পানের আঘাতে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৭২

ভয়েস রিপোর্ট: ভারতের পশ্চিমবঙ্গে ঘূর্ণিঝড় আম্পানের আঘাতে অন্তত ৭২ জন নিহত হয়েছে। বৃহস্পতিবার এ তথ্য জানানো হয়। বলা হয়েছে, ঘূর্ণিঝড়টি পশ্চিমবাংলায় আঘাত হানার পর দুর্বল হয়ে পড়েছে। পরে এটি ঘূর্নিঝড় হিসেবে বাংলাদেশে চলে গেছে। ঘূর্ণিঝড়ের তাণ্ডবে কয়েক হাজার গাছ, কুড়েঘর ও নিচু এলাকা প্লাবিত হয়েছে।

এদিকে, এদিন পশ্চিববঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি বলেন, ঘূর্ণিঝড় আম্পানের কারণে রাজ্যে ৭২ জনের প্রাণ হানি হয়েছে।যার মধ্যে ১৭ জন কলকাতার।

ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি টুইট বার্তায়, পশ্চিম বাংলা ও ওড়িশ্যার জন্য যথেষ্ট সাহায্য সহযোগিতার ঘোষণা দিয়েছেন। মোদি বলেন, চ্যালেঞ্জের এই সময় পশ্চিম বাংলার সঙ্গে গোটা ভারতবাসী সংহতি প্রকাশ করছে।

দেশটির জাতীয় দুযোর্গ ব্যবস্থপনা কর্তৃপক্ষ (এনডিএমএ) জানিয়েছে, সরকারের সবুজ সংকেত না পাওয়া পর্যন্ত বাইরে না যেতে পরামর্শ দিয়েছে।

ভারতের আবহাওয়া অধিদফতর বলছে, বিহারে বজ্রপাতের সঙ্গে বৃষ্টিসহ ঝড়ো বাতাস বইছে। এ ছাড়া অরুনাচল, আসাম ও মেঘালয়ের বিভিন্ন বিচ্ছিন্ন এলাকায় বজ্রপাত ও ঝড়ো বাতাস বইসে।

পশ্চিমবাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি মঙ্গলবার রাত থেকে রাজ্যের অবস্থা পর্যবেক্ষণ করছেন। তিনি আম্পানের ধ্বংসের প্রভাব করোনার চেয়ে বেশি ভয়াবহ উল্লেখ করেন। রাজ্যে ১ লাখ কোটি রুপির ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে তিনি দাবি করেন।