Categories
বিশ্ব

বিমান থেকে মাথায় পড়ল মলমূত্র!

বিমান থেকে এক ব্যক্তির মাথায় পড়েছে মলমূত্র। শুনতে অবাক লাগলেও এমন ঘটনা ঘটেছে যুক্তরাজ্যের উইন্ডসর শহরে। শুধু ওই ব্যক্তির মাথায়ই নয় তার পুরো বাগান ছেয়ে গেছে বর্জ্যে। চলতি বছরের জুলাইয়ে এই ঘটনাটি বিবিসির একটি প্রতিবেদনে উঠে এসেছে।

সম্প্রতি স্থানীয় কাউন্সিলর কারেন ডেভিস উইন্ডসর এবং মেডেনহেডের অ্যাভিয়েশন ফোরামে বিষয়টি উত্থাপন করলে তা গণমাধ্যমে উঠে আসে।

বিবিসিকে ওই ব্যক্তি বলেন, ‘উড়ে যাওয়া বিমান থেকে ফেলা মলমূত্র ওই ব্যক্তির পুরো বাগান, বাগানের ছাতা, এমনকি উনার শরীরেও লেগে যায়। আমি জানি বিমান থেকে প্রতিবছর হিমায়িত মনুষ্যবর্জ্য ফেলার ঘটনা ঘটে। কিন্তু এই মনুষ্যবর্জ্য মোটেও হিমায়িত ছিল না। ওই ব্যক্তির পুরো বাগান একদম অপ্রীতিকরভাবে মনুষ্যবর্জ্যে মাখামাখি হয়ে যায়। এরপর ওই ব্যক্তি তার বাগান থেকে ভয়াবহ অভিজ্ঞতা নিয়ে ফেরেন।’

সাধারণত বিমানে বিশেষ ট্যাংকে মানুষের মলমূত্র সংগ্রহ করা হয়। এসব বর্জ্য অপসারণ করা হয় বিমান অবতরণের পর। তবে অনেক সময় হিমায়িত করেও উড়ন্ত বিমান থেকে এসব বর্জ্য ফেলে দেওয়া হয়।

ইটন ও ক্যাসলের কাউন্সিলর জন বাউডেন জানিয়েছেন, সেদিন গরম আবহাওয়ার কারণে হিমায়িত না হয়েই ওই ব্যক্তির ওপর মলমূত্র পড়েছে। এই রকম ঘটনা কোটিতে একবার ঘটে।

ভয়েস টিভি/এসএফ

Categories
বিশ্ব

সিরিয়ায় বনভূমিতে আগুন দেয়ায় ২৪ জনের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর

বনভূমি ধ্বংসের অভিযোগে ২৪ জনের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করেছে সিরিয়া। দেশটির দাবি, অভিযুক্ত এসব ব্যক্তি বনাঞ্চলে আগুন ধরিয়ে দিয়েছিলেন এবং এর ফলে বিস্তৃত এলাকাজুড়ে অবস্থিত বন ও গাছপালা পুড়ে নষ্ট হয়ে যায়। এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়েছে বার্তাসংস্থা রয়টার্স।

সিরিয়ার বিচার মন্ত্রণালয় বৃহস্পতিবার জানিয়েছে, মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা অভিযুক্ত এসব ব্যক্তিরা জঙ্গলে আগুন ধরিয়ে দিয়েছিলেন এবং এর ফলে বিস্তৃত বনভূমি আগুনে পুড়ে ধ্বংস হয়ে যায়। আগুনে পুড়ে যাওয়া বনের বেশিরভাগই সিরিয়ার উপকূলীয় প্রদেশ লাতাকিয়ার মধ্যে পড়েছে।

মন্ত্রণালয় বলছে, ওই এলাকাটিতে দেশটির প্রেসিডেন্ট বাশার আল আসাদের পৈত্রিক বাড়ি অবস্থিত রয়েছে।

বিচার মন্ত্রণালয় আরও জানিয়েছে, গত বুধবার এসব অপরাধীর মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়। তাদের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রীয় অবকাঠামো, সরকারি এবং বেসরকারি সম্পত্তি ধ্বংসে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে লিপ্ত হওয়ার অভিযোগ আনা হয়। এছাড়া একই অভিযোগে আরও ১১ জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছে দেশটি।

রয়টার্স বলছে, ২০২০ সালের সেপ্টেম্বরের শুরুতে বনের গাছে আগুন ধরিয়ে দেওয়ার ঘটনা ঘটে এবং অক্টোবরের মাঝামাঝি পর্যন্ত সেটি চলমান ছিল। পরে কয়েক ডজন অভিযুক্তকে আটক করে সিরীয় সরকার। দেশটির বিচার মন্ত্রণালয়ের দাবি, অভিযুক্তরা নিজেদের দোষ স্বীকার করেছিলেন।

ভয়েস টিভি/এমএম

Categories
বিশ্ব

মুহাম্মাদ (সা.) এর জন্মদিনে ইরানে বিমান মহড়া

‘ইয়া মুহাম্মাদ রাসুলুল্লাহ (সা.)’ সাংকেতিক নামে বিশাল বিমান মহড়া শুরু করেছে ইরান। ইরানের সেনাবাহিনীর প্রধান মেজর জেনারেল সাইয়্যেদ আব্দুর রহিম মুসাভিসহ পদস্থ সামরিক কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে ২১ অক্টোবর বৃহস্পতিবার এই মহড়ার উদ্বোধন করা হয়।

পুরো ইরান জুড়ে এই বিশাল সামরিক মহড়া অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এই মহড়ায় যুক্ত হয়েছে ইরানের পাঁচটি সামরিক বিমানঘাঁটি এবং কয়েক ডজন জঙ্গিবিমান, বোমারু বিমান, সামরিক পরিবহন বিমান ও গোয়েন্দা বিমানসহ বিভিন্ন ধরনের বিমান ও ড্রোন অংশ নিচ্ছে।

এই মহড়ায় বোয়িং-৭০৭ এবং ৭৪৭ থেকে জ্বালানি সরবরাহ করার অনুশীলন চালানোর কথা রয়েছে।

এছাড়া দেশটিতে তৈরি কারার, কিয়ান, আবাবিল, আরাশ ও কামান নামের ড্রোন ব্যবহার করা হচ্ছে। এসব ড্রোনে রকেট, প্রিসিশন-গাইডেড মিসাইল, দীর্ঘ পাল্লার স্মার্ট বোমা ও রাডারে জ্যাম সৃষ্টিকারী যন্ত্রপাতি বসানো আছে। মহড়ায় অংশ নেয়া পাঁচটি ঘাঁটির মধ্যে ইস্ফাহান প্রদেশের শহীদ বাবায়ি ঘাঁটি ও উত্তর আজারবাইজান প্রদেশের শহীদ ফাকুরি বিমানঘাঁটি রয়েছে।

ইরানের সেনাবাহিনীর বিমান ইউনিটের উপ-প্রধান মেহদি হাদিয়ান বলেছেন, কখনো যুদ্ধ করতে হলে যাতে শত্রুদের সহজেই নাস্তানাবুদ করা যায় সে ধরণের প্রস্তুতিই সম্পন্ন করা হচ্ছে এই মহড়ায়।

ভয়েস টিভি/এসএফ

Categories
বিশ্ব ভিডিও সংবাদ

৫৭ বছরেও আবেদনময়ী নীতা আম্বানি ফের আলোচনায়

নীতা আম্বানি, পৃথিবীর অন্যতম ধনাঢ্য ও এশিয়ার সব থেকে ধনী মুকেশ আম্বানির স্ত্রী। আমাদের দেশে যেখানে ৪০ পেরোতেই নারীরা বুড়িয়ে যান, সেখানে রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রিজের মালিকের স্ত্রী ৫৭ বছরের নীতা আম্বানি বারবার আবেদনময়ী রূপে হাজির হন সবার সামনে। এই রূপের রহস্য তা হলে কি ?

নীতা আম্বানি পুরো বিশ্বের পরিচিত মুখ। তিনি পৃথিবীর প্রভাবশালী নারীদের তালিকায় রয়েছেন। আইপিএলে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের মালিকও এই আম্বানি পরিবার। তাই মুম্বাইয়ের খেলার সময় গ্যালারি মাতিয়ে রাখেন নীতা আম্বানি। এই ৫৭ বছর বয়সেও তার রূপ নজর কাড়ে সবার। তিনি প্রায়ই বিভিন্ন কারণে আলোচনায় থাকেন। একবার স্টাইলিশ হ্যান্ড ব্যাগের জন্য আলোচনায় এসেছিলেন তিনি। তার ওই ব্যাগ ছিল কুমিরের চামড়ার তৈরি। শুধু তাই নয়, ১৮ ক্যারেটের সোনার পাশাপাশি ওই ব্যাগে রয়েছে ২৪০টি হিরা! আর যার দাম ২ কোটি ২০ লাখ টাকারও বেশি। এবার আলোচনায় এসেছেন দামী পানি পান নিয়ে ।

আম্বানি পত্নী, তিনি তো আর অন্য সাধারণ কারো মতো পানীয় জল পান করতে পারেন না । তিনি পান করেন স্বর্ণ মিশ্রিত পানি। আর এ পানিই নাকি তার রূপের আসল রহস্য! কি বন্ধুরা অবাক হচ্ছেন ।

আপনিই বলেন এক লিটার পানির দাম কতো আর হতে পারে! বড়জোর ১ হাজার! না, তিনি তো আর যে সে ব্যক্তি নয় তিনি তো নীতা অম্বানি। তার ৭৫০ মিলিলিটার পানির দাম আপনার কল্পনাকেও হার মানাবে, চোখ কপালে উঠবে। দাবি করা হয়, নীতা নাকি বিশ্বের সবচেয়ে দামি পানি পান করেন। তার ৭৫০ মিলিলিটার পানির বোতলের দাম প্রায় ৬০ হাজার ডলার। যা বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ৫০ লাখ টাকা। তা হলে এবার হিসেব করে নিন, নীতার এক ঢোক জলের দাম কত পড়ে!

দাম তো না হয় জানলেন। কিন্তু এ পানির কেন এত দাম বা কোন কম্পানির পানি পান করেন তিনি, এবার সেই বিষয়টাও একটু জেনে নেয়া যাক। স্বাস্থ্যকে তরতাজা রাখতে যে পানি নীতা পান করেন তার নাম ‘অ্যাকোয়া ডি ক্রিস্টালো ট্রিবিউটো আ মডিগলিয়ানি’। এটি বিশ্বের সবচেয়ে দামি পানির মধ্যে একটি। বোতলবন্দি ওই পানি আসে ফ্রান্স এবং ফিজি থেকে। দাবি করা হয়, এই পানিতে ৫ গ্রাম গোল্ডের ছাই মেলানো থাকে। যা মানবদেহের পক্ষে খুবই স্বাস্থ্যকর। সে জন্যই এই পানির দাম অর্ধ কোটি টাকা।

তবে শুধু পানির জন্যই দাম এত বেশি তা নয়। নীতা আম্বানি যে পানি পান করেন সেই পানির বোতলের দামও কিন্তু চড়া। ২০১০ সালে ‘অ্যাকোয়া ডি ক্রিস্টালো ট্রিবিউটো আ মদিগ্লিয়ানি’ গিনেস বুকে বিশ্বের সবচেয়ে দামি পানির বোতল হিসেবে খ্যাতি পায়। বোতলের নকশা তৈরি করেছিলেন ফার্নান্দো আলতামিরানো। চামড়ার খাপে থাকে এই বোতল। এই ব্র্যান্ডের সবচেয়ে সস্তা বোতলের দাম ২২ হাজার টাকা।

ভয়েসেটিভি/এসএফ/এএস

Categories
বিশ্ব

প্রিয়াঙ্কা গান্ধীর সঙ্গে সেলফি তুলে শাস্তির মুখে নারী কনস্টেবল

আগ্রায় পুলিশ হেফাজতে মৃত সাফাইকর্মীর পরিবারের সঙ্গে দেখা করতে যান কংগ্রেস নেত্রী প্রিয়াঙ্কা গান্ধী। সেই সময় তার সঙ্গে সেলফি তুলতে দেখা যায় বেশ কয়েকজন নারী পুলিশ কনস্টেবলকে। দেখতে দেখতে ভাইরাল হয়ে যায় সেই ছবি। যার ফলে এবার শাস্তির মুখে পড়তে চলেছেন ওই কনস্টেবলররা।

ছবিতে দেখা গেছে, কংগ্রেস নেত্রী ও মহিলা কনস্টেবলরা সবাই মিলে হাসিমুখে ছবি তুলছেন। যা নিয়ে শুরু হয়েছে বিতর্ক। লখনউয়ের পুলিশ কমিশনার ডি কে ঠাকুর এক সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন, প্রিয়াঙ্কা গান্ধীর সঙ্গে যে নারী কনস্টেবলরা ছবি তুলেছেন তাদের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ করা হবে। এই সংবাদ জানতে পেরে ক্ষোভ উগরে দিয়েছেন প্রিয়াঙ্কা।

তিনি জানিয়েছেন, ”যদি আমার সঙ্গে ছবি তোলা অপরাধ হয়, তাহলে আমাকে শাস্তি দেয়া হোক। ওই নারী কনস্টেবলদের অভিযুক্ত করা হচ্ছে কেন?”

পরে টুইটারেও সরকারকে কটাক্ষ করতে ছাড়েননি প্রিয়ঙ্কা। তিনি লেখেন, ”শোনা যাচ্ছে ছবিটি দেখে যোগীজি ক্ষুণ্ণ হয়েছেন বলেই ওই নারী পুলিশকর্মীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে উদ্যোগী হয়েছেন। যদি আমার সঙ্গে ছবি তোলাটা অপরাধ হয়, তাহলে আমাকেও শাস্তি দেয়া হোক। সরকার এভাবে কর্মঠ ও বিশ্বাসী পুলিশকর্মীদের ক্যারিয়ার নষ্ট করতে পারে না।”

গত মঙ্গলবার রাতেই পুলিশি জেরা চলাকালীন অরুণ বাল্মীকি নামে আগ্রার এক সাফাইকর্মীর মৃত্যু হয়। পুলিশ সূত্রের খবর, মঙ্গলবার জিজ্ঞাসাবাদ চলাকালীন হঠাৎই অসুস্থ হয়ে পড়েন তিনি। তারপরই তার মৃত্যু হয়। বুধবার বাল্মীকি জয়ন্তীতে মৃত ওই সাফাইকর্মীর পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে দেখা করতে যান প্রিয়াঙ্কা। কিন্তু আগ্রার পুলিশ আধিকারিকরা মাঝরাস্তায় তাকে আটকে দেন। তবে ঘণ্টা দুয়েক পরে তাকে অনুমতি দেয়া হয়। শেষ পর্যন্ত তাকে জানানো হয়, তিনি চারজনকে নিয়ে ওখানে যেতে পারেন। কেননা এলাকায় ১৪৪ ধারা জারি রয়েছে। পরে প্রিয়াঙ্কা নিহতের পরিবারের সঙ্গে দেখা করে তাদের সবরকম সাহায্যের আশ্বাস দেন।

ভয়েস টিভি/এসএফ

Categories
বিশ্ব

শূকরের কিডনি মানবদেহে প্রতিস্থান

মানবদেহে সফলভাবে প্রতিস্থাপিত হলো শূকরের কিডনি। যে রোগীর দেহে এটি প্রতিস্থাপিত হয়েছে তাঁর শরীরে স্বাভাবিকভাবেই কাজ করছে সেই কিডনি। তাৎক্ষণিকভাবে এতে রোগীর প্রতিরোধ ক্ষমতায় কোনও প্রতিক্রিয়া দেখা যায়নি। সম্ভাব্য বড় এই অগ্রগতি প্রতিস্থাপনের জন্য মানুষের অঙ্গের মারাত্মক সংকট নিরসনে সহায়তা করবে বলে আশা করা হচ্ছে। সেই সাথে এই অস্ত্রোপচার চিকিৎসাবিজ্ঞানের ক্ষেত্রে বড় মাইল ফলক হয়ে থাকবে বলেই মনে করছেন মার্কিন চিকিৎসকেরা।

অসুস্থ কিডনি রোগীদের চিকিৎসার ক্ষেত্রে নতুন সম্ভাবনার দুয়ার উন্মোচিত হতে যাচ্ছে বলে ধারনা করা হচ্ছে ।

জটিল প্রক্রিয়াটি সম্পন্ন হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্ক সিটির ‘এনওয়াইইউ ল্যাংগোন হেলথ’ হাসপাতালে। তবে এই অস্ত্রোপচারের আগে শূকরের জিন পালটে দেওয়া হয়েছিল।

নিউ ইয়র্কে যে নারীর দেহে ওই কিডনি প্রতিস্থাপন করা হয়েছে আগে থেকে তাঁর ব্রেইন ডেড ছিল। লাইফ সাপোর্টে থাকা ওই নারীর কিডনিও নষ্ট হয়ে গিয়েছিল। তাই তাঁর পরিবারের অনুমতি নিয়েই এই কিডনি প্রতিস্থাপন করা হয়। প্রাথমিকভাবে চিকিৎসকেরা ওই নারীর পেটের বাইরে পায়ের ওপরের অংশে কিডনিটি রেখে রক্তনালির সঙ্গে যুক্ত করে দেওয়া হয়। তার পর তাঁকে তিন দিন ধরে পর্যবেক্ষণ করা হয়।

অস্ত্রোপচারের নেতৃত্বে থাকা সার্জন ড. রবার্ট মন্টগোমারি বলেন, “প্রতিস্থাপনের পর স্বাভাবিকভাবে কাজ করেছে নতুন কিডনি। মানুষের কিডনি যে পরিমাণ মূত্র নিষ্কাশনের তৈরি করে শূকরের কিডনি একই কাজ করছে।

এই চিকিৎসক আরও জানিয়েছেন, কিডনি গ্রহীতার দেহে ক্রিয়েটিনিনের মাত্রা অস্বাভাবিক ছিল। যা কিডনি প্রতিস্থাপনের পর স্বাভাবিক হয়েছে।

এই চিকিৎসকেরা গত কয়েক দশক ধরেই পশু দেহ থেকে মানবদেহে অঙ্গ প্রতিস্থাপনের সম্ভাবনা নিয়ে কাজ করছিলেন। কিন্তু মূল সমস্যা ছিল, মানবদেহ যাতে তাৎক্ষণিকভাবে সেই অঙ্গ প্রত্যাখ্যান না করে, তা নিশ্চিত করা। এবার সেটাই করে দেখালেন তাঁরা।

নিউইয়র্কের গবেষকেরা জানিয়েছেন, তাঁরা শূকরের জিন বিন্যাস থেকে আলফা-গ্যাল নামে একটি অংশ বাদ দেন। জিনের এই অংশ শর্করা তৈরি করত। এই পরীক্ষামূলক প্রতিস্থাপন চিকিৎসাক্ষেত্রে নয়া দিগন্ত খুলে দিল বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

ভয়েসটিভি/এএস

Categories
বিশ্ব

নেপালে আকস্মিক বন্যা ও ভূমিধস, নিহত ৪৩

টানা তিন দিনের ভারি বর্ষণে নেপালে আকস্মিক বন্যা ও ভূমিধসে ৪৩ জন নিহত এবং ৩০ জন নিখোঁজ রয়েছেন বলে জানান দেশটির পুলিশ। পুলিশের মুখপাত্র বসন্ত কুমারের বরাত দিয়ে বার্তাসংস্থা রয়টার্স বুধবার জানায়, প্রাকৃতিক এই বিপর্যয়ের ফলে দুই ডজনেরও বেশি মানুষ আহত হয়েছেন। তাদের বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

বৃষ্টির কারণে পাহাড়ি এই দেশটিতে  সৃষ্ট বন্যায় রাজধানী কাঠমান্ডু থেকে ৩৫০ কিলোমিটার পশ্চিমের সেতি গ্রামে দুই দিন ধরে ৬০ জন মানুষ আটকে আছেন বলেও জানান তিনি।

পুলিশ মুখপাত্র বসন্ত কুমার বলেন, বিরূপ আবহাওয়া এবং একটানা বৃষ্টির কারণে উদ্ধারকর্মীরা গতকাল গ্রামটিতে কোনোভাবে যেতে পারেনি। আজ গিয়ে তাদের উদ্ধারের চেষ্টা চলছে।

নেপালের টেলিভিশনের খবরে জানানো হয়, পানির তোড়ে ফসল তলিয়ে কিংবা ভেসে যেতে দেখা গেছে। নদীর পানি বেড়ে ঘরবাড়ি, রাস্তাঘাট, সেতু ভাসিয়ে নিয়ে গেছে।

বর্ষা মৌসুমে নেপালে এমন আকস্মিক বন্যা ও ভূমিধস দেখা যায়। দেশটিতে সাধারণত জুনের মাঝামাঝি সময় থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত এমন আবহাওয়া থাকে। চলতি অক্টোবরেও তেমন আবহাওয়া দেখা দিয়েছে।

আগামী কয়েক দিন আরও বৃষ্টি হতে পারে বলেও সতর্ক করেছে নেপালের আবহাওয়া দপ্তর।

‘ডিপার্টমেন্ট অব হাইড্রোলজি অ্যান্ড মেটেওরোলজি’ আগামী দুই দিনের আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলেছে, কিছু কিছু স্থানে ভারি বৃষ্টি এবং পূর্বের পার্বত্য এলাকায় হালকা থেকে মাঝারি তুষারপাতের সম্ভাবনা রয়েছে।

আরও পড়ুন : ভিয়েতনামে টাইফুনের পর ভূমিধস, নিহত ২৫

ভয়েস টিভি/এমএম

Categories
বিশ্ব

ফিলিস্তিনে পুলিশের ক্ষমতা আরও বৃদ্ধির উদ্যোগ ইসরায়েলের

ফিলিস্তিনের এলাকাগুলোতে ইসরায়েলি পুলিশের ক্ষমতা আরও বাড়ানোর উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। ইসরায়েল দখলদাররা ফিলিস্তিনিদের বিরুদ্ধে তল্লাশি-অভিযানে পুলিশ বাহিনীকে মাত্রাতিরিক্ত ক্ষমতা দিয়েছে বলে অভিযোগ রয়েছে। এবার যদি তাদের নতুন উদ্যোগ কার্যকর হয় তাহলে কোনো ধরনের ওয়ারেন্ট ছাড়াই ফিলিস্তিনিদের ঘরে ঢুকে তল্লাশি চালাতে পারবে ইসরায়েলি পুলিশ। খবর আল জাজিরার।

ইসরায়েলি মিডিয়াগুলো জানিয়েছে, গত রোববার ১৭ অক্টোবর পুলিশ বাহিনীর ক্ষমতাবৃদ্ধির একটি বিলে অনুমোদন দিয়েছে ইসরায়েলের মন্ত্রিসভা।

প্রস্তাবনায় বলা হয়েছে, ইসরায়েলি পুলিশ যদি মনে করে, তারা কোনো বাড়িতে ঢুকলে গুরুতর অপরাধে জড়িত সন্দেহভাজনকে আটক অথবা এ সংক্রান্ত প্রমাণ জোগাড় করতে পারবে, তাহলে সেখানে প্রবেশে আদালতের পূর্বঅনুমতির দরকার হবে না।

মন্ত্রিসভায় অনুমোদনের পর বিলটি ইসরায়েলি পার্লামেন্টে তোলা হবে। সেখানে সংখ্যাগরিষ্ঠ ভোটে অনুমোদন পেলে সেটি আইনে পরিণত করা হবে।

এদিকে, ইসরায়েলি পুলিশের ক্ষমতাবৃদ্ধির এ পরিকল্পনার তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছে ফিলিস্তিনবাসী। ফিলিস্তিনিরা আশঙ্কা করছে- এর ফলে ফিলিস্তিনিদের ওপর দখলদারদের অত্যাচার-নির্যাতন বহুগুণ ছাড়িয়ে যাবে।

ইসরায়েলের ভেতরে ফিলিস্তিনিদের প্রধান আইনি সুরক্ষা সংস্থা আদালাহ’র প্রতিষ্ঠাতা ও পরিচালক হাসান জাবরিন বলেছেন, এই বিল ইসরায়েলি পুলিশকে ফিলিস্তিনিদের বাড়িতে ঢোকার অজুহাত তৈরি করে দেবে। এই ক্ষমতা ফিলিস্তিনিদের ভয় দেখাতে, বিশেষ করে প্রতিবাদ-বিক্ষোভের সময় মারাত্মক অপব্যবহার হতে পারে বলে মনে করেন তিনি।

রাজনৈতিক লেখক ও ন্যাশনাল ডেমোক্র্যাটিক অ্যালায়েন্স পার্টির সাবেক সাধারণ সম্পাদক আওদ আবদেলফাতাহ বলেন, এটি ফিলিস্তিনিদের জন্য উত্তেজনাকর পরিস্থিতি সৃষ্টি করবে। তিনি বলেন, এটি আমাদের স্বাধীনতাকে সীমাবদ্ধ করবে এবং আমাদের আরও কঠোর নজরদারির মধ্যে রাখবে।

ভয়েস টিভি/এমএম

Categories
বিশ্ব

বিশ্বে করোনায় মৃত্যু বেড়েছে

বিশ্বে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় ৮ হাজার ৬৩৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ সময়ে নতুন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে ৪ লাখ ৬২ হাজার ৪৬৮ জন।

এর আগের ২৪ ঘণ্টায় ৬ হাজার ৮২ জনের মৃত্যু হয় এবং নতুন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছিল ৩ লাখ ৯০ হাজার ৬০২ জন।

২০ অক্টোবর বুধবার সকাল সোয়া ৮টায় আন্তর্জাতিক পরিসংখ্যানভিত্তিক ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটার থেকে এসব তথ্য জানা যায়।

সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, করোনাভাইরাসে বিশ্বে এ পর্যন্ত ৪৯ লাখ ২৮ হাজার ৮১১ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ পর্যন্ত রোগী শনাক্ত হয়েছে ২৪ কোটি ২৩ লাখ ২৪ হাজার ২৭২ জন। আর বিশ্বব্যাপী করোনা থেকে সেরে উঠেছেন ২১ কোটি ৯৬ লাখ ৭০ হাজার ৪৬০ জন।

করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত দেশের তালিকায় সবার উপরে থাকা যুক্তরাষ্ট্রে গত ২৪ ঘণ্টায় প্রায় ৯৫ হাজারের বেশি মানুষ আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন এবং মৃত্যু হয়েছে প্রায় দুই হাজার ২০০ জনের। যুক্তরাষ্ট্রে এ পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন চার কোটি ৫৯ লাখ ৯৬ হাজার ৫০৭ জন। এর মধ্যে মারা গেছেন সাত লাখ ৪৮ হাজার ৬৫২ জন।

তালিকায় দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা ভারতে এ পর্যন্ত তিন কোটি ৪১ লাখ ৮ হাজার ৩২৩ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এখন পর্যন্ত দেশটিতে মৃত্যু হয়েছে চার লাখ ৫২ হাজার ৬৮৪ জনের।

তালিকার তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে লাতিন আমেরিকার দেশ ব্রাজিল। দেশটিতে করোনা শনাক্ত হয়েছে দুই কোটি ১৬ লাখ ৬৪ হাজার ৮৭৯ জনের। এর মধ্যে ছয় লাখ তিন হাজার ৯০২ জন মারা গেছেন।

তালিকায় এরপরের স্থানগুলোতে রয়েছে যুক্তরাজ্য, রাশিয়া, তুরস্ক, ফ্রান্স, ইরান, আর্জেন্টিনা ও স্পেন।

ভয়েস টিভি/এসএফ

Categories
বিশ্ব ভিডিও সংবাদ

নোবেল পুরস্কার পেয়েও গ্রহণ করেননি যাঁরা

এ যাবৎকালে বিশ্বের সবচেয়ে মর্যাদাপূর্ণ ও মূল্যবান অ্যাওয়ার্ড বলতে নোবেল পুরস্কারকে বুঝানো হয়। কার স্বপ্ন নেই এই সম্মাননার। পুরো বিশ্ব মুখিয়ে থাকে এ পুরস্কার ঘোষণার আশায়। তবে আর্শ্চের বিষয় হলোও সত্য অন্তত দুইজন নোবেল বিজেতা হয়েও তা গ্রহণে সরাসরি অস্বীকৃতি জানান।

কেউ আবার জনপ্রিয়তার ভয়ে নোবেল পুরস্কার নিতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে। আবার কয়েকজন নোবেল পুরস্কার পেয়েও তা নিতে পারেনি। আবার নিয়েও তা প্রত্যাখ্যানের দাবি জানিয়েছে। আজ জানাবো তাদের কথা-

১৯৬৪ সালের অক্টোবর মাসে সাহিত্যে নোবেল প্রাইজ বিজেতা জাঁ পল সাত্রে পুরষ্কার নিতে অস্বীকার করেন। ৫৯ বছর বয়সী এই সাহিত্যিকের বক্তব্য ছিল তিনি সব সময় আনুষ্ঠানিক সম্মান গ্রহণ পছন্দ করতে না। কারণ তিনি ‘প্রাতিষ্ঠানিক রূপে’ পরিচিত হয়ে উঠতে চান না। তিনি জানান নোবেল গ্রহণে অস্বীকারের পেছনে তাঁর একটি ভীতিও কাজ করছে, যে এরপরে তাঁর লেখায় হয়ত সীমাবদ্ধতা চলে আসবে। তার পরে তিনি তাঁর সিদ্ধান্তের জন্য ক্ষমা প্রার্থনা করেন।

এ সাহিত্যিক প্রসঙ্গে নোবেল কমিটি মতামতে জানায় – “জাঁ পল সাত্রে তাঁর কাজের অবদান আমাদের ধারণায় সমৃদ্ধ এবং স্বাধীনতার চেতনা ও সত্যের সন্ধানে ভরা। যা আমাদের সবার মনে সুদূরপ্রসারী প্রভাব ফেলেছে।”

আরও পড়ুন : নোবেল পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠান বাতিল

ভিয়েতনামে শান্তি চুক্তি সম্পাদনের জন্য ‘লা ডাক থো’ এবং ‘ইউ এস সেক্রেটারি অফ স্টেট হেনরি কিসিঙ্গার’কে যৌথভাবে ১৯৭৩ সালের নোবেল শান্তি পুরষ্কার দেয়া হয়। তবে লা ডক থো জানান, তিনি নোবেল প্রাইজ গ্রহণ করার অবস্থায় নেই কারণ ভিয়েতনামের পরিস্থিতি তখনও শান্ত ছিল না।

অ্যাডলফ হিটলারের আপত্তিতে জার্মানির রিচার্ড কুন, অ্যাডলফ বুটেন্ড ও গেরহার্ড ডোম্যাগ নোবেল প্রাইজ পেয়েও নিতে পারেননি। রিচার্ড কুন ১৯৩৮ সালে রসায়নে নোবেল প্রাইজ পান। পরের বছর অ্যাডলফ বুটেন্ডও রসায়নে নোবেল পান। তিনি সেক্স হরমোন নিয়ে কাজ করলেও পরবর্তীকালে মেডেল ও ডিপ্লোমা গ্রহণ করেছিলেন। ওই একই বছর শারীরবিদ্যা বা মেডিসিনে নোবেল প্রাইজ পেয়েছিলেন।

১৯৫৮ সালে বরিস পাস্তেরনাক সাহিত্যে নোবেল পান। কিন্তু পরবর্তীকালে সোভিয়েত ইউনিয়ন কর্তৃপক্ষের দ্বারা নিগৃহীত হলে তা প্রত্যাখ্যানের সিদ্ধান্ত নেন। তাঁর সাহিত্যকীর্তি সম্পর্কে বলা হয়েছিল- ” সমসাময়িক গীতিকবিতা ও রাশিয়ান মহাকাব্য ঐতিহ্যের ক্ষেত্রে তাঁর গুরুত্বপূর্ণ কৃতিত্ব রয়েছে। তাই তাঁকে নোবেল পুরস্কারে মনোনিত করা হয়।”

তিনজন নোবেল বিজেতা পুরষ্কার প্রদানের সময় গ্রেফতার ছিলেন বলে তা গ্রহণ করতে পারেননি। এরা হলেন কার্ল ভন অসিটেস্কি, আং সান সু কি এবং লিউ জিয়াবো। তবে কার্ল ভন ১৯৩৫ সালে নোবেল শান্তি পুরষ্কার পেলেও এক বছর পর তা গ্রহণ করেন। লিউ জিয়াবো- এই কাজের স্বীকৃতি সরূপ ২০১০ সালে নোবেল শান্তি পুরষ্কার পান।

আধুনিক কোয়ান্টাম তত্ত্বের জনক বিজ্ঞানী ‘পল ডিরাক’ ছিলেন চরম পরিমাণে ইন্ট্রোভার্ট। উনাকে নোবেল পুরষ্কারের জন্য মনোনীত করা হলে জনপ্রিয়তার ভয়ে উনি তা নিতে অস্বীকৃতি জানিয়েছিরেন। তারপর উনাকে বুঝানো হয় সে যদি নোবেল না নেন তাহলে ইতিহাসের প্রথম ব্যাক্তি হিসেবে নোবেল নিতে অস্বীকৃতি জানিয়ে আরো বেশি বিখ্যাত হয়ে যাবেন। তখন বাধ্য হয়ে তিনি নোবেল পুরষ্কার গ্রহণ করেন।