Categories
বিশ্ব

সোমালিয়ায় হোটেলে সন্ত্রাসী হামলায় নিহত ১৭

পশ্চিম আফ্রিকার দেশ সোমালিয়ার রাজধানী মোগাদিসুর একটি হোটেলে বন্দুকধারী সন্ত্রাসীরা ভয়াবহ হামলা চালিয়েছে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত এরইমধ্যে ১৭ জন নিহত হয়েছে এবং আহত হয়েছেন আরো অনেকে। আরও অনেককে হোটেলে জিম্মি করে রাখার খবরওে এসেছে।

১৬ আগস্ট রোববার মোগাদিসুর লিডো বিচ এলাকার এলিট হোটেলে এ হামলার ঘটনা ঘটে। এখনো কোনো জঙ্গী গোষ্ঠী এই হামলার দায় স্বীকার করেনি। তবে ধারণা করা হচ্ছে ন্যাক্কারজনক হামলায় জড়িত আল-কায়েদা সমর্থিত আল শাবাব।

আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরা জানিয়েছে, প্রথমে এক ভয়াবহ গাড়ি বোমা বিস্ফোরণ হয়। আর তাতেই হোটেলের গেট উড়ে যায়। এরপরই বন্দুকবাজরা ছুটে যায় হোটেলের দিকে। তারপরই পণবন্দি করা হয় সবাইকে। একাধিক যুবক ও মহিলা ছিল ভিতরে। তারা খাওয়া-দাওয়া করছিল সেখানে। সঙ্গে সঙ্গে ছুটে যায় অ্যাম্বুলেন্স ও নিরাপত্তারক্ষীরা।

হামলার পরপরই বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে হোটেলটি। এর বাইরে সেনাবাহিনীর গাড়ি অবস্থান নিতে দেখা গেছে। জিম্মি দশার কারণে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসতে দীর্ঘ সময় লাগতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

এ ঘটনায় দেশটির পুলিশ জানিয়েছে, নিহতদের মধ্যে দু’জন সরকারি কর্মকর্তা, তিনজন হোটেলের নিরাপত্তাকর্মী চারজন সাধারণ নাগরিক এবং তিন জন অজ্ঞাত রয়েছেন।

সোমালিয়ার তথ্য মন্ত্রণালয়ের এক মুখপাত্র জানিয়েছেন, নিরাপত্তা বাহিনী এ পর্যন্ত চার হামলাকারীকে হত্যা করতে পেরেছে।

ভয়েস টিভি/ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক/টিআর

Categories
বিশ্ব

ভারতে করোনায় মৃত্যু ৫০ হাজার ছুঁইছুঁই

ভারতে করোনা ভাইরাসে মৃত্যুর সংখ্যা ৫০ হাজার ছুঁইছুঁই। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা ভাইরাসে দেশটিতে মৃত্যু হয়েছে ৯৪৪ জনের। এনিয়ে দেশটিতে ৪৯ হাজার ৯৮০ জন করোনা রোগীর মৃত্যু হয়েছে।

আর ভারতে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে করোনা ভাইরাাসে আক্রান্ত হয়েছেন ৬৩ হাজার ৪৯০ জন। এতে দেশটিতে মোট করোনা রোগীর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২৫ লক্ষ ৮৯ হাজার ৬৮২ জনে।

গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে ৭ লক্ষ ৪৬ হাজার ৬০৮ জনের করোনা পরীক্ষা হয়েছে। এতে সংক্রমণের হার বেড়ে যাওয়ায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন অনেকে।

তবে সুস্থতার হার বৃদ্ধি পাওয়ায় খানিকটা হলেও স্বস্তি মিলেছে। দেশে করোনা আক্রান্ত ২৫ লক্ষ ৮৯ হাজার ৬৮২ জনের মধ্যে এখনও পর্যন্ত ১৮ লক্ষ ৬২ হাজার ২৫৮ জন রোগী সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে গিয়েছেন। এতে দেশটিতে এই মুহূর্তে মোট করোনা অ্যাক্টিভ রোগীর সংখ্যা ৬ লক্ষ ৭৭ হাজার ৪৪৪ জন।

সংক্রমণ ও মৃত্যু, দুইয়ের নিরিখেই শুরু থেকে দেশটিতে শীর্ষে রয়েছে মহারাষ্ট্র। এখন পর্যন্ত ওই রাজ্যের ৫ লক্ষ ৮৪ হাজার ৭৫৪ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।

মহারাষ্ট্রের পরেই রয়েছে তামিলনাড়ু। সেখানে এখন পর্যন্ত ৩ লক্ষ ৩২ হাজার ১০৫ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।

এদিকে দেশটিতে করোনায় মুত্য প্রায় ৫০ হাজার হওয়ায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন অনেকে। করোনার টিকা নিয়ে তাগিদ দিয়েছেন বিশিষ্টজনেরা।

ভয়েস টিভি/ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক/এসএফ

Categories
বিশ্ব

সৌদি রাজপুত্র আবদুল আজিজের মৃত্যু

সৌদি আরবের রাজপুত্র আবদুল আজিজ বিন আবদুল্লাহ বিন আবদুল আজিজ বিন তুর্কি আল সাউদ মৃত্যুবরণ করেছেন।

১৪ আগস্ট শুক্রবার তিনি মারা গেছেন বলে ১৫ আগস্ট শনিবার সৌদি বার্তা সংস্থা সৌদি গেজেট এ তথ্য নিশ্চিত করে। বার্তা সংস্থায় বলা হয়, শনিবার সৌদির রাজধানী রিয়াদে রাজপুত্রের জানাজা হওয়ার সিদ্ধান্ত হবে।

উল্লেখ্য, রাজপুত্র আবদুল আজিজ ১৯৬২ সালের ২৭ অক্টোবর রিয়াদে জম্মগ্রহণ করেন। সৌদি আরবের বাদশাহ আবদুল্লাহ বিন আবদুল আজিজের পঞ্চম পুত্র ছিলেন তিনি। রাজকুমারী আয়েদা ফুস্তুক ছিলেন তাঁর মা। বৃটেনের হার্ডফোর্ডশায়ার বিশ্ববিদ্যালয় থেকে রাষ্ট্রবিজ্ঞানে স্নাতক সম্পন্ন করেন। অর্থনীতি বিষয়েও ডিগ্রি অর্জন করেন তিনি।

১৯৯১ সাল থেকে সৌদি আরবের ন্যাশনাল গার্ডের বিভিন্ন পদে দায়িত্ব পালন শুরু করেন তিনি। যুবরাজ আবদুল্লাহ বিন আবদুল আজিজের উপদেষ্টা হিসেবেও কাজ করেন। ২০১১ সালে বাদশাহ আবদুল্লাহর পক্ষ থেকে উপ-পররাষ্ট্রমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন।

২০০৪ সালে সৌদি আরবের বাণিজ্যের উন্নতি-অগ্রগতির জন্য আবদুল আজিজ ‘সেন্টানিয়াল ফান্ড’ বা শতবর্ষ তহবিল গঠন করেন। রিয়াদের বিখ্যাত কিং আবদুল আজিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রাস্টি বোর্ডের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। এছাড়া ‘কিং আবদুল্লাহ বিন আবদুল আজিজ ইন্টারন্যাশনাল অ্যাওয়ার্ড ফর ট্রান্সলেশন’-এর ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন এ যুবরাজ।

ভয়েস টিভি/ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক/এসএফ

Categories
বিশ্ব

ট্রাম্পের ভাইয়ের মৃত্যু

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের ছোট ভাই রবার্ট ট্রাম্প (৭২) মারা গেছেন। স্থানীয় সময় শনিবার রাতে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প তার ভাইয়ের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

এর আগে ছোট ভাইকে হাসপাতালে দেখতে গিয়ে ট্রাম্প জানান, তার ছোট ভাই খুব খারাপ সময় পার করছেন। রবার্ট ট্রাম্প নিউইয়র্কের প্রেসবিটারিয়ান হসপিটালে চিকিৎসাধীন ছিলেন।

পরে শনিবার রাতে ট্রাম্প জানান, অত্যন্ত ভারাক্রান্ত মনে জানাচ্ছি আমার ভাই রবার্ট আজ রাতে আমাদের ছেড়ে চলে গেছেন।

ট্রাম্প বলেন, সে শুধু আমার ভাই ছিল না বরং সে ছিল আমার সবচেয়ে ভালো বন্ধু। তাকে সব সময় স্মরণ করা হবে। আমাদের আবার দেখা হবে। তার স্মৃতি সারাজীবন আমার হৃদয়ে থাকবে। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প তার ভাইকে উদ্দেশ্য করে বলেন, রবার্ট আমি তোমাকে ভালোবাসি। শান্তিতে থেকো।

প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের চেয়ে দুই বছরের ছোট ছিলেন রবার্ট ট্রাম্প।

এর আগে মার্কিন গণমাধ্যমে বলা হয় যে, রবার্ট ট্রাম্প (৭২) গুরুতর অসুস্থ। তবে তিনি কি ধরনের অসুস্থতায় ভুগছেন সে বিষয়ে নিশ্চিত করে কিছু বলা হয়নি। এমনকি প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পও জানাননি যে, রবার্ট কতদিন ধরে হাসপাতালে ভর্তি বা তিনি কী ধরনের অসুস্থতায় ভুগছিলেন।

ভয়েস টিভি/ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক/এসএফ

Categories
বিশ্ব

করোনায় মৃত্যু সংখ্যা ৭ লাখ ৬৩ হাজার ছাড়াল

বিশ্বজুড়ে থামছেই না করোনার তাণ্ডব। বাড়ছে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা। মৃত্যু তালিকায় নতুন করে যুক্ত হয়েছে সাড়ে ৫ হাজার মানুষ। আক্রান্ত হয়েছে বিশ্বের আরও পৌনে ৩ লাখের বেশি মানুষ। এতে করে বিশ্বে করোনাভাইরাসে শনাক্তের সংখ্যা প্রায় ২ কোটি ১৩ লাখ ৫৪ হাজার ছাড়িয়েছে। আর এ ভাইরাসে মোট আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৭ লাখ ৬৩ হাজারের বেশি মানুষ।

ওয়ার্ল্ডওমিটারের দেয়া তথ্যানুযায়ী, ১৫ আগস্ট শনিবার সকাল পর্যন্ত বিশ্বের বিভিন্ন দেশে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে ৭ লাখ ৬৩ হাজার ৩৫৩ জন। আর আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২ কোটি ১৩ লাখ ৫৪ হাজার ৬৮৯ জনে। এর মধ্যে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ১ কোটি ৪১ লাখ ৪৭ হাজার ৯২৫ জন।

বিশ্বে এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়ে সবচেয়ে বেশি মৃত্যু হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রে। দেশটিতে এখন পর্যন্ত করোনায় মারা গেছে ১ লাখ ৭১ হাজার ৫৩৫ জন। আর শনাক্ত হয়েছে ৫৪ লাখ ৭৬ হাজার ২৬৬ জন।

আর আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যায় দ্বিতীয় অবস্থানে আছে ব্রাজিল। দেশটিতে এখন পর্যন্ত শনাক্ত হয়েছে ৩২ লাখ ৭৮ হাজার ৮৯৫ জন। মারা গেছেন ১ লাখ ৬ হাজার ৫৭১ জন। ব্রাজিলের পরেই আছে মেক্সিকো। দেশটিতে এখন পর্যন্ত এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৫৫ হাজার ৯০৮ জন। আক্রান্ত হয়েছেন ৫ লাখ ১১ হাজার ৩৬৯ জন।

করোনায় আক্রান্তের দিক থেকে তৃতীয় অবস্থানে উঠে এসেছে ভারত। দেশটিতে করোনায় এ পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছেন ২৫ লাখ ২৫ হাজার ২২২ জন। মৃত্যুর দিক থেকে চতুর্থ অবস্থানে আছে দেশটি। এখন পর্যন্ত মারা গেছেন ৪৯ হাজার ১৩৪ জন। চতুর্থ অবস্থানে আছে রাশিয়া। দেশটিতে আক্রান্ত ৯ লাখ ১২ হাজার ৮২৩ জন। আর মৃতের সংখ্যা ১৫ হাজার ৪৯৮ জন।

আর যুক্তরাজ্যে সংক্রমিতের সংখ্যা ৩ লাখ ১৬ হাজারের বেশি। যেখানে মৃত্যু হয়েছে ৪৬ হাজার মানুষের।

সৌদি আরবে এখন পর্যন্ত করোনা রোগীর সংখ্যা ২ লাখ ৯৬ হাজার। এর মধ্যে প্রাণ হারিয়েছেন ৩ হাজার ৩৩৮ জন।

দক্ষিণ এশিয়ার দেশ পাকিস্তানে করোনার শিকার ২ লাখ ৮৭ হাজারের অধিক আর মৃত্যু হয়েছে ৬ হাজার ১৫৩ জনের।

আর বাংলাদেশে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের দেয়া তথ্যমতে, গতকাল শুক্রবার পর্যন্ত আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২ লাখ ৭১ হাজার ৮৮১ জনে। এর মধ্যে প্রাণহানি ঘটেছে ৩ হাজার ৫৯১ জনের।

গত বছরের ডিসেম্বরের শেষ দিকে চীনের হুবেই প্রদেশের উহান থেকে করোনাভাইরাস সংক্রমণ শুরু হয় পর এখন পর্যন্ত বিশ্বের ২১৫টি দেশে ও অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়েছে কোভিড-১৯।

ভয়েস টিভি/ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক/টিআর

Categories
বিশ্ব

ভারতের ৭৪তম স্বাধীনতা দিবসে আত্মনির্ভরতার ডাক মোদির

আজ ১৫ আগস্ট শনিবার ভারতের ৭৪তম স্বাধীনতা দিবস। দিবসটিতে লালকেল্লায় দাঁড়িয়ে জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বললেন, ভারতের ৭৫ তম স্বাধীনতা দিবসের আগে আমাদের আত্মনির্ভর হতেই হবে। এসময় পুরো দেশের কাছে আবারও তিনি তার স্লোগান ‘ভোকাল ফর লোকালের’ প্রতি মনযোগ দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন।

মোদী বলেন, প্রত্যেক ভারতীয়র স্বপ্ন স্বনির্ভর ভারত গড়ে তোলা। এই স্বপ্নকে এবার আমরা বাস্তবে পরিণত করব। তিনি আরও বলেন, এই করোনা মহামারির সময়ে ১৩০ কোটি ভারতীয় আত্মনির্ভর ভারত গড়ে তোলার স্বপ্ন দেখেছেন। আমি আত্মবিশ্বাসী যে ভারত তার স্বপ্নকে অনুভব করতে পেরেছে। আমরা একবার যখন একটা কিছু করব বলে ঠিক করি, তখন তা পূরণ না করা পর্যন্ত আমরা থামি না। আমার সহ-নাগরিকদের ক্ষমতা, আত্মবিশ্বাস এবং দক্ষতার ওপর আমার পূর্ণ আস্থা আছে।

দিল্লির লাল কেল্লা থেকে এ নিয়ে টানা ৭ বার প্রধানমন্ত্রী হিসেবে স্বাধীনতা দিবসের ভাষণ দিলেন নরেন্দ্র মোদি।

ভারত গড়ার প্রসঙ্গে মোদি বলেন, আমরা কতদিন আমাদের কাঁচামাল রফতানি করব আর প্রস্তুত দ্রব্য আমদানি করব? এই চক্র বন্ধ করার সময় এসে গেছে। ভারতকে এবার সেসব জিনিস তৈরি করতে হবে যা আমরা ব্যবহার করি। শুধু তাই নয়, তার সঙ্গে গোটা বিশ্বে প্রস্তুত দ্রব্য রফতানিও করব আমরা। তার মেক ইন ইন্ডিয়া স্লোগানে তিনি আরও একটু সংযুক্ত করে বলেন, মেক ইন ইন্ডিয়া, মেক ফর ওয়ার্ল্ড।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, এই করোনার মধ্যেও ভারতে প্রত্যক্ষ বিদেশি বিনিয়োগ বেড়েছে। এমনকি এফডিআই-এ ১৮ শতাংশ গ্রোথ হয়েছে। এর থেকে এটাই প্রমাণিত হয় যে, আমাদের ক্ষমতার ওপর পুরো বিশ্বের আস্থা রয়েছে। এসময় কৃষিতে আত্মনির্ভর হওয়ার জন্য কৃষকদের উন্নয়নের কথাও বলেছেন প্রধানমন্ত্রী।

ভয়েস টিভি/ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক/টিআর

Categories
বিশ্ব

ইসরাইল ও আমিরাত চুক্তি ফিলিস্তিনিদের জন্যে বিশ্বাসঘাতকতা

মার্কিন মধ্যস্থতায় ইহুদিবাদী ইসরাইল ও সংযুক্ত আরব আমিরাতের পূর্ণাঙ্গ কূটনৈতিক সম্পর্ক প্রতিষ্ঠায় যে চুক্তি করেছে তার কঠোর নিন্দা জানিয়ছে ইয়েমেনের বিদ্রোহী গ্রুপ হাউছি আনসারুল্লাহ আন্দোলন। ১৫ আগস্ট ইরানভিত্তিক সংবাদমাধ্যম পার্স টুডে এ নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে।

সংগঠনটির উদ্বৃতি দিয়ে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ‘আমিরাত ও ইসরাইলের মধ্যকার এ চুক্তি ফিলিস্তিনিদের জন্যে বিশ্বাসঘাতকতা ।

এতে বলা হয় ১৪ আগস্ট শুক্রবার প্রকাশিত এক বিবৃতিতে আনসারুল্লাহ আন্দোলনের পলিট ব্যুরো বলেছে, আমিরাত-ইসরাইল চুক্তির মধ্যদিয়ে কথিত আরব জাতীয়তাবাদের স্লোগানের অন্তঃসারশূন্যতা পরিষ্কার হয়েছে। অথচ সৌদি নেতৃত্বাধীন জোট আরব জাতীয়তাবাদের ধোয়া তুলে ইয়েমেনের ওপর আগ্রাসন চালাচ্ছে।

বিবৃতিতে বলা হয়েছে, সৌদি জোটে সংযুক্ত আরব আমিরাত হলো সক্রিয় সদস্য। সংযুক্ত আরব আমিরাত ভুল পথে চলা অব্যাহত রেখেছে, যা মূলত মুসলিম উম্মাহর বিরুদ্ধে আমেরিকা ও ইসরাইলের স্বার্থই রক্ষা করছে।

সংযুক্ত আরব আমিরাত দাবি করছে, ইসরাইলের সাথে সম্পর্ক স্বাভাবিক করলে মধ্যপ্রাচ্যে শান্তি-স্থিতিশীলতা প্রতিষ্ঠিত হবে। আনসারুল্লাহ আন্দোলন আমিরাতের এ দাবি ভুয়া বলে প্রত্যাখ্যান করেছে।

ভয়েস টিভি/ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক/ডিএইচ

Categories
বিশ্ব

‘গভীর কোমায়’ প্রণব মুখোপাধ্যায়

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ভারতের সাবেক রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায় ‘গভীর কোমায়’ চলে গেছেন। তার চিকিৎসকরা এ তথ্য জানিয়েছেন।

১৩ আগস্ট বৃহস্পতিবার এক বিবৃতিতে দিল্লির আর্মি হসপিটাল রিসার্চ অ্যান্ড রেফারেল কর্তৃপক্ষ জানায়, ‘সাবেক রাষ্ট্রপতির শারীরিক অবস্থার কোনো পরিবর্তন হয়নি। তিনি গভীর কোমায় আচ্ছন্ন। তবে শারীরিক অবস্থার অন্যান্য মাপকাঠি স্থিতিশীল অবস্থায় আছে। তাকে ভেন্টিলেশনেই রাখা হয়েছে।’

আগের দিন হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ‘প্রণবের অবস্থা সঙ্কটজনক’ জানানোর পর থেকে সাবেক এ রাষ্ট্রপতিকে নিয়ে মৃত্যুর গুজব ছড়াতে শুরু করে বলে আনন্দবাজারের এক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে।

এ নিয়ে প্রণবের পরিবারের সদস্য ও ঘনিষ্ঠরা বিরক্তিও প্রকাশ করেছেন।

টুইটারে প্রণবের মৃত্যু নিয়ে ছড়িয়ে পড়া গুজবের প্রতিক্রিয়ায় ছেলে অভিজিৎ মুখোপাধ্যায় বলেন, ‘আমার বাবা এখনও জীবিত। তার শরীরে রক্ত সঞ্চালন, রক্তচাপ স্থিতিশীল।’

গত রোববার রাতে শৌচাগারে পড়ে গিয়ে মাথায় আঘাত পান প্রণব মুখোপাধ্যায়। পরদিন সকাল থেকে তার স্নায়ুঘটিত সমস্যাও দেখা দেয়।

পরে চিকিৎসকের পরামর্শে দিল্লির আর্মি হসপিটাল রিসার্চ অ্যান্ড রেফারেলে ভর্তি হন তিনি। এমআরআই স্ক্যানে মাথার ভেতরে জমাট বাঁধা রক্তের অস্তিত্ব ধরা পড়ে, যা আঘাতের ফলেই হয়েছে বলে চিকিৎসকদের মত। পরে জরুরিভিত্তিতে অস্ত্রোপচারের সিদ্ধান্ত নেন তারা।

অস্ত্রোপচারের প্রস্তুতি পর্বে প্রয়োজনীয় স্বাস্থ্য পরীক্ষা করতে গিয়েই তার কোভিড-১৯ ধরা পড়ে। তারপরও সোমবার রাতেই অস্ত্রোপচার সম্পন্ন হয়। এরপর থেকেই ভেন্টিলেশনে আছেন প্রণব মুখোপাধ্যায়।

তার পরিস্থিতির ওপর নজর রাখতে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের নিয়ে একটি মেডিকেল বোর্ড গঠন করে রিসার্চ অ্যান্ড রেফারেলে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

ভয়েস টিভি/ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক/এসএফ

Categories
বিশ্ব

দেশে ফিরে আসা ৭০ ভাগ প্রবাসীর জীবিকা সংকটে

ঢাকা করো প্রকোপে ফেব্রুয়ারি থেকে জুন পর্যন্ত এই ৬ মাসে বিদেশফেরত বাংলাদেশিদের ওপর গবেষণা চালিয়ে এ তথ্য দিয়েছে আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থা (আইওএম)। ১০ আগস্ট সোমবার আইওএম এক ভার্চুয়াল ব্রিফিংয়ে গবেষণার এ ফলাফল তুলে ধরে। বাংলাদেশ এবং আঞ্চলিক পর্যায়ের জাতিসংঘের বিভিন্ন সংস্থা, আন্তর্জাতিক ও বেসরকারি এবং স্থানীয় সংস্থা, এবং শিক্ষা সংস্থার অংশীদারগণ এই ব্রিফিং-এ অংশ নেন।

বাংলাদেশ সরকারের সঙ্গে সমন্বয় করে মোট ১ হাজার ৪৮৬ জন বিদেশফেরত অভিবাসীদের ওপর পরিচালিত জরিপের ফলাফলের ভিত্তিতে প্রতিবেদনটি প্রকাশ করে আইওএম। ইউরোপীয় ইউনিয়নের অর্থায়নে ‘রিজিওনাল এভিডেন্স ফর মাইগ্রেশন এনালাইসিস অ্যান্ড পলিসি (রিমেপ)’ প্রকল্পের আওতায় মে এবং জুলাই মাসে দেশের ১২টি উচ্চ অভিবাসন প্রবণ জেলায় এই জরিপ পরিচালনা করা হয়, যার মধ্যে সাতটি জেলায় ভারতের সঙ্গে সীমান্ত রয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, ফেরত আসা অভিবাসীরা জীবিকা, আর্থিক সংকট (উপার্জনের অভাব এবং বর্ধিত ঋণ) এবং স্বাস্থ্য সংক্রান্ত বিষয়সহ পুনঃরেকত্রীকরণে নানা ধরণের সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছেন। একেকজন অভিবাসী কর্মী গড়ে তার পরিবারের তিনজন সদস্যকে সহায়তা প্রদান করে থাকেন।

সেক্ষেত্রে, অপরিকল্পিত ও বৃহৎ সংখ্যক জীবিকাহীন অভিবাসী কর্মীদের ফেরত আসার ফলে সারাদেশে রেমিটেন্স নির্ভর জনগোষ্ঠীর ওপরও বিরূপ প্রভাব পড়ছে।

কোভিড-১৯ এর প্রভাবে অভিবাসী কর্মীদের সুনির্দিষ্টভাবে বিপদাপন্নতা তৈরী হয়েছে। কোভিড-১৯ এর কারণে উপার্জন ব্যবস্থা, সামাজিক সেবা, স্বাস্থ্যসেবা এবং সামাজিক সহায়তার নেটওয়ার্কের অভাবে হাজারো অভিবাসী কর্মী প্রবাসে যে দেশে কাজ করছিলেন সেখানে থেকে বাংলাদেশে তাদের জেলায় ফিরে আসতে বাধ্য হন। মোট ৬৪ শতাংশ আন্তর্জাতিক অভিবাসী উল্লেখ করেন যে, কোভিড-১৯ এর প্রাদুর্ভাবে তাদের কর্মস্থল দেশে তথ্য এবং স্বাস্থ্যসেবা পেতে তাদের সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়।

জরিপে অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে মোট ২৯ শতাংশ বলেছেন, যে দেশে তারা ছিলেন, সেই দেশের সরকার তাদেরকে বাংলাদেশে ফেরত আসতে বলে। ২৩ শতাংশ জানান, তারা কোভিড-১৯ নিয়ে দুশ্চিন্তায় ছিলেন এবং পরিবারের কাছে ফেরত আসতে চেয়েছেন। অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে ২৬ শতাংশ জানান, তাদের পরিবার তাদের ফেরত আসতে বলায় তারা ফিরে এসেছেন। ৯ শতাংশ জানান, তাদেরকে বলা হয়েছে সীমান্ত বন্ধ করে দেয়া হবে। ফলে আটকে পড়ার ভয়ে তারা ফেরত এসেছেন।

প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, সাক্ষাৎকার প্রদানের সময় মোট ৫৫ শতাংশ জানান, তাদের ওপর শোধ না করা বর্ধিত ঋণের বোঝা রয়েছে। তাদের মধ্যে ৫৫ শতাংশ পরিবার ও বন্ধুর কাছে ঋণগ্রস্ত, ৪৪ শতাংশ ক্ষুদ্র ঋণপ্রদানকারী প্রতিষ্ঠান (এমএফআই), স্বনির্ভর দল এবং বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কাছে ঋণগ্রস্ত। ১৫ শতাংশ পাওনাদারদের কাছে ঋণগ্রস্ত। পরিবার এবং বন্ধুদের কাছ থেকে ঋণ গ্রহণকারীদের ৮৬ শতাংশ বিনাসুদে ঋণ নিয়েছেন, অন্যদিকে এমএফআই, এনজিও এবং বেসরকারি ব্যাংকসমূহ থেকে গৃহিত ৬৫ শতাংশকে ঋণের জন্য সুদ বহন করতে হচ্ছে ১০-১৫ শতাংশ। মহাজন বা সুদে টাকা ধার দেন এমন ব্যক্তিদের কাছ থেকে নেয়া ঋণের ক্ষেত্রে ৬২ শতাংশ ঋণগ্রহীতাকে সুদ গুনতে হচ্ছে ৫০ থেকে ১৫০ শতাংশ।

সাক্ষাৎকারে অংশগ্রহণকারীরা তাদের ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা সম্পর্কে জিজ্ঞেস করা হলে প্রায় ৭৫ শতাংশ জানান, তারা আবার অভিবাসনে আগ্রহী। তাদের মধ্যে ৯৭ শতাংশই কোভিড-১৯ প্রাদুর্ভাবের পূর্বে যে দেশে কাজ করতেন, সেই দেশেই পুনরায় অভিবাসনে ইচ্ছুক। অপরদিকে, ৬০ শতাংশ অংশগ্রহণকারী আরো ভালো বেতনের চাকরি নিশ্চিতে তাদের দক্ষতা বৃদ্ধিতে আগ্রহী।

আইওএম বাংলাদেশ-এর মিশন প্রধান গিওরগি গিগাওরি বলেন, কোভিড-১৯ মহামারির সময় সবচেয়ে বিপদাপন্ন গোষ্ঠীদের মধ্যে রয়েছেন অভিবাসী কর্মীরা। বৈশ্বিক চলাচলের ওপর আরোপিত নতুন নিষেধাজ্ঞা এবং কোভিড-১৯ মহামারি সৃষ্ট মন্দার ফলে বিরূপ প্রভাব পড়ছে বাংলাদেশের অভিবাসী কর্মী এবং রেমিট্যান্স নির্ভর জনগোষ্ঠীর ওপর।

তিনি বলেন, বাংলাদেশে জাতিসংঘের অভিবাসন বিষয়ক নেটওয়ার্কের সমন্বয়ক হিসেবে আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থা (আইওএম) বাংলাদেশে এবং বাংলাদেশ থেকে অভিবাসন বিষয়ক গবেষণায় অবদান রাখতে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ। এই গবেষণা বিদেশফেরত অভিবাসীদের টেকসই পুনঃরেকত্রীকরণে প্রমাণ-ভিত্তিক কৌশল তৈরীতে সরকারি প্রচেষ্টাকে সাহায্য করবে।
ভয়েংস টিভি/ডিএইজ

Categories
বিশ্ব

অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট নিয়ে ঝুঁকিতে বাংলাদেশ

ঢাকা: লেবাননে ভয়ানক বিস্ফোরণের পর দেশে অ্যামোনিয়াম নাইট্রেটের মতো বিপজ্জনক রাসায়নিক পদার্থ আমদানি ও গুদামজাত নিয়ে ঝুঁকিতে বাংলাদেশ। এর অন্যতম কারণ দেশে বিপজ্জনক এসব রাসায়নিক পদার্থ আমদানি ও গুদামজাত করা হচ্ছে কীনা তা তদারকি করার জন্য কর্মকর্তা রয়েছেন মাত্র পাঁচ জন।

লেবাননের রাজধানী বৈরুতের বিস্ফোরণের পরপরই বাংলাদেশে এর ঝুঁকি সম্পর্কে সতর্ক করেছে বিস্ফোরক পরিদপ্তর। বিস্ফোরক পরিদপ্তরের প্রধান মো. মঞ্জুরুল হাফিজ জানান, বৈরুতের ঘটনার পর সারা দেশে বিভাগীয় কমিশনার, জেলা প্রশাসক, স্থল, নৌ ও বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষকে চিঠি দিয়ে পরামর্শ দেয়া হয়েছে অ্যামোনিয়াম নাইট্রেটের মতো নিয়ন্ত্রিত পদার্থ আমদানি হলে তা যেন অতিদ্রুত বন্দর এলাকা থেকে সরিয়ে ফেলা হয়।

সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বলছেন, এই রাসায়নিক গুদামজাত করার জন্য দেশের বন্দরগুলোতে কোন নিরাপদ ব্যবস্থাও নেই। সেই সাথে ছাড়পত্র পাওয়া আমদানির বাইরে স্থানীয়ভাবে অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট উৎপাদন করা হচ্ছে কীনা, কিংবা সেগুলো নিরাপদভাবে বিক্রি, পরিবহণ কিংবা গুদামজাত করা হচ্ছে কীনা, সে সম্পর্কে কর্মকর্তারা কোন তথ্য দিতে পারেনি।

বাংলাদেশ সরকারের বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের বিস্ফোরক পরিদপ্তরের দায়িত্ব হচ্ছে এধরনের দাহ্য পদার্থের আমদানির অনুমতি দেয়া এবং নিরাপদভাবে এগুলো সংরক্ষিত হচ্ছে কিনা তা দেখা। কিন্তু অপ্রতুল জনবলের কারণে দায়িত্বপালনে অনেকটা হিমশিম খেতে হচ্ছে।

২০১৯ সালে ঢাকার চকবাজরের চুড়হাট্টায় রাসায়নিকের গুদাম থেকে আগুন লাগে। পরে বিস্ফোরক পরিদপ্তর থেকে জানা গেছে, ঢাকায় দুজন এবং চট্টগ্রাম, খুলনা এবং রাজশাহীতে একজন করে বিস্ফোরক পরিদর্শক কাজ করছেন। এসব জায়গায় দু-একজন করে সহকারী পরিদর্শকও রয়েছেন।

এদিকে আরও জানা গেছে, অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট’র গুদামের স্থানও অনেক সময় গোপন রাখা হয়। তার কারণ ১৯৭০-এর দশক থেকে ঘরে তৈরি বোমা বা হাতবোমা তৈরির উপাদান হিসেবে এটা ব্যবহৃত হয়ে আসছে। সন্ত্রাসবাদীদের মধ্যে অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট তাই বেশ জনপ্রিয়।

উল্লেখ্য, লেবাননের রাজধানী বৈরুতের নৌ-বন্দরের কাছে অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট গুদামে ভয়ানক বিস্ফোরণের পর বিশ্বজুড়ে এই দাহ্য পদার্থের নিরাপত্তা নিয়ে উদ্বেগ তৈরি হয়েছে। বিস্ফোরণে মারা গেছে ২০০ জনেরও বেশি মানুষ। নিহতের তালিকায় আছে অন্তত চার বাংলাদেশি। পাশাপাশি ওই ঘটনায় বাংলাদেশ নৌবাহিনীর অন্তত ২১জন সদস্য আহত হন এবং নৌবাহিনীর একটি জাহাজ ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

ভয়েস টিভি/ নিজস্ব প্রতিবেদক/ টিআর